বক্তাদের নামে উপাধির সারি ,কুরআন- সুন্নাহ কি বলে? আসুন,একটু ভেবে দেখি

প্রকাশিত: ৩:০৯ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩, ২০২০

বক্তাদের নামে উপাধির সারি ,কুরআন- সুন্নাহ কি বলে? আসুন,একটু ভেবে দেখি

মাওলানা শাহ মমশাদ আহমদ:

নিজের জেলাতেই পরিচিত নয়,এমন বক্তাকে আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন বক্তা,আরবী ব্যাকরণ সম্মত একটি বাক্য বলতে অপারগ ব্যক্তিকে আল্লামা,কুরআনের একটি আয়াত তরজমা করতে যার ঘাম ঝরে এমন ব্যক্তিকে শায়খুত তাফসীর উপাধি দেয়ার প্রবনতা, আমাদের সমাজে ব্যাপক প্রচলিত।
ওলিয়ে কামেল,জমানার শাহজালাল,এযুগের মাদানি,এযুগের উমর,যুগশ্রেষ্ঠ আধ্যাত্মিক রাহবার, শায়খুল ইসলাম, শায়খুল হাদীস, মুনাজিরে ইসলাম, খতিবে উম্মাহ,বাংলার সিংহ,বাংলার বাঘ,শায়খুল মাশায়েখ সহ অসংখ্য লকব ও উপাধিতে ভরে উঠে ওয়াজ মাহফিলের বিজ্ঞাপন ও পোষ্টার।মাহফিলে বক্তার সামনে ও এসব উপাধি উপস্থাপক বর্ননা করেন।
অনেক বক্তাকে নিজের পরিচিতি কার্ডেও উপাধি ব্যবহার করতে দেখা যায়।

এব্যাপারে আমাদের দুটি বিষয়ে ভাবতে হবে,
প্রথমতঃ যে ব্যক্তিকে তার গুণ বর্ননা করে উপাধি দেয়া হচ্ছে, বাস্তবেই তিনি সে গুণের অধিকারী কি না?তিনি যদি সে গুণের উপযুক্ত না হয়,তা হলে সে অবাস্তব গুণের প্রচারকারী ও বক্তা নিজে সমর্থনকারী হিসেবে কাবিরা গুনাহ করছেন না, তা কিভাবে বলা যায়?

চিকিৎসা বিজ্ঞানে যথাযথ জ্ঞান অর্জন না করে একজন ভুয়া ডাক্তার চিকিৎসা প্রদান করলে যেমন ইহকালীন আইনে অপরাধী, মুসলিম হলে আখেরাতে ও শাস্তির সম্মুখীন হবেন,তেমনি একজন ভুয়া আলেম,মুহাদ্দিস, পীর,মুফাসসির ও বিচারের সম্মুখীন হবেননা,ভুয়া গুণের প্রচারকারী অপরাধী হবেন না, এর কি কোন দলিল আছে?এবিষয়টি ভেবে দেখা উচিত নয় কি?

দ্বিতীয়ত উপাধিপ্রাপ্ত ব্যক্তি যদি বাস্তবেই উপাধিতে বর্ণিত গুনের অধিকারী হয়,তা বর্ণনার ক্ষেত্রে ও ইসলামের ভারসাম্য নীতি রয়েছে, বাড়াবাড়ি পরিত্যাগ করে প্রয়োজন অনুযায়ী বর্ননা করা যেতে পারে,
নিজের যোগ্যতা ও গুনের বর্ণনা এবং অন্যের প্রশংসা করে উপাধি প্রয়োগে সামান্যতম সীমালঙ্ঘন ইসলামে মহা- অপরাধ হিসেবে বিবেচিত।

# কুরআনে কারিমে আল্লাহ বলেন,
الم تر الى الذين يزكون انفسهم بل الله يزكى من يشاء ولايظلمون فتيلا (النساء)
তুমি কি তাদের দেখনি যারা নিজেদের পূতপবিত্র বলে থাকে,অথচ পবিত্র করেন আল্লাহ যাকে ইচ্ছা তাকেই,বস্তুত তাদের উপর সুতো পরিমাণও জুলুম হবেনা।

এ আয়াতের ব্যাখ্যায় মুফতি শফী (রহঃ) লেখেন,
এতে প্রতীয়মান হয় যে,কারো পক্ষে নিজের কিংবা অন্য কারো পবিত্রতা বর্ণনা করা জায়েজ নেই।এই নিষিদ্ধতার তিনটি কারণ রয়েছে।
১-অধিকাংশ ক্ষেত্রে তা অহমিকা ও আত্মগর্বের কারণ হয়।
২- শেষ পরিণতি সম্পর্কে আল্লাহই অবগত,কাজেই নিজের (অথবা অন্যের)পবিত্রতার প্রশংসা করা খোদাভীতির পরিপন্থী। (যেমন ওলিয়ে কামেল বলা হয়,এ বুজুর্গি হালতে তার মৃত্যু হবে, তার কি নিশ্চয়তা আছে?)
৩-কারো অধিক পবিত্রতা বর্ণনা করলে মানুষের মনে এমন ধারণা হয়ে যেতে পারে, যে লোকটি আল্লাহর প্রিয়,দোষত্রুটি মুক্ত।অথচ নবী ছাড়া কেউ এরূপ হওয়া সম্ভব নয়।
আমরা লক্ষ্য করলে দেখতে পাবো বক্তাদের যে সব উপাধি লোকজনের সামনে বর্ণনা করা হয়,তাতে বুঝা যায়,ইনিই পৃথিবীর সেরা পবিত্র ব্যক্তি।অনেক বক্তা নিজেও নিজের গুণগান বয়ান করে থাকেন।

# প্রিয়নবীর (সঃ) সামনে এক ব্যক্তি অপর একজনের মাত্রাতিরিক্ত প্রশংসা করল,তা শুনে রাসুলুল্লাহ সঃ বললেন,
ويحك قطعت عنق صاحبك
দুঃখের বিষয়, তুমি তো তুমার সাথীর গর্দান ভেঙ্গে দিলে,(বুখারী)

# মিকদাদ বিন আসওয়াদ (রাঃ) বলেন,আমাদের নবী আমাদের অধিক প্রশংসাকারীর মুখে মাঠি নিক্ষেপের নির্দেশ দিয়েছেন। (আহমাদ ও তিরমিজি)

# প্রিয় নবী (সঃ) নিজের প্রশংসা করার ব্যাপার ও উম্মাহ কে সতর্ক করেছেন,
لا تطرونى كما اطرت النصارى عيسى بن مريم (المدخل)
তোমরা ঈসা ইবনে মারইয়ামের প্রসংশায় যেভাবে নাসারারা অতিরঞ্জিত করেছে, তোমরা আমাকে নিয়ে এরূপ বাড়াবাড়ি করো না।

একটি সংশয়ের নিরসন,,,
প্রিয় নবী (সঃ) অনেক সাহাবায়ে কেরামের প্রশংসা করেছেন, উপাধি দিয়েছেন,সিদ্দিকে আকবার,ফারুকে আযম,উম্মতের সেরা আমানাতদার প্রভৃতি রাসুলুল্লাহ (সঃ) এর দেয়া উপাধি।

এ ব্যাপারে ইবনে হাজার আসকালানী (রহঃ) ও ইমাম নববী (রহঃ)বলেন,কারো বাস্তব গুণ বর্ননা করা জায়েয,যেমন কেউ বলল,আমার জানামতে তার মধ্যে এগুণ বিদ্যমান, অতিরিক্ততা না জায়েয।
অনেক সালাফদের মতে প্রশংসা বৈধ হবে,
যখন নিশ্চিত হওয়া যাবে,একারণে প্রসংশিত ব্যক্তির মধ্যে অহমিকাভাব আসবেনা।

হযরত আল্লামা আব্দুল হাই লাখনভী (রহঃ) বলেন,
আসলাফদের মধ্যে উপাধি ব্যবহার করার প্রচলন ছিলনা,তারা তা পরিহার করে চলতেন,প্রয়োজনে নামের সাথে পেশা ও জন্মস্থানের পরিচিতি থাকত,যেমন কুদুরী পেশার পরিচয়, তাহাবী স্থানের পরিচয়।
সামসুল আইম্মা,তাজুসসিরাজ,ফখরুল ইসলাম ইত্যাদি সালাফদের যে সব উপাধি পাওয়া যায়,তা তাদের জীবদ্দশায় প্রয়োগ হয়নি,পরবর্তীতে তাদের গুণ হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে।

পরিশেষে বলবো, আসুন আবেগ দিয়ে নয়,শরীয়ত ও যুক্তির নিরিখে বিষয়টি নিয়ে ভাবি,উপাধির সারি প্রয়োগ থেকে বিরত থাকি। আল্লাহ আমাদের তাওফিক দিন।
লিখকঃ শাহ মমশাদ আহমাদ,
সিনিয়র মুহাদ্দিস,জামিয়া মাদানিয়া
কাজিরবাজার সিলেট।

এই সংবাদটি 955 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com