র সমাবেশে জামায়াতের ভূমিকা একটা বড় প্রশ্ন?

প্রকাশিত: ৪:২৭ অপরাহ্ণ, মে ৭, ২০২০

র সমাবেশে জামায়াতের ভূমিকা একটা বড় প্রশ্ন?

সাইমুম সাদীঃ

হেফাজতে ইসলামের সমাবেশে সেদিন জামায়াত কি কারণে ভুমিকা রেখেছিলো এটা একটা বড় প্রশ্ন। এখানে জামায়াতের পলিটিক্যালি কোনো লাভ কি ছিলো? আমি যতটুকু বুঝি একটা পলিটিক্যাল দল হিসেবে জামায়াত সেটা করতেই পারে। কারণ শাহবাগকে রুখতে হলে একটা হেফাজতের মত নন পলিটিক্যাল অথচ ধর্মীয় ব্যানারকে সামনে রেখে ভেতর থেকে কাজ করতে পারলে তা দলের জন্য সুবিধাজনক ছিলো। যেসব মোল্লা মওলভীকে সারাক্ষণ হেয় করা হত, যারা ব্লগ দিয়ে ইন্টারনেট চালাত তারা যেভাবে সমুদ্রের ঢেউয়ের মত একের পর এক রাজধানীর দিকে আসতে লাগলো তাকে ডাইভার্ট করতে পারলে ভালোই তো হয়। এটা একটা পলিটিকাল হিসেব নিকেশ।

এবং তা থাকতেই পারে। কিন্তু সত্য কথা হলো জামায়াত কিছু কিছু ক্ষেত্রে ঐতিহাসিক এমন কিছু ভুল এবং অদুরদর্শীতার প্রমান দিয়েছে যা নিজেদের জন্য আত্মঘাতী এবং নিজেদের অস্তিত্বকে টান দিয়েছে কখনো কখনো। তন্মধ্যে একটা হচ্ছে আওয়ামিলীগের সাথে একসাথে আন্দোলনে করেছে জামায়াত , কেয়ারটেকার সরকারের জন্য বিএনপির সরকারের বিরুদ্ধে আওয়ামিলীগের সাথে মিলে লড়াই করেছে জামায়াত । ছিয়ান্নব্বইয়ে আওয়ামিলীগের সাথে মিলেমিশে কেয়ারটেকার আন্দোলন করে এবং সফল হয়ে বিজয় মিছিলও করে। যে আওয়ামিলীগ দীর্ঘদিন ক্ষমতায় ছিলনা জামায়াতের সহায়তায় ক্ষমতায় আসে এবং আসার পর ঘোষণা দেয় যুদ্ধাপরাধীদের ফাসি কার্যকর করবে। আওয়ামিলীগ একটা পলিটিক্যাল দল হিসেবে জামায়াতকে ইউজ করতেই পারে। এবং এখান ও তাই করেছে। একটা প্রশ্ন আসতে পারে, জামায়াত তো একটা শক্তিশালী সংগঠন তারা কিভাবে ইউজ হলো? আসলে জামায়াতের লিডারশীপ আসে ছাত্র সংগঠন থেকে। ছাত্র সংগঠন এবং গণ সংগঠন আরও ক্লিয়ারলি রাজনীতি খুবই আলাদা জিনিস। একজন অতি ভালো মানের সংগঠক হওয়ার পরেও তিনি যোগ্য রাজনীতিবিদ নাও হতে পারেন। রাজনীতি এবং দল আলাদা জিনিস। ঘটনা হচ্ছে আওয়ামিলীগ ক্ষমতায় আসার তিন বছর পর যখন বললো, আমরা যুদ্ধাপরাধীদের ফাসি কার্যকর করব, তখন উনারা বুঝতে পারলাম ভুল হয়ে গেছে, কিন্তু ততক্ষণে যা হবার হয়ে গেছে।

আমি এজন্যই বলি, আওয়ামিলীগকে ক্ষমতায় এনে এখন খামোখা আল্লামা শফী, কওমির একেবারেই নিরীহ আলেম ওলামাকে আওয়ামিলীগের দালাল ইত্যাদি বলার মধ্যে তাদের প্রতি জুলুম ছাড়া কিছুই না। কওমির কিছু আলেমদের সরকারের প্রতি তোষামোদ কওমি থেকেই নিন্দা জানানো হয় এবং হবেও এবং এই তেল মারা গ্রুপ নিয়ে সরকার নিজেও বিব্রত। কিন্তু এজন্য কথায় কথায় কওমিকে দালাল বলার মাধ্যমে উধোর পিন্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপানো ছাড়া কিছুই না। যারা রাজনীতি করেন তারা অন্যদের সাথেও রাজনৈতিক আচরণ করবেন। হেফাজতকে সবাই ব্যাবহার করতে চেয়েছেন, শেখ হাসিনাও পজিটিভলি সেই চেষ্টাই করেছেন।

এই সংবাদটি 1597 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com