বর্তমান পরিস্থিতিতে হজ্ব এবং কোরবানি

প্রকাশিত: ৭:০৩ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৬, ২০২০

বর্তমান পরিস্থিতিতে হজ্ব এবং কোরবানি

এইচ এম জিয়াউর রহমানঃ

ইসলামের ৫টি স্তম্ভের অন্যতম একটি হলো-পবিত্র হজ্ব। হজ্ব শব্দের আভিধানিক অর্থ উদ্দেশ্য স্থীর করা,মনস্থ করা। শরিয়তের পরিভাষায়-কাবা শরীফের উদ্দেশে গমন ও বিশেষ আমল বা কাজ সম্পাদন করা বুঝায়।
হজ্ব ফরজ হওয়ার সালের ব্যাপারে বিভিন্ন মতানৈক্য পরিলক্ষিত হয়। তবে নবম হিজরীতে হযরত আবু বকর রা: এর নেতৃত্বে যে হজ্ব পরিচালিত হয়েছিল,সেটাই ছিল মুসলমানদের আনুষ্ঠানিক হজ্ব। হজ্বের মাস সমূহ সুবিদিত। নির্ধারিত মাসে (শাওয়াল,জিলক্বাদ,জিলহাজ্ব মাসের ৯ তারিখ হজ্বের সময় -ফয়জুল বারী দ্রষ্টব্য) হজ্ব করতে হয়। তবে শুধুমাত্র উমরাহর জন্য হজ্বের ন্যায় নির্দিষ্ট কোন মাস নেই। বছরের যে কোন সময় তা আদায় করা যায়। অর্থাৎ হজ্বের সাথেও তা আদায় করা যায় বা অন্য যে কোন সময়ও তা আদায় করা যায়।

আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কালামে হজ্বের আদেশ দিয়ে বলেন; আর আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে এ গৃহের হজ্ব করা সে সমস্ত লোকের উপর আবশ্য কর্তব্য, যারা সে দিকে (শারীরিক, মানসিক ও আর্থিকভাবে) পথাতিক্রমে সক্ষম বা সমর্থ।

সুতরাং,যে ব্যক্তি দৈহিক ও মানসিকভাবে সুস্থ থাকবে। এবং তাঁর অনুপস্থিতিতে তাঁর উপর নির্ভরশীল সকলের ভরণ-পোষনের ব্যবস্থা নিশ্চিত থাকবে। এবং ঋণহীন অবস্থায় তাঁর নিকট যদি মক্কা শরীফ ও আরাফাতের ময়দানে যাতায়াত ও তথায় অবস্থানকালে আহারাদি বাবত খরচ-পত্র নির্বাহের পরিমাণ টাকা থাকে। তবে,এমন ব্যক্তির জন্য জীবনে একবার হজ্ব করা ফরজ। যখনই তাঁর এরুপ অবস্থার সুযোগ লাভ হয়,তখনই তাঁর উপর হজ্ব ফরজ হয়ে যায়। পরবর্তীতে যদি তাঁর অবস্থা হীন হয়ে যায়,এবং প্রথম সুযোগে সে হজ্ব আদায় করে না থাকে। তাহলে তাঁর উপর এ ফরজ অনাদায়ী থেকে যায়। নারীদের ক্ষত্রেও একি বিধান তবে,তাদের সাথে কোন মাহরাম পুরুষ থাকা এবং তাদের ইদ্দতহীন অবস্থা থাকাও শর্ত।

পবিত্র কোরআন মাজিদের অনেকগুলো আয়াত থেকে স্পষ্ট হয় যে,বর্তমান রীতি-নীতির প্রচলিত হজ্ব কোরবানির আদেশ হযরত ইব্রাহীম আঃ এর সময়ই প্রদত্ত হয়েছিল। এ ইতিহাস সম্পর্কে মুসলিম উম্মাহর প্রত্যকেই অবগত আছেন। হযরত ইব্রাহীম আঃ এর মৃত্যুর পর ধীরে ধীরে হজ্বের রীতি-নীতি পরিবর্তন হয় এবং হজ্বকে ঘিরে বিভিন্ন মনগড়া কৃষ্টি কালচার যুক্ত হতে থাকে। নিজস্ব, মনগড়া বিধান মোতাবেক লোকেরা কাবা শরীফ হজ্বব্রত হতো। মক্কা বিজয়ের পর আমাদের নবী হযরত মুহাম্মদ সাঃ কাবা গৃহকে পুতুলমুক্ত করে এর পবিত্রতা বিধানকে সঠিক নিয়ম-নীতিতে হজ্বব্রত পুনঃপ্রবর্তনের জন্য আদিষ্ট হন।
হযরত মুহাম্মদ সাঃ বলেন- ফরজ হওয়া সত্তেও যে ব্যক্তি হজ্ব সমাপন না করে মারা যায়,সে ইহুদি হয়ে মরুক অথবা খ্রিষ্টান হয়ে মরুক, তাতে আল্লাহ তায়ালার কিছু যায় আসে না।

এরি ধারাবাহিকতায় প্রতি বছর আল্লাহ ভক্ত প্রেমিকরা নানা-দুঃখ কষ্ট সহ্য করেও হজ্বব্রত পালনের উদ্দেশ্যে মক্কা নগরীতে সমবেত হন। রাশিয়া, চীন,জাপান,আমেরিকা, ইটালি,বাংলাদেশ,জার্মানি সকল দেশের মুসলমানগন একই স্থানে একই পোশাকে একই উদ্দেশ্যে কাঁধে কাধ মিলিয়ে সাম্য এবং ভ্রাতৃত্বের এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন। সেখানে উচু- নিচু, মান-মর্যাদা, কালো-ফর্সার কোন পার্থক্য থাকেনা। মুসলমানগণই নয়,বিশ্বের অন্যন্য ধর্মালম্বীরাও নজিরবিহীন এ দৃষ্টান্তের বহু স্বীকৃতি প্রদান করেছে।

চলছে হজ্বের মাস সমূহ। অনেকের তামান্না ছিল প্রতিবারের ন্যায় এবছরও হজ্বে গমন করবে। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখ ও পরিতাপের বিষয়-এবার আর গতানুগতিক হজ্ব হচ্ছে না। অন্যন্য বছরের ন্যায় বিশ্বের সকলদিক থেকে মুসলমানরা মক্কায় সমবেত হতে পারবে না। এই সংবাদ মুসলিম উম্মাহের মাঝে বয়ে বেড়াচ্ছে নিদারুণ কষ্ট এবং বেদনা। গত ২৩ জুন ২০২০ ইং তারিখে সৌদিআরবের হজ্বমন্ত্রনালয় এবং বিভিন্ন বিশ্বস্ত যোগ সূত্রে জানা যায়,বর্তমান বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতির প্রতি লক্ষ্য রেখে সৌদি সরকার ঘোষণা দিয়েছে,বাহিরের কোন দেশ হতে এবার হজ্বে যাওয়া যাবেনা। তবে বহির্বিশ্বের কেউ হজ্ব করার সুযোগ না থাকলেও হজ্ব একেবারে বন্ধ হচ্ছে না। অর্থাৎ এবার হজ্ব হচ্ছে স্বল্প,একেবারে সীমিত আকারে। নানা শর্ত-সাপেক্ষের ভিত্তিতে শুধুমাত্র সৌদিআরবে অবস্থানরতদের জন্য হজ্বের সুযোগ রয়েছে। আমার জন্ম ১৯৯৮ ইংরাজির ১১-ই আগস্ট। জন্মের পর এই প্রথম হজ্বের ব্যাপারে এমন সংবাদ বহন করে চলেছি যা সত্যি পিড়াদায়ক। জানা নেই,নবম হিজরীর আনুষ্ঠানিক হজ্বের পর ঠিক কয়বার এমন পরিস্থিতি প্রত্যক্ষ করতে হয়েছে মুসলিম উম্মাহকে।

হজ্বের গুরুত্ব এবং ফজিলত অপরিসীম। হজ্বের সাথে কোরবানিও সংশ্লিষ্ট রয়েছে। হজ্বের ফজিলত ও কোরবানির ইতিহাসের সাথে আমরা সবাই মোটামুটি পরিচিত। তাই এব্যাপারে বিশদ আলোচনার প্রয়োজন মনে করছি না। সামনে আসন্ন কোর কোরবানী। এমন পরিস্থিতি অনেকের প্রশ্নঃ কোরবানির কি কোন কাজা আছে? মনে করুন কোরবানি ওয়াজিব ছিল এরুপ ব্যক্তি যে কোন কারণে কোরবানি করে নাই বা করতে পারে নাই। এখন কি তার পক্ষে সে কোরবানি কাযা করার কোন ব্যবস্থা আছে?
উত্তরঃ কোরবানি ওয়াজিব ছিল কিন্তু সময়মত কোরবানি করতে পাররেননি বা করা সম্ভব হয়নি,এরুপ ব্যক্তি কোরবানি জায়েজ হয় এরুপ একটি জন্তুর মূল্য গরীব মিসকিনদের মধ্যে সদকা করে দিলে ওয়াজেব আদায়ের দায় থেকে মুক্ত হতে পারেন এবং এরুপ করা তার জন্য ওয়াজেব। আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে দ্বীনের উপর অটল-অবিচল রাখুক। শরিয়ত মোতাবেক আমল করা তাওফিক দান করুক। অসুস্থ পৃথিবীকে দ্রুত সুস্থ করে দিক। এই প্রত্যাশা রইলো। আমিন।

এইচ এম জিয়াউর রহমান।
ছনখাইড়,ছাতক,সুনামগঞ্জ।
শিক্ষার্থী; জামিয়া মাদানিয়া বিশ্বনাথ মাদ্রাসা।
(ফজিলত ১ম বর্ষ)
২৩/০৬/২০ইং

এই সংবাদটি 767 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com