মাওলানা মাহফুজুল হকের নামে অপপ্রচার

প্রকাশিত: ৩:২২ অপরাহ্ণ, জুলাই ১১, ২০২০

সিলেট রিপোর্ট ডেস্ক : কওমী মাদরাসা ও বেফাক কেন্দ্রীক নানা আলোচনা ও তর্ক-বিতর্কের মধ্যে হঠাৎ করে শুক্রবার রাতে বেফাকের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হকের নামে ফেইসবুকে ছড়ানো একটি ভুয়া অভিযোগপত্র দেখা গেছে । বেফাকের মরহুম মহাসচিব হযরত মাওলানা আব্দুল জব্বারের স্বাক্ষর কাটিং করে নারী নীতি আন্দোলনে বেফাকের পক্ষ থেকে সাত লক্ষ টাকা প্রদানের যে কল্পিত অভিযোগ প্রচার করা হচ্ছে, সেটি সম্পূর্ণ বানোয়াট । এই জাতীয় কোনো ঘটনার লেশমাত্র সত্যতা নেই ।

এ ব্যাপারে মাওলানা মাহফুজুল হকের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই চিঠি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। এধরণের ঘটনা কখনোই ঘটেনি। আন্দোলনের খরচ বাবদ বেফাক আমার কাছে কখনোই কোনো টাকা দেয়নি। বেফাক আমার কাছে সাত লক্ষ টাকা তো দূরের কথা একটাকা পাবে এমন প্রমাণ কেউ দিতে পারবে না। আমি এটা চ্যালেঞ্জ করে বললাম।

এই চিঠিকে ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও ষড়যন্ত্রমূলক বলে আখ্যায়িত করেছেন দেশের শীর্ষ উলামায়ে কেরাম।

কওমি মাদ্রাসার শিক্ষকরা বলছেন,মূলত মাওলানা মাহফুজুল হকের সুনাম সুখ্যাতিকে প্রশ্নবিদ্ধ করা এবং বেফাকের জন্য নিবেদীত প্রাণ এই দায়িত্বশীলের কাজকে বাধাগ্রস্থ করার লক্ষ্যে কুচক্রিমহল এটা প্রচার করছে। আমরা এই ঘৃণ্য তৎপরতার তীব্র নিন্দা জানাই।
কওমি ফোরামের নেতা মাওলানা মুহাম্মদ মামুনুল হক ভুয়া চিঠিকে ষড়যন্ত্র ও বানোয়াট আখ্যা দিয়ে কয়েকটি যুক্তি দিয়ে প্রমাণ দিয়েছেন।

১. চিঠিতে বলা হয়েছে তিনি হিসাব বিভাগে ভাউচার জমা দেননি। অথচ বাস্তবতা হচ্ছে, হিসাব বিভাগে মাওলানা মাহফুজুল হকের কাছে এক পয়সাও পাওনা আছে, বা ভাউচার জমা দেয়া হয়নি এমন কোনো তথ্য নেই।

২. বেফাকের হিসাব বিভাগের নিয়মিত অডিট করা হয়ে থাকে। ১৪৪০ হিজরী পযর্ন্ত বেফাকের হিসাব বিভাগের সম্পূর্ণ অডিট করা আছে। কোন কর্মকর্তা বা দায়িত্বশীলের কাছে বেফাক কতটাকা পাওনা আছে সেই হিসাব সম্পূর্ণরূপে লেখা আছে। মাহফুজুল হকের কাছে বেফাক এক পয়সা পাবে এমন হিসাব কেউ দেখাতে পারবে না।

৩. বেফাকের অর্থনৈতিক কোনো ধরনের লেনদেনের দায়িত্ব মাওলানা মাহফুজুল হকের নয়।

4. এই চিঠি যে ভিত্তিহীন ও বানানো সেটা দেখলেই বুঝা যায়। চিঠির কোথাও বেফাকের সিল নাই। অথচ সিল থাকাটা জরুরি। মহাসচিব এর সাক্ষরের নিচে তারিখ নাই। সেটাও জরুরি। বেফাকের অন্য কোনো চিঠি থেকে কাটিং করে আব্দুল জব্বার সাহেবের স্বাক্ষর বসিয়ে দেয়া হয়েছে।

জামেয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া ঢাকার সিনিয়র মুহাদ্দিস মাওলানা মুহাম্মদ মামুনুল হক এই ঘৃণ্য তৎপরতার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।মাওলানা মাহফুজুল হকের খ্যাতি ও সুনামকে বিতর্কিত করতে একটি কুচক্রীমহল ষড়যন্ত্র করছে বলে মনে করেন তিনি।

এই সংবাদটি 15 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com