৫মে ট্রাজেডিঃ শহীদ আনোয়ার শাহ মওদুদ ভাল থাক জান্নাতে

প্রকাশিত: ৫:৪৯ অপরাহ্ণ, মে ৫, ২০২০

৫মে ট্রাজেডিঃ শহীদ আনোয়ার শাহ মওদুদ ভাল থাক জান্নাতে

মাওলানা শাহ মমশাদ আহমদঃ

ওসমানীনগর থানাধীন বর্তমান শেরপুর সেতুর স্থানেই শেরপুর ফেরীঘাট ছিল।ফেরীঘাটের ইনচার্জ আবুল হাসানাত ভাই একজন আল্লাহওয়ালা দ্বীনদার যুবক।আলেম উলামার ভক্ত।ফেরী যাতায়াতের সুযোগে তৎকালীন দেশসেরা আলেমদের সাথে ছিল তার মধুর সম্পর্ক।

আমার আব্বাজান ফাজিলে দেওবন্দ হযরত মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম রহ.ছিলেন শেরপুর বাজার জামে মসজিদের ইমাম।আবুল হাসানাত ভাই শ্রদ্ধার সাথে আব্বাকে খুব মুহাব্বাত করতেন।আব্বাও তাকে নিজ সন্তানের মত ভালবাসতেন।আমাদের শ্রদ্ধেয় বড়ভাই,সমাজসেবক হাফেজ শাহ ফুজায়েল আহমদ তার ঘনিষ্ট বন্ধু।সে সুবাধে গড়ে উঠে আমাদের পারিবারিক সম্পর্ক, আত্মার আত্মীয়তা।

শেরপুর সেতু হওয়ার পর তিনি চাকরির কারণে চট্টগ্রামে স্তানান্তরিত হয়ে যান কিন্তু আন্তরিক সম্পর্কে কোন ছেদ পড়েনি।দু এক মাস পরপরই আমাদের বাড়িতে আসতেন।একদিন দুপুরবেলা আসলেন।হাস্যমুখ দেখে আব্বা বললেন,হাসানাত কিতা খবর? কোন খুশির সংবাদ না কিতা?
বললেন, গতকাল আমার আরেক ছেলে দুনিয়াতে এসেছে, আপনাকে নাম রেখে দিতে হবে।আব্বা নাম রাখলেন আনোয়ার শাহ মওদুদ।
শান্তশিষ্ট, গম্ভীর মেজাজের,তুখোড় মেধাবী মওদুদ প্রতি ক্লাসে মেধার স্বাক্ষর রেখে লেখাপড়া করে।হিফয ও শেষ করে।দাওরায়ে হাদীস পড়ার জন্য জামেয়া মালিবাগে ভর্তি হয়।

২০১৩সালে হেফাজতে ইসলামের নাস্তিক -মুর্তাদ বিরুধী আন্দোলনে সেই শান্তশিষ্ট মওদুদই হয়ে গেল অগ্নিস্ফুলিঙ্গ। ৫ই মে ফজরের নামাজ রাজপথে আদায় করে অবরোধে অংশ গ্রহণ করে।

বিকাল ৩টা,আমাকে ফোন দিল।কাকা,আপনি কোথায়? বললাম,যাত্রাবাড়ী মোড়ে।সে বলল,শাপলা চত্বরে আসেন,দেখা হবে ইনশাআল্লাহ, এটাই ছিল তার সাথে আমার শেষ কথা।

আমার প্রিয় ভাগ্না মাওলানা আহমদ রুম্মান,প্রিয় ভাতিজা হাফিজ শাহ আদিব ও শাহ সাকিবের সাথে মওদুদের বন্ধুত্বের সম্পর্ক ছিল।সে প্রতি রমজানে আমাদের বাড়ীতে অবস্থান করে তারাবীহ পড়াত।তাদের মোবাইল করে বারবার সতর্ক থাকার তাগিদ দিয়েছে।

বিকাল৫ টা। আমার আম্মাকে ফোন করে বলেছে,দাদু দোয়া করবেন,গোলাগুলি চলছে।
রাত ১১টায় আবুল হাসানাত ভাইয়ের ফোন রিসিভ করলাম।খুবই মমতার সাথে আমার কৌশলাদি জিজ্ঞাসা করলেন,খোজখবর নিলেন।শান্তভাবে বললেন, আলহামদুলিল্লাহ একটি সুসংবাদ।আমি শহীদের পিতা,মওদুদ শাহাদাত বরণ করেছে।আমি তো হতভম্ব, শহীদের পিতারা কি এমনি হয়? আল্লাহ তাদের অন্তর প্রশান্ত করে দেন।নিজ সন্তানের গুলিতে ঝাঝড়া দেহ দেখেও তিনি শান্ত ছিলেন।

আজ ৫ই মে।এদিবসটিতে নিজকে খুব স্বার্থপর ভেবে ধিক্কার দেই।মওদুদ’ রাসুলের ইজ্বত রক্ষায় শাহাদাত বরণ করল,আমরা কি করেছি? পরিবেশ – পরিস্থিতি আর হেকমতের দোহাই কি দিয়েই যাবো! প্রিয় মওদুদ,তুমি ভাল থাক জান্নাতের পাখি হয়ে।

এই সংবাদটি 138 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com