আলহাজ্ব এম এ হক একজন নির্মল রাজনীতিবিদ

প্রকাশিত: ৭:০২ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ৪, ২০২০

শাহ মমশাদ আহমদ:
আলহাজ্ব এম এ হক রাহিমাহুল্লাহু- একজন নির্মল রাজনীতিবিদ।
১৯৯১ সাল,জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রাক্কালে জামেয়ার প্রথম সাময়িক পরীক্ষার পর ছুটিকালীন বাড়িতে ছিলাম,আমি তখন জামেয়া মাদানিয়ায় ফজিলত প্রথম বর্ষে পড়ি,শেরপুর নতুন বাজারে আমাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ফজলে এলাহি বস্ত্র বিতানে কয়েকজন আলেমের গল্পের আসরে একজন তালেব ইলিম হিসেবে বসে আছি,আসরের মধ্যমনি ছিলেন, বর্ষীয়ান আলেমে দ্বীন আল্লামা মুখলিছুর রাহমান কিয়ামপুরী দাঃ বাঃ।

হুজুর যেখানেই যেতেন আলেম উলামার ইলমি মজলিস জমে উঠতো, এমনি এক মুহুর্তে আমার বড় ভাই শ্রদ্ধেয় হাফেজ শাহ ফুজায়েল আহমদসিলেট-২নির্বাচনী এলাকার বি এন পির সংসদ সদস্য প্রার্থী জনাব এম,এ হক কে নিয়ে উপস্থিত হলেন,আমাদের পরিচয় করিয়ে দিলেন,।হযরত কিয়ামপুরী (দাঃ বাঃ) তখন গহরপুর মাদরাসার মুহাদ্দিস ছিলেন,গহরপুরের পাশ্ববর্তী গ্রামের এম এ হক ভাই একজন সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান বলে মন্তব্য করলেন। পরে জানতে পারলাম সম্পর্কে তিনি আমাদের তালতো ভাই। আমার এক মামতো ভাইয়ের সমন্ধি।

আমাদের এলাকায় বি এন পি খুবই দুর্বল ছিল,তার প্রার্থীতা কেন্দ্র করেই আমার বড় ভাই এলাকার জনপ্রিয় সমাজসেবী হাফেজ শাহ ফুজায়েল আহমদ বি এন পি তে যোগদান করলেন,আমার ছোট ভাই শাহ ইয়াহইয়া ছাত্রদলে সম্পৃক্ত হল, বি এন পির কাজ অনেক জোরদার হলো।

সে সময় থেকেই পরিচয়, ছোট ভাই হিসেবে মুহাব্বাত করতেন। আমাকে দেখলেই কিতারে ভাই কিতা খররে? ফুফু ভালানি? ফুজায়েলের (আমার বড় ভাই)খবর কিতা?দরদমাখাকন্ঠে জিজ্ঞাসা করতেন,তার ইন্তেকালের খবর শুনার পর থেকে একথাগুলো বারবার কানে ভাসছে।

নাস্তিক মুর্তাদ বিরুধী আন্দোলনের সুচনায় বি এন পি ক্ষমতায় ছিলো, আলহাজ্ব এম, এ, হক তখন জেলা বি এন পির সভাপতি, তিনি সকল আলেম উলামাদেরই শ্রদ্ধা করতেন,বিশেষত হযরত প্রিন্সিপাল (রহঃ) এর প্রতি তার অগাধ শ্রদ্ধা ও দরদ ছিল, রাজনৈতিক কারণে তা প্রকাশ করতে না পারলেও পরোক্ষভাবে অনেক সহযোগিতা করেছেন, বি এন পি সরকারের পাটমন্ত্রীর গাড়ী ভাংচুরের মিথ্যা অভিযোগে আমি কারাগারে ছিলাম,এতদসত্বেও দুদিন আমাকে কারাগারে দেখতে গেছেন,সে স্মৃতি আজও হৃদয়ে গেঁথে আছে।

শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি হলের নাম কয়েকজন নাস্তিকের নামে নামকরণের অপচেষ্টা প্রতিরোধে হযরত প্রিন্সিপাল (রহঃ)এর নেতৃত্বে গড়ে উঠা আন্দোলনে জনাব আলহাজ্ব এম,এ, হক এর অবদান কখনো ভুলবার নয়, তিনি প্রায়ই বলতেন,সারা জীবনের আন্দোলন সংগ্রামের মধ্যে আশা করি এ ঈমানী আন্দোলনের ওসিলায় আল্লাহ আমাকে ক্ষমা করে দিবেন।

২০০৫ সাল,জামেয়ার চিরশত্রু প্রভাবশালী এক প্রতিবেশীর যোগসাজশে কয়েকটি জাতীয় পত্রিকা হযরত প্রিন্সিপাল (রহঃ) কে জঙ্গী সাজানোর অভিলাষে কল্পিত সিরিজ প্রতিবেদনে ছাপানো শুরু করল।
একদিন সকাল ৭টা হবে,জনাব এম,এ হক ভাই মোবাইল করে অতিদ্রুত তার বাসায় যাওয়ার জন্য বললেন, তার বাসায় তৎকালীন জাতীয় সংসদ সদস্য, নিখোঁজ বি এন পির জাতীয় নেতা জনাব ইলিয়াস আলী কে ও পেলাম,দু মেরুর বি এন পি নেতাদ্বয়কে একসাথে দেখে বিস্মিত হলাম।

জনাব ইলিয়াস আলীর হাতে সেদিনকার ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টার দেখতে পেলাম”বিন লাদেনের সহযোগী সিলেটের মাওলানা হাবীব” শিরোনামে প্রিন্সিপাল (রহঃ) এর বড় আকারের ছবি দিয়ে প্রতিবেদন করেছে, তা দেখেই নিজেদের বৈরিতা ভুলে দুনেতা সাতসকালে একত্রিত হয়েছেন।দুজনেই ছিলেন বিচিলিত ও উদ্বিগ্ন।
দীর্ঘ সময় পরামর্শ করে আমাকে বললেন,অতি দ্রুত সাংবাদিক সম্মেলন করতে,প্রিন্সিপাল হুজুরের সাথেও মোবাইলে কথা বললেন।

সকাল ১১টায় জামেয়া দফতরে জনাকীর্ণ সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হল,প্রিন্সিপাল (রহঃ) তার অবস্থান সুস্পষ্টভাবে ঘোষণা করলেন, পরদিন ফলাও করে হুজুরের বক্তব্য প্রকাশ হল,হলুদ সাংবাদিকদের মুখে চুনকালি পড়লো।আল্লাহ উভয়কে উত্তম বদলা দিন।

ব্যাক্তিগতভাবে জনাব এম এ হক একজন আল্লাহ ওয়ালা ধার্মিক ব্যক্তি ছিলেন,বায়তুল্লাহর প্রতি হ্রদয়ের টানে প্রতি রমযান মক্কায় ছুটে যেতেন, প্রত্যেহ জামাতে নামাজ আদায়, কুরআন তেলাওয়াতের প্রতি বেশি যত্নশীল ছিলেন।
গম্ভীর প্রকৃতির মা ভক্ত মানুষটি মায়ের অনুমতি ব্যতিরেকে একচুল ও নড়তেন না, রাজনীতিবিদ হওয়াসত্বেও অনর্থক কথা এড়িয়ে থাকতেন।

জনাব এম,এ হক একজন সাদামনের রাজনীতিবিদ ছিলেন,মনের কথা অকপটে বলে দিতেন,রাজনৈতিক ছলছাতুরীতে পারঙ্গম ছিলেন না বিধায় ক্ষমতায় থেকেও নির্বাচনের রাজনীতিতে সফল হতে পারেন নি,একথা তার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ ও স্বীকার করেন।

আমার আব্বাজান রহঃ এর ইন্তেকালের খবর পেয়ে একঘন্টার মধ্যেই আমাদের বাড়ীতে উপস্থিত হয়ে আমাকে জড়িয়ে ধরে যে আন্তরিকতায় শান্তনা দিয়েছিলেন, তা আমার আজীবন মনে থাকবে,বার বার বলছিলেন তোমাদের সাথে আমি ও আজ এতিম হলাম।

দরগাহের হযরত ইমাম সাহেব (রঃ,) হযরত গহরপুরি (রহ,) হযরত প্রিন্সিপাল (রহ) সহ হাক্কানী ধারার সকল আলেমকে খুব মুহাব্বাত করতেন, দ্বীনী শিক্ষায় সহযোগিতা ছিল তার স্বভাবের অন্তর্ভুক্ত, তিনি আলেম উলামার ও প্রিয়ভাজন ছিলেন।

হাদিসে এসেছে, যা যাকে ভালবাসে তার সাথে হাশর হবে,আল্লাহর কাছে দোয়া করি জনাব আলহাজ্ব এম,এ হক মরহুমের হাশর হোক আলেম মাশায়েখদের সাথে।
আল্লাহ তাকে জান্নাতের উচু মাকাম দান করুন।

লেখকঃ মহাদ্দিস-জামেয়া মাদানিয়া কাজিরবাজা, সিলেট।

এই সংবাদটি 25 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com