ভালোবাসা আল্লাহর জন্যে, ঘৃণাও আল্লাহর জন্যে’

প্রকাশিত: ৭:২৯ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ৯, ২০২০

মাওলানা ওয়ালি উল্লাহ আরমানঃ

এই দেশে দ্বীন, ইসলাম ও ঈমানী আন্দোলনের শীর্ষ নেতৃত্বে কাউকে ঠিক তখনই বসানো হয়, যিনি আগেই কর্মক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছেন। দায়িত্ব পরিচালনায় নির্ভর করতে হয় এক বা একাধিক ব্যক্তির ওপর। তারা মিডলম্যান হয়ে অনেক সময় উপরস্থ ব্যক্তির ইমেজ ব্যবহার করে জাতিবানিশী তৎপরতায় লিপ্ত হয়। অথচ হওয়া উচিত ছিলো এর সম্পূর্ণ বিপরীত। মানুষ যখন বার্ধক্যের শেষ মাথায় পৌঁছে যায়। তার কর্মক্ষমতা আর চিন্তার গভীরতা বলে কিছুই যখন থাকে না। বিশেষত যদি তিনি বড়, বিখ্যাত এবং শীর্ষস্থানীয় কেউ হন, তখন তার সন্তান এবং একান্ত বিশ্বস্ত আপনজনের কর্তব্য ও দায়িত্ব হয় তার সম্মান এবং মর্যাদা ধরে রাখার। যদিও এর বিপরীতটাই সংঘটিত হয়।

নিতান্ত হতাশা, দুঃখ, পরিতাপ ও দুর্ভাগ্যের বিষয় হচ্ছে; এই দেশে যখনই কেউ ইসলামের নামে মানুষের আস্থা, ভালোবাসা আর আনুগত্য লাভ করে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছে যান, তখন সেই আস্থা আনুগত্য এবং আবেগ নিয়ে অহরহ ছিনিমিনি খেলা চলে।

আমাদের অঙ্গনে মেয়াদোত্তীর্ণ ও পঁচে গলে যাওয়া হেফাজতে ইসলাম ইস্যুতে চরম হযবরল অবস্থা বিরাজ করছে বহুদিন যাবত। হাইব্রিড ও ভুঁইফোড়দের উত্থানে ইসলামী রাজনীতি তছনছ হয়ে গেছে। স্বজনপ্রীতি ও স্বেচ্ছাচারিতায় শিক্ষাব্যস্থায় ভয়াবহ অব্যবস্থাপনা বিরাজ করছে। এখানে ওপরে ওঠা, নিচে নামানো, সাইজ করা, কনুই মারামারি প্রভৃতি কারণে করোনা মহামারীর চেয়ে আরো মারাত্মক ভাইরাস সংক্রমিত হচ্ছে। বিশেষত একক ও অবিসংবাদিত অভিভাবক আমীর সাহেব বার্ধক্যে কাবু হওয়ার পর এটি মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। ওদিকে হেফাজতের আমীর, বেফাক ও হাইয়াতুল উলয়ার প্রধান পদবীগুলো একজনের হাতে থাকার কারণে পোয়াবারো হয়েছে ফুলেফেঁপে ওঠা সুবিধাবাদীদের।

গত সাতটি বছর যখনই হেফাজত নিয়ে আলোচনা এসেছে, ক্ষতিগ্রস্ত অথবা সংক্ষুব্ধদের ক্ষোভ কিংবা আর্তনাদের মধ্যে পরোক্ষভাবে আমীর সাহেবের ব্যাপারে মৃদু চাপা কষ্ট প্রকাশ পেলেও কেউ কখনো তাঁর দিকে অভিযোগের তীর ছোঁড়েনি। ‘গাদ্দারে শানে রেসালত’ ইস্যুতেও তাঁর দিকে তাকিয়ে অনেকে তাঁর ‘একান্ত কাছের’ দিকেও চোখ তুলে তাকায়নি। কিন্তু সম্প্রতি একের পর এক অদ্ভুত আর উদ্ভট সব সিদ্ধান্তের কারণে তার আকাশচুম্বী গ্রহণযোগ্যতা ও ইমেজ মাটির সাথে মিশে যাওয়ার অবস্থা তৈরি হয়েছে।

‘উস্তাযের নিকটজনের ওপর আক্রমণ হলে পরোক্ষভাবে উস্তাযের ওপরেই যেন আক্রমণ হয়’ নীতিতে বিশ্বাস করে আমার মত বহুদুরের ছাত্র কেবলমাত্র উস্তাযের প্রতি অন্ধ আবেগ আর নিঃস্বার্থ ভালোবাসার কারণে অসংখ্যবার বহু মানুষের আক্রমণ আর আঘাত সয়েছি। বহু স্নেহভাজনের কাছ থেকে দূরে সরে গিয়েছি। তাদের বিষাক্ত আক্রমণে জর্জরিত হয়েছি। তারপরেও প্রতিবাদকারীদের জবাবে নিজে থেকেই পাল্টা জবাব দিয়েছি। অথবা নিজের মতো করে ব্যাখ্যা এবং সাফাই গেয়েছি। এটা করতে গিয়ে কত রকমের অপবাদ যে আমাকে সইতে হয়েছে!

এসব কারণে একজন ত্যাগী, আপোষহীন এবং মজলুমের পক্ষে মুখ খুলতে পর্যন্ত পারিনি। যে কারণে অনেক ঘনিষ্ঠজন পর্যন্ত আমাকে অনলাইনে বলেছে যে, আমি ‘জালেমের সহযোগী।’ অথচ আমার আল্লাহ জানেন যে, আমার দুর্বলতা একমাত্র নিজের মহান শিক্ষকের প্রতি ভালোবাসা। নতুবা এমন জুলুম দেখে সামান্যতম বিবেকবানের পক্ষে চুপ থাকা সম্ভব নয়।

আজ সেই আমীর সাহেবের নামে চরম আত্মঘাতী বিবৃতি দেখে সকল সংযম আর ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে গেছে।

অভিধানে ‘লজ্জা’ বলে একটা শব্দ আছে। ‘আত্মসম্মানবোধ’ বলেও একটা বিষয় আছে। কিন্তু ইদানিং কারো কারো কার্যক্রমে মনে হয় তাদের অভিধানে এমন কোনো শব্দের অস্তিত্ব নেই।
চতুর্দিকে তরুণ সমাজ কর্তৃক বরেণ্যর প্রতি এতো ঘৃণা, এতো বদনাম আর প্রতিবাদ প্রতিরোধের আওয়াজ দেখে ভেবেছিলাম তারা ঘৃণ্য খেলায় কিছুটা হলেও ক্ষান্ত দিবেন। কিন্তু আজ দুপুরে যখন দেখলাম নতুন করে তারাও পাল্টা বিবৃতির নামে মৃত হেফাজতের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে দিলেন, তখন আমাকে অনুতাপ প্রকাশ করে বলতে হচ্ছে, আল্লাহ আমি যদি এই বিষয়ে কোনো ভুলের মধ্যে থেকে থাকে তুমি আমাকে মাফ করে দিও।

যতোই আমীরের নামে বিবৃতি দেয়া হোক না কেন, এটা সবাই জানে যে, তার পক্ষে এখন পত্রিকা পড়া অথবা পত্রিকার খবর রাখার মতো সুযোগ এবং সুস্থতার কোনোটাই নেই। তাহলে যারা এই পাল্টা বিবৃতি দিয়েছেন, তারাই চাইছেন প্রকাশ্যে নিজেদের কদর্য রূপটি জাতির সামনে তুলে ধরতে। লাগুক না তাতে ওই বয়সী মানুষটির গায়ে আরো কিছু ময়লা।
হায় আফসোস! বিবৃতিতে তারা কাদেরকে নাস্তিক্যবাদের দোসর বলছেন? কাদেরকে তারা ছদ্মবেশী বলছেন?

তারা এমনটাই যখন করছেন, তাহলে আমাদের দিক থেকে আর ‘মায়ের চেয়ে মাসীর দরদ’ দেখানোর দরকার নেই।

এই হেফাজত নিয়ে অনেক কিছু দেখেছি। অনেক কিছু সয়েছি। কিছু বলেছি। অনেক কিছু চাপা দিয়েছি। দুই কেন্দ্রের গুঁতোগুঁতির মাঝখানে পড়েছি। যাদের হয়ে ফাইট দিয়েছি সেখানে কর্তৃত্বের বলি হতে হয়েছে। কারো কারো গভীর ক্ষমতা বুঝতে না পেরে তিক্ত সত্যোচ্চারণের কারণে একবার একটি প্রোগ্রামে শতশত আলেমের সামনে থেকে ‘জামায়াত, জঙ্গী অথবা তারচেয়েও ভয়ঙ্কর কিছু’ মিথ্যা অভিযোগ পেয়ে প্রশাসনের লোকজন তুলে নিতে চাইলে শেষ মুহূর্তে আল্লাহর মেহেরবানীতে বন্ধুদের মরিয়া প্রচেষ্টায় রেহাই মেলে। দ্বিতীয়বার ‘আন্তর্জাতিক সন্দেহভাজন জঙ্গিদের সহযোগী’ অভিযোগে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের নজরে পড়তে হয়। নানাবিধ যাচাই-বাছাই, তদন্ত ও জিজ্ঞাসাবাদের পর তারা ছেড়ে দেয়ার সময় বলেন, আপনি সম্ভবত প্রভাবশালী কোনো মহলের সাথে ঝামেলায় জড়িয়েছেন। নিরীহ মানুষ, সতর্ক হয়ে চলবেন।’

আলহামদুলিল্লাহ আজ পর্যন্ত হেফাজতের মাধ্যমে কোনোরূপ সুবিধা গ্রহণ অথবা অন্যায়কর্মের সাথে আমার সামান্যতম সম্পর্কও ছিলো না। তাহলে ছদ্মবেশীদের অপকর্মের দায়ে আমি কেন অভিযুক্ত হবো। এতো দিন ভালোবেসেছি ‘আল্লাহর জন্যে’, আজ থেকে ‘ঘৃণাও আল্লাহর জন্যে।’

(পরিচিত অপরিচিত যারাই আমাকে নানাভাবে জঘন্য মিথ্যা অপবাদ আর তোহমত দিয়েছেন, লি-ওয়াজহিল্লাহ তাদেরকে ক্ষমা করে দিলাম)

এই সংবাদটি 29 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com