বেফাকের অনিয়ম নিয়ে ফোনালাপ ফাঁসঃ মহাসচিবের পদত্যাগ দাবি

প্রকাশিত: ১০:১৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১০, ২০২০

সিলেট রিপোর্টঃঃ দেশের সর্ববৃহৎ কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার বাংলাদেশ এর মহাসচিব মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস এর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ উঠেছ। বিগত কাউন্সিলে অর্থনৈতিক অনিয়ম ও স্বজন প্রীতির মাধ্যমে পদায়নের অভিযোগও উঠেছে। এছাড়া সিনিয়র সহসভাপতি+মহাসচিব উভয় পদ নিজে ভাগিয়ে নেন। বোর্ডের বয়োবৃদ্ধ চেয়ারম্যান আল্লামা শাহ আহমদ শফীর বার্ধক্যজনিত বিষয়টিকে কেন্দ্রকরে তিনি নিজে একাই রামরাজত্ব কায়েম করেন। অনুসন্ধানে জানাগেছে, গত কাউন্সিলে আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জীী, আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর মতো সিনিয়র আলেমদের অবমুল্যায়ন কতিপয় ছেলে বয়সি জুনিয়রদের সহসভাপতি হিসেবে নিয়োগ দেন তিনি।
মুহতামিম নন এমন কয়েকজনকে অনৈতিক ভাবে তিনি পদায়নের মাধ্যমে একক কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করেন। এছাড়া নিজ কর্মস্থল ফরিদাবাদকে বেফাকের অঘোষিত কেন্দ্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেন।
সম্প্রতি মহাসচিব ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক এই
দুই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ফোনে নিয়মবহির্ভূত কথা বার্তার অভিযোগে একটি অডিও বার্তা নিয়ে ফেসবুকে তোলপাড় চলছে। এবিষয়ে জনৈক উসামা মুহাম্মদ এর আইডি থেকে একটি প্রতিবেদন পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলোঃ

ফরিদাবাদের দূর্নীতি ও স্বজনপ্রীতি নিয়ে যখন লেখালেখি শুরু করেছি তখন থেকেই অনলাইনে সরব হয়ে উঠেছে আব্দুল কুদ্দুস সাহেবের পা চাটা গোলাম নানা অপকর্মের অন্যতম অংশীদার স্বল্পপেন্নাই গৌরিপুর, কুমিল্লার নাজেমে তা’লীমাত ও অলিখিত শায়খুল হাদীস আব্দুল হান্নান।

প্রতিষ্ঠান পরিচিতি : গৌরিপুরের এই প্রতিষ্ঠানটির মুহতামিমও বেফাক মহাসচিব আব্দুল কুদ্দুস সাহেব। দরসের ক্ষেত্রে বুখারী আওয়াল কাগজে কলমে তার নামে লেখা থাকলেও মাঝে মধ্যে গিয়ে সবক পড়িয়ে আসেন তিনি ও ফরিদাবাদের নায়েবে মুহতামিম নূরুল অামীন। বাকীটা পড়ায় তার একান্ত শিষ্য আব্দুল হান্নান।

মুহতামিম হিসাবে তার রয়েছে নিয়মিত আলাদা বেতন ভাতা, তাছাড়া যখন যান তখন কমপক্ষে ৫ হাজার টাকা রাহ খরচ সম্মানী দেয়া হয় প্রত্যেককে, এর বাহিরে রয়েছে প্রাইভেট গাড়ী ভাড়া ভাউচার আলাদা মঞ্জুর করা।

সেখানের বর্তমানে মাত্র ২ জন ছাড়া বাকী সবাই ফরিদাবাদের। গায়রে ফরিদাবাদের যেই আসুক – থাকুক তাকে গোলামীর জীবন বরণ করেই থাকতে হয়। অন্যায় ও জুলমের প্রতিবাদ করায় চাকুরী হারাতে হয়েছে অনেক যোগ্য উস্তাযের।

বেফাকের প্রশ্ন ফাঁস : এটা গতবারের ঘটনা নয় তার আগের বারের। অর্থাৎ ২০১৮ সালের বেফাক পরীক্ষার ঘটনা।
২০১৯ তো সারা দেশে হইচই পড়েছে কিন্তু ২০১৮ চমৎকারভাবে ধামাচাপা দেয়া হয়েছে।

২০১৮ সালে গৌরীপুরের মেশকাতের কয়েক ছাত্র মিলে রাতে প্রশ্নপত্রের রুমে ঢুকে প্রশ্নের প্যাকেট খুলে পিক তুলে আবার সুন্দরভাবে প্যাকেট আটকে চলে আসে। শুধু যে মেশকাতের প্রশ্নই তারা এভাবে চুরি করেছে তা ই নয়, বরং অন্যান্য জামাতের প্রশ্নও নিয়েছে এবং কাছের লোকদেরকে দিয়েছে এবং বিক্রিও করেছে।

প্রশ্ন নিরাপত্তার যিম্মাদারীতে ছিলো মাদরাসার নাজেমে তা’লীমাত বুযুর্গ (!) মানুষ খলীফায়ে আব্দুল কুদ্দুস মুফতী আব্দুল হান্নান। এ ঘটনা ছাত্ররা নিজেরা ঘটিয়েছে নাকি ঘটানো হয়েছে সেটা সচেতন পাঠক নির্ণয় করবেন। যেহেতু কোন তদন্ত হয়নি তাই জানা নেই।

তাদের এই ঘটনা ফাস হয়ে গেলে নাজেম সাহেব ছাত্রদের উপর অপবাদ দেয়ায় মেশকাতের সব ছাত্র রাতের আঁধারে মাদরাসা ত্যাগ করেছে। আর পরীক্ষা দিবেনা মর্মে। তারপর সকাল থেকে নাজেম আব্দুল হান্নান ফোন করে ছাত্রদেরকে বুঝিয়ে শুনিয়ে সবাইকে পরীক্ষার হলে আনতে আনতে সময় তখন ১০ টা ৪৫।

অথচ পরীক্ষা শুরু ৯ টায়। ওদিকে মহাসচিবের সাথে সার্বক্ষণিক চলছে যোগাযোগ। মহাসচিব বলছেন ছাত্রদেরকে যে কোন উপায়ে আনিয়ে পরীক্ষা দেওয়ানোর জন্য। তারপর সুষ্ঠুভাবে এই ঘটনা ধামাচাপা দেয়া হয়, সকল ছাত্রই অত্যন্ত সুন্দরভাবে পরীক্ষা দেয় সেই ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্রে। এটা এখনো ওই মাদরাসায় স্বীকৃত ঘটনা। শুনা যায় এটা তখন ধামাচাপা দেয়া হয়েছিল মরহুম আশরাফ আলী সাহেবের মাধ্যমে। তাকে কি বুঝিয়েছিল কে জানে!

অডিও ক্লিপের ঘটনা : ২০১৯ সালের পরীক্ষায় সে মাদরাসার মেশকাতের সব ছাত্র পরীক্ষা দেয়নি, কারণ পরীক্ষা দেয়ারই উপযুক্ত নয় এমন দুর্বল ছাত্র। অল্প কয়েকজন বেফাকে পরীক্ষা দিয়েছে মাত্র। যারা পরীক্ষা দেয়নি তাদের এবারের দাওরার নিবন্ধন কিভাবে হয়েছে ও মহাসচিব এবং নাজেমে ইমতিহান কি কি অবদান রেখেছেন সব শুনুন ধৈর্য্য সহকারে ৫ মিনিট শুনুন অডিওতে। এগলো আমার ভাষায় আর প্রকাশ সম্ভব নয়।

https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=159515665652743&id=100047829311198

এই সংবাদটি 8 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com