আলেমে-দ্বীন এবং শাসকদের দরবার

প্রকাশিত: ৭:০৫ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৫, ২০২০

আলেমে-দ্বীন এবং শাসকদের দরবার

হামিদ মীরঃ

এক শক্তিধর শাসক তার সময়ের একজন বিখ্যাত আলেমে দ্বীনকে তার সরকারের চিফ জাস্টিস বানাতে চাইলেন। কিন্তু ওই আলেম তা প্রত্যাখ্যান করেন। ফলে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। ওই আলেমে দ্বীন হলেন হযরত ইমামে আযম আবু হানিফা (রাহ.)। আর তাঁকে কারাগারে পাঠানো শাসকের নাম আল-মানসুর, যিনি আব্বাসী যুগের দ্বিতীয় খলিফা ছিলেন। ইমাম আবু হানিফা (রাহ.) শাসকের দরবার থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করছিলেন। আল-মানসুর যখন তাঁকে চিফ জাস্টিসের পদ প্রস্তাব করলেন, তখন আবু হানিফা (রাহ.) বললেন, নিজেকে এ পদের যোগ্য মনে করি না।

এ কথা শুনে খলিফা রেগে যান। কারণ ওই সময় চিফ জাস্টিসের পদমর্যাদা ছিল খলিফার নায়েব পর্যায়ের। খলিফা ঔদ্ধত্যপূর্ণ কণ্ঠে বললেন, তুমি মিথ্যা বলছ।

এটা শুনে ইমাম আবু হানিফা (রাহ.) খলিফাকে বললেন, যদি মিথ্যাবাদী হই, তাহলে তো বাস্তবিকই আমি এ পদের যোগ্য নই। রাগান্বিত খলীফা এরপর ইমাম আবু হানিফা (রাহ.)কে কারাগারে পাঠান এবং তাঁর ছাত্র ইমাম আবু ইউসুফ (রাহ.)কে চিফ জাস্টিস পদে নিয়োগ দেন।

কারাগারে ইমাম আবু হানিফা (রাহ.)এর ওপর নির্যাতন করা হতো, যাতে তিনি খলিফার নির্দেশ মেনে নেন। কিন্তু ইমাম আযম তৎকালীন শাসকের ইচ্ছার সামনে মাথানত করতে অস্বীকার করেন।

একদিন কারাগার থেকেই তার লাশ বের হয়। বাগদাদে তার নামাযে জানাযায় বহুসংখ্যক মানুষ অংশগ্রহণ করেন। আল-মানসুর ইমাম জাফর সাদেক (রাহ.)কেও জোরজবরদস্তিমূলক তার আনুগত্য করতে বাধ্য করেছিলেন। তাকেও গ্রেফতার করা হয়। কিছু বর্ণনা মোতাবেক, আল-মানসুরের নির্দেশক্রমে ইমাম জাফর সাদেক (রাহ.)কে বিষ দেয়া হয়েছিল।

ওই যুগে আরো একজন আলেমে দ্বীন ইমাম মালেক বিন আনাস (রাহ.)ও আল-মানসুরের বাধ্যকরণকে মেনে নিতে অস্বীকার করেন। মদিনার গভর্নর যখন নির্দেশ দিলেন, খলিফার আনুগত্যের শপথ গ্রহণ করা সবার ওপর ওয়াজিব, তখন ইমাম মালেক (রাহ.) ফতওয়া দিলেন, খলিফার আনুগত্যে জোরপূর্বক বাধ্য করা জায়েয নয়। এ ফতওয়া ইমাম মালেক (রাহ.)এর ‘অপরাধ’ হিসেবে গণ্য হলো। সুতরাং তাঁকে গ্রেফতার করে মদিনায় প্রকাশ্যে বেত্রাঘাত করা হয়।

আরও পড়তে পারেন-
সফল জীবন ও শান্তিপূর্ণ সমাজ গড়ার সহজ উপায়
অমুসলিমদের সাথে ইসলামের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান নীতি
মার্কিন গবেষকদের চোখে মুসলমানদের নামাজ
চিন্তার ইতিহাসে সেক্যুলারিজমের জন্ম কীভাবে হয়েছিলো?
যে যুগে ইমাম আবু হানিফা (রাহ.), ইমাম জাফর সাদেক (রাহ.) ও ইমাম মালেক (রাহ.) অত্যাচারী শাসকের সামনে হক কথা বলেছেন। ওই সময়ই এমন কিছু আলেমও ছিলেন, যারা তোষামোদের কারণে খলিফার পছন্দের ব্যক্তি হয়ে যান।

সমকালীন শাসকের তোষামোদকারী দরবারি আলেমদের আজ কেউ চেনে না। যদি কারো নাম অমর হয়ে থাকে, তাহলে অত্যাচারী শাসকের সামনে তার কথা অমান্য করার কারণে কারাবন্দী ও বেত্রাঘাত খাওয়া আলেমদের নাম অমর হয়ে আছে।

ওই উলামায়ে হকের ধারাকে যারা এগিয়ে নিয়ে গেছেন, তাদের মধ্যে ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.)ও শামিল ছিলেন। তিনি আব্বাসী খলিফা আল-মামুনের শাসনামলে কিছু দরবারি আলেমের উপস্থাপিত দর্শনগুলোকে প্রত্যাখ্যান করেন। এর মধ্যে একটি দর্শন এটাও ছিল যে, কুরআন পরবর্তীকালে সৃষ্ট হওয়া বস্তুগুলোর অন্তর্ভুক্ত। কিছু আলেম নিজেদের গুরুত্ব বাড়ানোর জন্য দাবি করেছিলেন, আল্লাহর জ্ঞান মাখলুক বা সৃষ্ট, যা পরবর্তীতে জন্ম লাভ করেছে। কিন্তু ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.)এর অভিমত ছিল, কুরআন আল্লাহর জ্ঞান। আর যে মনে করবে যে, এটা পরবর্তীতে জন্ম লাভ করেছে, সে কুফরি করবে।

আল-মামুন এ দর্শনকে অস্বীকার করাকে তার অবমাননা ভাবলেন এবং আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.)কে কারাগারে নিক্ষেপ করলেন। কিছু দিন পর আল-মামুন আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.)কে আবার দরবারে তলব করেন।

ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.)ও তার সঙ্গী মুহাম্মদ বিন নূহ (রাহ.)কে যখন বেড়ি পরিয়ে খলিফার কাছে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল, তখন খলিফার এক কর্মচারী কান্নারত অবস্থায় ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.)কে বললেন, আজ যদি আপনি কুরআন সৃষ্ট দর্শনকে মেনে না নেন, তাহলে খলিফা নিজ হাতে আপনাদের দু’জনের গর্দান উড়িয়ে দেবেন।

এ কথা শুনে আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.) দোয়া করলেন, “ওগো মোর পরওয়ারদেগার, যদি তোমার কুরআন অমাখলুক ও অনাদি কালাম হয়ে থাকে, তাহলে আমাদের দু’জনকে মামুনের সাথে একত্র হওয়া থেকে রক্ষা করো। আমরাও যেন তাকে না দেখি, তিনিও যেন আমাদের দু’জনকে না দেখেন”। ওই রাতেই শাসক আল-মামুনের মৃত্যু হয়। এরপর তার ভাই মুতাসিম বিল্লাহ খলিফা হন।

মুতাসিম বিল্লাহ’র শাসনামলে মুহাম্মদ বিন নূহ (রাহ.) ইন্তেকাল করলেন। মুতাসিম ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.)কে তার দরবারে তলব করে দরবারি আলেমদের সাথে তার বাহাস করালেন। এ দরবারি আলেমরা ইমাম আহমদ বিন হাম্বল (রাহ.)এর যুক্তি ও দলিলের সামনে কুপোকাত হয়ে গেলে তারা খলিফাকে বললেন, এ বেয়াদব শুধু আমাদের নয়, আপনাকেও কাফের সাব্যস্ত করছে।

এতে রাগান্বিত হয়ে খলিফা ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.)এর দেহ থেকে বস্ত্র খুলে ফেলার নির্দেশ দেন এবং তার সামনে তাকে বেত্রাঘাত করা হলো। উপর্যুপরি বেত্রাঘাতে ইবনে হাম্বল (রাহ.)এর দৃঢ়তা ও স্থিরতা মুতাসিম বিল্লাহকে অস্থির করে দিয়েছিল।

ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.) লাগাতার বেত্রাঘাতে একপর্যায়ে জ্ঞান হারান। আশঙ্কা ছিল, তাঁর জীবন নিভে যায় কি না। এ জন্য তাঁকে অজ্ঞান অবস্থায় ছেড়ে দেয়া হলো। ঘটনাটি ছিল রমজান মাসের।

ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.) রোজা ছিলেন। তাঁকে অর্ধমৃত অবস্থায় ইসহাক ইবনে ইবরাহিমের ঘরে নেয়া হয়। জ্ঞান ফিরে আসার পর তাঁকে বলা হলো, আপনার শরীর থেকে রক্ত ঝরছে। রোযা ভেঙে ফেলুন। কিন্তু ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.) যোহরের নামায আদায় করলেন এবং বললেন, হযরত উমর ফারুক (রাযি.)ও আহত অবস্থায় নামায আদায় করেছেন।

আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.) সন্ধ্যায় ইফতার করলেন। অতঃপর ওই জল্লাদদের ক্ষমা করে দিলেন, যারা বেত্রাঘাত করেছিল। তবে ওই সব পথহারা আলেমকে ক্ষমা করলেন না, যারা ইসলামের নামে বিভ্রান্তি ছড়ায়। তার নামাযে জানাযায় কয়েক লাখ মানুষ শরিক হন এবং তার জানাযা দেখে কয়েক হাজার খ্রিষ্টান মুসলমান হয়ে যায়। এ জানাযা হয়েছিল ১২ রবিউল আওয়াল।

হযরত ইমাম শাফেয়ী (রাহ.) থেকে ইমাম মূসা কাজেম (রাহ.) এবং আবদুর রহিম মুহাদ্দিসে দেহলভী (রাহ.) ও মুজাদ্দিদে আলফে সানি (রাহ.)সহ বহু আলেমে হক ও মুজতাহিদ নিজ নিজ সময়ের শাসকদের অন্যায়কে প্রত্যাখ্যান এবং কষ্ট ভোগ করেছেন। এ কারণেই আমরা হযরত আলী হাজভেরি ওরফে দাতা গঞ্জে বাখশ (রাহ.)এর ‘কাশফুল মাহজুব’ গ্রন্থে ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল (রাহ.)এর নামের উল্লেখ পাই। কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধে ফতওয়া দেয়া দরবারি আলেমদের নাম কোথাও দেখতে পাই না।

একবার খলিফা হারুনুর রশীদ ইমাম মালেক (রাহ.)এর সাথে সাক্ষাতের জন্য বার্তা পাঠিয়ে বললেন, আপনি যে গ্রন্থ লিখেছেন, তা আমি আপনার কাছ থেকে শুনতে চাই। ইমাম মালেক (রাহ.) জবাব পাঠালেন, ‘জ্ঞানার্জনের জন্য নিজেকেই যেতে হয়, জ্ঞান কারো কাছে যায় না।’

হযরত শাহ ওয়ালি উল্লাহ (রাহ.) তাঁর ‘আনফাসুল আরেফীন’ গ্রন্থে লিখেছেন, মোগল বাদশাহ আলমগীর আবদুর রহিম মুহাদ্দিসে দেহলভী (রাহ.)এর সাথে সাক্ষাতের ইচ্ছা প্রকাশ করলেন। তিনি বাদশাহকে পত্র লিখে জানালেন, ‘আল্লাহওয়ালারা এ কথার ওপর একমত যে, ওই ফকির সর্বোত্তম, যে কোনো আমির-ধনীর ডেরায় গমন করে না।’ ইতিহাস বলে যে, ওই সব আলেমই অনুসরণযোগ্য, যারা আমির, ক্ষমতাধর ও ধনীদের দরবারে গমন করেন না, বরং আমির-ক্ষমতাধর ও ধনী ব্যক্তিরা নিজেরাই তাঁদের কাছে গমন করেন।

– হামিদ মীর, পাকিস্তানের প্রখ্যাত সাংবাদিক ও কলামিস্ট।

এই সংবাদটি 29 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com