বয়োবৃদ্ধ আল্লামা শাহ আহমদ শফীকে নিয়ে নানা কথা

প্রকাশিত: ১২:৩৩ পূর্বাহ্ণ, জুন ৩০, ২০২০

বয়োবৃদ্ধ আল্লামা শাহ আহমদ শফীকে নিয়ে নানা কথা

সিলেট রিপোর্টঃঃ হেফাজতের প্রধানকে একনম্বর আসামি করে মামলা করতে পারেন’ বলে দাবি তুলেছেন অনেকেই। আল্লামা শাহ আহমদ শফীকে সকল প্রকার দায় দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে তাকে অবসরে রাখার আহবান জানিয়েছেন সচেতন মহল। সাম্প্রতিক সময়ে হাটহাজারি মাদরাসায় সহকারী পরিচালক নিয়োগ ও নাজিরহাট মাদরাসার মুহতামিম নিয়োগকে কেন্দ্রকরে ফেসবুকে তীব্র সমালোচনার সম্মুখিন হচ্ছেন বয়োবৃদ্ধ আল্লামা শাহ আহমদ শফী। অনেকেই বলছেন, তার বার্ধক্যকে কেন্দ্রকরে তার ছেলে নানা অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন, ফলে শেষ বয়েসে তিনি বিতর্কিত হয়ে সমালোচনার সম্মুখিন। এব্যাপারে আবুল কালাম আযাদ তার ফেসবুক আইডিতে লিখেনঃ


২০১৩ খ্রিষ্টাব্দের ঘটনায় জুনায়েদ আল হাবিব, ফয়জুল্লাহ আর রুহিদের একমাত্র দায়ী মনে না করে চিন্তার বিস্তৃতি দরকার।

এই ঘটনায় যারা নিহত হয়েছেন তাদের পরিবারের পক্ষ থেকে হেফাজতের প্রধানকে এক নম্বর আসামি করে সংশ্লিষ্ট অন্যদেরও আসামি করে মামলা করতে পারেন। কারণ, দিনে দিনে মনে হচ্ছে এই ঘটনায় তিনি মূল দায়ী। প্রয়োজনে আন্তর্জাতিক আদালতে মামলা করা যায়।

আর যেহেতু হেফাজতের প্রধান তাঁর নিজ স্বার্থে এখন কওমি মাদরাসার জন্য হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছেন, কওমি মাদরাসাকে সরকারের পেটের ভেতর তথা নিয়ন্ত্রণে দিয়ে যাচ্ছেন, কওমির ইতিহাস-ঐতিহ্য মুছে দিতে যা যা করার করে যাচ্ছেন, সেহেতু এসব কোনো দায়িত্বে একদিনও তাঁর থাকার অধিকার নেই। তাই বেফাক-হাইয়ার উচিত হলো জরুরিভিত্তিতে তাদের সংগঠনের নির্বাহী সভা ডেকে তাঁকে তাঁর সব পদ থেকে বহিষ্কার করা।

এমন সাহস কি বেফাক-হাইয়ার আছে? এই মেরুদণ্ড কি তাদের আছে?

বেফাক এবং হাইয়া এই সাহস দেখাতে যদি না পারে, তাহলে মাদরাসাগুলোর উচিত বিদ্রোহ করা৷ নিজেদের প্রতিষ্ঠানকে বেফাক থেকে মুক্ত ঘোষণা করে প্রয়োজনে নতুন বোর্ড প্রতিষ্ঠা করা।

#ফরমুলা দিইনি, দায়িত্ব মনে করিয়ে দিলাম।”

এখানে অনেকেই কমেন্টেস করেছেন। তন্মধ্যে কথা সাহিত্যিক
রশীদ জামীল লিখেনঃ
দায়-দায়িত্ব কিছুটা আপেক্ষিক ব্যাপার। তবে, শায়খের ইজ্জত ও মর্যাদা সমুন্নত রাখবার স্বার্থেই সংশ্লিষ্টদের উচিত তাঁকে সকল দায়িত্ব থেকে অবসরে পাঠানো এবং সময় সময় গিয়ে দোয়া লওয়া।

………………………………

Rashid Ahmad Qasemi লিখেছেনঃ

আমি সেই সোনালী সময়ের সাক্ষী যখন আল্লামা আহমদ শফী হাফিযাহুল্লাহ, আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী দা.বা.কে ছাড়া কিছুই বুঝতেননা।

নিজ চোখে দেখেছি, ২০১৩ সালে বাবুনগরী সাহেবকে গ্রেপ্তারের পর হাটহাজারী মাদ্রাসার বড় মসজিদ নির্মাণাধীন থাকায় ছোট মসজিদ বাইতুল আতীকে প্রায় প্রতিদিন আসরের পরে বাবুনগরী সাহেবের জন্য দুআ হতো, আর সেই দুআতে আল্লামা আহমদ শফী সাহেব ছোট্ট বাচ্ছাদের মত চিৎকার দিয়ে হাউমাউ করে কাঁদতেন, আর বলতেন: হে আল্লাহ! তুমি আমার জুনায়েদকে আমার কোলে ফিরিয়ে দাও, আমার জুনায়েদ মুক্ত না হলে আমার মাদ্রাসার অনেক ক্ষতি হয়ে যাবে মাওলা!

একদিন ২৫ মিনিট দুআ করেছেন, পুরো ২৫ মিনিটের দুআটাই ছিল বাবুনগরী সাহেবের জন্য৷

এরপর যখন বাবুনগরী সাহেব মুক্ত হয়ে ফিরলেন, তখনই মূলত দুই শায়েখের দাওয়াতী সফর হেলিকপ্টারে শুরু হয়৷ (যদিও এর আগে এক দুইবার হেলিকপ্টারে সফর করেছিলেন)

হেলিকপ্টারের প্রতিটা সফরে আহমদ শফী সাহেব বাবুনগরী সাহেবকে ছাড়া যাওয়ার চিন্তাও করতেননা, হেলিকপ্টার সফর মানেই বাবুনগরী সাহেবকে তিনি নিয়েই যাবেন৷

আল্লামা আহমদ শফী সাহেব, বাবুনগরী সাহেবকে কত বেশি ভালবাসতেন এই ঘটনা থেকেও বুঝা যায়। ২০১৬ সালের আগ পর্যন্ত আল্লামা আহমদ শফী সাহেব হাটহাজারী মাদ্রাসায় পুরো সহীহ বুখারী একাই পড়াতেন, কিন্তু ২০১৬ সালে অসুস্থতা বেড়ে যাওয়ার দরুন সমস্ত উস্তাদগণকে ডেকে সবার উপস্থিতিতে সহীহ বুখারীর ২য় খন্ড বাবুনগরী সাহেবকে দিয়ে দেন৷

ঐদিন মাগরিবের পর হঠাৎ মাইকে এলান হল, এখন বুখারী শরীফ সানীর সবক হবে! আমি তখন এক হুজুরের সাথে মাদ্রাসার পূর্ব পাশে কামালপাড়া এলাকায় অবস্থান করছিলাম। মাগরিবের পর পরই কল আসল তখনকার অস্থায়ী যিম্মাদার মাওলানা Ali Bin Jakir ভাইয়ের ফোন থেকে। তিনি বললেন, যেখানেই আছো এই মূহুর্তে দারুল হাদীসে চলে আসো, বুখারী শরীফ সানীর সবক হবে, তোমাকে মতন পড়তে হবে!

আচমকা মাথায় যেন আসমানটা ভেঙ্গে পড়লো! হঠাৎ আগে থেকে একবারও না দেখে না পড়ে হাজার হাজার ছাত্রের সামনে কিভাবে পড়বো!

যাহোক, একটা রিক্সা নিয়ে সরাসরি চলে আসলাম মাদ্রাসায় দারুল হাদীসের সামনে।এসে দেখি সুবহানাল্লাহ! হাজার হাজার ছাত্র বসে আছে, দাওরায়ে হাদীসের ছাত্ররা ছাড়াও পুরো মাদ্রাসার বিভিন্ন বিভাগ থেকে অসংখ্য ছাত্রের সমাগম। সবাই অপেক্ষার প্রহর গুণছে কখন দুই শাইখ আসবেন!?

কিছুক্ষন পর দুই শাইখ উপস্থিত হলেন, মুহতামিম সাহেব বললেন পড়ো!

وبالسند المتصل منا إلي الإمام الحافظ الحجة أمير المؤمنين في الحديث أبي عبد الله محمد بن إسماعيل بن إبراهيم…
বলে পড়া শুরু করলাম, কিতাবুল মাগাযী এর নিচের দুই অধ্যায়
باب غزوة العشيرة أو العسيرة:
قال ابن إسحاق أول ما غزا النبي صلى الله عليه وسلم الأبواء، ثم بواط، ثم العشيرة.
উল্লেখিত অধ্যায় পুরোটা আর নিচের অধ্যায়
باب ذكر النبي صلى الله عليه وسلم من يقتل ببدر:
অর্ধেকটা পড়লাম৷

এর পর মুহতামিম সাহেব হুজুর বললেন, ঠিক আছে, রাখো!

পরে মুহতামিম সাহেব হুজুর আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী সাহেবের পরিচয় দেওয়া শুরু করলেন। বললেন, জুনাইদ সাহেব আমার থেকেও যোগ্যতা সম্পন্ন, দক্ষ একজন উস্তাদ। তিনি বংশীয় ভাবেও আমার থেকে অনেক উচু! তাঁর আব্বা আল্লামা আবুল হাসান (রহ:), যিনি এই মাদ্রাসার সিনিয়র মুহাদ্দিস ছিলেন৷

জুনায়েদ সাহেব একজন বড় মাপের মুহাদ্দিস হওয়ার পাশাপাশি কুরআনের হাফেযও, আমি তো কুরআনের হাফেযও নই!

আর তিনি শুধু কুরআনের হাফেযই নন বরং আমার কাছে মনে হয়, তাঁর ইলমুল হাদীস সম্পর্কে যে অগাধ জ্ঞান রয়েছে, এবং তাঁর যে পরিমান হাদীস মুখস্থ আছে, বর্তমান যামানা হিসাবে তাঁকে আমি হাফিযুল হাদীসও বলব!

এই ভাবে মুহতামিম সাহেব হুজুর আমাদের মাঝে বাবুনগরী সাহেবকে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছিলেন এবং প্রশংসা করছিলেন!

আর তাঁর পাশের চেয়ারে বসে পাগড়ি পরিহিত অবস্থায় আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী সাহেব ছোট বাচ্ছার মত অঝোর ধারায় কান্নায় ভেঙ্গে পড়ছিলেন!এরপর মুনাজাত করে দরস শেষ করে বুখারী শরীফ ২য় খন্ড বাবুনগরী সাহেবকে বুঝিয়ে দেন!

এরপর থেকে পুরো বছর বাবুনগরী সাহেব হাফিযাহুল্লাহ আমাদেরকে বুখারী শরীফ ২য় খন্ডের দরস প্রদান করেন৷

এর পরের বছর মুহতামিম সাহেব হুজুরের স্বাস্থ্যের আরো অবনতি হলে মজলিসে শূরা ডাকা হয় এবং সর্বসম্মতিক্রমে বাবুনগরী সাহেবকে মুঈনে মুহতামিমের পদ দেওয়া হয়৷ এই ছিল সোনালী যুগের গল্প৷

মূলত ২০১৭ সালের পর থেকেই আল্লামা আহমদ শফী হাফিযাহুল্লাহ’র একান্ত কাছের লোকেরা বাবুনগরী সাহেবকে তাঁর প্রতিপক্ষ হিসাবে দাঁড় করানোর চেষ্টা শুরু করে, এবং বাবুনগরী সাহেবের বিরোদ্ধে শফী সাহেবকে উস্কিয়ে দিতে থাকে৷

সবাই জানেন, আল্লামা বাবুনগরী হলেন আপোষহীন সংগ্রামী নেতা৷ ওয়াজের মঞ্চে বাতিলের বিরোদ্ধে বজ্রকন্ঠে জনগণের মাঝে ইসলামিক চেতনাকে জাগিয়ে তোলেন। কিন্তু এক শ্রেণীর লোকেরা বাতিলের বিরোদ্ধে বাবুনগরী সাহেবের কথাগুলায় লবন মরিচ ঢেলে সাজিয়ে আহমদ শফী সাহেবকে গিয়ে বলত, হুজুর! ওয়াজ মাহফিলে বাবুনগরী সাহেব আপনার বিরোদ্ধে কথা বলে, এবং এই এই কথাগুলা বলেছে!!!

যাহোক, ২০১৬ সালের পর থেকে বাবুনগরী সাহেবকে শফী সাহেবের প্রতিপক্ষ বানানোর অব্যাহত চেষ্টা জারী রাখে এই দুষ্টুগুলা৷আর এই দুষ্টুগুলার কু-চক্রান্তের দরুনই আজকের এই মহাযুদ্ধময় অবস্থা৷

দুআ করি, আল্লাহ তাআলা উভয় শাইখের মধ্যে ২০১৬ সালের আগে যেমন সু-সম্পর্ক ছিল এমন সু-সম্পর্ক করে দিন, অন্যথায় ইসলাম এবং মুসলমানদের জন্য, উম্মুল মাদারিসের জন্য যা কল্যাণকর হবে তাই করা বা হওয়ার তাওফীক দান করুন৷ আমীন৷

এই সংবাদটি 150 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com