সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ সীমান্তে ভারতীয়দের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

প্রকাশিত: ৬:৪৫ পূর্বাহ্ণ, জুন ২১, ২০২০

সিলেটরিপোর্টঃ
সিলেটের কোম্পানীগঞ্জের কালাইরাগ সীমান্তে ভারতীয় খাসিয়াদের গুলিতে এক বাংলাদেশি নাগরিক নিহত ও অপর একজন আহত হয়েছেন।
নিহত বাংলাদেশী নাগরিকের নাম বাবুল বিশ্বাস (২৬),সে কোম্পানিগঞ্জ উপজেলার সাতাল শান্তি বাজার গ্রামের মৃত গোলাপ বিশ্বাস এর ছেলে।
এ ঘটনায় ইন্দ্র বিশ্বাস (২২) নামে আরেক বাংলাদেশি গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তিনি একই উপজেলার প্রেমপাড়া গ্রামের নরেন্দ্র বিশ্বাসের ছেলে।
শনিবার(২০ জুন) বেলা সাড়ে ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত বাবুল বিশ্বাস (২৬)-এর মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছে পুলিশ

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)-এর ৪৮ ব্যাটিলিয়ান এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।বিজিবি সূত্রে জানা যায়,৪৮ বিজিবি’র অধীনস্থ কালাইরাগ বিওপির দায়িত্বপূর্ন এলাকার সীমান্ত পিলার ১২৫১/১১ এস সংলগ্ন বর্ধন খাল গ্রাম এলাকা দিয়ে ৫/৬ জন বাংলাদেশি শনিবার দুপুরে ভারতের প্রায় অর্ধ কিলোমিটার অভ্যন্তরে ঢুকে পড়ে। স্থানীয়দের বরাত দিয়ে বিজিবির কর্মকর্তা জানান, কাঠ চুরির জন্য ওই ৫/৬ জন ভারতে প্রবেশ করে। তাদের উপস্থিতি টের পেয়ে ভারতীয় খাসিয়া নাগরিকরা গুলি করে। এতে বাবুল বিশ্বাস ও ইন্দ্র বিশ্বাস গুলিবিদ্ধ অবস্থায় বাংলাদেশে প্রত্যাবর্তন করে। বাবুল বিশ্বাসকে গুরুতর আহতাবস্থায় স্হানীয় জনগণ সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অপর গুলিবিদ্ধ ইন্দ্র বিশ্বাস ও সঙ্গীয় তিনজন পালিয়ে যান।
সিলেটে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর (মিডিয়া) মোঃ লুতফর রহমান জানান ঘটনাটি পুলিশ জানার পর পরই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। নিহত ব্যাক্তির সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরী করে পুলিশ সিলেট ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে ময়নাতদন্তের প্রক্রিয়া চালাচ্ছে ,এ ঘটনার সঙ্গে আরো যারা ভারতে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশ করেছেন তাদেরকে চিহ্নিত করার চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

৪৮ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্ণেল আহমেদ ইউসুফ জামিল পিএসসি বলেন, নিহতের লাশ উদ্ধার করা সম্ভব হলেও আহত ব্যক্তিকে পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি দেশে প্রবেশ করেই আত্মগোপন করতে পালিয়েছেন।

আহমেদ ইউসুফ জামিল বলেন, সীমান্তে অনুপ্রবেশ ও চোরাচালান ঠেকাতে বিজিবি সবসময়ই সতর্ক রয়েছে। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে দু-দেশের সীমান্তে বিজিবি ও বিএসএফ নিজ নিজ সীমানায় টহল আরও বাড়ানো হয়েছে। এছাড়া বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী মানুষদের এ কাজে সংশ্লিষ্ট করা হয়েছে। যাতে কেউ অবৈধভাবে সীমান্ত পেরোতে না পারে এ জন্য অনেকগুলো অস্থায়ী ক্যাম্পও সতর্কতা মুলক প্রচারণা সহ নানা উদ্যোগ নিয়েছে বিজিবি। তবুও কিছু মানুষ বিজিবি’র অগোচরে ঝুঁকি নিয়ে অবৈধভাবে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে এসব অনাকাঙ্খিত ঘটনার জন্ম দিচ্ছে,যাহা সম্পূর্ণ অপ্রত্যাশিত। তিনি সীমান্তবর্তী বাংলাদেশী সকল নাগরিকদের এ ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক হওয়ার আহ্বান জানান।

এই সংবাদটি 12 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com