রবিবার, ২৭ নভে ২০১৬ ১০:১১ ঘণ্টা

হবিগঞ্জে ৩টি মসজিদে আগুন,পুড়ে গেছে অর্ধশত কোরআন শরিফ

Share Button

হবিগঞ্জে ৩টি মসজিদে আগুন,পুড়ে গেছে অর্ধশত কোরআন শরিফ

সিলেট রিপোর্ট:  হবিগঞ্জে তিনটি মসজিদে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এতে মসজিদে থাকা ৫০টিরও অধিক পবিত্র কোরআন শরিফ পুড়ে গেছে। আজ রোববার (২৭ নভেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে সদর উপজেলার ভাংঙ্গাপুল জামে মসজিদ, পশ্চিম ভাদৈ জামে মসজিদ ও ধুলিয়াখাল (আমতলি) শাহজালাল জামে মসজিদে এ ঘটনা ঘটে।
পশ্চিম ভাদৈ জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মুকিত বলেন, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মসজিদের কোরআন শরিফ পুড়ে গেছে। কে বা কারা এ ঘটনা ঘটিছে সঠিক করে কিছু বলা যাচ্ছে না।
হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার এসআই জাহিদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, কিছু দিন আগেও একটি পাগল ভাদৈ গ্রামের মসজিদে আগুন লাগিয়েছিল। ধারণা করা হচ্ছে পাগলই এ কাজটি করেছে।

অপর দিকে,ভাদৈ মসজিদের প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মসজিদের ইমাম সাহেব আসর নামাজের আযান দেওয়ার জন্য মসজিদে গেলে মসজিদের বারান্দায় রাখা কুরআন শরীফ রাখার জায়গাটিতে তিনি আগুন দেখতে পেয়ে লোকজনকে ডাকেন। কে বা কারা লাগিয়েছে এ ব্যাপারে কেউ কিছু বলতে পারে না।
ভাঙ্গাপুল মসজিদের প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিকেল তিনটার দিকে এক লোক মসজিদের মেহরাবের ভেতর দাউ দাউ করে আগুন জ্বলতে দেখে চিৎকার করে লোক জড়ো করেন। লোকজন এসে দ্রুত আগন নিভান। এখানেও কারা আগুন লাগিয়েছে এ ব্যাপারে কেউ কিছু জানতে পারে নি। অন্যান্য মসজিদের তূলনায় এ মসজিদের ক্ষতির পরিমাণ বেশি। অনেকগুলো কুরআন শরীফ, কুরআন শরীফ রাখার সেলফ, মিম্বর, ফ্যান, মসজিদের মাইকের মেশিন, এবং আরো কিছু জিনিস আগুনে দগ্ধ হয়েছে।
ধুলিয়াখালের কাছে আমতলী মসজিদেও আগুন লাগানো হয়েছে ভেতরে সেখানেও অনেকগুলো কুরআন শরীফ আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
তিনটা মসজিদই রাস্তার পাশ ঘেঁষে। তিন মসজিদেই আগুন দেওয়া হয়েছে একই সময়ে- তিনটা থেকে সাড়ে তিনটা ভেতরে। এবং তিনো মসজিদেই বিভিন্ন জায়গায় রাখা কুরআন শরীফগুলো এক জায়গায় এনে জড়ো করে আগুন দেওয়া হয়েছে।
মসজিদ তিনটি ঘুরে দেখা গেছে মসজিদগুলোর সামনে প্রচুর মানুষের জটলা। তারা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করেন এবং এ ঘটনার সুষ্ঠ কার্যকরী তদন্ত এবং অপরাধীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।
সন্ধ্যার পর পর প্রশাসনের লোকজন তিনটি মসজিদই পরিদর্শণ করেন। ভাঙ্গারপুলের মসজিদের সামনে তারা বলেন এ ঘটনা অত্যন্ত ন্যাক্কারজনক। এটা কোন পাগলের কাজ হতে পারে না। কারণ একই সময় তিন মসজিদে পরিকল্পনা করে কোন পাগল এ কাজ করবে এটা অবিশ্বাস্য। আবার এখানকার পরিবেশ পরিস্থিতির বাস্তবতার দ্বারা এটা পরিস্কার যে কোন হিন্দুও এ কাজ করবে না। এটা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির জন্য সম্পূর্ণ য়ড়যন্ত্রমূলক একটা কাজ। আপনারা শান্ত থাকুন। আমরা এর কঠোর ব্যবস্থা নেবো।

সিলেট রিপোর্ট/সু-যুগান্তর,পু-পশ্চিম/শীনি ২৭-১১-২০১৬15181371_920979078003671_7314069390610949679_n

এই সংবাদটি 1,185 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com