হাটহাজারী নিয়ে ফেসবুকীয় সূরা সদস্যদের সরল সমাধান প্রসঙ্গে কিছু কথা

প্রকাশিত: ৬:৪৬ পূর্বাহ্ণ, জুন ১৫, ২০২০

হাটহাজারী নিয়ে ফেসবুকীয় সূরা সদস্যদের সরল সমাধান প্রসঙ্গে কিছু কথা

সৈয়দ শামছুল হুদাঃ সারাদেশের ওলামায়ে কেরাম দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী নিয়ে উৎকন্ঠায় আছেন কখন কি হয়ে যায়, কী ঘটে যায় সেটা নিয়ে। আলোচনার বিষয়বস্তু কে হচ্ছেন হাটহাজারীর আগামী দিনের কান্ডারী? দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী নিয়ে এত আলোচনা, একে উৎকণ্ঠা ও উদ্বেগ কেন? সারাদেশের তাওহীদি জনতা বিশেষ করে আলেম-ওলামা এ বিষয়টি নিয়ে বেশ কিছুদিন যাবৎ নানা ঘটনা প্রত্যক্ষ করে আসছেন। এরই মধ্যে কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনাও ঘটে গেছে, যেগুলো আলেম সমাজের মধ্যে চিন্তার ভাঁজকে আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। ফলে নানা সমীকরণ হচ্ছে, সরলীকরণ হচ্ছে। নানা সমাধান আসছে। এটা নিয়ে সারা দেশের মানুষের এত আবেগ এত উৎকণ্ঠায় থাকার কথা ছিল না। কিন্তু আলোচনায় আসছে এই কারণে যে, এখান থেকেই ২০১৩ সালে নাস্তিক্যতাবাদ বিরোধী আন্দোলনের যে মহাজাগরণ ঘটে তার নেতৃত্ব দেওয়া হয়।

আন্দোলন শুরুর অল্প কিছুদিনের ভিতরেই এক মর্মান্তিক ঘটনার মাধ্যমে মহাজাগরণের সমাপ্তি ঘটে। আর যাতে সেখান থেকে কোন আন্দোলন গড়ে উঠতে না পারে তার জন্য নানা দিক থেকে প্রস্তুতি নেওয়া হয়, চেষ্টা করা হয়, কৌশল আঁটা হয়, প্ল্যান তৈরি করা হয়। গত সাতটি বছর নানা কৌশলের ফলে মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী থেকে আর কোন আন্দোলন গড়ে উঠতে পারেনি। নতুনভাবে আর কোন জাগরণ সৃষ্টি হয়নি। আগামীতেও যেন আর কোন আন্দোলন সেখান থেকে গড়ে উঠতে না পারে এই চিন্তা থেকেই সংকটের শুরু। এক্ষেত্রে অন্যতম একটি বাধা হলেন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী দামাত বারকাতুহম। হযরতের অসাধারণ ব্যক্তিত্ব, পরিচিতি ও গ্রহণযোগ্যতাই সংকটের উৎস।

আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী দামাত বারাকাতুহুম এর অনেকগুলো অপরাধ রয়েছে। তারমধ্যে প্রথমত অপরাধ হল ৫মে শাপলা চত্বরে এত নিষ্ঠুর আঘাতের পরেও তিনি কীভাবে সেদিন শাহাদাত বরণ থেকে বেঁচে গেলেন। দ্বিতীয়তঃ পরবর্তীতে উনাকে বারবার রিমান্ডে নিয়ে এত অত্যাচার করার পরেও তিনি কীভাবে আদর্শের ওপর এতটা অবিচল থাকতে পারলেন। তৃতীয়ত: সবচেয়ে বড় যে অপরাধটি তিনি করেছেন সেটা হলো – ২০১৩ সালের ঐ ঘটনার পরে অনেক ব্রিফকেস নাকি লেনদেন হয়েছে, অনেক সুযোগ-সুবিধার অফার বিনিময় হয়েছে, কিন্তু আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী হেফাজতের শীর্ষ দায়িত্বে থাকা সত্ত্বেও তাকে কোন ফাঁদে ফেলা যায়নি। চতুর্থ অপরাধ হলো, গত সাতটি বৎসর বাবুনগরী দামাত বারকাতুহমকে ফাঁদে ফেলতে না পারার পরিপ্রেক্ষিতে হাটহাজারীতে হযরতের ওপর নানান কায়দায় মনস্তাত্ত্বিক জুলুম করা হয়, এরপরও তিনি দারুল উলুম হাটহাজারী ছেড়ে চলে যান নি। পঞ্চম অপরাধটি হলো, কওমী মাদ্রাসার সর্বোচ্চ সনদের স্বীকৃতি উপলক্ষে আয়োজিত শুকরিয়া মাহফিলে ও তিনি হাজির হননি, যে মাহফিলে ৫মের সকল ঘটনাকে প্রকাশ্যে অস্বীকার করা হয়।

উনার উপরই কেন শুধু জুলুম করা হয়?আরো তো অনেক হেফাজত নেতৃবৃন্দ রয়েছেন তাদের ওপর তো কোন প্রকার জুলুম নির্যাতন করা হয়নি? কারণ টা অবশ্য পরিষ্কার। আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী গত সাতটি বছর নানা মাহফিলে সরকারবিরোধী কঠিন কঠিন বক্তব্য দিয়েছেন। হেফাজতের আন্দোলনে যারা শহীদ হয়েছেন সরকারের কাছে তাদের ক্ষতিপূরণ চেয়েছেন এবং রক্তাক্ত হামলার বিচার চেয়েছেন। আর কেউতো বিচার চায়নি। আর কেউতো রাজপথে কোন হুঙ্কার দেয় নি? আর কেউ তো কোন মাহফিলে সরকারকে ধমক দিয়ে কথা বলেনি? এটাও ছিল তাঁর বড় একটি অপরাধ।

উপরোক্ত অপরাধ সমূহের কারণে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে যে, যদি আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী দামাত বারাকাতুহুম আগামী দিনে কোনভাবে হাটহাজারীর কান্ডারী হন এবং তিনি হেফাজতের হাল ধরেন তাহলে হয়তোবা হেফাজতকে নিয়ন্ত্রণে রাখা যাবে না। হয়তোবা তার নেতৃত্বে আবার কোন আন্দোলন-সংগ্রাম, জাগরণ গড়ে উঠতে পারে। এই জন্য কোন অবস্থাতেই আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী দামাত বারকাতুহুমকে দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারীর প্রধান এর পদে আসতে দেওয়া হবে না।

আজকে তৃতীয় একটি পক্ষ এসব কারণে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী দামাত বারাকাতুহুম কে আল্লামা আহমদ শফী দামাত বারকাতুহুম এর মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিচ্ছে। নানা ধরনের কল্পিত পক্ষ প্রতিপক্ষ তৈরি করে আলোচনায় তাদেরকে নিয়ে আসতে চাচ্ছে। অথচ দুজন ব্যক্তিই সারাদেশের সমস্ত আলেমদের কাছে গ্রহণযোগ্য, শ্রদ্ধার পাত্র, শীর্ষস্থানীয়। উনাদের মধ্যে কোন বিরোধ নেই। কোন ধরনের মনস্তাত্ত্বিক লড়াইও নেই। তৃতীয় পক্ষ শুধু এটুকু চাচ্ছে যে আল্লামা আহমদ শফী দামাত বারকাতুহুম চলে যাওয়ার পরে কোন অবস্থাতেই যেন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী হাল না ধরতে পারেন। আর আমরাও সেই সুরে সুরে কথা বলছি।

এমনি প্রেক্ষিতে ফেসবুকীয় কোন কোন শূরা সদস্য (!) এ প্রস্তাব করছেন যে, যেহেতু এখানে দুটি পক্ষ হয়ে গিয়েছে, তাই উভয়পক্ককে বাদ দিয়ে নতুন একজনকে দায়িত্বে নিয়ে আসা হোক। আর সেই বিকল্প হতে পারেন হযরত মাওলানা শেখ আহমদ সাহেব। এটা বাস্তবায়ন করতে তৃতীয় পক্ষ দূর থেকে কলকাঠি ও নাড়ছে। তারা আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী ও আল্লামা আহমদ শফী দামাত বারাকাতুহুম কে কিভাবে মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দেওয়া যায়, কিভাবে মানুষের সামনে হেয় করা যায়, ছোট করা যায়, এমন সব আলোচনা, কথাবার্তা, প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে।

এক্ষেত্রে আল্লামা আহমদ শফী দামাত বারাকাতুহুম এর পুত্র মাওলানা আনাস সাহেবকে কেউ কেউ গুটির দাবা হিসেবে ব্যবহার করছেন। জনাব আনাস সাহেবকে বাবুনগরী হযরতের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিতে চাচ্ছে। এটা আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী দামাত বারকাতুহুম এর জন্য কতটা বিব্রতকর তা আমরা কেউ কি ভেবে দেখেছি?

দূর থেকে যে অনেক কিছু করা হচ্ছে সেদিকে দৃষ্টি না দিয়ে বারবার আলোচনায় নিয়ে আসছি জনাব মাওলানা আনাস সাহেবকে। আলোচনায় নিয়ে আসছি আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী দামাত বারকাতুহুমকে। আসুন আমরা আরো অনেকদূর দৃষ্টি প্রসারিত করি। আমরা আমাদের গুণীজনদেরকে বিব্রত না করি, তাদেরকে প্রশ্নের সম্মুখীন না করি।
আল্লাহ তা’আলা আমাদের সকলকে হেফাজত করুন।
ফাযিলে হাটহাজারী।
রুফাকা টাওয়ার, টঙ্গী গাজীপুর।

১১.০৬.২০২০
©

এই সংবাদটি 780 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com