মা জননী তুমায় খুব মনে পড়ছে

প্রকাশিত: ১০:৪৩ পূর্বাহ্ণ, মে ১০, ২০২০

মা জননী তুমায় খুব মনে পড়ছে

 

মাওলানা শেখ নূরে আলম হামিদীঃ

আমি যখন প্রাইমারীতে পড়ি, বাড়ীর মাদরাসায় পড়া হবেনা বলে বোর্ডিং মাদরাসায় দেওয়া হয়। অবশ্য যথেষ্ট কারন ও ছিল। বাড়ীতে সব সময় মেহমান আসতেন তাদের দেখা শোনা, খেলাধুলায় সময় নষ্ট হবে এই ভেবে বাহিরে পাঠানো যদিও বয়সে খুব ছোট ছিলাম, নিজের ভাল বুঝ হয়নি এমন সময়েই বাড়ী থেকে বের হই। সব সময় মা বাবা ভাই বোন বাড়ীকে মিছ করতাম, কাউকে বুঝতে দিতাম না। ভিতরে ভিতরে কষ্ট পেতাম। কত রাত নির্ঘুম কাটিয়েছি চোখের পানিতে বালিশ ভিজিয়ে, শৈশবের সে দিন গুলার কথা স্মরণ হলে এখনও কষ্ট হয়।

ছুটিতে বাড়ি আসলে কি আনন্দ, মায়ের হাতের রান্নার স্বাদ আল্লাদ বাবার আদর স্নে মমতা, ভাই বোনদের ভালবাসার খুনসুটি সব দুঃখ ভুলিয়ে দিত। ছুটি শেষ হলে আবার চেহারায় বিষাদের রেখা ফুটে উঠত, বাড়ীতে থাকাকালীন সময়ে মায়ের পাশেই বেশি সময় কাটাতাম। বাবা প্রায়ই প্রোগ্রামে থাকতেন, তাই মায়ের আচলেই মাথা গুজতাম।

রান্নার কাজে সহযোগিতা করতাম, গল্প শুনতাম, দুপুরে সবার খাওয়া দাওয়ার পর বাসনপত্র পরিস্কার করতে হাত লাগাতাম, মায়ের মুখে সে কি তৃপ্তির হাসি আজও আমার স্মৃতিতে ভেসে উঠে!

মা বাবারা নিঃস্বার্থ ভাবেশু শুধু দিয়ে যান আর আমরা অকৃতজ্ঞের মত গ্রহণ ক।। কিন্তু তাদেরকে একটু কিছু করলে সাগরের মত ভালবাসা দোয়া আর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে কুন্ঠা বোধ করেন না।

মা সম্পর্কে লিখতে গিয়ে কিছুই লিখতে পারছি না, বারবার চোখ ঝাপসা হয়ে আসছে। বাড়ীতে নিয়মিত মেহমান থাকতেন তাই প্রায়ই তরকারি শেষ হয়ে যেত, আমাকে একটি ডিম ভাজি করে দিতেন, আমি মহা খুশি হয়ে পেট ভরে খেয়ে নিতাম। কোন অভিযোগ করতাম না বলে খুশি হয়ে দোয়া দিতেন, সে দোয়া আজ খুব মিছ করছি!!

এখনও ডিম ভাজি খাই কিন্তু মায়ের হাতের সেই স্বাদ আর তৃপ্তি তো পাইনা বা পাওয়ার কথা ও না। রমযান মাস চলছে মাকে খুব মিছ করছি, আমাদেরকে কষ্ট করে বাহারী ইফতার করানো, সেহরীতে সবাইকে জাগিয়ে খাওয়ানো, এ যেন মায়ের উপর অর্পিত গুরু দায়িত্ব কোন হেরফের করা চলবেনা। তখন বাড়ীতে কারেন্ট ছিলনা, প্রচন্ড গরমের মধ্যে মাটির চুলায় রান্না করে মেহমান ও আমাদেরকে খাওয়ানোর পর যে তৃপ্তি পেতেন, মনে হত আমরা খেয়ে উনাকে উদ্ধার করেছি, এরি নাম মা, আমার মা, আপনার মা।

অভ্যাস বসত প্রায়ই ফোন নিয়ে নাড়াচাড়া করি, মাকে ফোন দিব বলে, যখনি মনে হয় মা তো আমাদের মধ্যে নেই তখন বুকফাটা কান্না চলে আসে, নিরাশ মনে আকাশের মালিকের দিকে মায়ের জন্য করুনার দৃষ্টি কামনা করতে থাকি। তখন স্মরণ হয়- রাব্বীর হামহুমা কামারাব্বা ইয়ানি ছগিরা…

নিজেকে বড় অপরাধী মনে হয়, যখন মনে হয় মা জননীর জন্য কিছুই করতে পারলাম না। কোন খেদমত করতে পারলাম না, ভাল ব্যবহার করতে পারলাম না, জীবনে সুখ শান্তি দিতে পারলাম না, বাবার জন্য ও কিছু করতে পারছি না, দূর প্রবাস থেকে শুধু অসহায়ের মতো চেয়ে থাকা ছাড়া। মালিক তুমার কুদরতি পায়ে পড়ে ক্ষমা চাচ্ছি আমাকে ক্ষমা করে দাও, আমার মা জননীকে ক্ষমা করে দাও, আমার মত মা হারা সবার মাকে ক্ষমা করে দাও, বাবা হারাদের বাবাকে ক্ষমা করে দাও, আমার বাবাকে সুস্থতার সাথে নেক হায়াত দান কর, বাবার খেদমত করার তাওফিক দাও, যাদের মা বাবা আছেন তাদেরকে নেক হায়াত দান কর।

ইংল্যান্ডের ওয়ালছল শহর থেকে
১০/৫/২০২০.রবিবার।

এই সংবাদটি 189 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com