কওমি মাদরাসার ছাত্ররা যথেষ্ট ব্রিলিয়েন্ট

প্রকাশিত: ১০:০৮ অপরাহ্ণ, জুন ১৪, ২০২০

কওমি মাদরাসার ছাত্ররা যথেষ্ট ব্রিলিয়েন্ট

মুফতি আতিকুর রহমানঃ
ছাত্রজীবনে কওমি মাদরাসার অনেক ছাত্রকে দেখেছি, নিজ থেকে হোক কিংবা অন্যের প্ররোচনায় হোক; ইংরেজী শেখার জন্য, একটু মডার্ন হওয়ার জন্য ,ভালো চাকরি পাওয়ার আশায় সরকারি মাদরাসায় ভর্তি হয়ে একই সাথে দুই মাদরাসায় লেখাপড়া করতে, পরীক্ষা দিতে।
যদিও পরবর্তীতে তাদের কর্মজীবনে এর ফলাফল প্রতিভাত হয়েছে।
কিছুদিন পর এদের কারো আর কোথাও লেখা-পড়া কমপ্লিট হয়নি। কওমি,সরকারী দুটিই একসাথে (এম বি বি এস) পাশ করে মা বাবার বেকার সন্তান! এদের অনেকেই কিছুদিন পর মাদরাসায় পড়ার ইতি টানিয়ে ডাইবার্ট হয়ে ডায়রেক্ট কলেজে চলে যায়। দু-একজন বহাল তবিয়তে থাকলেও কোনোটিই পরিপূর্ণভাবে হাছিল করতে পারেনি। হাফ পান্জাবী আর হাফ পেন্ট “না সাপ না ব্যাঙ(কুছিয়া)।

নিজের দেখা সহপাঠিদের এমন চিত্রের কথাই বলছি, কাউকে ছোট কিংবা ব্যাঙ্গ করা আমার উদ্দেশ্য নয় ।

২০০৪ সালে হাটহাজারী মাদরাসায় ইফতা প্রথম বর্ষের ক্লাসে একদিন কথা প্রসঙ্গে মুফতি কিফায়াতুল্লাহ সাহেব (দামাত বারাকাতুহুম) বলেছিলেন, যেকোনো একটি বিষয়ে পারদর্শিতা অর্জন করো, বাকিগুলো সহজেই তোমার আয়ত্বে চলে আসবে।
এটাই হলো আমার আলোচ্য বিষয়। কথাটা এতো গভীর ও তাৎপর্যপূর্ণ ছিলো, যা তখন বুঝে না আসলেও পরবর্তীতে ব্যাখ্যা বিশ্লেষণসহ বুঝে আসে।

২০০৯ সালে যখন লন্ডনে আসলাম, তখন এ কথাটির গভীরতা-ব্যাখ্যা অক্ষরে অক্ষরে বুঝতে পারলাম এবং বন্ধু-বান্ধব অনেকের সাথে একথা শেয়ার করলাম। সবাই এর সত্যতা প্রমাণে নিজের পক্ষ থেকে দলিল-আদিল্লাও পেশ করলেন। তাই আজ অনেক দিন পর বিষয়টা নিয়ে লিখতে বসলাম। কারণ, নিকটাত্মীয় একজন সরকারী মাদরাসায় পড়ার ও ইংরেজী শেখার পরামর্শ চাইলে; যে উপদেশমূলক কথাগুলি বলেছিলাম তা লেখার চেষ্টা করছি। হয়তো কারো উপকারে আসতে পারে ।

বিষয়টির ব্যাখ্যা এভাবে খুঁজে পেলাম,
কওমি মাদরাসার যেসব ছাত্র যথাযথভাবে অধ্যয়ন করে নাহু-ছরফ,বালাগাত ও মানতিক শিখে, সময়কে ভালোভাবে কাজে লাগিয়ে লন্ডনে এসেছেন, তাদের ইংরেজী শিখতে অন্যদের মতো তেমন একটা বেগ পোহাতে হয়নি। যারা কওমি মাদরাসায় শুধু নাম- ঠিকানা লেখা ছাড়া বেসিক ইংরেজীও শিখেনি, তারা আজ বড় বড় মসজিদ মাদরাসায় শত শত মানুষের সামনে ইংরেজীতে অনর্গল ওয়াজ করছেন। দীনের খেদমত সুচারুরোপে আন্জাম দিয়ে যাচ্ছেন।
আর যারা নিজেকে জাহির করতে গিয়ে সার্টিফিকেট ও ডিগ্রীর স্তুপ জমা করেছিলেন, তাদের অবস্হার বর্ণনা এখানে করা সমীচিন মনে করছি না।জাস্ট এটাই বলবো, “তালাবুল কুল ফওতুল কুল”।
আরো একটা মজার কথা হলো ,যা না বললে নয়;
শত ব্যস্ততার ফাঁকেও সপ্তাহে একদিন কলেজে ইংরেজী ক্লাস করতাম।ঘটনাক্রমে আমার শিক্ষক একদিন হোয়াইট বোর্ডে আমাকে ইংরেজিতে একটি আর্টিকেল লিখতে বললেন। আমি লিখার পর হ্যাঁ করে আমার দিকে চেয়ে জিজ্ঞেস করলেন, (তার ভাষায়) ”এতো সুন্দর রাইটিং কী করে শিখলে? আমি বললাম আমি আরবি ভাষার একজন কাতিব।আরবি লেখা প্রাক্টিস করেছিলাম। এ জন্য লেখার সৌন্দর্য বাংলা ইংলিশ উর্দুতেও এমনিতেই প্রতিফলিত হয়েছে। তাইতো পাকিস্তানী এক ভাই উর্দু লেখা দেখে অবাক হয়ে বলেছিলো, সত্যিই কি আমি বাংলাদেশী ?
আমার এক্সপিরিয়েন্স থেকে যে কথা এখানে বুঝানোর চেষ্টা করছি, তা হলো; আমাদের কওমী অঙ্গনের মেধাবী ছাত্রদেরকে নিজের মান্জিলে মাকসুদ থেকে লাইনচ্যুত করার জন্য ভিবিন্ন পাঁয়তারা অনেক পূর্ব থেকেই চলে আসছে। যেমন ইংরেজী শিখলে লন্ডন যাওয়া যাবে, দেশে সরকারী চাকরী মিলবে, ইত্যাদি যতসব শয়তানি ওয়াসওয়াসা। এগুলা একদম মিথ্যা । যোগ্যতার কোনো বিকল্প নেই যতার্থই শুনেছিলাম “বেটা ক্বাবিল বনো, কাময়াবি যাকমারকে তুমহারে পিচে আযায়েগা”।
পরে অনেক কে দেখেছি দুই কুলই হারাতে, দু-একজন সফলও হয়েছেন।

শেষ কথা,
যারা সমস্ত কুরআনুল করীম, শত শত হাদীস মুখস্ত করতে পারে, কাফিয়া, হেদায়া, মাকামাতসহ ছাবয়ে মুয়াল্লাকাত পড়তে পারে; তাদের জন্য ইংরেজি ছয় আর নয় কোনো ব্যাপারই নয়। তাই দুনিয়া-আখেরাতে স্বসম্মানে থাকতে হলে কওমি মাদরাসায় পড়ার বিকল্প নেই। এটা বুঝে আসবে তখন, যখন ভালোভাবে কওমি নেসাবে লেখাপড়া করে বহিঃবিশ্বের যেকোনো দেশে আসবে।
আল্লাহ আমাদের সঠিক জ্ঞান দান করুন। আমীন।

#মুফতিঃ আতিকুর রহমান, ইংল্যান্ড প্রবাসী

এই সংবাদটি 968 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com