শায়খে গলমুকাপনী (রহঃ)- অনুসরনীয় গুনের আলোকবর্তিকা

প্রকাশিত: ১০:৫১ পূর্বাহ্ণ, জুন ৩০, ২০২০

শায়খে গলমুকাপনী (রহঃ)- অনুসরনীয় গুনের আলোকবর্তিকা

শাহ মমশাদ আহমদঃ

হযরত মাওলানা আব্দুশ শহীদ গলমুকাপনী (রহঃ) সম্পর্কে আমার খালাতো ভাই ছিলেন,ছোটকাল থেকেই কাছ থেকে দেখার সৌভাগ্য হয়েছিল। হযরতের কয়েকটি গুন আমাদের জীবনে প্রতিপালিত করতে পারলে আমরা হতে পারি আলোকিত।

।।বাল্যকাল থেকেই আল্লাহ ওয়ালা।।
আমার ওয়ালেদ মুহতারাম ফাযিলে দেওবন্দ মাওলানা শাহ আব্দুল কাইয়ুম রহ প্রায়ই বলতেন,শায়েখ আব্দুশ শাহীদ ছাত্র জমানা থেকেই আল্লাহ ওয়ালা,সুন্নাতের পাবন্দ।তিনি জন্মগত ওলি স্বভাবের।

।।বে নজীর আমানতদার।।
ছাত্র জমানা থেকেই ওয়াজ নসিহত করতেন,কালক্রমে বিশাল ভক্তকুল গড়ে উঠে, দারুসুন্নাহ গলমুকাপন ছিল তার জানপ্রাণ, আমানতদারীর সাথে জীবনভড় দ্বীনি কাজে ব্যস্ত ছিলেন,জীবনের সম্পদ বলতে হাফেজ আলেম সন্তান, ইসলামের খেদমতে নিবেদিত, স্বমহিমায় প্রস্ফুটিত মেয়ের জামাইগন ও হাজারো ছাত্র অনুরক্ত। আসলে এরাইতো মুল সম্পদ।
আমি অনেক দোয়া মাহফিলে দেখেছি, কেউ কিছু হাদিয়া দিলে বার বার জিজ্ঞাসা করতেন,মাদরাসার কি না? এব্যাপারে খুবই সতর্ক থাকতেন।

।। সুন্নতের জন্য পাগল পারা।।
পরতে পরতে সুন্নাতে রাসুল অনুসন্ধান ও অনুকরণ করতেন,বিশেষত বিবাহ শাদীর ক্ষেত্রে সুন্নাহ বিরুধী সামান্য ত্রুটি বরদাশত করতেন না।

।।তাহাজ্জুদের পাবন্দ।।
উস্তাদে মুহতারাম মুজাহিদে মিল্লাত প্রিন্সিপাল আল্লামা হাবীবুর রহমান (রহঃ) ও হযরাত শায়েখ (রহঃ) একবার একসাথে হজ্ব করেছেন, দুজন একরুমে থাকতেন,হযরত শায়খে গলমু কাপনী অসুস্থ হয়ে পড়েন,প্রিন্সিপাল রহঃ শুশ্রূষার চেষ্টা করলে শায়েখ (রহঃ) এড়িয়ে যেতেন,
প্রিন্সিপাল রহ সে ঘটনা বর্ননা করে প্রায়ই বলতেন, শায়খে গলমুকাপনী লাজুক স্বভাবের এক বুজুর্গ,ভীষণ অসুস্থাবস্থায় ও তাহাজ্জুদ ছাড়তে দেখিনি।

।। আবেগভড়া মায়াবী সম্বোধন।।
মানুষ কে কাছে টানার বিরল গুন ছিল,কিতারে ভাই,মই কিতা কররা, সাক্ষাৎ হলেই বলতেন, সবার সাথেই এরুপ আবেগময় ব্যবহার ছিল।

।। মুচকি হাসি।।
হাদিসে এসেছে, তোমার ভাইয়ের জন্য তোমার মুচকি হাসি সাদাকা,তিনি সারা জীবনই সাদাকার সওয়াব পেয়েছেন,সর্বাগ্রে সালাম দেয়ার চেষ্টা করতেন, অহংকার মুক্ত বিনয়ীতা ছিল তার স্বভাবের অংশ।

।।আত্মীয়তা রক্ষায় সচেতন।।
আত্নীয় স্বজনের খোজ খবর নেয়া,সুখে দুঃ খে শরীক হওয়া,যথাসম্ভব সহযোগিতা ছিল তার নৈমত্তিক কর্মসূচির অংশ।পরিচিতজনের জানাযার নামাজে আগ্রহ সহকারে উপিস্থিত হতেন,স্বজনের শান্তনা দিতেন,আমার ওয়ালেদ মুহতারামের ইন্তেকালের পর আমাকে আব্বাজানের কয়েক ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিদের নাম নিয়ে বললেন, তাদের সাথে সাক্ষাৎ করিও,মনে শান্তি পাবে।

।।দ্বীনী আন্দোলনে প্রেরণা।।
১৯৯৫ সাল,নাস্তিক মুর্তাদ বিরুধী আন্দোলনের সুচনায় মাসাধিক কাল কারাগারে অবস্থান শেষে মুক্তির দুতিন দিন পর সিলেট কুদরত উল্লাহ মার্কেটে হযরতের সাক্ষাৎ পেলাম,ইউসুফ আঃ এর সুন্নাত আদায় করেছো বলে আমার সাথে মুয়ানাকা করলেন,মিশওয়াক টুপি হাদিয়া দিলেন,তা ছিল আমার জীবনে বিশাল অনুপ্রেরণা।

।।পাহাড় সম ধৈর্য্য।।
চার বছর পুর্বে সিলেট আইডিয়াল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন,দেখতে গেলাম, প্রচন্ড মাথাব্যাথা সত্বেও কৌশলাদি জিজ্ঞাসার চেষ্টা করলেন,অসহ্য ব্যথায় জর্জরিত অবস্থায় ও হা হুতাশ না করে মুখে ছিল আল্লাহ আল্লাহ জিকির,এটাই আল্লাহ ওয়ালাদের সুহবতের সুফল।

হযরত মাওলানা আব্দুশ শাহীদ শায়খে গলমুকাপনী ছিলেন,আকাবীর আসলাফের জীবন্ত নমুনা,আসলাফের চেতনা بقية السلف, তার ইন্তেকাল মানেই সিলেট তথা বাংলাদেশের আকাশ হতে একটি দ্বীনী তারকার পতন।
আল্লাহ তাকে জান্নাতের উচু মাকাম দান করুন, পরিবার পরিজন, রহানী সন্তানদের সবর করার তাওফিক দিন।

এই সংবাদটি 29 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com