হেফাজতের অর্জন ইতিহাসে বিরল!

প্রকাশিত: ১০:১১ অপরাহ্ণ, মে ৭, ২০২০

হেফাজতের অর্জন ইতিহাসে বিরল

সাইদুর রহমান নিজপাটিঃ
হেফাজতের মতো অর্জন কোনো রাজনৈতিক দলেরও নেই। হেফাজতের নোংরা সমালোচনা তারাই করে,যারা রাজনৈতিক ফায়দা হাসিল করতে পারে নাই। যে সকল কুচক্রী মহল,হেফাজতকে ক্ষমতার সিঁড়ি বানাতে চেয়েছিল,তারাই ব্যর্থ হয়ে হেফাজতের বিরুদ্ধে নানা কুৎস্যা রটায়। বর্তমানে যারা নিজ ব্যানারে কিছু করতে পারছে না,তারা নিজেদের দুর্বলতা আড়াল করতে।হেফাজতের বিরুদ্ধে প্রোপাগান্ডা চালানোর মতো ঘৃণ্য কর্মকাণ্ড বেছে নিয়েছে। যারা স্বার্থ হাসিলের জন্য হেফাজতকে পুণরায় মাঠে নামাতে ব্যর্থ হচ্ছে, তারাই হেফাজতের কুৎস্যা রটিয়ে,অন্তর্জ্বালা মিটাচ্ছে। আমি বলব, গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে একটা অরাজনৈতিক দল যে পরিমাণ শক্তি প্রদর্শন করেছে,সে পরিমান শক্তি প্রদর্শন আজ পর্যন্ত কোনো রাজনৈতিক দলও বাংলাদেশে করতে পারে নাই। এত বড় গণ জমায়েত কোনো রাজনৈতিক দলের ও নেই।

গণতান্ত্রিক সরকারের বিরুদ্ধে হেফাজতের গণ জমায়েতই সর্বৃহৎ গণ জমায়েত হিসেবে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে। অনেকে আপত্তি তুলবেন,হেফাজতের ১৩ দফারতো ১ দফাই বাস্তবায়ন হলনা!তাহলে এ কেমন অর্জন? জবাবে বলব, এ দাবি গুলো অন্তত বাংলাদেশে কখনোই ক্ষমতায় যাওয়ার পূর্বে বাস্তবায়ন করা সম্ভব নয়। যেখানে ইসলামি মূল্যবোধের দল বি এনপি ১৩ দফার সাথে একমত নয়, সেখানে ধর্মনিরপেক্ষতাবাদী সরকারের কাছ থেকে এ দাবি আদায় করা কতঠুকু সম্ভবপর হবে আপনাকে ভাবতে হবে। সেদিন বিএনপির খন্দকার মোশাররফ সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন,আমরা কেবল নবীর ইজ্জত রক্ষায় হেফাজতের সাথে একমত পোষণ করেছি,১৩ দফার সাথে নয়।

এবার বিবেচনা করুন,যেখানে সকল রাজনৈতিক দল ১৩ দফার সাথে ভিন্নমত পোষণ করে, সেখানে হেফাজতের দাবি বাস্তবায়ন না হওয়াতে, হেফাজতকে ব্যর্থ বলার কি কোনো সুযোগ রয়েছে? তার পরও সচেতন মহলের কাছে বিষয়টা পরিস্কার যে, সেদিন সরকার অনেকটা ১৩ দফা বাস্তবায়নে কাছাকাছি এসেছিল। সরকার হেফাজতের সাথে বৈঠক করতে চেয়েছিল।ইমরান সরকারও বসতে চেয়েছিল।কিন্তু দুঃখ জনক হলেও সত্য যে,আমাদের অনবিজ্ঞ, অদুরদর্শী কিছু নেতৃবর্গের ভুল ইনফর্মেশনে সেটা আর হয়নি। তারপরও আপনাকে সে সময়ের পরিবেশ,পরিস্থিতি নিয়ে ভাবতে হবে।

একদিকে বি এন পি, সরকার হটিয়ে ক্ষমতার স্বপ্ন দেখছে, অন্যদিকে জামাতের বাঁচা মরার লড়াই,অস্তিত্বের লড়াই। তখন সরকার কতটা ভয়াবহ পরিস্থিতির শিকার?সে সময় হেফাজতের দাবি মানার তাদের কাছে কতঠুকু সুযোগ রয়েছে? আপনাকে এ কথা স্বীকার করতে হবে যে,দাবি বাস্তবায়ন না হলেও,নাস্তিকবাদি ধর্মদ্রোহীদের আস্ফালন কিন্তু ঠিকই বন্ধ হয়েছে। সেদিন যদি হেফাজত মাঠে না নামতো,তাহলে হয়তো আজ ঘরে ঘরে নাস্তিকতার ছোঁয়া লাগতো। সরকার ও যে,এখন নাস্তিকদের অনেকটা খই- কলা আগের মত দিচ্ছে না,সেটা কার অবদান? সরকার অনেকটা তাদের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিছে।হেফাজতের প্রতি অনেকটাই দুর্বল হয়েছে।সেটা কার ফসল? হেফাজত কখনো সরকারের প্রতি দুর্বল নয়,বরং সরকারই হেফাজতের প্রতি দুর্বল।এগুলা পুরাটাই আন্দোলনের সফলতার দাবি রাখে। কয়েকটি প্রশ্ন রাখলাম,বিবেচনা আপনার।
১/রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বহাল রয়েছে কার অবদানে?
২/স্কুলের পাঠ্যসূচি পরিবর্তনে কার অবদান?
৩/গ্রীক দেবী সরাতে কারা অবদান তুলনীয়?
৪/সরকার কাওমীর প্রতি দুর্বল হয়ে কেন স্বীকৃতি দিল? ৫/ইমরান সরকার ও তার গণজাগরণ মঞ্চ অস্তিত্বহীন হয়ে পড়ে রইল,আজও দাঁড়াতে পারেনি,সেটা কার কারণে?
৬/আজ নাস্তিক, ধর্মদ্রোহিরা এত অসহায় ও সরকারের মন্ত্রিসভায় স্থান পায় নাই কার কারণে?

৭/হেফাজতের অনেক দাবি দাওয়া আজ এত গুরুত্ব দেওয়া হয় কেন?

অনেকে প্রশ্ন করেন,শাপলা ট্র্যাজেডির পর হেফাজত নিরব থাকল কেন? সে ক্ষেত্রে আহমদ শফী দা.বা.নিজেই যে উত্তর দিয়েছেন সেটাই সঠিক এবং যথাযথ। তিনি বলেন,আপনারা আন্দোলন করতে বলেন,কিন্তু বাস্তবতা উপলব্ধি করতে চান না।একদিকে বিএনপি আন্দোলনে নেই,জামাতও তাদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সরাসরি আন্দোলনে আসবে না।সবাই চায় মাদরাসার তালাবারা আন্দোলনে নামুক। কিন্তু এখন ময়দানে নামা মানে নির্যাতনের মুখোমুখি হওয়া।জেল জুলুমসহ নানা নির্যানতের শিকার হওয়া।এমনকি অনেক মাদরাসা পর্যন্ত বন্ধ হয়ে যাবে।এ রিক্স আমি কখনো নিতে পারব না।
এখন আপনারাই হুজুরের কথা বিবেচনা করে মন্তব্য করুন,পরিস্থিতি কি তেমন ছিল না? সর্বশেষ আহমদ শফী দা.বা.এর মূল কথাটি উল্লেখ  করছিঃ তিনি বলেছিলেন,”আমরা কখনো কারো ক্ষমতার সিঁড়ি হতে চাই না। কাউকে ক্ষমতায় আনতেও চাই না,কাউকে ক্ষমতা থেকে নামাতেও চাই না। আমরা চাই কেবল, শাতিমে রাসুলের শাস্তি।” এবার দেখুন,এ দাবির প্রতি হেফাজত কতটুকু অটল?

আমি মনে করি হেফাজত মূল দাবির প্রতি শতভাগ অটল রয়েছে।

এই সংবাদটি 45 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com