পীরে কামিল বেদআতী ভাষা, এটি দেওবন্দী পরিভাষা নয়! … মুফতি খালেদুজ্জামান

প্রকাশিত: ১:১৬ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ২৮, ২০২০

পীরে কামিল বেদআতী ভাষা, এটি দেওবন্দী পরিভাষা নয়!  … মুফতি খালেদুজ্জামান

পীরে কামেল একটি দেওবন্দি বিদআতি পরিভাষা। আমাদের আকাবিরে দারুল উলূম দেওবন্দ এর মধ্যে কারো নামে এমন শব্দ ব্যবহারের রীতি ছিলো না।
পীরে কামেল অর্থ মুরশিদে কামেল। বলাবাহুল্য যিনি ইনসানে কামেলই নন তিনি কিভাবে মুরশিদে কামেল হন? ইনসানে কামেল শুধু আম্বিয়ায়ে কেরামগণ।
কওমী অঙ্গনে পীরে কামেল শব্দের এখন যে বহুল ব্যবহার দেখা যায়, তা বিশ বছর আগেও দেখা যেত না। এক সময় এই জাতীয় শব্দ, দেওবন্দি আকীদা ও মানহাজ বিরোধী হিসেবে বিশেষ মহলে দেখা যেত। আশংকা হয় সেই মহলের “পীর কেবলা” পরিভাষা আবার কওমী অঙ্গনে অনুপ্রবেশ করে কি না?
মাওলানা আহমদ শফী দা. বা. একবার ফরিদাবাদ মাদরাসায় অবস্থানকালে ঢাকার জনৈক পীর সাহেব দেখা করতে গেলেন। পীর সাহেবের খাদেম হযুরের কাছে পীর সাহেবের পরিচয় দিতে গিয়ে বলেন, হুযুর! ইনি ওমুক পীর সাহেব। হুযুর সবেমাত্র ওযু করে এসে গামছা দিয়ে হাত, মুখ মুছতেছিলেন। পীর শব্দটি শুনামাত্রই হুযুর রাগান্বিত হয়ে বললেন, “পীর কি? পীর কি? আমাদের রশীদ আহমাদ গাঙ্গুহী রহ., মাদানী রহ. থানভী রহ. কি পীর ছিলেন?”
দুঃখের বিষয় হলো, অনেকে তো পীরে কামেল মুকাম্মাল লিখে। বিশ্বস্ত একাধিক সূত্রে শুনেছি, মুফতী সাঈদ আহমদ পালনপুরী রহ. বলতেন, “দেওবন্দিয়াত আর বেরেলভিয়াত এর দুরত্ব হ্রাস পেতে পেতে এখন মাত্র এক বিঘত পরিমাণ ব্যবধান অবশিষ্ট আছে। এটাও হয়ত একসময় নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। বলাবাহুল্য অহেতুক আলকাবের কাছরাত ইলমী গাম্ভীর্যতা নষ্ট করে।

সিলেট রিপোর্টঃ

এই সংবাদটি 740 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com