টানা তিনবার ভারতের সংসদে মাওলানা বদরুদ্দি আজমল

প্রকাশিত: ২:১৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৫, ২০২০

টানা তিনবার ভারতের সংসদে মাওলানা বদরুদ্দি আজমল


সিলেট রিপোর্ট, মুফতি এনায়েতুল্লাহ::
পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে ২০১৯ সালের ১৭তম লোকসভা নির্বাচনে দ্বিতীয়বারের মতো নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে সরকার গঠন করেছে নরেন্দ্র মোদীর বিজেপি। ৫৪৩ আসনের লোকসভা নির্বাচনে মোট ভোটার ছিল ৯০ কোটি। ১ হাজার ৮৪১টি রাজনৈতিক দলের ৮ হাজারের বেশি প্রার্থী ওই নির্বাচনে অংশ নেন।

ভারতের গত লোকসভা নির্বাচনে দ্বিতীয়বারের মতো গেরুয়া বিপ্লব ঘটেছে। প্রাচীন দল কংগ্রেস সাংবিধানিকভাবে বিরোধীদল হওয়ার যোগ্যতাও অর্জন করতে পারেনি। মোদী ঝড় কিংবা হিন্দুত্ববাদের এই জয়জয়কারের মাঝেও বিভিন্ন দল থেকে ২৭ জন মুসলিম এমপি বিজয়ী হয়েছেন। ভারতে মুসলিম জনগোষ্ঠীর সংখ্যা সরকারি আদমশুমারির তথ্য অনুযায়ী ১৪ শতাংশের মতো। বিশ্বের তৃতীয় বৃহৎ মুসলিম জনগোষ্ঠীর বাস ভারতে। পার্লামেন্টে তাদের প্রতিনিধিত্ব ৫ শতাংশেরও কম। তবে ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের তুলনায় চলতি লোকসভা নির্বাচনে মুসলিম প্রতিনিধিত্ব বেড়েছে চারজন।

নির্বাচিত ২৭ জনের মধ্যে রয়েছেন ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ফারুক আবদুল্লাহ, এআইএমআইএমের আসাদউদ্দিন ওয়াইসি, সমাজবাদী পার্টির আজম খানের মতো হাইপ্রোফাইল নেতারা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেসের টিকিটে নির্বাচিত হয়েছেন ৫ মুসলিম প্রার্থী, কংগ্রেসের প্রতিনিধিত্ব করছেন চারজন, মুলায়ম সিং যাদবের সমাজবাদী পার্টি, মায়াবতীর বহুজন সমাজ পার্টি, ন্যাশনাল কনফারেন্স ও ইউনিয়ন মুসলিম লিগ থেকে আছেন তিনজন করে পার্লামেন্ট সদস্য।

এছাড়া এআইএমআইএম’র আছে দুই নির্বাচিত প্রতিনিধি। রামবিলাস পাসোয়ানের এলজেপি, শারদ পাওয়ারের এনসিপি, সিপিআইএম ও বদরুদ্দিন আজমলের এআইইউডিএফ থেকে একজন করে মুসলিম প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।

লোকসভার অন্তত ৯৮টি আসনে মুসলিম ভোট নির্ণায়ক শক্তি হিসেবে বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। এসব আমনের মধ্যে ৩৫টি আসনে মুসলিম ভোট ৩০-৩৫ শতাংশ। এ ছাড়া ৪৮টি আসনে রয়েছে মুসলিম ভোট ২১ থেকে ৩০ শতাংশ। ১৪৫টি আসনে ১১ থেকে ২০ শতাংশ এবং ১৮৩টি আসনে ৫ থেকে ১০ শতাংশ সংখ্যালঘু ভোট। অন্য আসনগুলোতে সংখ্যালঘু মুসলিম ভোট ৫ শতাংশের নিচে।

সাধারণত ভারতে সংখ্যালঘু মুসলিমদের বেশিরভাগ ভোট পড়ে কংগ্রেসের পক্ষে। কিন্তু বিভিন্ন ঘটনায় সংখ্যালঘুদের আস্থা অনেকটাই হারিয়ে ফেলেছে দলটি। সেই আস্থাহীনতা থেকে নতুন দল প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে, বিভিন্ন দলে মুসলিম রাজনীতিবিদরা তাদের অবস্থান শক্ত করছেন। তাদেরই একজন হলেন- মাওলানা বদরুদ্দিন আজমল।

বদরুদ্দিন আজমল কে? তিনি একজন আলেম, দারুল উলুম দেওবন্দ থেকে পাশ করা মাওলানা। তিনি একজন রাজনীতিবিদ। এখন বলা চলে, আসামের রাজনীতির কেন্দ্রবিন্দু।

হ্যাঁ, আসামের রাজনীতিতে হঠাৎ কেন্দ্রবিন্দু হয়ে পড়েছেন বদরুদ্দিন আজমল। ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে এআইইউডিএফ (All India United Democratic Front. AIUDF) প্রধান বদরুদ্দিন আজমলের নাম শাসক দল কিংবা বিরোধি দলের মুখে শতবার উচ্চারিত হয়ে রাজ্যের রাজনীতি এখন আজমলকেন্দ্রিক হয়ে পড়েছে। ২০০৯ সালের ফেব্ৰুয়ারিতে এআইইউডিএফকে সর্বভারতীয় দল হিসেবে ঘোষণা করা হয়। তালা-চাবি এই দলের নিৰ্বাচনী প্ৰতীক।

ক্ষমতাসীন বিজেপিকে বড়সড় ধাক্কা দিতে আসামে বদরুদ্দিন আজমলের দলের সঙ্গে জোটবদ্ধ হতে প্রস্তুত কংগ্রেস। অথচ ২০০৫ সালে অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (এআইইউডিএফ) প্রতিষ্ঠার সময় কংগ্রেস নেতা ও তখনকার আসামের মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ বলেছিলেন, ‘হু ইজ বদরুদ্দিন আজমল?’ ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে ১৫ বছর পর সেই বদরুদ্দিন আজমলের দলের সঙ্গে তরুণের গগৈ এর জোট করার চেষ্টায়ই বুঝা যায় তিনি কে?

গত ডিসেম্বরে লোকসভায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল উত্থাপনের দিন সংসদের ভেতরে ও বাইরে যারা প্রতিবাদ করে সংবাদ শিরোনামে আসেন তাদের অন্যতম হলেন- এআইএমএম দলের সাংসদ আসাদউদ্দিন ওয়াইসি ও মাওলানা বদরুদ্দিন আজমল। ওয়াইসি ক্ষোভে বিলের কপি ছিড়ে ফেলেন আর বদরুদ্দিন আজমল বিল বিরোধিতায় সংসদের বাইরে প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করেন। সেই ছবি ভারতের ইতিহাসে সাহসের প্রতীক হয়ে আছে।

আসামের ধুবড়ি থেকে মাওলানা বদরুদ্দিন আজমল টানা তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। এআইইউডিএফ দলের প্রধান ছাড়াও জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ আসামের সভাপতি তিনি সেই সঙ্গে দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির প্রভাবশালী নেতা। আজমল ফাউন্ডেশন নামে রয়েছে তার ব্যক্তিগত ট্রাস্ট। সবাজসেবায় আজমল ফাউন্ডেশনের সুখ্যাতি সর্বাধিক।

জন্ম আসামে হলেও মুম্বাইয়ে ব্যবসা করেন আজমল। তার বস্ত্র, রিয়েল এস্টেট, চামড়া, স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও সুগন্ধীর ব্যবসা রয়েছে। আজমলের নজর এখন আগামী বছরের বিধানসভার নির্বাচনের দিকে। কারণ, ১২৬ আসনের বিধানসভায় কংগ্রেস বা বিজেপি কেউই এককভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে না। আগামী বছর আজমল অবশ্যই আসামের প্রধান ভূমিকা পালন করবেন। তীক্ষ্ম রাজনৈতিক দূরদর্শিতার পাশাপাশি রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে আসামে আজমলের বিস্ময়কর উত্থান হয়েছে।

২০০৫ সালে দল গঠনের এক বছরের মাথায় ২০০৬ সালে এআইইউডিএফ আসাম বিধানসভায় ১০টি আসন পায়। ২০১১ সালে ১৮টি আসন পেয়ে আসামের রাজনীতিতে অন্যতম শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হয়। ২০০৬ সালের নির্বাচনে এআইইউডিএফ ৭৩টি আসনে প্রার্থী দেয়। তাদের মধ্যে ৩৮ জনই ছিলেন অমুসলিম। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে দলটির ১১ আসনের প্রার্থীদের মধ্যে ছয়জন ছিলেন অমুসলিম। ওই নির্বাচনে তাদের দলের তিনজন বিজয়ী প্রার্থীর একজন ছিলেন হিন্দু। ২০১৬ সালের আসাম বিধানসভার ১৪তম নির্বাচনে দলটি ১৪টি আসন লাভ করে।

১৯৫৬ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি জন্ম নেওয়া বদরুদ্দিনের বাবার নাম হাজি আজমল আলী। ১৯৭৯ সালে তিনি বিয়ে করেছেন। সাত সন্তানের জনক তিনি, তন্মধ্যে ৬ ছেলে ও ১ মেয়ে। দারুল উলুম দেওবন্দ থেকে তিনি মাওলানা পাশ করেছেন। বর্তমানে তিনি দারুল উলুম দেওবন্দের শুরা সদস্য।

২০০৬ সালে প্রথমবারের দু’টি আসন (দক্ষিণ সালমারা ও যমুনামূখ কেন্দ্র) থেকে আসাম বিধানসভার সদস্য নির্বাচিত হন। এর পর ২০০৯ সালের লোকসভা (১৫তম) নির্বাচনে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরে ২০১৪ ও ২০০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনেও তিনি নির্বাচিত হন। লোকসভার বিভিন্ন কমিটিতে তিনি দায়িত্ব পালন করেছেন। শিল্প বিষয়ক সংসদীয় কমিটি, জলবায়ূ কমিটি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কমিটি, সরকারি উন্নয়ন সমীক্ষা কমিটি, মূল্যবোধ বিষয়ক কমিটিসহ উত্তর পূর্বাঞ্চল উন্নয়ন বিষয়ক সংসদীয় কমিটিতে তিনি সদস্য হিসেবে কাজ করেছেন।

চলতি লোকসভায় তিনি কেমিকেল ও রাসায়নিক কমিটি, লাইব্রেরী কমিটি এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়ক কমিটিতে সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

তিনি উর্দুতে ‘বারে হজরত’ নামে সাইয়্যেদ আসাদ মাদানি রহমাতুল্লাহি আলাইহির জীবনীগ্রন্থ রচনা করেছেন।

সম্প্রতি বিশ্বব্যাপী মহামারি করোনা পরিস্থিতিতে মানবসেবামূলক কাজের মাধ্যমে শান্তি স্থাপনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালনের জন্য আন্তর্জাতিক সম্মানে ভূষিত হয়েছেন তিনি। উত্তরপ্রদেশ ও মহারাষ্ট্রসহ উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোতে প্রাকৃতিক দুর্যোগ, শিক্ষার প্রসার, কোভিড-১৯ সহ দুস্থ, অসহায় মানুষের জন্য নিঃস্বার্থভাবে কাজ করায় ‘ইউনিভার্সিটি ফর গ্লোবাল পিস’ নামের আমেরিকান একটি প্রতিষ্ঠান তাকে এই সম্মান প্রদান করেছে।

২০১৩ সালে বিখ্যাত আউটলুক ম্যাগাজিন পরিচালিত এক সমীক্ষায় আসামের সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজনীতিবিদ হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন।

বদরুদ্দিন আজমল ২০১৫-১৬ সালে জর্ডানের রয়্যাল ইসলামিক স্টাটিজিক স্টাডিজ সেন্টারের প্রকাশিত বিশ্বের ৫০০ সর্বাধিক প্রভাবশালী মুসলমানদের তালিকাভুক্ত ছিলেন।

বদরুদ্দিন আজমলের নিন্দুকেরাও কিছু কাজের জন্য তার প্রশংসা না করে পারেন না। এ কারণে আসামের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল থেকে শুরু করে দিল্লীর প্রভাবশালী রাজনীতিবিদরাও তার সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখেন।

রাজ্যজুড়ে অনেক স্বেচ্ছাসেবক সংগঠন, ট্রাস্ট, বিদ্যালয়, মাদরাসা, এতিমখানা ও হাসপাতাল পরিচালনার সঙ্গে তিনি জড়িত। তার কল্যাণে আসামে দারিদ্র্যপীড়িত মুসলমানের সংখ্যা কম। এসব কারণে বলা চলে, ২০২১ সালের নির্বাচনে বদরুদ্দিন আজমলের দল এককভাবে ৩০টি আসনে জয়লাভ করতে পারে।

ইতিহাস সাক্ষী, দিকভ্রান্ত মুসলিম উম্মাহকে এক পতাকাতলে সমবেত করার মহান উদ্দেশ্য সামনে রেখে ১৮৬৬ সালে ইউপির অন্তর্গত দেওবন্দ নামক পল্লীতে সাত্তা মসজিদকেন্দ্রিক ‘দারুল উলুম দেওবন্দের’ যাত্রা শুরু।

দেওবন্দের শিক্ষা কারিকুলাম, আদর্শ ও মানসিকতার অনুকরণে পৃথিবীর বহু দেশে অসংখ্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। দেওবন্দ থেকে লাখ লাখ আদর্শ কান্ডারী বিশ্বের বিভিন্ন জনপদে ছড়িয়ে পড়েছে। মাওলানা বদরুদ্দিন আজমল তাদেরই একজন।

‘দেওবন্দ একটি আন্দোলন, একটি চেতনা…।’ এই চেতানার অন্যতম ধারক মাওলানা বদরুদ্দিন আজমল। ভারতীয় রাজনীতিতে আমরা মাওলানা বদরুদ্দিনের উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করি।

মুফতি এনায়েতুল্লাহ,লেখক-সাংবাদিক।
২৫ আগস্ট ২০২০

এই সংবাদটি 997 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com