করোনায় মৃত্যু বরণকারীদের প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করবেননা – আল্লামা কাসেমী

প্রকাশিত: ১০:৪২ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৫, ২০২০

করোনায় মৃত্যু বরণকারীদের প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করবেননা – আল্লামা কাসেমী

সিলেট রিপোর্টঃ

করোনা মহামারিতে আক্রান্তদের প্রতি সামাজিক বৈষম্য দূর করতে এই রোগে মৃতদের লাশ থেকে সংক্রমণের ভীতি দূর এবং আরো মানবিক ও মর্যাদাজনক উপায়ে দাফনের প্রতি গুরুত্বারোপ করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী।

শনিবার এক বিবৃতিতে জমিয়ত মহাসচিব বলেন, বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা’সহ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বার বার বিবৃতি দিয়ে বলছে যে, একজন জীবিত করোনা আক্রান্তের শরীরে ভাইরাস যেরূপ সক্রিয় এবং বিস্তারের প্রবল ঝুঁকি থাকে, করোনায় মৃতের শরীরে সেভাবে থাকে না।

বরং তিন ঘণ্টা পর লাশের দেহে বিদ্যমান ভাইরাসগুলো সম্পূর্ণ নিষ্ক্রিয় হয়ে যায়। এটা বৈজ্ঞানিকভাবেও প্রমাণিত। তাহলে তুলনামূলক অধিক ঝুঁকিপুর্ণ করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা চলতে পারলে, ঝুঁকিহীন মৃতের লাশ নিয়ে ভাইরাস বিস্তার প্রতিরোধী এত বিধি-নিষেধ ও আয়োজন কেন?

কেন করোনায় মৃতের লাশের প্রতি এমন অবহেলা ও অচ্ছ্যুত ভাবা? করোনায় মৃতের লাশ নিয়ে বাড়াবাড়ি রকমের আয়োজন জনমনে ভীতি তৈরির খোরাক যোগাচ্ছে।

জমিয়ত মহাসচিব বলেন, করোনায় মৃতদের লাশ দাফনে মাত্রাতিরিক্ত তড়িঘড়ি, অতি গোপনীয়তা এবং পারিবারিক কবরস্থানে দাফনের সুযোগে জায়গায় জায়গায় প্রতিবন্ধকতা, মৃতের চেহারা স্বজনদের জন্য শেষবার দেখার সুযোগ না থাকা ইত্যাদি কারণে এই ভাগ্যাহত মানুষগুলোর প্রতি মনের অজান্তেই সামাজিক বৈষম্য তৈরি হচ্ছে।

তাছাড়া করোনা আক্রান্ত যে কোন রোগী শৃত্যু পরবর্তি এমন অবজ্ঞামূলক পরিণতি কল্পনা করে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়ে মনের জোর হারিয়ে ফেলেন। এতে তার শরীরের স্বাভাবিক রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থায় অবনতি দেখা দেয়। শরীরের স্বাভাবিক কর্মক্ষমতা ভেঙ্গে পড়ে এবং ঔষুধে ঠিক মতো কাজ করে না। কারণ, রোগীর সুস্থতার জন্য মানসিকভাবে দৃঢ় থাকা অত্যন্ত জরুরী অনুষঙ্গ।

আল্লামা কাসেমী বলেন, করোনা মহামারিতে মৃতদের লাশ আরো মর্যাদাজনকভাবে দাফনের উদ্যোগ গ্রহণ এবং তা বাস্তবায়নে যথাযথ তদারকি নিশ্চিত করে সরকার সহজেই এসব ভাগ্যাহত মানুষ ও পরিবারগুলোর প্রতি অমানবিক সামাজিক বৈষম্য ও মানসিক পীড়ন দূর করতে পারে।
তিনি বলেন, করোনায় মৃত ব্যক্তির লাশ ভাইরাস নিষ্ক্রীয় হওয়ার নির্ধারিত সময়ের পরে মর্যাদাজনকভাবে গোসল ও কাফন পরিয়ে পরিবারের সকলের জন্য শেষবারের মতো চেহারা দেখার সুযোগ রাখতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিবারের মনোনীত জায়গায় জানাযা ও দাফনের বাধাহীন সুযোগ নিশ্চিত করতে হবে। করোনায় মৃত্যুর তিন ঘন্টা পর লাশের দেহে ভাইরাস সক্রিয় থাকে না- স্বাস্থ্য বিজ্ঞানীদের এই অভিমত সকল প্রকার গণমাধ্যমে গুরুত্বের সাথে বার বার প্রচার করতে হবে। পাশাপাশি করোনায় মৃতদের জন্য রাষ্ট্রীয় সহানুভূতি ও মর্যাদার ঘোষণা রাখতে হবে। কারণ, ইসলামেও মহামারিতে মৃতদেরকে ‘শহীদ’-এর মর্যাদা দেওয়া হয়েছে। তাই করোনায় মৃতদের প্রতি রাষ্ট্রীয় মর্যাদা থাকাটা যুক্তিযুক্ত এবং মানবিকতাবোধের চাহিদাও।
জমিয়ত মহাসচিব বলেন, এসব নিয়ম শুধু প্রণয়ন নয়, বরং সরকার যথাযথভাবে প্রয়োগ করতে তৎপর হলে এর বহুমুখী সুফল পাওয়া যাবে। তখন কেউ আর ‘করোনা’ রোগ লুকাতে চাইবে না, বরং যে কারো লক্ষণ দেখা গেলে অন্যান্য রোগের মতো প্রকাশ্যেই চিকিৎসার আওতায় আসতে সকলে সক্রিয় হবে। কেউ করোনা আক্রান্ত হয়ে গেলেও মৃত্যু পরবর্তী দাফন প্রক্রিয়ার ভয়াবহ পরিণতির দুশ্চিন্তায় ভেঙ্গে পড়ে চিকিৎসায় ব্যাঘ্যাতের মুখে পড়বে না। রাষ্ট্রীয় সম্মান ও মর্যাদার কথা ভেবে মানসিক জোর পাবে। সর্বোপরি করোনাকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে যে সামাজিক বৈষম্য বিরাজ করছে, এটাও দূর হবে। লাশ থেকে রোগ ছড়ায়- এমন বিভ্রান্তিকর ধারণা দূর হলে কেউ লাশ রেখে পালানোর বা লাশ দাফনে সামাজিক বাধা দেওয়ার জঘন্য প্রবণতা দূর হবে। করোনা আক্রান্তদের প্রতি সামাজিক ভালবাসা ও সহানুভূতি বৃদ্ধি পাবে।

জমিয়ত মহাসচি বলেন, মৃত্যুর পর লাশের চেহারা স্বজনদের দেখতে না দেওয়ার নিয়ম রোগাক্রান্ত ব্যক্তি ও মৃতের পরিবারের প্রতি কত গভীর মানসিক পীড়ন তৈরি করে, আমরা কেউ ভেবে দেখছি না। আমরা কেন এটা ভুলে যাচ্ছি, বিদেশে মৃত্যুবরণ করা একটা শ্রমিকের লাশের চেহারা এক নজর দেখতে লাখ লাখ টাকা খরচ করে হলেও একটা অসচ্ছ্বল পরিবার যে কোনভাবে সেই ব্যয়ভার বহন করতে মরিয়া হয়ে ওঠে। আমাদেরকে উপলব্ধিতে নিতে হবে, মহামারিতে মৃত্যুবরণ করা প্রিয় মানুষের লাশ সামনে বিদ্যমান সত্ত্বেও শেষ বারের মতো চেহারা দেখার সুযোগ না পাওয়ার আক্ষেপ মানুষগুলোকে আজীবন বয়ে চলতে হবে।

এই সংবাদটি 70 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com