চতুর্থ শ্রেণির পাঠ্যবইয়ে সিলেটের ইতিহাস বিকৃতি!

প্রকাশিত: ৮:২৬ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৪, ২০২০

শাহিদ হাতিমী: আমাদের শিশুরা কী পড়ছে? এতোজন ডক্টর তাহলে কী সম্পাদনা করলেন? অথচ বাংলাদেশের অনেক সাধারণ মানুষও জানে হিমালয় নেপাল দেশে অবস্থিত! কিন্তু প্রাইমারি ও ইবতেদায়ী ৪র্থশ্রেণির ছাত্র ছাত্রীরা কী শিখছে? সিলেটের শিক্ষিত সমাজ, দেখুন ইতিহাস বিকৃতির দাপট! বৃহত্তর জৈন্তার বিভিন্ন দাবী দাওয়া আদায়ের বলিষ্ঠ কণ্ঠগণ, আপনারা কি নেপালের পাশে জন্ম নিয়েছেন? হে জৈন্তার শিক্ষক ও শিক্ষানুরাগী পুরুষ মহিলা সম্প্রদায়, আমাদের ‘সারি’ নদীর নাম পাল্টিয়ে ‘মারী নদী’ রাখার সাহস কোত্থেকে পেল প্রাথমিক শিক্ষাবোর্ড? ইদানিং আমরা ‘জৈন্তা’ নাকি ‘জৈন্তিয়া’ বানান নিয়ে তুমুল ঘাটাঘাটি করছি অথচ আমাদের হাজার হাজার বছরের ঐতিহ্যকে ভূলণ্ঠিত করা হচ্ছে সে দিকে কি খেয়াল আছে? আমাদের প্রজন্মকে পাঠ্যবইয়ে শিখানো হচ্ছে “জৈন্তা জাফলং” নাকি নেপালের হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থিত? অথচ সিলেট বিভাগ তো নয়ই; বাংলাদেশের কোথাও হিমালয় নামে কোনো পাহাড়ের অস্তিত্বই পাওয়া যায় না! বইটি রচনা ও সম্পাদনায় চার-চারজন ডক্টরেট ডিগ্রিধারি শিক্ষাবিদ! জড়িত সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের অসংখ্য উচ্চ শিক্ষিত আমলা এবং আছেন সারাদেশের লাখ লাখ শিক্ষক। তবু পাঠ্য বইয়ের মারাত্মক তিনটি ভূল বহাল তবিয়তে টিকে আছে বছরের পর বছর। এক দুই বার নয়, টানা ৭ বছর ধরে ৩টি ভূল শিখতে শিখতে বড় হচ্ছে বাংলাদেশের কোমলমতি শিশুরা! না জানি, উপরের শ্রেণিগুলোর পাঠ্যবইতে কতো বড় বড় ভুল রয়েছে! ঘাটাঘাটি করলে নিশ্চয় বেরোবে।

মুল বিষয়টি হচ্ছে সম্প্রতি সিলেট রিপোর্ট এর এ প্রতিবেদকের (শাহিদ হাতিমী) চোখে ধরা পড়েছে চতুর্থ শ্রেণীর ‘বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়’ বইয়ে মারাত্মক তিনটি ভূল তথ্য।দেশের প্রাথমিক স্তরের স্কুল ও মাদরাসার চতুর্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের বর্তমান ‘বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়’ বইটি ২০১৩ সাল থেকে পাঠ্যবই হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছে। লাখলাখ শিক্ষার্থী ও তাদের শিক্ষকবৃন্দ বইটি পড়ছেন এবং পড়াচ্ছেন। বইটির ৫৮ নম্বর পৃষ্টায় দেশের অন্যতম প্রধান পর্যটন কেন্দ্র, সিলেট জেলার গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলংয়ের পরিচয় দিতে গিয়ে লেখা হয়েছে, ‘সিলেট বিভাগের উত্তরে হিমালয় পাহাড়ের পাদদেশে জাফলং অবস্থিত। এখানে খাসি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর আবাসস্থল। এখানে মারী নদী থেকে বয়ে আসে অনেক পাহাড়ি পাথর।’

অথচ আমরা সবাই, বিশেষ করে দেশের শিক্ষিত ও সচেতন মানুষ মাত্রই জানেন, হিমালয় পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত দেশের নাম নেপাল। আসলে জাফলং যে পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত, তার নাম খাসিয়া-জৈন্তা পাহাড়, যার একাংশ অবস্থান ভারতের মেঘালয় রাজ্যে। আর ‘এখানে মারী নদী থেকে বয়ে আসে পাহাড়ি পাথর’ বাক্যটি যেমন সঠিক নয়, তেমনি ‘মারী’ নামে সিলেট বিভাগে কোন নদী-ই নেই। তবে সিলেট বিভাগের হাজার বছরের ঐতিহ্য জাফলংয়ের বুকচিরে বয়ে যাওয়া নদীটির নাম ‘পিয়াইন নদী’। অবশ্য কিছুটা ভাটিতে আসার পর নদীটি ‘সারি’ নদী নামেই প্রবাহিত হয়েছে। কাছাকাছি অন্যদিকে রয়েছে ধলাই নদী! যদিও পাহাড়ি পাথর আসে “পিয়াইন নদী” হয়ে কিন্তু সারি নদী হয়ে পাথর আসার কোনো জনশ্রুতি নেই। আরো আশ্চর্জের কথা বাংলাদেশের কোথাও ‘খাসি’ নামে কোনো সম্প্রদায়ের পরিচয় কেউই জানে না! জাফলং জৈন্তায় ক্ষুদ্র যে নৃগোষ্ঠী রয়েছে তাদের নাম “খাসিয়া”! সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এ দেশে সারিকে মারী বলা গেলেও একটি প্রাচীন জাতির নামকে ব্যঙ্গাত্মকভাবে বইয়ে উপস্থাপন করার সাহস ওরা কোত্থেকে পেল?

বিষয়গুলো নিয়ে এ প্রতিবেদক যখন ঘাটাঘাটি করছেন, অনেকের সাথে আলাপ আলোচনয় ব্যস্ত তখন জানতে পারেন সাংবাদিক এনামুল কবীর সিলেট থেকে প্রকাশিত একটি দৈনিকে বিগত ১১জুন (চলতি-২০২০) “পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের কাণ্ড: ৭বছরেও কারো নজরে পড়েনি” শিরোনামে একটি প্রতিবেদন লিখেছেন! প্রতিবেদন প্রকাশের দেড়মাস অতিবাহিত হলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সংশোধনের কোনো তৎপরতা এখনো চোখে পড়েনি!

সাংবাদিক এনামুল কবীর সুত্রে জানাযায়, এনিয়ে তিনি কয়েকজন শিক্ষক অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তার সাথে আলাপ করেছেন। তাঁরা কেউই, শিশুদের পাঠ্য বই নিয়ে এমন হেলাফেলা মেনে নিতে পারছেন না। বাংলা সাহিত্য নিয়ে পড়েছেন, এমন একাধিক শিক্ষক- সাংবাদিকের মতামতই এরকম। বাক্য যা হোক, হিমালয়কে জাফলং বা সিলেট সীমান্তে নিয়ে আসা, অথবা জাফলংকে নেপালে নিয়ে যাওয়া, আর সারি নদীটাকে ‘মারী’ এবং খাসিয়া জনগোষ্ঠীকে ‘খাসি’ বানিয়ে দেয়ার মত ভুলকে মেনে নিতে পারছেন না সচেতন অনেকেই।

বইটি রচনা ও সম্পাদনা করেছেন, ড. মাহবুবা নাসরীন, ড. আব্দুল মালেক, ড. ইশানী চক্রবর্তী ও ড. সেলিনা আক্তার। এ (শাহিদ হাতিমী) প্রতিবেদকের আলাপ হয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, প্রিন্সিপাল ও ইবতেদায়ী মাদরাসার একাধিক শিক্ষকের সাথে, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মুসলমান, হিন্দু ও খাসিয়া ধর্মের কয়েকজন শিক্ষক জানান, পাঠ্যবইয়ে এমন ভুল মেনে নেয়া যায়না। একটা জাতির নামপরিচয় (খাসিয়াকে খাসি বলে) নিয়ে ব্যঙ্গ করা হয়েছে, এটা সুদূরপ্রসারী কোনো চক্রান্ত কিনা খতিয়ে দেখা দরকার! আমরা শিশুদের ভুল শেখাতে পারিনা। এতে শিক্ষার্থীরা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

বিষয়টি নিয়ে ঐ প্রতিবেদক (এনামুল কবীর) প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় উপ-পরিচালক শাখাওয়াত হোসেনের সাথে আলাপ করলে তিনি বলেন, ‘হিমালয় যে নেপালে, তাতো সবাই জানে। এত বড় ভুল! আমি বিষয়টি দেখব।’ সারি নদীকে ‘মারী নদী’ লেখা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আপনারা স্থানীয় লোকজন হয়ত ‘সারি’ বলেন। জাতীয় পাঠ্যপুস্তক বোর্ড হয়ত কোন পুরানো রেকর্ডে এটার নাম পেয়েছে ‘মারী’। তাই লেখা হতে পারে। আসলে কি হয়েছে, আমি জানিনা। শিক্ষা অধিদপ্তরের এ উপপরিচালক আরো বলেন, আমি বইটি দেখব, তারপর পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহায়তায় নদীর নামটি নিশ্চিত হয়ে জাতীয় পাঠ্যপুস্তক বোর্ডকে জানাবো। বই প্রকাশতো তারাই করেন। সুতরাং, তাদের জানাবো এবং আমার পক্ষে যা যা করনীয় তাই করব। কিন্তু দেড় মাস হতে চললেও তিনি বা তাঁরা কী করেছেন কিং আদৌ কিছু করেছেন কিনা এখনো পরিষ্কার নয়!

বইটির প্রথম মু্দ্রণ হয়েছিল ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে। পরিমার্জিত সংস্করণ হয় ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে। পুণঃমুদ্রণ হয়েছিল ২০১৯ সালের আগস্ট মাসে। জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠপুস্তক বোর্ডের বড় বড় কর্তারা যে কতটা হেলাফেলায় তাদের দায়িত্ব পালন করেন বা করছেন, আরো একবার তার প্রমাণ পাওয়া গেলো।অনেকে মনে করছেন, এভাবে ভুল শিখানোর ফলেই বাঙালী জাতিতে সাহেদ আর সাবরিনাদের জন্ম হচ্ছে!

এই সংবাদটি 84 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com