চট্টগ্রামে তিনদিনে পাঁচবার ভূমিকম্প!

প্রকাশিত: ৮:৩৪ অপরাহ্ণ, জুন ২২, ২০২০

ইব্রাহিম খলিল, চট্টগ্রাম থেকেঃ

সোমবার ভোর ৪টা ২২ মিনিটে ৩৭ সেকেন্ড। হঠাৎ ভূমিক¤েপর ঝাঁকুনিতে ঘুম থেকে জেগে উঠে আতঙ্কে ঘর থেকে বেরিয়ে পড়েন চট্টগ্রামের মানুষ। মাঝারি ধরনের এই ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৫ দশমিক ৮। যার স্থায়িত্ব ছিল ৫২ সেকেন্ড। এর আগে রোববার বিকেলে ৪টা ৪৭ মিনিটে ভূমিকম্পে এক দফা কেঁপে উঠে চট্টগ্রাম। এর মাত্র ছিল ৫ দশমিক ১। দুই ভূমিকম্পেরই উৎসস্থল ছিল ভারতের মিজোরাম রাজ্য। এই রাজ্যটি বাংলাদেশের চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রামের সীমান্তবর্তী।

এর আগে গত বৃহ¯পতিবারও (১৮ জুন) তিনবার মৃদু ভূকম্পন অনুভুত হয়েছিল চট্টগ্রামে। সেগুলোর শেষটির উৎসস্থলও ছিল ভারতের মিজোরাম। যার রিখটার স্কেল ছিল ৫ দশমিক শূন্য। চট্টগ্রামের পতেঙ্গা আবহাওয়া দপ্তর থেকে ভূমিকম্পের সত্যতা নিশ্চিত করা হয়েছে। এতে কোন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলেও জানানো হয়। পতেঙ্গা আবহাওয়া দপ্তরের আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদ যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ইউএস-জিএস এর উদ্বৃতি দিয়ে জানান, সবকটি ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল মিজোরামের ভ্যানলাইফাই এলাকার দারলোয়ানের ভূমির ৪০ কিলোমিটার গভীরে। চট্টগ্রাম থেকে মিজোরামের এ এলাকার দূরত্ব ১৮৯ কিলোমিটার। আর এভাবে মাত্র ১২ ঘন্টার ব্যবধানে দুই দফা এবং বৃহস্পতিবার একদিনে তিন দফা ভূ-কম্পন ভাবিয়ে তুলেছে চট্টগ্রামের ভু-তত্ব বিশেষজ্ঞদের। বিশেষজ্ঞদের মতে, মৃদু হালকা কিংবা মাঝারি ধরনের ভূমিক¤প অদূর ভবিষ্যতে বড় ধরনের ভূমিকম্পের অশনি সংকেত বহন করে। চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (চুয়েট) গবেষণা কেন্দ্রের সাবেক প্রধান ও ভূতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর আলমও বলেন একই কথা। তিনি বলেন, ভূ-তাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্য, মাঝেমধ্যে হালকা মাত্রার ভূক¤পন-প্রবণতা এবং টেকটোনিক প্লেটের সঞ্চালনের বিষয়গুলো বিশ্লেষণ করে দেশ-বিদেশের খ্যাতনামা ভূমিক¤প বিশেষজ্ঞ ও ভূ-তাত্ত্বিককরা বাংলাদেশ ও আশপাশের অঞ্চলজুড়ে অদূর ভবিষ্যতে শক্তিশালী মাত্রায় ভূমিকম্পের আভাস। গবেষণা কেন্দ্রের এক জরিপ রিপোর্ট থেকে জানা যায়, ভূ-স্তরের পাটাতনে (টেকটোনিক প্লেট) ফাটলের কারণে ইউরোশিয়ান ও ইন্দো-অস্ট্রেলিয়ান প্লেটের ভূমিক¤েপর জোনের মধ্যেই রয়েছে চট্টগ্রাম। এ প্লেট দুটি অতিমাত্রায় সক্রিয় হয়ে উঠেছে। এ কারণে ঘন ঘন হালকা থেকে মাঝারি মাত্রায় ভূমিক¤প হচ্ছে। বাংলাদেশ ও ভারত, মিয়ানমার, নেপালসহ আশপাশের বিশাল অঞ্চল সুপ্ত হলেও ভূমিকম্পের বলয়ে বা জোনে অবস্থিত। ভূমিক¤েপর আশঙ্কাপূর্ণ দীর্ঘ ফাটল লাইন বৃহত্তর চট্টগ্রাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম, ঢাকার আশপাশ এলাকা, সিলেট, রংপুর, দিনাজপুরের পাশ দিয়ে অতিক্রম করে গেছে। বঙ্গোপসাগর উপকূলের কাছাকাছি এলাকাও ভূমিক¤প বলয়ে অবস্থিত। ফলে ভূমিকম্পে চট্টগ্রাম, সিলেট, কক্সবাজার, ঢাকা ও কুমিল্লা বেল্ট বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে। ভূ-পাটাতনের (টেকটোনিক প্লেট) একটি ফাটল বা ফল্ট লাইন চট্টগ্রাম সমুদ্র উপকূল হয়ে আন্দামান পর্যন্ত চলে গেছে। অনেকগুলো ভূ-ফাটল লাইন, ভূমিকম্পের উৎসস্থল (ইপি সেন্টার) চট্টগ্রাম অঞ্চল থেকে কাছাকাছি অবস্থানে সক্রিয় রয়েছে।

এছাড়া অতীতে বাংলাদেশসহ আশপাশ অঞ্চলে রিখটার স্কেলে ৭ থেকে ৮ মাত্রারও অধিক পয়েন্টে প্রচন্ড শক্তিশালী ভূমিকম্প সংঘটিত হওয়ার রেকর্ড রয়েছে। বিশেষজ্ঞরা জানান, সচরাচর ভূমিক¤পপ্রবণ অঞ্চলে ৫০ কিংবা ১০০ অথবা ১৫০ বছর পর পর শক্তিশালী ভূমিকম্পের পুনরাবৃত্তি ঘটে থাকে।

আর সে সময় যদি হয়ে থাকে তাহলে এই ছোট ছোট ভুমিকম্প চট্টগ্রামে বড় ধরণের ভুমিকম্পের আভাস হতে পারে। আর যদি বড় ভুমিকম্প হয় তাহলে চট্টগ্রামের প্রাকৃতিক পরিবেশ ও নগরজীবনে ভয়াবহ বিপর্যয় নেমে আসবে। বিশেষ করে চট্টগ্রাম নগরীর ৯০ ভাগ বহুতল ভবন ধসে মৃত্যুপূরিতে পরিণত হতে পারে। হতে পারে বড় ধরণের জলোচ্ছ্বাস। ঘটতে পারে ভুমিধস। এতে প্রাকৃতিক ও মানবিক বিপর্যয় নেমে আসবে।
–মানব জমিন

এই সংবাদটি 12 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com