কওমি মাদরাসা নিয়ে সরকারের টার্গেট!

প্রকাশিত: ৮:৫১ পূর্বাহ্ণ, মে ৩, ২০২০

কওমি মাদরাসা নিয়ে সরকারের টার্গেট!

সিলেটরিপোর্টঃঃ দেশের প্রখ্যাত হাদীস বিশারদ,দার্শনিক আলেম,জামিয়া মাদানিয়া বারিধা, ঢাকার শায়খুলহাদীস মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক সাম্প্রতিক সময়ে দেশ ও জাতির উদ্দেশ্যে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য দিয়েছেন। যা তার ফেসবু আইডি থেকে প্রচারিত হয়েছে। সিলেটরিপোর্ট এর পাঠকদের উদ্দেশ্যেে এখানে একটি বক্তব্য হুবহু তুলে ধরা হলোঃ
পৃথিবীতে যেকোনো দেশের সরকার তার নিজস্ব একটা টার্গেট নিয়ে চলে। আমাদের সরকারও নির্দিষ্ট কিছু টার্গেট নিয়ে এগুচ্ছে। শিক্ষা ক্ষেত্রে আমাদের সরকারের টার্গেট হলো এদেশে এক শিক্ষানীতি হবে، একই ধারার শিক্ষা চলবে, ভিন্ন কোন শিক্ষাধারা থাকবেনা। আমাদের শিক্ষানীতিতে তা সুস্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে। শিক্ষানীতির ভুমিকায় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এই শিক্ষানীতি পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করা হবে। এই টার্গেটকেই সামনে রেখে কওমী মাদরাসার স্বীকৃতি।
এই টার্গেটকে সামনে রেখে উলামাদের সাথে সরকারের প্রেম-ভালোবাসা।
এই টার্গেটকেই সামনে রেখে হজ্ব-উমরা।
এই টার্গেটকেই সামনে রেখে ত্রাণ ও হাদিয়া-তোহফা।

২০১৩ সালে শাহবাগে দুই মাস একাধারে নাস্তিক মুরতাদদের ইসলাম বিরোধী প্রোগ্রাম সরকারের তত্বাবধানে চলছিলো, আর তার বিরোধিতা করার কারণে শাপলা চত্বরে উলামাদের উপর কারবালার ঘটনা ঘটানো হয়েছিলো। তারপর হাজার হাজার উলামাদের উপর খুন, গাছকাটা, গাড়ী ও কোরআন শরিফ পোড়ানোর মামলা-মোকদ্দমা দায়ের করা হলো। সব মুকাদ্দামা এখনো বহাল তবিয়তে সংরক্ষিত, কোন আলিমের কোন কেইস খতম করা হয়নি।

এই কেইসের বেড়ি পায়ে লাগিয়ে স্বীকৃতি, শুকরিয়া মাহফিল, হজ্ব, হাদিয়া ও ত্রাণ, সবই চলছে। এসব প্রেম-ভালোবাসা নাকি উদ্দেশ্য প্রনোদিত, তানিয়ে কিছুক্ষণ চিন্তা করবেন কি?

যেহুতু সরকার কওমীধারাকে বিলুপ্ত করে অভিন্ন শিক্ষা চালু করতে চায়। কিন্তু আমাদের সাথে সরকারের কোন সম্পর্ক নেই। তাই কওমীধারা খতম করার দুই রাস্তা কিংবা শাপলা চত্বরের মতো চায়না বা রাশিয়ায় যেভাবে মাদরাসাগুলোকে বিলুপ্ত করা হয়েছিলো, এই এক রাস্তা। দ্বিতীয় রাস্তা, আমাদের সাথে সুসম্পর্ক করে কওমীধারাকে বিলুপ্ত করা, তাই সরকার প্রথম রাস্তা পরিহার করে দ্বিতীয় রাস্তা অবলম্বন করে। এই উদ্দেশ্যে সরকার আমাদের সাথে সুসম্পর্ক জুড়তে চায়। তাই তার ‘স্বীকৃতি’ নামক মেয়েকে আমাদের ছেলেদের সাথে বিয়ে দিয়ে আমাদের সাথে বেয়াই হওয়ার সম্পর্ক স্থাপন করে। এখন আর বেয়াই বাড়ী যাওয়া-আসা, বেয়াইকে গিফট করা, হজ্বে নেওয়া, ত্রাণ দেওয়া ইত্যাদিতে আর কোন বাঁধা থাকলো না।

সরকার কওমীধারার ট্রেনকে তার তৈরী করা সিল পাটের উপর উঠিয়ে নিয়েছে এখন ইঞ্জিন দ্বারা টেনে টেনে তার গন্তব্য স্থানে নিয়ে যাবে। আর বেয়াইদের অবস্থা, দই-রশগোল্লা খাচ্ছে আর কুলকুলী হাসছে। আহা এত ভদ্র হাতিমতাইর মতো বেয়াই পেয়েছি।

বর্তমানে আমাদের অবস্থা ওই বোয়াল মাছের মতো যে শিকারির বর্ষিতে বেঙ্গ দেখে নাছতেছে আর তেলাওয়াত করছে..
والله يرزق من يشاء بغيرحساب
তারতো এই খবর নেই যে, এই বেঙ্গ তার জন্য রিজিক নয় বরং এটা তার জীবন নাসের ব্যাবস্থা।

শপলা চত্বরে আমাদের নিরপরাধ সাথী-সঙ্গি ও ছেলেদের খুনিদের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করা ও তাদের হাদিয়া-তোহফা গ্রহণ করা কোন মর্যাদাশীল, বিবেকবান, গায়রতমনদ আলিমদের জন্য মোটেই সম্ভব না।
হে মাওলায়ে কারীম আমাদের কওমী মাদরাসাগুলোকে হেফাজত করুন। হে আল্লাহ আমরা জালে আবদ্ধ হয়ে গেছি, তবে আপনি বলেছেন,
ومكروا ومكرالله والله خيرالماكرين
তাই আপনি আপনার কুদরত দ্বারা আমাদেরকে “বেয়াই ভাইরাস” এর সংক্রমণ থেকে হেফাজত করুন। আমিন

এই সংবাদটি 577 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com