হায়াতে তায়্যিবা-২ঃ শায়খুল হাদীস মুহাম্মদ বিন ইদ্রিস লক্ষিপুরী

প্রকাশিত: ৮:০৬ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ৪, ২০২০

মু’তাসিম বিল্লাহ সাদী কানাইঘাটী।।

যেসব ওয়ারাসাতুল আম্বিয়াগণ কুরআন হাদীসের শিক্ষা-দীক্ষা,ওয়াজ নসিহত ও আত্মশুদ্ধির মাধ্যমে অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে দ্বীনে ইসলামের ব্যাপক প্রচার প্রসারের জন্য জাতির কল্যাণে নিয়োজিত রয়েছেন তাঁদের মধ্যে হযরত মাওলানা মুহাম্মদ বিন ইদ্রিস লক্ষিপুরী হাফিজাহুল্লাহু অন্যতম ৷ একাদ্বারে তিনি একজন মাদরাসা পরিচালক,শায়খুল হাদীস ও বহুমাত্রিক দ্বীনী খেদমত আঞ্জাম প্রদানে রয়েছে তাঁর নিরলস প্রচেষ্টা ও সর্বসাধারণের কাছে সমাদৃত অস্থাভাজন এক অভিভাবক ৷

জন্ম ও বংশ পরিচয় :১৯৩২ সালে হযরত শাহজালালের পূর্ণ ভূমি,শাহজালালে সানি শায়খুল ইসলাম মাদানী রাহ.এর চারণভূমি, ব্রিটিশবিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের শহিদী কাফেলার বসত ভূমি কানাইঘাট উপজেলার পৌর এলাকার লক্ষ্মীপুর গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত দ্বীনদার আহলে ইলম পরিবারে বাবা মাওলানা ইদ্রিস আহমদ ও মা নুরুন্নেসা খানমের কোল জুড়ে আসে এক নতুন অতিথি ৷ মহীয়সী নুরুন্নেসা খানমের দু’চোখ শীতল করা এক নতুন মেহমান ৷ বাবা-মা আদর করে নাম রাখলেন মুহাম্মদ ( প্রশংসিত, যিনি পরবর্তিতে সকলের প্রশংসিত হবেন ) তাঁরা জানতেন না,তাঁদের এ সন্তানটি একদিন মহান আল্লাহর অশেষ দয়ায় নেক আমল ও হুসনে আখলাকের মাধ্যমে সর্বসাধারণে অন্তরে ভালোবাসার পাত্র হয়ে প্রশংসিত হয়ে থাকবে সর্বক্ষণ ,
একজন সত্যিকারের নায়বে হয়ে আলেম সমাজের প্রথিতযশা শিক্ষাবিদ হিসেবে অধিষ্ঠিত হবে ৷ কিন্তু কালান্তরে তাই হলো ৷ সুনাম ও সুখ্যাতির সেই উচ্চ মার্গে আল্লাহ তাআলা তাঁকে পৌঁছালেন,যেখানে পৌঁছানো মহান আল্লাহ তাআলার কাছে তাঁর জন্য সুনির্ধারিত ছিল ৷ তাঁর পিতা- মরহুম হযরত মাওলানা ইদ্রিস রাহ.সেকালে একজন আল্লাহ ওয়ালা সুদক্ষ আলেম ছিলেন ৷ তিনি লালারচক রহমানিয়া মাদরাসা প্রতিষ্টাতাদের মধ্যে অন্যতম ৷ আজকের কানাইঘাট দারুল উলুম মাদরাসার ১৯২২ সালের ব্রিটিশ বিরোধী লড়াইয়ের সময় মুহতামিম ও বীর বিচক্ষণ আলেমেদ্বীন ছিলেন ৷ আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরীসহ বহু জ্ঞানী-গুণীজনের শিক্ষকও ছিলেন তিনি ৷

শিক্ষাজীবন : তাঁর পিতার একান্ত ইচ্ছা ছিলো ,নিজের মত করে আপন ছেলেকে একজন আদর্শ,চরিত্রবান ও সত্যিকারের দ্বীনে ইসলামের খাদেম হিসেবে গড়ে তোলার ৷ কিন্তু আল্লাহর মহিমায় সন্তানের তিন বছর বয়সে তিনি চলেগেলের মাওলার সান্নিধ্যে ৷ পিতৃহারা সন্তান মায়ের স্নেহ মমতায় লালিত পালিত হন ও তাঁরই তত্ত্বাবধানে প্রাথমিক লেখাপড়ার হাতেখড়ি ৷ এবং সাথে সাথে গ্রামের সাবাহী মক্তবে আরবি শিক্ষা গ্রহণ করেন ৷ এরপর বায়মপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে লেখাপড়া করেন ৷ বায়মপুরের আর এক ইলমের সমুদ্র ফাজিলে রামপুরী হযরত মাওলানা মুফতি ফয়জুল হক রাহ. তাঁকে নিয়ে লালারচক রহমানিয়া মাদরাসায় ভর্তি করেদেন ৷ শিশুকালে পিতৃহারা হওয়ার কারণে একটু দেরিতে তিনি মাদরাসায় যান ৷ এখানে তিনি শরহে জামী ( আলিয়া ছুওম ) পর্যন্ত মুফতি সাহেবের তত্ত্বাবধানে অত্যন্ত সুনামের সাথে অধ্যয়ন করেন (১৯৫৩ সালে আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী রাহ. চলে আসেন কানাইঘাট মাদরাসায় ৷ তিনি এসে১৯৫৪ সালে মোতাবেক ১৩৬০ বালার ২১শে বৈশাখ রোজ সোমবার চালু করেন দাওরায়ে হাদিসের ক্লাস। একাধারে মাদরাসার পরিচালক ও শায়খুল হাদিস ছিলেন আল্লামা বায়ামপুরী রাহ.) ৷ এরপর তিনি উচ্চ শিক্ষার্জনের জন্য ১৯৫৭ সালে চলে যান কানাইঘাট দারুল উলুম মাদরাসায় ৷ ভর্তি হন মুখতাসারুল মাআনী জামাতে ৷ মুখতাসার থেকে দাওরায়ে হাদীস পর্যন্ত অত্যন্ত সুনাম ও সুখ্যাতির সাথে লেখাপড়া করে ১৯৬২ সালে তাকমিল ফিল হাদীস পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে প্রথম স্থান অধিকার করে কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হন ৷ তাছাড়া প্রতিটি পরীক্ষায় তিনি প্রথম বিভাগে প্রথম স্থান অর্জন করেন ৷
তিনি যে সকল শ্রদ্ধাভাজন উস্তাদগণের অক্লান্ত নিরলস প্রচেষ্টায় ও অকৃত্রিম ভালোবাসায় একজন শায়খুল হাদীস হিসেবে প্রতিষ্ঠাতাঁ লাভ করেছেন, সে সকল শিক্ষকগণের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন,
বুখারী শরীফ আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী রাহ. এর কাছে,মুসলিম শরীফ আল্লামা মুজ্জাম্মিল রাহ.এর কাছে,তিরমিযী আল্লামা আংরব কাসেমী রাহ.এর কাছে,আবু দাউদ আল্লামা শহরুল্লাহ চটির রাহ.এর কাছে,তাফসিরে বায়যাভী শরীফ আল্লামা শফিকুল হক আকুনী রাহ. এর কাছে ৷ হযরত মাওলানা ফয়জুল বারী মহেষপুরী রাহ.,হযরত মাওলানা মুফতি ফয়জুল হক বায়মপুরী রাহ.,হযরত মাওলানা ইলিয়াস পাত্রমাটি রাহ.,হযরত মাওলানা আজিজুর রহমান বিষ্ণপুরী রাহ.সহ প্রমুখ মনীষীদের কাছে তিনি জ্ঞান অর্জন করেন ৷

কর্মজীবন : যারা ছাত্রজীবনে লেখাপড়ায় খুবই মেধাবী ও ভালো হন, সুন্নাতে নববীর ওপর পুরাপুরি পাবন্দ হন ও হুসনে আখলাক ওয়ালা হন ৷ তাদেরকে শিক্ষকগণ ঐ প্রতিষ্ঠানের উস্তাদ হিসেবে নিয়োগ দিতে খুবই আগ্রহী হন,হযরত লক্ষিপুরীর বেলায় তাই হয়েছে ৷ তিনি তাকমিল ফিল হাদীস পাশ করার পর আল্লামা বায়মপুরী রাহ. তাঁকে কানাইঘাট দারুল উলুম মাদরাসার শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ প্রদান করেন ৷ কানাইঘাট মাদরাসাই তাঁর ছাত্রজীবনের শেষ অধ্যায় এবং কর্মজীবনের সূচনা ৷ যুগশ্রেষ্ঠ মুহাদ্দিসিন স্বীয় উস্তাদদের সঙ্গে অত্যন্ত সুনাম ও দক্ষতার সাথে পাঁচ বছর শিক্ষকতা করেন এখানে ৷ কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার মুশাহিদিয়া খাগাইল মাদরাসায় উচ্চস্থরের একজন শিক্ষককের প্রয়োজনের জন্য মাদরাসা কর্তৃপক্ষ আল্লামা বায়মপুরী রাহ.এর কাছে অনুরোধ করলে তিনি হযরত লক্ষিপুরীকে খাগাইল মাদরাসায় সদরুল মুদাররিস হিসেবে প্রেরয়ণ করেন ৷ এখানে হযরত লক্ষিপুরী হাফি.অত্যন্ত সুনাম ও সুখ্যাতির সাথে বছর তিনেক শিক্ষকতা করার পর ১৯৭০ সালে আল্লামা বায়মপুরী রাহ.ওফাতের পর আল্লামা মুজাম্মিল রাহ.এর নির্দেশে আবারোও তিনি কানাইঘাট মাদরাসায় চলে আসেন ৷ ১৯৭০ থেকে সুদীর্ঘ অর্ধশতাব্দী তিনি দরসে নেজামীর গুরুত্বপূর্ণ ও জটিল কিতাবাদিসহ কোরআনুল কারীম পর সবচে সহীহ কিতাব বুখারী শরীফ দীর্ঘ চারদশক ধরে অত্যন্ত সুনাম ও সুখ্যাতির সাথে পাঠদান করে আসছেন।

তাঁর দীর্ঘ শিক্ষকতা জীবনের সোনালী ফসল হিসেবে যারা দেশে -বিদেশে বিভিন্ন স্থানে দ্বীনের বহুমুখি খেদমত আঞ্জাম দিয়ে যাচ্ছেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম হলেন – শায়খুল হাদীস আল্লামা শিহাব উদ্দীন চতুলী রাহ., শায়খুল হাদীস আল্লামা আলিমুদ্দীন দুর্লভপুরী,শায়খুল হাদীস মাওলানা শফিকুল হক সুরইঘাটী,শায়খুল হাদিস মাওলানা মাহমুদুল হাসান রায়গড়ী,শায়খুল হাদীস মাওলানা আবদুল মান্নান কোম্পানিগঞ্জী রাহ. ,শায়খুল হাদীস মাওলানা নসিব আলী কানাইঘাটী রাহ.,শায়খুল হাদীস মাওলানা শামসুদ্দীন দুর্লভপুরী, বহুগ্রন্থ প্রণেতা লেখক কলামিষ্ট হযরত মাওলানা ফয়েজ আহমদ কানাইঘাটী রাহ.,হযরত মাওলানা আবদুর রহমান বিন মুশাহিদ রাহ., হযরত মাওলানা খালেদ সায়ফুল্লাহ প্রমুখ।

পারিবারিক জীবন : আল্লামা বায়মপুরী রাহ.তাঁকে অত্যন্ত স্নেহ মায়া মমতা ও মহববত করতেন ৷ তাঁর জ্ঞান-বুদ্ধি,ইলম,আমল ও সুন্দর ব্যবহারের জন্য ৷ পূর্বের দূর সম্পর্কে ভাগিনা হওয়া সত্বেও নিজের প্রিয়তমা কন্যাকে বিবাহ দিয়ে নতুনভাবে আবারোও আত্মীয়তার সম্পর্ক করেন ৷ তাই তিনি ১৩৭০ বাংলা সনে শায়খুল ইসলাম আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী রাহ.প্রথমা কন্যা মোছা.রায়হানা বেগমের সাথে কর্মজীবনের শুরুতে শুভ বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে পারিবারিক জীবনের সূচনা করেন ৷ তার ঘরে কোনো সন্তানাধি না হওয়াতে পরবর্তীতে তিনি চড়িপাড়া নিবাসী জনাব আমজাদ আলীর ১মা কন্যা মোছা.মাহমুদা বেগমের সাথে দ্বিতীয় বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। দ্বিতীয় সংসারে এক কন্যা সন্তান জন্মের পরই মৃত্যু বরণ করেন। পারিবারিক জীবনে তাঁর আর কোন সন্তান না থাকলে ও হাজার হাজার রুহানী সন্তান আছে দেশে-বিদেশে ৷

মুহতামিম ও বিভিন্ন দায়িত্ব : তিনি মাদরাসায় শিক্ষাদানের পাশাপাশি বিভিন্ন দায়িত্বও পালন করে যাচ্ছেন অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে ৷ তিনি দীর্ঘদিন থেকে কানাইঘাট মাদরাসার নায়বে মুহতামিমের দায়িত্ব আদায়ের পর ২০০৭ সালে বার্ধক্যজনিত কারণে হযরত ফয়যুল বারী মহেষপুরী রাহ.ইহতেমামির দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নেওয়ার পর মাদরাসা কর্তৃপক্ষ তাঁর উপর মাদরাসার মুহতামিমের গুরু দায়িত্ব অর্পণ করেন ৷ তিনি সকল মত পথের ঊর্ধ্বে উঠে মাদরাসার উস্তাদগণ ও এলাকাবাসির পরামর্শ নিয়ে অত্যন্ত সুন্দর ও সুষ্ঠভাবে সাদরাসার মুহতামিমের দায়িত্ব আঞ্জাম দিয়ে যাচ্ছেন ৷ কানাইঘাট মাদরাসা ছাড়াও লালারচক রহমানিয়া মাদরাসার মুহতামিমসহ বিভিন্ন প্রতিস্টানের মজলিসে শুরার সভাপতির দায়িত্বও পালন করে যাচ্ছেন ৷ আজাদ দ্বীনি এদারা পূর্ব সিলেট বেসরকারি মাদরাসা বোর্ডের সদর বা সভাপতির দায়িত্বও সুষ্ঠভাবে আঞ্জাম দিয়ে যাচ্ছেন ৷ এবং মুশাহিদিয়া কিরাত প্রশিক্ষণ শিক্ষা বোর্ড ও অরাজনৈতিক সংগঠন জমিয়তে উলামা বাংলাদেশ এর প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন ৷ তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম কানাইঘাট উপজেলা শাখার সভাপতি ও জেলা শাখার সদস্য পদেও ছিলেন ৷

তাসাউফ বা আধ্যাত্মিক জীবন : তাযকিয়া নাফস তথা আত্মশুদ্ধির জন্য তিনি শায়খুল ইসলাম আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী রাহ. এর হাতে বায়াত গ্রহণ করেন । তিনি তাজকিয়ায়ে ক্বলবের মেহনতের ফলে ১৩৬৭ বাংলায় মুশাহিদিয়া খাগাইল মাদরাসার শিক্ষক থাকা অবস্থায় স্বীয় পীর ও শ্বশুরের কাছ থেকে খিলাফত বা ইজাজত লাভ করেন ৷ আধ্যাত্মিকতার জগতে আল্লামা বায়মপুরী রাহ. ছিলেন খুব উচুঁমাপের সাধক। তবে তিনি কখনও এটা প্রকাশ হতে দিতেন না। সবসময় নিজেকে আড়াল করে রাাখতেন। বহু জ্ঞানী-গুণীজন তাঁর কাছে ইলমে তাসাউফের দীক্ষা নেন। কিন্তু হাতেগণা কয়েকজনকে খেলাফত প্রধান করেন এর মধ্যে হযরত লক্ষিপুরী হাফিজাহুল্লাহ একমাত্র তাঁর জীবিত খলীফা, আসলাফ ও আকাবিরদের প্রতিচ্ছবি দুনিয়া বিমুখ গুমনাম এক আল্লাহর ওলি ৷

ওয়াজ নসিহত ও খতিব : তিনি সুদীর্ঘ অর্ধশতাব্দী ধরে মাদরাসায় পাঠদান ও পরিচালনার পাশাপাশি সর্ব সাধারন জনগণকে দ্বীনি শিক্ষা দেওয়ার উদ্দেশ্যে ওয়াজ-নসিহত দাওয়াত ইরশাদের খেদমতের করে যাচ্ছেন ৷ তিনি কোরআন ও হাদিসের আলোকে ইখলাস ও দরদের সাথে বয়ান করেন ৷ উত্তর পূর্ব সিলেটের প্রায় মসজিদ মাদরাসার বার্ষিক সভাসমাবেশ ও বিরাট বিরাট তাফসির মাহফিলের প্রধান অতিথি হিসেবে ঘন্টার পর ঘন্টা বয়ান পেশ করেন ৷ তাঁর বয়ানে উপকৃত হচ্ছে সর্বসাধারণ ৷ তিনি ৯০ এর দশক থেকে কানাইঘাট বাজার মসজিদে খতিবের দায়িত্ব পালন করে আসতেছেন ৷ তাঁর বয়ানে বসলে আল্লাহর কথা স্বরণ হয়,আমলে নবী,আখলাকে নবীর পুনর্জীবিত হয় ৷ পরকালের শাস্তির ভয়ে দু’চোখ দিয়ে অশ্রু পড়ে ৷

হজ্ব ও রোগমুক্তি : হযরত লক্ষিপুরী হাফিজাহুল্লাহ এপর্যন্ত বেশ কয়েক বার হজ্বে যাওয়ার সৌভাগ্য লাভ করেন ৷ তিনি ধলব রোগী ছিলেন ১৯৮২ সাথে হজ্বে গিয়ে মহান আল্লাহর দরবারে কায়মনোবাক্যে দোআ করেন ৷ “হে আল্লাহ ! তুমি সাদা রঙ কালো রঙ সবরঙের সৃষ্টিকর্তা, হয়তো তুমি আমার সরা শরীর কালো করে দাও না হয় সাদা করে দাও”। আল্লাহ তাঁর প্রিয় বান্দার দোআ কবুল করলেন। ধলব শরীর সাদা রঙের পরিবর্তন হয়েগেল। হজ্ব থেকে আসার পর তাঁকে কেউ চিনতেই পারেননি।পূর্বের লক্ষ্মীপুরী আর এখনকার লক্ষ্মীপুরী আকাশ-পাতাল ব্যবধান। এখন আর তিনি ধবল রোগী নয় ৷ তাঁকে দেখলে একজন সত্যিকারের আল্লাহর ওলি মনে হয় ৷ তাঁর খেদমতে গেলে আল্লাহর কথা স্বরণ হয় ৷ এই আল্লাহর ওলি, ইলমে দ্বীনের খেদমতগার বয়স প্রায় ৯০এর কাছাকছি বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে আগেরমত আর চলাফেরা করতে পারেননি ৷ মহান আল্লাহর দরবারে দোআ করি তিনি যেন তাঁকে সুস্থতার সাথে নেক ও বরকতময় হায়াত দান করুন ,আমীন ৷

———————————

পরিশেষে সবার কাছে অনুরোধ করছি তত্ত্বগত কোনোপ্রকার ভুল হলে অথবা
যারা হুজুরের কাছে পড়েছেন, আশা করব আপনারা হুজুর সম্পর্কে কোনো নতুন তত্ত্ব জানা থাকলে কমেন্ট দিয়ে সহযোগিতা করবেন পরবর্তিতে আমরা সংশোধন করে আরও সমৃদ্ধ করবো ৷ ২০০৪ সালে লেখাটি সংগ্রহ করেছিলাম একটু পরিবর্তন করে পাঠকের খেদমতে আবারো পেশ করলাম ৷

এই সংবাদটি 27 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com