আয়া সোফিয়ার সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

প্রকাশিত: ৪:৩৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৯, ২০২০

ডেস্করিপোর্টঃ
৩৩০ ঈসায়ীতে বাইজানটাইন সম্রাট প্রথম কনস্ট্যানটিনের নির্দেশে কনস্টান্টিনোপল শহরটি প্রতিষ্ঠিত হয়।
কনস্টান্টিনোপলকে হাদিসের পরিভাষায় কুসতুনতিনিয়্যাহ বলা হয়। বর্তমান নাম ইস্তাম্বুল। কনস্টান্টিনোপলকে বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের রাজধানী ঘোষণা করা হয়। বাইজানটাইন সাম্রাজ্যকে পূর্ব রোমান সাম্রাজ্য‌ও বলা হয়।

৫৩২ সালে সম্রাট প্রথম জাস্টিনিয়ানের আদেশে কনস্টান্টিনোপলে অর্থোডক্স চার্চ নির্মাণের আদেশ দেন।
৫৩২ সালে চার্চের নির্মাণ কাজ শেষ হয়। এটিই হচ্ছে ঐতিহাসিক আয়া সোফিয়া।

প্রায় নয় শত বছর অর্থোডক্স খ্রিস্টানদের কেন্দ্রবিন্দু ছিল আয়া সোফিয়া।

১৩০০ শতাব্দীতে চতুর্থ ক্রুসেডের সময় ইউরোপের ক্যাথলিকরা এক অভিযান চালিয়ে কনসটান্টিনোপল দখল করে নেয়। তারা আয়া সোফিয়াকে ক্যাথলিক ক্যাথেড্রালে পরিণত করে।

১৪৫৩ সালে সুলতান মুহাম্মদ আল ফাতিহ কনসটান্টিনোপল দখল করে নাম পরিবর্তন করে ইস্তাম্বুল রাখে।
আয়া সোফিয়াকে সুলতান মুহাম্মদ আল ফাতিহ খ্রিস্টানদের থেকে ক্রয় করে একে মসজিদে রূপান্তরের ঘোষণা দেন এবং সংস্কারের কাজ করেন। আয়া সোফিয়ার চার কোনায় চারটি মিনার তৈরি করে ভবনকে শক্তিশালী করেন। সুলতান মুহাম্মদ নিজ সম্পদ থেকে আয়া সোফিয়ার ক্রয় মূল্য পরিশোধ করেন।

১৯১৮ সালে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শেষ হলে ওসমানীয় খেলাফত পরাজয় বরণ করে। উসমানীয় সাম্রাজ্য নানা ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়।
তুরস্কে জাতীয়তাবাদী শক্তির উত্থান হয় এবং আধুনিক তুরস্ক প্রতিষ্ঠা লাভ করে।
আধুনিক তুরস্কের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রথম প্রেসিডেন্ট মোস্তফা কামাল আতাতুর্ক আয়া সোফিয়াতে নামাজ নিষিদ্ধ করেন। এবং মসজিদ থেকে জাদুঘরে রূপান্তর করেন।

১৯৩৫ সালে আয়া সোফিয়াকে জাদুঘর হিসেবে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয় এবং তা তুরস্কের সবচেয়ে আকর্ষণীয় পর্যটন স্থল এ পরিণত হয়।

২০২০ সালের জুলাই মাসে তুরস্কের উচ্চ আদালত ঐতিহাসিক আয়া সোফিয়াকে মিউজিয়াম থেকে মসজিদে রূপান্তরের ঘোষণা দেন।
আগামী ২৪ জুলাই শুক্রবার জুমার নামাজ আদায়ের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে মসজিদটির উদ্বোধন হবে।

এই সংবাদটি 67 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com