জমিয়তের আগামী নেতৃত্ব নিয়ে জনপ্রত্যাশা

প্রকাশিত: ১১:২১ পূর্বাহ্ণ, মে ৮, ২০২০

জমিয়তের আগামী নেতৃত্ব নিয়ে জনপ্রত্যাশা

সৈয়দ মবনু:

 

ভারতবর্ষের রাজনীতির ইতিহাসে সবচে প্রাচীনতম দু-তিনটি দলের মধ্যে অন্যতম জমিয়ত, আর মুসলিমদের কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত দলসমূহের মধ্যে হিসাব করলে বলতে হবে ‘মাদার অফ মুসলিম রাজনীতি’। সংগঠনের প্রথমে নাম ছিলো জমিয়তে আনসার। পরে হয়েছে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ এবং জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম। বাংলাদেশের রাজনীতিতে জমিয়তের মতো সক্রিয় আর কোন রাজনৈতিক দল নেই যারা বলতে পারবেন যে, তাদের দল বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনে ভারতবর্ষের স্বাধীনতার জন্য, ভারতের আধিপত্যের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের স্বাধীনতার জন্য, পাকিস্তানের শোষণ-নির্যাতনের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য আন্দোলন-সংগ্রামে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। এক্ষেত্রে জমিয়তের ভূমিকা ঐতিহাসিক। তবে পাশাপাশি সমালোচনা করার মতোও অনেক বিষয় রয়েছে। মানুষ থাকলে ভুল থাকবে। ভুল থাকলে সমালোচনা থাকবে। রাজনীতি করলে সমালোচনাকে মেনে নিতে হবে। জমিয়তের সবচে বড় সফলতা তাদের দল এই অঞ্চলের কিছু মানুষের ধর্মীয় চিন্তা-চেতনা এবং আকিদার সাথে প্রাকৃতিকভাবে মিশে আছে। এই অঞ্চলে অনেক মানুষ আছেন যারা ডান-বাম কিংবা ইসলামিক বিভিন্ন রাজনৈতিক দলে থাকার পরও ধর্মীয় চিন্তার দিকে নিজকে জমিয়তি মনে করেন। ফলে এই দলের আবেদন সাধারাণ মানুষের কাছে আরও সমৃদ্ধ হয়ে যায়। বিগত শত বছরে এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে দারুল উলূম দেওবন্দ আর দেওবন্দী চিন্তা, পাশাপাশি মাওলানা ইলিয়াস (র.)-এর তৈরিকৃত তাবলিগ জামায়াত।

 

 

বাংলাদেশের জামিয়তের রাজনীতিতে নেতৃত্বের পরিবর্তনের ধারাবাহিকতায় ২০০৫ খ্রিস্টাব্দে মাওলানা আশরাফ আলী শায়খে বিশ্বনাথী (র.)-র ইন্তেকালের পর কেন্দ্রীয় কাউন্সিলে ভারতবর্ষের স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম নেতা শায়খুলইসলাম মাওলানা সৈয়দ হোসাইন আহমদ মাদানী (র.) খলিফা বা হাতেগড়া শিষ্য শায়খুলহাদিস আল্লামা আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ী (র.)-কে সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। ২০০৮ খ্রিস্টাব্দের কাউন্সিলে তিনি পুনঃ রায় সভাপতি নির্বাচিত হন। ৮ এপ্রিল ২০২০ খ্রিস্টাব্দে তিনি ইন্তেকাল করেন। তাঁর মৃত্যুতে অনেক জানাজায় উপস্থিত হয়েছেন, আবার অনেক করোনাভাইরাসে লকডাউনের কারণে উপস্থিত হতে পারেননি। যারা উপস্থিত হয়েছেন এবং যারা হতে পারেননি সবাই অবশ্যই শোকাহত এবং ব্যতীত। যারা যেতে পারেননি তাদের মতে, জানাজায় শরিক হতে না পারার ব্যথাটা শোকের চেয়েও অনেক বেশী বেদনার।

 

 

আমি বিভিন্ন মাদরাসার মুহতামীমদের জানাজায় শরিক হয়ে একটি জিনিষ লক্ষ্য করেছি, লাশ সামনে রেখেই পরবর্তী মুহতামীম নিয়োগ দেওয়া হয়। এটা ইহতেমামের ফেতনা এড়ানোর জন্য হয়তো কর্তৃপক্ষ করে থাকেন। আর যেহেতু মাদরাসার কমিটি অনেকটা ছোট পরিসরে হয়ে থাকে, হয়তো তা শুদ্ধ হতে পারে। কিন্তু এখানে সাধারণ মানুষের আবেগকে ব্লাকমেইল করারও যে একটা উদ্দেশ্য থাকে না তা কিন্তু নয়। একই কাজ করা হলো জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সভাপতির মৃত্যুর দিনও। লাশ সামনে রেখে জমিয়তের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নিয়োগ করা হলো মাওলানা জিয়া উদ্দিন সাহেবকে। এতে জমিয়তের অনেকই ক্ষুব্ধ। ক্ষুব্ধদের বক্তব্য হলো হযরত ইমামবাড়ি (র.)-এর নিজ পরিবারের মতো জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশও তাঁর একটি পরিবার ছিলো। কিন্তু জমিয়ত পরিবার হযরতের ইন্তেকালে শোকাহত হলোনা! তার প্রমাণ হযরতের মৃত্যুর দিনেই ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ঘোষণা করা। তারা মনে করেন, ‘এমতাবস্থায় হযরতের জানাযা শেষ হতে নাহতেই লকডাউন পরিস্থিতিতে জমিয়ত নেতৃত্ব নির্বাচন করা উচিৎ হয়নি।’ কেউ কেউ বিষয়টিকে যখন ইসলামের খলিফা নির্বাচনের সাথে কিয়াস করলেন’ তখন ক্ষুব্ধরা বলেন, ‘মজলিসে আমেলার বৈঠকের অপেক্ষা না করে তাড়াহুড়া করে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ঘোষনা করাকে খলিফা নির্বাচনের পদ্ধতি বলা যাবেনা। কারণ কমিটি তো নির্বাচিত কারাই আছে, সিরিয়ালে প্রথম সহ-সভাপতি যিনি তিনি ভারপ্রাপ্ত দায়িত্ব পালন করবেন। তিনিই যেহেতু হবেন, তো এতো তাড়াহুড়া মোটেই পছন্দনীয় কাজ হয়নি।’ কেউ কেউ ঐক্যের স্বার্থে মুফতি ওয়াক্কাসকে সভাপতি নির্বাচনের কথা বললেও অনেকের মতে তিনি অনেক পূর্বে বেরিয়েগেছেন, তাই তা গ্রহণযোগ্য নয়।

 

 

অনেকে আশা প্রকাশ করছেন, জমিয়তের আগামি কাউন্সিলে হযরত মাওলানা সৈয়দ হোসাইন আহমদ মদানী (র.)-এর জীবিত দু’ খলিফার মধ্যে যেকোন একজনকে বরকতান সভাপতি নির্বাচন করা হোক। তারা হলেন; শায়েখ আল্লামা শাহ আহমদ শফি এবং শায়েখ মাওলানা আব্দুল হালিম লোহাগড়া (পীরাক্ষণের ছাব)। তবে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক রাজনীতি সম্পর্কে সচেতন জমিয়ত নেতা-কর্মিরা মনে করেন তাঁরা দুজনই বয়স ও শারিরিক দিক থেকে নেতৃত্ব গ্রহণের উপযুক্ত কি না তা বিবেচনার বিষয়। তারা মনে করেন, করোনার ক্রান্তিকাল শেষে দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে যে নতুন মেরুকরণ হবে তাতে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সভাপতি হওয়ার একমাত্র যোগ্য ব্যক্তি বর্তমান মহাসচিব মাওলানা নূর হোছাইন কাসেমী। আর মহাসচিবের দায়িত্বে তারা দেখতে চান মুক্তিযোদ্ধা আলেম জমিয়তের সাবেক নেতা মরহুম মাওলানা শামসুদ্দিন কাসেমী (র.)-এর ছেলে এবং আরজাবাদ মাদরাসার বর্তমান মুহতামীম মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়াকে। তাদের দাবীর পক্ষে অনেকগুলো যৌক্তিক যুক্তি রয়েছে। তাদের গুরুত্বপূর্ণ যুক্তি হলো তারা দু’জন নেতৃত্বে সমন্বিত হলে জমিয়তের রাজনীতি জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে আরও গতিশীল হবে। তারা আশা করেন, জমিয়তের আগামী কাউন্সিল বিষয়গুলো বিবেচনা করবে।

(২য় পর্ব)

জয়িমতের আগামী নেতৃত্ব নিয়ে পরীক্ষণ পর্যায়ে আরও কিছু পর্যবেক্ষণ

‘নূর হোছাইন কাসেমী কেন্দ্রীয় সভাপতি এবং বাহাউদ্দিন জাকারিয়াকে মহাসচিব দেখতে চান জমিয়তের সচেতন নেতা-কর্মিরা’ শীর্ষক এক প্রবিতেদন আমার ফেসবুক ওয়ালে ১৮ এপ্রিল ২০২০-তে পোস্ট দিয়েছিলাম। খুব সরল অংকে ছিলো সেই পোস্ট। পোস্টটা ছিলো মূলত তাদের সভাপতি শায়খুলহাদিস আল্লামা আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ী (র.)-এর ইন্তেকালকে সামনে নিয়ে। সেখানে মূলত আমি জমিয়তের ইতিহাস বর্ণার এক পর্যায়ে পরবর্তী নেতৃত্বে সচেতন নেতা-কর্মীরা কাকে চাচ্ছেন সভাপতি এবং কাকে চাচ্ছেন মহাসচিব সেদিকে দৃষ্টিপাত করেছিলাম। সেখানে সচেতন মহলের দৃষ্টি থেকে বলেছিলাম, ‘করোনার ক্রান্তিকাল শেষে দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে যে নতুন মেরুকরণ হবে তাতে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সভাপতি হওয়ার একমাত্র যোগ্য ব্যক্তি বর্তমান মহাসচিব নূর হোছাইন কাসেমী। আর মহাসচিবের দায়িত্বে তারা দেখতে চান মুক্তিযোদ্ধা আলেম জমিয়তের সাবেক নেতা মরহুম মাওলানা শামসুদ্দিন কাসেমী (র.)-এর ছেলে এবং আরজাবাদ মাদরাসার বর্তমান মুহতামীম মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়াকে। তাদের দাবীর পক্ষে অনেকগুলো যৌক্তিক যুক্তি রয়েছে। তাদের গুরুত্বপূর্ণ যুক্তি হলো তারা দু’জন নেতৃত্বে সমন্বিত হলে জমিয়তের রাজনীতি জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে আরও গতিশীল হবে। তারা আশা করেন, জমিয়তের আগামী কাউন্সিল বিষয়গুলো বিবেচনা করবে।’ এই ছিলো আমার বক্তব্য।

ওয়ালে পোস্টের সাথে সাথে দেশ-বিদেশ থেকে ফেসবুকের ওয়ালে কিংবা ইনবক্সে এবং মোবাইলে ব্যক্তিগতভাবে যে ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া হয় সেখান থেকে স্পষ্ট নূর হোছাইন কাসেমীকে যোগ্যতায় এবং অবস্থানগত কারণে সভাপতি করার ব্যাপারে দলের ৮০ভাগ নেতা-কর্মির কোন দ্বি-মত নেই। ২০ভাগের মতামতে অন্যরা আছেন, বিশেষ করে আমার অত্যন্ত শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব বিয়ানী বাজারের আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর মাদরাসার মাওলানা জিয়া উদ্দিন সাহেব। অবশ্য কেউ কেউ মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক সাহেবেরও নাম বলেছেন। মহাসচিবের ব্যাপারে আরজাবাদ মাদরাসার বর্তমান মুহতামীম মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়া এবং মাওলানা মন্জুরুল ইসলাম আফেন্দীর নাম সমান তালে উঠে এসেছে। ব্যক্তি ইমেজ এবং পৈতৃক ইমেজ, বিশেষ করে আলেম মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের বিশেষগুরুত্বের সমন্বয়ে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়ার বেশ গ্রহণযোগ্যতা থাকলেও মাঠ পর্যায়ের কর্মিদের মধ্যে মাওলানা মন্জুরুল ইসলাম আফেন্দীর একটা বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। অন্যদিকে অনেকে মনে করছেন মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী সভাপতি হলে মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়া মহাসচিব হতে পারবেন না, কারণ তারা তো একে অন্যের বেয়াই। যারা মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়াকে মহাসচিব দেখতে চান তারা মনে করেন এতে শরিয়তের কোন আপত্তি নেই। ইসলামের প্রাথমিক যুগে এসবের নজির রয়েছে। এখানে প্রশ্ন যোগ্যতার। যারা মাওলানা মন্জুরুল ইসলাম আফেন্দীকে মহাসচিব দেখতে চাচ্ছেন তারা মনে করেন আত্মীয়তার মধ্যে নেতৃত্ব সীমাবদ্ধ হলে শরিয়তে আপত্তি না থাকলেও সাধারণদের মধ্যে প্রভাব ফেলতে পারে, বিশেষ করে তাদের শত্রুরা বিরোধীতার ইস্যু পেয়ে যাবে। তাই তারা মনে করেন নূর হোছাইন কাসেমীকে সভাপতি করে মাওলানা মন্জুরুল ইসলাম আফেন্দীকে মহাসচিব করা হোক। আবার কিছু লোক মনে করেন, আঙ্গুরার মাওলানা জিয়া উদ্দিন সাহেবকে সভাপতি করে মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়া মহাসচিব করা যেতে পারে। তাদের যুক্তি হলো, মাওলানা জিয়া উদ্দিন সাহেব সভাপতি হলে আল্লামা নূর হোছাইন কাসেমী আর মহাসচিব থাকা উচিৎ না। আল্লামা নূর হোছাইন কাসেমীর খুব কাছের লোকদের কারো কারো মত হলো হুজুর তো এসব নিয়ে ভাবেনই না। তাই কে সভাপতি আর কে মহাসচিব, এবং কার উপরে কে গেলে কি হবে তা নিয়ে হুজুরের মধ্যে কোন প্রতিক্রিয়া নেই। তবে তা তাঁর শিষ্য-ভক্তদের পক্ষে মেনে নেওয়া সম্ভব হবে না। যদি এমনটি হয়ে যায় তবে সারাদেশে বিস্তৃত হযরতের ভক্ত-শিষ্যদের মধ্যে কিছুটা হলেও প্রভাব পরবে। অন্যদিকে মাওলানা জিয়া উদ্দিন সাহেবের শিষ্যরা যেকোন কিছুর বিনিময় তাদের শায়েখকে সভাপতি দেখতে চান। এই গ্রুপে জনসংখ্যা খুব কম হলেও দলের অর্থনৈতিক দিকে তাদের বেশ প্রভাব রয়েছে বলে অনেকে মনে করেন। অনেকের মতে, যেহেতু পৃথিবীর সকল স্থানেই অর্থ একটু বেশি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে তাই হয়তো শেষ পর্যন্ত সকল হিসাব পাল্টে গিয়ে দলের ফান্ডের স্বার্থে অনেক আটকে যেতে পারেন, অর্থাৎ মাওলানা জিয়া উদ্দিন সাহেব সভাপতি হয়ে যেতে পারেন। অবশ্য অনেকে মনে করেন, মানুষকে বনের বাঘে খায় না, বনের বাঘে খায়। যারা অর্থনৈতিক কারণে এমন ভাবছেন তাদের ভাবনা জমিয়তের আকাবিরদের চিন্তা-চেতনার সাথে যায় না। জমিয়তের মিযাজই হলো তাওয়াক্কালতু আলাল্লাহ অর্থাৎ আল্লাহর উপর ভরসা। তারা মনে করেন, ‘নব্যজমিয়তী কারো কারো কাছে রাজনৈতিক প্রতিযোগিতার সাজসজ্জায় টাকা গুরুত্বপূর্ণ হলেও মূল বা মৌলিক জমিয়তিদের কাছে ঈমান-আকিদা রক্ষার পর টাকার প্রয়োজনীয়তা। তারা কারো সাথে প্রতিযোগিতায় নয়, তারা আল্লাহর সন্তুষ্টি আর আল্লাহর নির্ধারিত মানবসেবার স্বার্থে জমিয়ত করেন, যা ছিলো জমিয়তের আকাবিরদের মূল নীতি।’ তারা তাও স্বীকার করেন, এমন চিন্তার জমিয়তিদের সংখ্যা দেশে বেশি হলেও তারা লম্পঝম্প কিংবা নেতৃত্বের ধাক্কাধাক্কিতে না থাকায় অনেক সময় অন্যরা নেতৃত্ব নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে যেতে সক্ষম হন। যার বাস্তব প্রমাণ, বিভিন্ন দল থেকে জমিয়তে আগত নেতারা খুব দ্রুত দলের শীর্ষ স্থানগুলো নিজেদের নিয়ন্ত্রনে নিয়ে যাওয়ার পর প্রকৃত জমিয়তিদের একটি বড় অংশ নিরব দর্শক হয়ে বসে আছেন এবং একটি অংশ বেরিয়ে গিয়ে নতুন করে দল গঠনের চিন্তা করেছেন। অনেকেই বিষয়গুলো অনুভব করেন, কিন্তু প্রভাবশালীদের সামনে ইজ্জতের ভয়ে মুখ খুলেন না। এই শ্রেণীর অনেকের সাথেও আমার কথা হয়েছে। তাদের কথা হলো, যারা পদ-পদবী আর অর্থের জন্য জমিয়ত করেন তারা তাদের মতো করতে থাকুন। আমরা জমিয়ত করি আকাবিরদের ফয়েজ ও বরকত লাভের আশায়। তাই এসবে আমরা জড়াইতে চাই না।

অন্যদিকে মহাসচিবের আলোচনায় মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়া এবং মাওলানা মন্জুরুল ইসলাম আফেন্দীর পাশাপাশি সিলেটের কিছু নেতা-কর্মী (অনুমানিক দশভাগ হবে এবং তারা বেশিরভাগই সিলেট অঞ্চলের) দলের সাবেক এমপি মাওলানা শাহিনুর পাশার নাম উল্লেখ করেন। তবে মাওলানা শাহিনূর পাশা চৌধুরী নিজে এসে স্বীকার করেছেন তিনি এখনও জমিয়তের মতো সংগঠনের মহাসচিব হওয়ার যোগ্য নয়। এই মনে করার কারণ ব্যাখ্যায় সাংবাদিক ফায়যুর রহমান মনে করেন, যখন দলের মহাসচিব মুফতি ওক্কাস জেলে ছিলেন তখন যুগ্ম-মহাসচিব হিসাবে মাওলানা শাহিনূর পাশা চৌধুরী মহাসচিবের দায়িত্বপ্রাপ্ত হলে শুধু অভিনন্দন গ্রহণ ছাড়া অন্যকোন যোগ্যতা দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন। প্রমাণ হিসাবে ফায়যুর রহমান সেই সময়ে মাওলানা শাহিনূর পাশা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত এবং প্রকাশিত মাসিক একটি পত্রিকার নাম উল্লেখ করেন, যেখানে মহাসচিব জেলে যাওয়ায় মহাসচিবের দায়িত্ব পেয়ে শুধু অভিনন্দন আর অভিনন্দন, মহাসচিবকে যে জেল থেকে মুক্ত করতে হবে সে বিষয়ে তেমন কিছু নেই। ফায়যুর রহমান মনে করেন, এতে দলের নেতা-কর্মীরা বেশ হতাশ হন। তারপরও স্বীকার করতে হবে, কিছু মানুষ মাওলানা শাহিনূর পাশা চৌধুরীকে মহাসচিব হিসাবে দেখতে চাচ্ছেন। অবশ্য কেউ কেউ মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুকের নামও মহাসচিব হিসাবে উল্লেখ করেন। আবার কেউ কেউ মনে করেন, মাওলানা শাহিনূর পাশা চৌধুরী ঢাকায় কিংবা কাউন্সিলে নিজের অবস্থান শক্ত করার জন্য মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুকে তাঁর মাদরাসার শায়খুলহাদিসের দায়িত্বে নিয়ে এসেছেন। শায়খুলহাদিস আল্লামা আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ী (র.)-কে একই চালাকি থেকে নাকি মাওলানা শাহিনূর পাশা চৌধুরী তাঁর মাদরাসার শায়খুলহাদিসের দায়িত্ব দিয়েছিলেন এবং তা দিয়ে তিনি বেশ উপকৃতও হয়েছেন। অবশ্য মাওলানা শাহিনূর পাশা চৌধুরীর ভক্তবৃন্দ মনে করেন তা করা হয়েছে বরকতের জন্য, এখানে মাদরাসার স্বার্থ ছাড়া রাজনৈতিক কোন স্বার্থ নেই। মাওলানা শাহিনূর পাশা চৌধুরীর ভক্তবৃন্দ মনে করেন হয়তো শেষ পর্যন্ত তাদের পছন্দনীয় ব্যক্তিই চমক দেখিয়ে দিবেন মহাসচিব হয়ে। অনেকে মনে করেন, সিলেট-লন্ডন ধরে রাখার জন্য সিলেটকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ পদ দেওয়ার কথা হয়তো কাউন্সিলে বিবেচিত হবে। সেখানে মূল আলোচনায় আছেন মাওলানা জিয়া উদ্দিন, মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক এবং মাওলানা শাহিনুর পাশা চৌধুরী। তবে শেষ পর্যন্ত কে কোন দায়িত্ব লাভ করেন সেটাই দেখার বিষয়।

 

এই সংবাদটি 85 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com