হজরে আসওয়াদের বিস্ময়কর ঘটনা!

প্রকাশিত: ৯:২০ পূর্বাহ্ণ, জুন ১, ২০২০

হজরে আসওয়াদের বিস্ময়কর  ঘটনা!

এহতেশামুল হক কাসেমীঃ

৭যিলহজ্জ্ব ৩১৭ হিজরী। বাহরাইনের যালেম শাসক আবূ তাহের কারামতী মক্কা মুকাররামায় আতর্কিতভাবে হামলা করে বসলো। হামলার জেরে সে মক্কায় আধিপত্য কায়েম করলো। তার ত্রাসে পুরো মক্কা নগরীর পরিবেশ ভীতিকর হয়ে উঠলো। এবছর মুসলমানদের কেউই বায়তুল্লাহর হজ্জ্ব করতে পারলো না। মিনা-মুযদালিফা ও আরাফার ময়দান ছিলো একদম জনমানবশূন্য। মক্কার মানুষ ছিলো সবাই গৃহবন্দী।
ইসলামী ইতিহাসে পবিত্র হজ্জ বন্ধ হওয়ার এটিই প্রথম ঘটনা।
এই যালেম আবূ তাহের কারামাতী বেশিদিন মক্কায় থাকেনি। উদ্দেশ্য হাসিল হওয়া মাত্রই স্বদেশে প্রস্থান করলো। যাবার সময় হাজরে আসওয়াদকে বায়তুল্লাহ থেকে বের করে বাহরাইনে নিয়ে গেলো। তাকে বাধা দেওয়ার সাহস কারো ছিলো না। দীর্ঘ ২২ বছর যাবৎ হজরে আসওয়াদ বাহরাইনেই থাকলো। তারপর আব্বাসী খলীফা মুকতাদির বিল্লাহ ৩৩৯ হিজরী সনে আবূ তাহেরের সাথে সমঝোতায় বসেন। ত্রিশ হাজার দীনারের বিনিময়ে হাজরে আসওয়াদকে পুনরায় মক্কা মুআযযামায় নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত পাশ হয়। সিদ্ধান্ত মোতাবেক হাজরে আসওয়াদ নিয়ে আসার জন্য খলীফা মুকতাদির বিল্লাহ তদানিন্তন সময়ের আরবের সবচে বড় মুহাদ্দিস শায়খ আব্দুল্লাহ রাহ.কে ত্রিশ হাজার দীনার দিয়ে বাহরাইন প্রেরণ করলেন। তিনি এক বিরাট কাফেলা নিয়ে বাহরাইনে গিয়ে হাজির হলেন।
আল্লামা জালালুদ্দিন সুয়ূতী রাহ. বলেন,
শায়খ আব্দুল্লাহ যখন বাহরাইন পৌঁছে গেলেন, তখন হাজরে আসওয়াদ হস্তান্তরের জন্য বাহরাইনের শাসক এক জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করলো।
যথাসময়ে অনুষ্ঠান শুরু হলো। বাহরাইনের শাসক এক চমৎকার গিলাফে ঢাকা একটি সুগন্ধিময় পাথর বের করে মক্কার কাফলাকে বললো, এই নিন আপনাদের কাঙ্খিত হাজরে আসওয়াদ। তাকে সাদরে গ্রহণ করুন এবং খুশিমনে মক্কায় ফিরে যান।
শায়খ আব্দুল্লাহ বললেন, পাথরটি পরখ বা যাচাই-বাছাই না করা পর্যন্ত আমরা তাকে গ্রহণ করবো না। আমাদের হাজরে আসওয়াদের দু’টি আলামত বা বৈশিষ্ট রয়েছে। এগুলো যদি এই পাথরে পাওয়া যায় তাহলে এটিই আমাদের হাজরে আসওয়াদ বলে প্রমাণিত হবে। আর প্রমাণিত হয়ে গেলেই আমরা তাকে সাদরে গ্রহণ করে মক্কায় ফিরে যাবো।
বাহরাইনের শাসক জানতে চাইলেন, পাথরের আলামত দু’টি কী?
শায়খ আব্দুল্লাহ জবাব দিলেন, প্রথম বৈশিষ্ট হলো, এটি পানিতে ডুবে না। আর দ্বিতীয় বৈশিষ্ট হলো এটি আগুনে রাখলে গরম হয় না।
এবার পরীক্ষার পালা। পাথরটি পানিতে ফেলা হলো। সে তাৎক্ষণিক ডুবে গেলো। প্রথম আলামত পাওয়া গেলো না। তারপর আগুনে রাখা হলো। পাথরটি গরম হয়ে বিকটশব্দে ফেটে গেলো। শায়খ বললেন, এটি হাজরে আসওয়াদ নয়।
এরপর আরেকটি পাথর বাহরাইনের শাসক পেশ করলো। তাকেও পরীক্ষা নীরিক্ষা করা হলো। এটিও পানিতে ডুবে গেলে এবং আগুনে গরম হয়ে উঠলো।
তখন শায়খ আব্দুল্লাহ বললেন, আমাদের সাথে আসল হজরে আসওয়াদের ব্যাপারে আপনার চুক্তি হয়েছিল। সুতরাং আমরা আসল পাথর না পাওয়া পর্যন্ত ত্রিশ হাজার দীনার আপনার হাতে হস্তান্তর করবো না।
অতঃপর আসল হজরে আসওয়াদ নিয়ে আসা হলো। তাকে আগুনে ফেলা হলো, সে গরম হলো না। স্বাভাবিক অবস্থায়ই থাকলো। পানিতে নিক্ষেপ করা হলো। ডুবলো না, ভেসে উঠলো। তখন শায়খ আব্দুল্লাহ রাহ. বলে উঠলেন, এটিই আমাদের আসল হাজরে আসওয়াদ। এটিই খানায়ে কাবার অলংকার। এটিই জান্নাতী পাথর।
এসময় আবূ তাহের কারামতী শায়খকে বললেন, আপনি এসব জানলেন কীভাবে? তিনি জবাব দিলেন, এগুলোতো আমাদেরকে রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জানিয়ে গেছেন। তিনি বলে গেছেন, হাজরে আসওয়াদ পানিতে ফেললে ডুববে না, আগুনে ফেললে গরম হবে না।
আবূ তাহের বললো, সত্যিই তোমাদের ধর্ম অনেক মজবুত, বর্ণনার চেয়েও অনেক শক্তিশালী।
এরপর হজরে আসওয়াদ যখন মুসলমানদের মিলে গেলো তখন একটি দুর্বল উষ্ট্রীর পীঠে সওয়ার করা হলো। কিন্তু হাজরে আসওয়াদের বরকতে দুর্বল উষ্ট্রীটি একদম সবল হয়ে গেলো। তার মাঝে এমন শক্তি আসলো যে, সে বিরতিহীনভাবে কাবার পানে ছুটে চললো এবং অতি দ্রুত হাজরে আসওয়াদকে স্বস্থানে খানায়ে কাবায় পৌঁছে দিলো।
অথচ তাকে যখন খানায়ে কাবা থেকে বের করে বাহরাইনে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল তখন যে উটেরই পীঠে তাকে রাখা হতো সেটি কিছু দূর যেতে না যেতেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তো। এভাবে বাহরাইন পৌঁছা পর্যন্ত সেদিন ৪০ টি শক্তিশালী উটের মৃত্যুবরণ হয়েছিল।
( মুহাম্মদ ইবনে আলী ইবনে ফযল তাবারী মালিকী রাহ. প্রণিত ‘তারীখে মক্কা’ নামক গ্রন্থ থেকে অনূদিত)
‏লেখকঃ মুহাদ্দীস- জামিয়া দারুল কুরআন সিলেট।

এই সংবাদটি 106 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com