স্মৃতি-মাওলানা আব্দুল কাদের চৌধুরী সিংকাপনী (র:)

প্রকাশিত: ১১:১১ পূর্বাহ্ণ, মে ১৪, ২০২০

কে এম আবুতাহের চৌধুরী:
১৯৮১ সালের ২০ রমজান দিবাগত রাতে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের ডাকে সাড়া দিয়ে এই পৃথিবী ছেড়ে চলে যান মুজাদ্দিদে জামান ,মুজাহিদে মিল্লাত,ওলিয়ে কামেল ,সংগ্রামী কর্মবীর হাফেজ মাওলানা আব্দুল কাদের চৌধুরী সিংকাপনী(র:)।যিনি ইটার মাওলানা বা সিংকাপনী মাওলানা হিসাবে সুপরিচিত ছিলেন ।২০২০ সালের ২০ রমজানের এ পবিত্র রাতে তাঁকে বার বার মনে পড়ছে ।১৯৮১ এক বৃষ্টি ভেজা জুমআর রাতে এশার ফরজ নামাজের প্রথম সেজদায় তিনি ইন্তেকাল করেন।
তিনি ছিলেন আমার শ্রদ্ধেয় পিতা ও ওস্তাদ ।আমার পিতার কাছেই ইসলামী শিক্ষার হাতে খড়ি ।উর্দু পহেলী ,মুফতি কেফায়াত উল্লাহ ছাহেবের তা’লিমুল ইসলাম ,মাওলানা আশরাফ আলী ছাহেবের বেহেশতী জেওর আর শরহে বেকায়া কিতাবের ছবক নেই তাঁর কাছ থেকে।
হাফেজ মাওলানা আব্দুল কাদের সিংকাপনী ছিলেন ইলমে লুদুনী প্রাপ্ত একজন মুহক্কিক আলেম।কোরআন ,হাদিস ,ফিকাহ শাস্ত্র ,তাছাউফ ,ক্বেরাত ও তাজবীদে ছিল তাঁর গভীর জ্ঞান। আরবী,ফারসী,বাংলা,উর্দু ভাষায় ছিলেন সুপণ্ডিত।
তারা ছিলেন চার ভাই।সবাই ছিলেন আলেম।তাদেরকে সিংকাপনী ব্রাদারস বা ইটার ছাব হিসাবে সবাই চিনতেন।
মাওলানা আব্দুল কাদের সিংকাপনী পবিত্র কোরআনের তাফসীর সহ শতাধিক কিতাব লিখেছেন ।আমাদের বাড়িতে ছিল বিশাল কুতুবখানা।যেখানে জাহিরুর রওয়াতের সকল কিতাব জামিউস সাগীর ,জামিউল কবির ,ছিওরে ছগীর ,ছিওরে কবির ,মাবসুত ,জিয়াদত সহ হাজার হাজার ফেক্বাহর কিতাব, অর্ধ শতাধিক কোরআনের তাফসীর ,ছিহা ছিত্তা ,৭ খণ্ড শামী ,মেশকাত,মুয়াত্তা ,বোখারী ,মুসলিম সহ শত শত হাদিসের কিতাব মওজুদ ছিল।
মাওলানা সিংকাপনীর হাজার হাজার মুরীদ বা অনুসারী ছিলেন ।কুফর ও শিরকের বিরুদ্ধে ছিলেন অত্যন্ত কঠোর ।কত ভণ্ড পীরকে যে শায়েস্তা করেছেন তার ইয়ত্তা নেই ।রশীদ শাহ ,বালতি শাহ ,নিমাত্রা শাহ সহ মাজার পূজারীদের শক্ত হাতে দমন করেছেন ।বাংলাদেশের বিভিন্ন অন্চল বিশেষ করে সিলেট ,বিশ্বনাথ,জগন্নাথপুর ,নবীগন্জ,দিরাই ,শাল্লা ,বানিয়াচং ,মৌলভীবাজার ,সুনামগঞ্জ,আজমিরিগঞ্জ ,কিশোরগঞ্জ ,ময়মনসিংহ সহ বিভিন্ন এলাকায় অনেক অনুসারী ছিলেন ।আগের কিছু মুরব্বী ও তাদের সন্তানরাএখনো দেশে ও প্রবাসে আছেন।
তিনি বাহাস বা বিতর্ক করেছেন বহু বড় বড় আলেমের সাথে ।কিন্তু জীবনে কখনো পরাজিত হননি।কামেল ওলী হিসাবে অনেক কারামত ছিলো।বৃষ্টির জন্য আকাশে হাত তুললেই সাথে সাথে বৃষ্টি চলে আসত ।কলেরা রোগে আক্রান্ত এলাকায় হাত তুলে দোয়া করলেই সবাই ভাল হয়ে যেতেন । জীবনে কমপক্ষে ১৫ বার স্বপ্নে রাসুলে পাক (সা) এর সাক্ষাৎ পেয়েছেন ।প্রতিদিন সব মিলিয়ে ৭০ বা ৮০ রাকাত নামাজ পড়তেন ।সব সময় ওজু অবস্থায় থাকতেন ।রমজানে রাত দিন এবাদতে মশগুল থাকতেন ।তিনি উর্দু ভাষায় পাকিস্তানের ইসলামী শাসনতন্ত্রের খসড়া লিখেছিলেন ।যা ১৯৪৮ সালে শমসেরনগর বিমান ঘাঁটি সংলগ্ন মাঠে ১০ হাজার আলেমের উপস্হিতিতে অনুমোদিত হয় এবং পাকিস্তানের ন্যাশনেল এসেম্বলীতে প্রেরিত হয়। সেই সম্মেলনে মাওলানা শাব্বির আহমদ ওসমানী ,মাওলানা ছহুল ওসমানী ,মাওলানা আবুল বারাকাত দানাপুরী ,মাওলানা নেছার আহমদ শরছিনা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন ।এই শাসনতন্ত্রের কপি বাংলায় অনুবাদ হয়ে ধারাবাহিক সাপ্তাহিক যুগভেরীতে প্রকাশিত হয়।
আমি আমার পিতার ২৪ বছর খেদমত করেছি ।আজ পর্যন্ত পূর্ণাঙ্গ জীবনী প্রকাশ করতে পারিনি ।শীঘ্রই প্রকাশ হবে ইনশাআল্লাহ ।
প্রতি বছর এ ওলীর ইছালে ছওয়াব হয় নবীগঞ্জের দেওতৈল প্রাইমারী স্কুল মাঠে।এ বছর হয়েছে ৫২তম ওয়াজ মাহফিল । দেওতৈল সূর্য তরুন সংঘ প্রতি বছর এ মাহফিলের আয়োজন করে ।আমরা তাদের কাছে কৃতজ্ঞ।
আমি বাবার কনিষ্ঠ সন্তান ।জীবন এখন ভাটার দিকে ।পিতার রেখে যাওয়া অসমাপ্ত কাজ যাতে করে যেতে পারি সে জন্য দোয়া চাই ।আমার পিতার মাগফিরাত ও দরজা বুলন্দের জন্য আপনাদের দোয়া চাই।

•••• কে এম আবুতাহের চৌধুরী ,লণ্ডন
২০ রমজান দিবাগত রাত ২০২০ ঈসায়ী।

এই সংবাদটি 12 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com