স্মৃতির আয়নায় শায়খে গলমুকাপনী নানাজান (র)

প্রকাশিত: ৯:৩০ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৬, ২০২০

স্মৃতির আয়নায় শায়খে গলমুকাপনী নানাজান (র)

মাওলানা শেখ নূরে আলম হামিদীঃঃ

কুতবে দাওরান মুজাদিদদে যামান, খলীফায়ে মাদানী মাওলানা লুৎফুর রহমান শায়খে বরুনী রহমাতুল্লাহি আলাইহির খুবই ঘনিষ্ট সহচর, অন্যতম খলিফা, ভায়েরা ও বিয়াই ছিলেন শায়খুল হাদীস হযরত মাওলানা আব্দুস শহীদ শায়খে গলমুকাপনী রহঃ। নিজের শায়খের নিয়ম পদ্ধতিতে ওয়াজ নছিহত দোয়া জিকির করতেন,আমার কাছে মনে হত হযরত শায়খে বরুনী রহঃ এর জলন্ত প্রতিচ্ছবি। আদব আখলাক কথাবার্তা চাল চলন একেবারে সাদাসিধা ছিল,মানুষকে খুব সহজে আপন করে নিতেন,আত্মভুলা দুনিয়া বিমুখ একজন বুযোর্গ আকাবিরদের উজ্জ্বল নক্ষত্র ছিলেন। উনার কাছে গেলে কথা শুনলে আখেরাতের কথা স্বরন হত,উনার মধ্যে আমি দাদাজান হযরত শায়খে বরুনী রহঃ কে খুজে বেড়াতাম,আজ উনি আমাদেরকে এতিম করে চলে গেলেন,আমরা হারালাম আমাদের অতি আপন পথ প্রদর্শক, প্রিয় অভিভাবক।

হযরত শায়খে বরুনী রহঃ এর ভায়েরা ও বিয়াই হওয়ায় উনাকে আমি নানা ডাকতাম আর আমাকে ও আপন নাতির মত স্নেহ মমতা করতেন। গতকাল ইন্তেকালের খবর শুনার পর থেকে মনটা খুব খারাপ যাচ্ছে। সুদূর প্রবাস জীবন থেকে শেষ দেখা ও জানাযায় শরিক হতে পারব না ভাবতেই কষ্ট লাগছে। সারা রাত ঘুমাতে পারিনি, বিছানায় গলাকাটা মুরগির ন্যায় ছটফট করেছি। সকালে একটু ঘুম লেগেছে স্বপ্নে দেখি নানাজানের জানাযায় শরিক হয়েছি আর আমার দু চুখ বেয়ে পানি ঝরছে সাথে সাথে ঘুম ভেঙে যায় আর দেখতে পাই আমার চোখের পানিতে বালিস ভিজে গেছে।

বরুনার জলছায় উনি প্রতি বৎসর শেষ রাত্রে আসতেন, দরদী কন্ঠে ওয়াজ নছিহত দোয়া ও জিকির করতেন, একবার ফজরের আগ মুহূর্তে আসলেন যার দরুন বেশি সময় দেওয়া গেলনা, আমার খুব খারাপ লাগল আমি নানাকে বল্লাম আগামী বৎসর আগে আগে আসতে হবে এবং মেয়ের ঘরে নয় আমাদের ঘরে খেতে হবে এবং লম্বা বয়ান ও দোয়া জিকির করতে হবে,পরের বৎসর নানা আমার কথা রেখেছিলেন রাত্রের প্রথম দিকে আসলেন আমাদের ঘরে খাওয়া দাওয়া করলেন এবং লম্বা বয়ান ও দোয়া জিকির করলেন এটা ছিল আমার মনের শান্তনা। গত জলছার আগে নানার সাথে যোগাযোগ করলাম আসার জন্য অনুরোধ করলাম আমাকে বল্লেন ভাইরে আমার শরীরটা ভাল যাচ্ছে না যদি শরীর ভাল থাকে তাহলে আসব ইনশা আল্লাহ কিন্তু শারীরিকভাবে অসুস্থ ও দুর্বল হওয়ায় আসতে পারলেন না।

আমার মধ্যে অজানা এক ভয় কাজ করছিল আগামীতে আর উনাকে পাব কি না, তাই গলমুকাপন মাদরাসার বাৎসরিক জলছায় শরিক হলাম শুধু নানার দোয়া নেওয়ার জন্য, গিয়ে দেখি নানা বাড়ীতে চলে গেছেন এবং মামা অপেক্ষা করছেন আমাকে বাড়ীতে নেওয়ার জন্য,বাড়ীতে যেতে যেতে অনেক রাত হয়ে গেল নানা অসুস্থ শরীর নিয়ে একটু বিশ্রাম নিচ্ছেন শেষ রাত্রে আবার মাহফিলে যেতে হবে, মামাকে বলি নানাকে ডাকার কোন প্রয়োজন নেই আরাম করতে দেন পরে দেখা করব, কিন্তু আমি আসছি শুনে ঘুম থেকে উঠে আমাকে ডাকলেন আমি গিয়ে দেখা করলাম নানাকে জড়িয়ে ধরলাম চিরচেনা কন্ঠে বল্লেন ভাই আসছ খুব খুশি হয়েছি, শরীরটা ভাল যাচ্ছে না দোয়া কর, আমি ও দোয়া চাইলাম, মন খুলে দোয়া দিলেন এটাই ছিল নানার সাথে আমার শেষ দেখা শেষ মোলাকাত।

জলছার দিন গভীর রাতে খাবার পাওয়া খুবি দুঃসাধ্য ব্যাপার কিন্তু নানু খালা মামী মামারা এই গভীর রাতে সব তরকারি গরম করে যত্ন সহকারে খাওয়ালেন খুব তৃপ্তির সাথে খেলাম,আসার সময় নানী ও মামা হাদিয়া নিতে বাধ্য করলেন,কয়েক দিন পর দেখি আমি অধমের নামে গলমুকাপন মাদরাসার পক্ষ থেকে হাদিয়া এসেছে, খুজ নিয়ে জানতে পারলাম আমি আসার পর নানা জেনেছেন মাদরাসা থেকে আমাকে হাদিয়া দেওয়া হয়নি তাই রাগ করেছেন এবং আমার হাদিয়া পাঠাতে বলেছেন,একজন অসুস্থ বয়োবৃদ্ধ আল্লাহর ওলীর মাদরাসার জলছায় আগত সাধারণ একজন মেহমানের প্রতি কি সজাগ দৃষ্টি ছিল এই ছোট্ট ঘটনা থেকেই বুঝা যায়।

২০২০ সাল আমাদের জন্য বড় বেদনার, বড় কষ্টের, এই কয়েক মাসে একে একে চলে গেছেন আমাদের প্রিয় আকাবির, পীর মাশায়েখ, অলি আব্দাল, শায়খুল হাদিস গন। যে ভাবে শূন্য হচ্ছে আমাদের ইলমী আমলী ময়দান, জানিনা আগামীতে কি হবে আমাদের ভবিষ্যত। এই কঠিন মূহুর্তে মহান মালিকের কাছে একমাত্র চাওয়া আমাদের শূন্যস্থান যেন মালিক কুদরতি ভাবে পূর্ণ করে দেন, হযরত শায়খে গলমুকাপনী রহঃ সহ সকল আকাবিরদের দরজা বুলনদ করে দেন, তাদেরকে জান্নাতুল ফিরদাউসের মেহমান হিসাবে কবুল করেন, পরিবার বর্গ কে ছবরে জামিল দান করেন, আমাদের আকাবির যারা জীবিত আছেন তাদের সুস্থতা ও নেক হায়াত দান করেন। আমীন।

ইংল্যান্ডের ওয়ালছল শহর থেকে
২৫/৬/২০২০.বৃহস্পতিবার।

এই সংবাদটি 219 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com