মন্ত্রীপরিষদ সচিবের কাছে পাথর কোয়ারি খুলে দেওয়ার দাবি শ্রমিকদের

প্রকাশিত: ১০:০২ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩০, ২০২০

মন্ত্রীপরিষদ সচিবের কাছে পাথর কোয়ারি খুলে দেওয়ার দাবি শ্রমিকদের

রাসেল মাহফুজ : মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) মো: কামাল হোসেন সিলেটের বৃহত্তর জৈন্তার বিভিন্ন পাথর কোয়ারি, পর্যটন স্পট সফর করেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তিনদিনের সিলেট সফরের অংশ হিসেবে তিনি গতকাল সকালে কোম্পানিগঞ্জ উপজেলার ভোলাগঞ্জের বিস্তীর্ণ পাথর কোয়ারি, বিকেলে গোয়াইনঘাট উপজেলার প্রকৃতিকন্যা জাফলং ও আজ সকাল ১১টায় কানাইঘাট উপজেলার মনোলোভা এলাকা লোভাছড়া পরিদর্শন করেন।

ভোলাগঞ্জ এলাকা পরিদর্শনকালে স্থানীয় শ্রমজীবী ও ব্যবসায়ীরা সচিবের কাছে পাথর কোয়ারি খুলে দেওয়ার যৌক্তিকতা তুলে ধরেন। কোয়ারি সংশ্লিষ্ট লাখো শ্রমজীবী মানুষের দুঃখ-দুর্দশার কথা বর্ণনা করেন। পরিবেশ সুরক্ষার লক্ষ্যে সার্বক্ষণিক প্রশাসনিক মনিটরিং ব্যবস্থা নিশ্চিত করে হলেও পাথর কোয়ারিগুলো খুলে দেওয়ার জোর দাবি জানান তারা।

প্রকৃতিকন্যা জাফলং পরিদর্শন করে তিনি সাংবাদিকদের জানান, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই সিলেটের পাথর কোয়ারি ও প্রস্তাবিত ক্রাশার মেশিন জোন পরিদর্শন করছেন। সরকার ক্রাশার মেশিনগুলো নির্দিষ্ট একটি জায়গায় একত্রিত করার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। শুধু জাফলংবাসীর স্বার্থে নয় দেশের ষোলকোটি মানুষের স্বার্থেই জাফলংয়ের সৌন্দর্য্যকে রক্ষা করার কথা বলেন তিনি। ক্রাশার মেশিনগুলো একটি জোনে একত্রিত করে পরিবেশ সুরক্ষার মাধ্যমে জাফলংয়ের রূপ লাবণ্য ফিরিয়ে এনে আকর্ষণীয় এই পর্যটন স্পটে প্রয়োজনে একটি স্পেশাল ইকোনমিক জোন তৈরি করার পরিকল্পনাও ব্যক্ত করেন সচিব। শ্রমজীবীরা তখন সচিবের চারপাশ থেকে কোয়ারি খোলার দাবিসম্বলিত অসংখ্য প্লেকার্ড প্রদর্শন করেন।

মনোলোভা এলাকা লোভাছড়া পরিদর্শন করে তিনি শ্রমজীবীদের আশ্বস্ত করেন। পাথর শ্রমিক ও ব্যবসায়ীরা এসময় ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে লোভাছড়া নদীতে নৌকাযোগে মানববন্ধন করেন। তারা সচিবের কাছে অনতিবিলম্বে কোয়ারিগুলো খুলে দেওয়ার জোর দাবি জানান। ব্যবসায়ীরা তখন নৌকায়ই তার সাথে কথা বলতে ও স্মারকলিপি দিতে চাইলে তিনি বিকেল ৪টায় সিলেট সার্কিট হাউসে সরাসরি কথা বলার আহ্বান জানান।

শুরু থেকে বিভিন্ন জায়গায়, বিভিন্ন সময়ে সচিবের সাথে উপস্থিত ছিলেন, খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরোর মহাপরিচালক মো: জাফর উল্যাহ, সিলেট বিভাগীয় কমিশনার মো: মশিউর রহমান (এনডিসি), শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দুজন যুগ্ম সচিব, সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা দেবজিত সিংহ, পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক এমরান হোসেন, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী রিতেশ বড়ুয়া, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী, এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী মো: আব্দুল লতিফ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আসলাম উদ্দিন, পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন (পিপিএম), অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উত্তর) মাহবুবুল আলম, জৈন্তাপুরের ইউএনও নাহিদা পারভীন, গোয়াইনঘাটের ইউএনও মো. নাজমুস সাকিব, কোম্পানিগঞ্জের ইউএনও সুমন আচার্য, কানাইঘাটের ইউএনও মোহাম্মদ বারিউল করিম খান, গোয়াইনঘাটের সহকারি কমিশনার (ভূমি) নূর হোসেন নির্ঝর, কোম্পানিগঞ্জের সহকারি কমিশনার (ভূমি) অনুপমা দাশ, এএসপি গোয়াইনঘাট (সার্কেল) মো. নজরুল ইসলাম, গোয়াইনঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুল আহাদ, কানাইঘাট থানার ওসি মোহাম্মদ শামসুদ্দোহাসহ প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকর্তা, স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও শ্রমজীবী-ব্যবসায়ী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।

উল্লেখ্য যে, করোনাকালের সূচনালগ্ন তথা গত ফেব্রুয়ারি থেকেই সিলেট জেলার পাথর কোয়ারিসমূহ বন্ধ রয়েছে। ফলে লাখো মানুষ আজ অনাহারে, অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছে। এসব কোয়ারি যত দ্রুত খুলে দেওয়া হবে, তত দ্রুতই শ্রমজীবী মানুষগুলো কিছুটা মুক্তভাবে শ্বাসপ্রশ্বাস নিতে পারবে।

এই সংবাদটি 144 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com