ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ ভালো-মন্দের বিচারে কিছু কথা

প্রকাশিত: ৯:৫৯ পূর্বাহ্ণ, জুন ১৪, ২০২০

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ  ভালো-মন্দের বিচারে কিছু কথা

এহসানুল হকঃ

গতকাল দিনভর সোশ্যাল মিডিয়া ডুবে ছিলো সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী নাসিমকে নিয়ে। করোনা আক্রান্ত হয়ে তিনি মৃত্যুবরণের পর নেতিবাচক প্রতিক্রিয়ায় সয়লাব হয়েছে ফেসবুক, বিভিন্ন পত্রিকার সংবাদ লিংকের মন্তব্য ঘর। এমন সময় খবর এলো ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আর নাই। খবরটা একবিন্দুও বিশ্বাস হয়নি। তিনি অসুস্থ এমন খবরও শুনেনি।

প্রথম সংবাদটা গুজব হলেও একটু পরেই জানা গেলো বাস্তবেই তিনি আর নেই। তার মৃত্যুতে অধিকাংশ মানুষ, বিশেষত ইসলামপন্থীরা শোক প্রকাশ করছে। একই দিনে, একই দলের দুই নেতার মৃত্যুতে মানুষের ভিন্ন রকম প্রতিক্রিয়াই বলে দেয়- জীবনে কর্মটাই মূল। দলের চেয়ে ব্যক্তিগত কর্মটাও অনেক সময় বড় হয়ে উঠে। এই ভিন্ন রকম প্রতিক্রিয়া তাদের কৃতকর্মের ফল। অন্য এমপি, মন্ত্রীরা কি শিক্ষা নিবে?

সব সময়ই দেখা যায় ক্ষমতাসীনরা উলামাদের মূল ব্যাপারগুলো ঠিকমতো অনুধাবন করতে পারে না। সমস্যার গভীরে পৌছতে পারে না। সবাইকেই এক পাল্লায় মাপে। আসল নকল চিনে না। যে যেমন বুঝায় তেমনই বুঝে। এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ছিলেন ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ। তিনি ব্যাপারগুলো খুব ভালো করে বুঝতেন। তিনি মূলধারার উলামাদের সাথে সম্পর্ক রেখে চলতেন।

তিনি দাবি করতেন, আলেমদের আমি ভালোবাসি। আল্লামা আশরাফ আলী রহ. এর জানাযা পূর্ব বক্তব্যের সময় তার চোখ থেকে অঝোরে অশ্রু ঝড়তে আমি দেখেছি। সেটা মিথ্যা মনে হয়নি। আওয়ামী লীগের মতো একটি দলে থেকেও তাকে কখনো সরাসরি হক্কানী উলামাদের বিপক্ষে অবস্থান নিতে দেখা যায়নি- এটা বড় ব্যাপার। ধর্মীয় ইস্যুতে তিনি দেশের শীর্ষস্থানীয় উলামাদের মতামত নিয়েছেন। পক্ষে থাকার চেষ্ট করেছেন।

তার আচরণে মন্ত্রী সুলভ ভাব ছিলো না। এজন্যই কথা বলতে গেলে বেশি বলে ফেলতেন। অনেক অপ্রয়োজনীয় কথা বলায় বিভিন্ন সময় বির্তকও সৃষ্টি হয়েছিলো। অনেকেই বলবেন, তিনি কওমি মহলে বিভাজন সৃষ্টি করেছেন, দালাল সৃষ্টি করেছেন, হেফাজতকে দমন করেছেন, হুজুরদের হজে নিয়ে গেছেন। এসবের দায় শেখ আব্দুল্লাহর একার?

তিনি অবশ্যই সরকারের সাথে আলেমদের সম্পর্ক উন্নয়ন প্রজেক্টের অন্যতম কারিগর ছিলেন। কিন্তু তিনি দালাল সৃষ্টি করেননি। যে দালাল সে আরও আগে থেকেই এই পথে ছিলো। কেউ নতুন না। তিনি আওয়ামী লীগের মত একটি দলের শীর্ষ পযার্য়ের নেতা। তিনি তো তার দলের কথাই চিন্তা করবেন। সেটাই তার কাজ। কিন্তু আমরা কি করলাম? আমরা কেনো যাবো এটা সেটা নিতে? এরপর দোষ চাপাবো তার ঘারে?

তিনি তার কাজটা দক্ষতার সাথে করতে পেরেছিলেন। এটা তার সফলতা। তিনি আওয়ামী লীগের সফল মন্ত্রীদের একজন। ইসলামপন্থীদের সাথে সম্পর্ক উন্নয়নে তিনি যে ভুমিকাটা রাখতে পেরেছিলেন তা আওয়ামী লীগের অন্য কোনো নেতার পক্ষে সম্ভব না। আওয়ামী লীগের অন্য মন্ত্রীদের তুলনায় তার ভুমিকা অন্তত ভালো ছিলো। তার এভাবে চলে যাওয়ায় আওয়ামী লীগের যে ক্ষতি হয়েছে তা কখনোই পূরণ হবার নয়।
লেখক,শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুলহক (র) এর দৌহিত্র

এই সংবাদটি 1596 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com