শুক্রবার, ২৫ নভে ২০১৬ ১০:১১ ঘণ্টা

জেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা,যাঁরা মনোনয়ন পেলেন

Share Button

জেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা,যাঁরা মনোনয়ন পেলেন

ডেস্ক রিপোর্ট:
আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৬১ জেলায় প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছে সরকারি দল আওয়ামী লীগ। শুক্রবার রাতে গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এই প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেন। আগামী ২৮ ডিসেম্বর এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিচ্ছে না বলে আগেই ঘোষণা দিয়েছে। এজন্য এই নির্বাচন নিয়ে তেমন কোনো উত্তাপ নেই। তবে সরকারি দলের প্রার্থী কেন হচ্ছেন সেটা নিয়ে রয়েছে ব্যাপক কৌতূহল। যারা মনোনয়ন পাবেন তারাই যে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হচ্ছেন সেটা অনেকটা নিশ্চিত। তিন পার্বত্য জেলা বাদে দেশের ৬১টি জেলা পরিষদে এই নির্বাচন হবে।

যাঁরা মনোনয়ন পেলেন

পঞ্চগড়ে আবু বক্কর সিদ্দিক, ঠাকুরগাঁওয়ে সাদেক কৌরাইশী, নীলফামারীতে মমতাজ উদ্দিন, কুড়িগ্রামে জাফর আলী, গাইবান্ধায় শামসুল আলম, লালমনিরহাটে মতিয়ার রহমান, দিনাজপুরে আজিজুল ইসলাম চৌধুরী, রংপুরে সাফিয়া খানম, পাবনায় রেজাউল রহিম লাল, চাঁপাইনবাবগঞ্জে মাইনুদ্দিন মন্ডল, বগুড়ায় মকবুল হোসেন, নাটোরে সাজেদুর রহমান খান, জয়পুরহাটে আরিফুর রহমান, রাজশাহীতে মাহবুব জামান, নওগাঁয় একে এম ফজলে রাব্বী, সিরাজগঞ্জে আবদুল লতিফ বিশ্বাস, বাগেরহাটে শেখ কামরুজ্জামান, যশোরে শাহ হাদি উজ জামান, কুষ্টিয়ায় রবিউল ইসলাম, সাতক্ষীরায় মনসুর আহমেদ, মেহেরপুরে মিয়া জান আলী, চুয়াডাঙ্গায় মাহফুজুর রহমান, খুলনায় হারুনুর রশীদ, নড়াইলে আইয়ুব আলী, মাগুড়ায় পঙ্কজ কুমার, ঝিনাইদহে কনক কান্তি, বড়গুনায় দেলোয়ার হোসেন, বরিশালে আলতাফ হোসেন, পিরোজপুরে শাহে আলম, ভোলায় আবদুল মোমিন টুলু, পটুয়াখালীতে মোশাররফ হোসেন, ঝালকাঠিতে শাহ আলম, টাঙ্গাইলে ফজলুর রহমান, মানিকগঞ্জে গোলাম মহি, ঢাকায় মাহবুবুর রহমান, মুন্সিগঞ্জে মহিউদ্দিন আহমেদ, গাজীপুরে আক্তারুজ্জামান, কিশোরগঞ্জে জিল্লুর রহমান, নরসিংদীতে আসাদুর রহমান, ফরিদপুরে লোকমান মৃধা, রাজবাড়িতে আবদুল জব্বার, শরীয়তপুরে সাজেদুর রহমান, নারায়ণগঞ্জে আনোয়ার হোসেন, ময়মনসিংহে ইউসুফ খান পাঠান, শেরপুরে চন্দন কুমার, জামালপুরে এইচ আর জাহিদ, নেত্রকোণায় প্রশান্ত, মৌলভীবাজারে আজিজুর রহমান, সুনামগঞ্জে এনামুল কবীর ইমন, চট্টগ্রামে আব্দুচ ছালাম, নোয়াখালীতে জাফরুল্লাহ, কক্সবাজারে মোশতাক আহমেদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এমদাদুল বারী, লক্ষীপুরে শামসুল ইসলাম, কুমিল্লায় আবু তাহের, ফেনীতে আজিজ আহমেদ চৌধুরী, চাঁদপুরে আবু ওসমান চৌধুরী।

নির্বাচন পদ্ধতি

জেলা পরিষদ আইন অনুযায়ী একজন চেয়ারম্যান, ১৫ জন সদস্য ও সংরক্ষিত আসনের পাঁচজন নারী সদস্য নিয়ে জেলা পরিষদ গঠন হবে। এজন্য প্রতিটি জেলাকে ১৫টি ওয়ার্ডে ভাগ করা হয়েছে। প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে ভোটকেন্দ্র রাখা হবে।

২৫ বছর বয়সী যেকোনো ভোটার জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন, তবে ভোট দিতে পারবেন না। ভোটাধিকার থাকবে কেবল জেলার অন্তর্ভুক্ত সিটি/পৌর মেয়র ও কাউন্সিলর, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের। আর প্রার্থীর প্রস্তাবক-সমর্থক হতে হবে তাদেরই।

জেলা পরিষদ নির্বাচন করার জন্য গত ৬ অক্টোবর জেলা পরিষদ আইন সংশোধন করে সংসদে বিল পাস হয়। ২০০০ সালের জেলা পরিষদ আইনে পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের সাময়িক বরখাস্তের বিধান ছিল না। নতুন আইনে আদালতে চেয়ারম্যান ও সদস্যদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলায় অভিযোগপত্র গৃহীত হওয়া সাপেক্ষে সাময়িক বরখাস্তের বিধান রাখা হয়েছে। এ ছাড়া আগের আইনে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যানদের জেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোট দেয়ার সুযোগ ছিল না। এখন তারা ভোট দিতে পারবেন। ওই আইনে বলা হয়েছে নির্বাচন করতে চাইলে জেলা পরিষদের বর্তমান প্রশাসকদের পদ ছাড়তে হবে।

সরকার ২০১১ সালের ১৫ ডিসেম্বর পার্বত্য চট্টগ্রামের তিনটি জেলা বাদে বাকি ৬১টি জেলা পরিষদে দলীয় নেতাদের প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ দেয়। তখন স্থানীয় সরকার বিভাগসহ সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিরা বলেছিলেন, ছয় মাসের মধ্যে নির্বাচন দিয়ে জেলা পরিষদ গঠন করা হবে। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে অনির্বাচিত প্রশাসক দিয়ে চলছে জেলা পরিষদ। ডিসেম্বরে নির্বাচন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে জেলা পরিষদ পাবে নির্বাচিত প্রশাসক।

এই সংবাদটি 1,055 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com