৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম হযরত শাহ সৈয়দ শামছুদ্দিন (রহ.) সর্ম্পকে ইতিহাস বিকৃতির অপচেষ্টা

প্রকাশিত: ১১:৫১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩, ২০২০

৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম হযরত শাহ সৈয়দ শামছুদ্দিন (রহ.) সর্ম্পকে ইতিহাস বিকৃতির অপচেষ্টা

প্রভাষক সৈয়দ আয়েশ মিয়া:

বাংলাদেশে ইসলাম প্রচার ও প্রসারে হযরত শাহজালাল (রহ.) ও তাঁর সফর সঙ্গী ৩৬০জন আউলিয়ার অবদান সর্বজন বিদিত। এদেশে ইসলাম প্রচার ও প্রসারে তাদের নাম স্বর্ণাঙ্করে লিখা থাকবে।

হযরত শাহজালাল (রহ.) এর সফরসঙ্গী ৩৬০জন আউলিয়ার মধ্যে হযরত শাহ সৈয়দ শামছুদ্দিন (রহ.) অন্যতম একজন। তাঁর পিতা হযরত আলাউদ্দিন (রহ.) ।

প্রখ্যাত গবেষক ও সাহিত্যিক সৈয়দ মুর্তার্জা আলী তাঁর “হযরত শাহ জালাল (রঃ) ও সিলেটের ইতিহাস” গ্রন্থে লেখেন- “সৈয়দ আলাদ্দিন ইনি বাগদাদের অধিবাসী ছিলেন। তাজ উদ্দিন, বাহাউদ্দীন, রুকুনউদ্দীন ও শামসুদ্দিন নামে তাঁর চার পুত্র ছিলেন। তাজ উদ্দীন আওরঙ্গপুর পরগনার গহরপুরে চলে যান। উক্ত পরগনায় তাঁর সমাধি বর্তমানে আছে।

বাহাউদ্দিন আওরঙ্গপুরের নিকটবর্তী সৈয়দপুর কিছুদিন বাস করে ভাদেশ্বর চলে যান ও তথায় মৃত্যুকাল পর্যন্ত অবস্থান করেন। তাকে ভাদেশ্বরেই সমাহিত করা হয়। সৈয়দ শামছুদ্দিনের বংশধগণ সৈয়দপুরে অবস্থান করছেন। আওরঙ্গরপুর পরগনার সৈয়দগণ শাহ তাজ উদ্দিনের বংশধর। রুকুনউদ্দীন মৌলভী বাজারে চলে যান।

সৈয়দ শামসুদ্দীন:
ইনি হযরত শাহ জালালের সঙ্গীর দরবেশ পূর্বে উল্লেখিত সৈয়দ আলাউদ্দিন (রঃ) এর পুত্র। তিনি আওরঙ্গপুর থেকে আতুয়াজান পরগনার সৈয়দপুর গ্রামে চলে যান। ঐ গ্রামে তাঁর দরগাহ আছে। তাঁর বংশধরেরা সৈয়দপুরে বসবাস করছেন।”১

প্রখ্যাত লেখিকা লায়লা রাগিবও তাঁর “আট আউলিয়ার জগন্নাথপুর” প্রবন্ধে অনুরূপ লেখেছেন।২

অত্যন্ত দুঃখ ও ভারাক্রান্ত হৃদয় নিয়ে বলছি, এ মহান ব্যক্তিত্ব সর্ম্পকে বিগত ১৩ এপ্রিল ২০১৯ই্ং ইউ.কে থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক সুরমা পত্রিকায় (অনলাইন নিউজ পোর্টাল) চারণভূমি সৈয়দপুর: একটি পাঠপ্রতিক্রিয়া প্রবন্ধের মধ্যে ফারুক আহমদ নামে জনৈক ভদ্রলোক অনেক মিথ্যা আর ভূল তথ্য লিখেছেন। জনাব, ফারুক আহমদ সাহেবকে আমি ব্যক্তিগত ভাবে চিনিও না- জানিও না। তবে শুনেছি তিনি একজন গবেষক। যাইহোক, হযরত শাহ সৈয়দ শামসুদ্দীন (রহ.) এর একজন অর্ধঃস্থন পুরুষ হিসেবে আমি উনার ভূল ও মিথ্যা তথ্যগুলির জনাব দিচ্ছি।

জনাব, ফারুক আহমদের লেখায় আমি বেশকিছু মিথ্যা আর ভূল তথ্য দেখেছি। পাঠকদের অবগতির জন্য এখানে তা আলোকপাত করছি ও ভূল তথ্যগুলির যুক্তি খন্ডন করছি :

১ম ভূল:
ফারুক সাহেব মুফতি আজহার উদ্দিন আহমদ সিদ্দীকীর “শ্রীহট্টে ইসলাম জ্যোতি” গ্রন্ত্রের উদ্ধতি দিয়ে বলেন- “তিনি সৈয়দ বাহারউদ্দিনের বংশধর।”

১ম ভূলের জবাব:

প্রখ্যাত গবেষক ও সাহিত্যেক সৈয়দ মুতুর্জা আলীর উপরে উল্লেখিত বিবরণে আমরা জানতে পারলাম যে, হযরত বাহার উদ্দিন (রহ.) হযরত শাহ সৈয়দ শামসুদ্দিন (রহ.) এর আপন ভাই। আর ভাই কখনও ভাইয়ের বংশধর হতে পারেনা। বংশধর বলতে পিতা বা দাদা অথবা আরো উর্দ্ধতম পুরুষকে বুঝায়। সুতরাং এ তথ্যাটি সম্পূর্ণ ভূল।
মুফতি আযহার উদ্দিন আহমদ সিদ্দিকী নিজেও ভূল করেছেন আর ফারুক সাহেব এ তথ্য
যাচাই বাচাই না করে লিখে তিনিও ভূল করেছেন।

২য় ভূল:
ফারুক সাহেব লিখেছেন: “কেহ কেহ আওরঙ্গপুরের শাহ তাজ উদ্দিনের ভ্রাতা বলিয়া থাকেন।”

২য় ভূলের জবাব:
‘কেহ কেহ বলিয়া থাকেন’ – এভাবে বলে বিষয়টির মধ্যে সন্দেহ সৃষ্টি করা হয়েছে। ভ্রাতা হতেও পারেন, আবার নাও হতে পারেন অথচ সৈয়দ মতুর্জা আলী ও লায়লা রাগিব দু’জনের আলোচনায় উপরে পরিষ্কার হয়েছে যে, শাহ তাজ উদ্দিন ও শাহ শামসুদ্দীন (রহ.) আপন ভাই। সুতরাং এখানেও বাক্যটির মধ্যে সন্দেহযুক্ত করে ফারুক সাহেব নিশ্চয় ভূল করেছেন।

৩য় ভূল:
ফারুক সাহেব সৈয়দ মুর্তুজা আলীর “হযরত শাহজালাল (রহ.) ও সিলেটের ইতিহাস”
গ্রন্ত্রের উদ্ধতি দিয়ে লিখেন-: “ তিনি শাহ জালালের সঙ্গীর দরবেশ সৈয়দ আলা উদ্দিনের
বংশধর হইবেন।”

৩য় ভূলের জবাব:
এখানে ফারুক আহমদ সাহেব জঘন্য মিথ্যাচার করেছেন। কারণ সৈয়দ মুর্তুজা আলী তাঁর লেখার ‘বংশধর হইবেন, এমন সন্দেহযুক্ত শব্দ ব্যবহার করেননি। বরং সৈয়দ মুতুর্জা আলী তাঁর ‘হযরত শাহ জালাল (রহ.) ও সিলেটের ইতিহাস’ গ্রন্ত্রে যা লিখেছেন তা আমরা প্রথমেই উল্লেখ করেছি। পাঠকদের সুবিধার জন্য এখানে আবার লিখাটা কপি করলাম।

সৈয়দ মুর্তুর্জা আলী তাঁর-: “হযরত শাহজালাল (রহ.) ও সিলেটের ইতিহাস” গ্রন্ত্রে
লেখেন-
‘সৈয়দ শামসুদ্দিন:- ইনি হযরত শাহ জালালের সঙ্গীর দরবেশ পূর্বে উল্লেখিত সৈয়দ আলা উদ্দিনের পুত্র’। সৈয়দ মুর্তুজা আলী পরিষ্কার ভাষার শামসুদ্দিন (রহ.) কে হযরত
আলা উদ্দিন (রহ.) এর পুত্র বলে উল্লেখ করেছেন। অথচ একই রেফারেন্স দিয়ে ফারুক আহমদ সাহেব লিখেন “বংশধর হইবেন।” এমন নির্জলা মিথ্যাচার করে একজন মানুষ কিভাবে নিজেকে গবেষক দাবী করেন তা আমার বোধগম্য নয়।

৪র্থ ভূল:
তিনি বলেন- “মোটকথা তিনি শাহজালাল (রহ.) এর সঙ্গী কেউ নন, কোন এক সঙ্গীর বংশধর বলিয়া ঐতিহাসিকদের ধারনা”।

৪র্থ ভূলের জবাব:
এ উক্তিটি হচ্ছে উনার নিজস্ব উক্তি, কোন ঐতিহাসিক অথবা ঐতিহাসিক গ্রন্ত্রের রেফারেন্স ছাড়াই তিনি এমন উদ্ভট- আজগুবি মন্তব্য করেছেন। অথচ উনি একজন সিনিয়র ও ভদ্র মানুষ। একজন দায়িত্বজ্ঞান সম্পন্ন ভদ্রলোক কিভাবে এমন জঘন্য মিথ্যাচার করতে পারেন, তা আমার জানা নেই। উনাকে এমন উদ্ভট লেখালেখির কারণে আমি উনাকে প্রখ্যাত গবেষক বলতে নারাজ। কেননা তিনি সর্বজন শ্রদ্ধের সৈয়দ মুতুর্জা আলীর বইসহ অনেক গবেষক/ঐতিহাসিকদের লেখাকে অবজ্ঞা করেছেন।

যাইহোক, হযরত শাহ সৈয়দ শামসুদ্দিন (রহ.) যে হযরত শাহজালাল (রহ.) এর অন্যতম
সফর সঙ্গী নিম্নোক্ত গবেষক ও ঐতিহাসিকদের লেখার মাধ্যমে তা প্রমাণ করা হলোঃ

(১) সৈয়দ মুতুর্জা আলী সৈয়দ শামসুদ্দিন (রহ.) কে ৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম একজন হিসেবে তাঁর পূবোক্ত গ্রন্ত্রে উল্লেখ করেছেন।
(২) প্রখ্যাত গবেষক অধ্যাপক আসদ্দর আলী তাঁর – ‘সাহিত্য সাধনায় জগন্নাথপুর’ প্রবন্ধে লেখেন ‘‘ ৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম শামসুদ্দীন (রহ.)’’।৩
(৩) ‘জগন্নাথপুরের স্বনামধন্য ব্যক্তিত্ব’ প্রবন্ধে প্রখ্যাত লেখক রাগিব হোসেন চৌধুরী লিখেন-‘‘ শাহজালালের অন্যতম শীর্ষ সৈয়দ শামসুদ্দীনের স্মৃতিধন্য সৈয়দপুরে অনেক সু- পুরুষ জন্মগ্রহণ করেছেন’’। অর্থ্যাৎ রাগীব হোসেন চৌধুরী শামসুদ্দীন (রহ.) ৩৬০ জনের একজন বলে গণ্য করেছেন। ৪
(৪)‘ যুগে যুগে মুসলিম রেনেসাঁর জগন্নাথপুর ’প্রবন্ধে বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক সৈয়দ মবনু লিখেন- ‘‘যে আটজন দরবেশের পদধুলিতে জগন্নাথপুর রাজ্য হলো ধন্য তারা হলেন (১) শায়েখ সৈয়দ শাহ শামসুদ্দিন (রহ.) (২) শায়েখ কানু ওরফে কানু পীর (রহ.) (৩) শায়েখ দাওর বখস খতিব (৪) শায়েখ শাহ কামাল (রহ.) (৫) শায়েখ কানা মানবিক (৬) শায়েখ দাওর বখস খতিব (৭) হাফেজ ফেসন উল এহসান (রহ.) (৮) হাজী শাসম উদ্দিন বিহারী (রহ.)।৫
অর্থাৎ, সৈয়দ মবনুও তাঁকে ৩৬০ জনের একজন হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

৫। বিশিষ্ট আইনজীবি ও গবেষক এড. আবু আলী সাজ্জাদ তাঁর ‘‘সুনামগঞ্জের ইতিহাস ও ঐতিহ্য’’ গ্রন্ত্রে লেখেন- ‘জগন্নাথপুরের সৈয়দপুর গ্রামে এসেছিলেন ৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম হযরত শাহ শামসুদ্দীন (রহ.)’।৬

৬। বাংলাদেশ সরকারের সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবুল মুহিত তাঁর -‘‘জ্ঞান পিপাসা ও
সৈয়দপুরের গ্রন্ত্রাগার ” শীর্ষক প্রবন্ধে লেখেন সৈয়দপুর আমার আম্মার দেশ। এই এলাকার
উন্নতি হয় দরবেশ শাহজালালের আমলে। শাহজালালের সহচর সুফি সৈয়দ আলা উদ্দিনের
(সিলেটের কুইঘাঠে সমাহিত) চার ছেলে ছড়িয়ে পড়েন ভাদ্বেশর, আওরঙ্গপুর, ইটা ও
সৈয়দপুরে। চতুর্থ সন্তান সৈয়দ শাহ শামসুদ্দিন আতুয়াজান পরগনায় বসবাস
করেন। সৈয়দপুরের নাম তার নামেই হয়। ৭

৭। প্রখ্যাত সাংবাদিক আব্দুল গফফার চৌধুরী তাঁর- ‘একটি গ্রাম, একটি পাঠাগার ও একটি
সাময়িকি’ প্রবন্ধে লেখেন- সৈয়দপুর একটি ইতিহাস খ্যাত নামও। এককালে নাম ছিল
কৃষ্ণপুর। হযরত শাহ- জামালের (রহ.) সঙ্গী ৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম আউলিয়া হযরত
শাহ শামসুদ্দীন (রহ.) এই গ্রামে আসার পর গ্রামটির নাম হয় সৈয়দপুর। এই গ্রামের দরগাহ
মসজিদ প্রাঙ্গনেই এই সাধক সমাহিত আছেন।”৮
৮। ‘শ্রীহট্ট নূর’ গ্রন্ত্রে মোহাম্মদ আব্দুর রহিম (১৯০৫ইং) লিখেন- হযরত শামসুদ্দীন সাহেব- এই
পীরের পবিত্র মাজার সৈয়দপুর মৌজায় অবস্থিত।”৯
৯। ‘সুনামগঞ্জের ইতিহাস, সাহিত্য এবং সংস্কৃতি’ প্রবন্ধে উপমহাদেশের প্রখ্যাত দার্শনিক দেওয়ান
মোহাম্মদ আজরফ (এম.এ) আল-ইসলাহ ৩২ বর্ষ ১০ম সংখ্যায় বলেন- “সুনামগঞ্জে
ইসলাম বিস্তৃণ হয় সৈয়দ ইউসুফ, সৈয়দ শামসুদ্দীন, শাহ কামাল, দাওর বক্স খতিব, শাহ-ই-
আরফিন প্রমুখ হযরত শাহ জালালের অনুসারী দ্বারা।” ১০
এতক্ষণের আলোচনায় আশা করবো, ফারুক সাহেব অনুধাবন করতে পারবেন যে, হযরত
শাহ শামসুদ্দিন (রহ.) হযরত শাহ জালাল (রহ.) এর সফর সঙ্গী ৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম
একজন ছিলেন।

৫ম ভূল:
তিনি লেখেন: শেষ পর্যন্ত এই মালেকাকে বিয়ে করেই তিনি কৃষ্ণপুর গ্রামে স্থায়ী বসবাস শুরু করেন।

৫ম ভূলের জবাব:
হযরত শাহ সৈয়দ শামসুদ্দীন (রহ.) মালেকাকে বিয়ে করেছিলেন সত্য কিন্তু বিয়ে করে তিনি স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন নাই। বিষয়টি এ রকম হযরত শাহজালাল (রহ.) তাঁকে বলেছিলেন পশ্চিম দিকে যাত্রা শুরু করে যেখানে মাগরিবের নামাজের সময় হবে তিনি যেন সেখানেই স্থায়ীভাবে অবস্থান করেন। হযরত শাহ শামসুদ্দীন (রহ.) মাগরিবের সময় তৎকালীন কৃষ্ণপুরে আসেন আর মুর্শিদের নির্দেশ মোতাবেক এখানেই স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। তাঁর আলৌকিক ক্ষমতা দেখে দিন দিন মানুষ ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত হতে থাকে। তেমনি এক প্রেক্ষাপটে হিন্দু মেয়ে মালতি (মুসলমান হবার পর নাম হয় মালেকা) ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত হবার জন্য অস্থির হয়ে ওঠে তার আত্মীয়-স্বজন তাকে কাষ্টে পুড়ানোর জন্য আগুন নিক্ষেপ করে। তখন সেখানে আলেীকিকভাবে হযরত শাহ সৈয়দ শামসুদ্দীন (রহ.) উপস্থিত হন আর তার উপস্থিতিতে মালতি লা ইল্লাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুলল্লুাহ’ পড়েন ফলে আগুন তাকে স্পর্শ করতে পারেনি। পরবর্তীতে তিনি মালতিকে (মালেকা) বিয়ে করেন।

৬ষ্ঠ ভূল:
তিনি লেখেন- “দু’ একটি ব্যতিক্রম ছাড়া এই গ্রামের প্রায় সবাইকে পাঠশালার পাশের পরেই মাদরাসা গিয়ে ভর্তি হওয়া অনেকটা রেওয়াজ পরিণত হয়েছিল।”

৬ষ্ঠ ভূলের জবাব:
বিষয়টি কোন রেওয়াজ বা প্রথা ছিল না। মূলত; আশে-পাশে কোন উচ্চ বিদ্যালয় না থাকায় অধিকাংশ মানুষই মাদরাসায় ভর্তি হতেন। তবে কিছু কিছু মানুষ অন্যন্যা গ্রামে
গিয়েও হাইস্কুলে ভর্তি হতেন। এটাকে রেওয়াজ বলে তিনি বিষয়টিকে তাচ্ছিল্যভাবে
দেখছেন কি-না, তা আমার নিকট পরিষ্কার নয়।

৭ম ভূল:
তিনি লিখেন: “হতে পারে সৈয়দ শামস উদ্দিন তার কাছে ইসলাম ধর্মে দীক্ষিতদের সঙ্গে আত্মীয়তার বন্ধন দৃঢ় করতেই এই রেওয়াজ চালু করেছিলেন, এবং তা এখনও অব্যাহত আছে।”
তিনি অরেক জায়গায় লিখেন, “ সৈয়দ শামসুদ্দিনের মত সৈয়দদের বাইরেও গিয়ে বিয়ে করে বিলাতে আবাসন গড়েন।”

৭ম ভূলের জবাব:
এটাও একটি স্বার্থক বাক্য হয়নি। আমার মনে হয় এর মাধ্যমে তিনি ‘কুটুক্তি’ করেছেন। বিয়ে ইসলামে একটি পবিত্র বন্ধন। মাহরাম পুরুষ/ মহিলা ছাড়া শরীয়তের যে কারো সাথেই বিবাহ করা বৈধ। আর এটা কোনো রেওয়াজও নয়। আত্মীয়দের মধ্যে বিয়ে শাদী এটা আমাদের সৈয়দপুরের ঐতিহ্য।

আর বিলেতে গিয়ে পরিবেশ-পরিস্থিতি বিবেচনায় সৈয়দপুর বাসীসহ সবাই নিজ নিজ
অবস্থান অনুসারে অভিবাসনের সুবিধার জন্য বিয়ে শাদী করেছেন। এখানে হযরত শাহ সৈয়দ শামসুদ্দীনের মতো বলে তিনি বিষয়টিকে তাচ্ছিলের দৃষ্টিতে দেখছেন নাকি ? এখানে শামসুদ্দীন (রহ.) কে টানা বোকামী ও বাস্তবতা বিবর্জিত।

৮ম ভূল:
তিনি লেখন: ‘যেমন সৈয়দ শামসুদ্দীন আসলে কে? এ সম্পর্কে ম্যাগাজিনটিতে কোন প্রমাণ্য তথ্য নেই। তিনি ফরিদ আহমদ রেজার প্রবন্ধ সর্ম্পকে বলেন-“ কিন্তু তিনিও অজ্ঞাত কারণে সৈয়দ শামসুদ্দীন সর্ম্পকিত ঐতিহাসিক তথ্য অনেকটা কৌশলে এড়িয়ে গিয়ে তাকে হযরত শাহ জালালের সঙ্গী হিসেবে উল্লেখ করেছেন।”
এ সম্পর্কে তিনি আরো লেখেন- “ঠিক একইভাবে সৈয়দ মুহাদ্দিস আহমদ ও তার প্রবন্ধে অনেক বিষয় তুলে আনলেও জগন্নাথপুরে ইসলাম প্রচার সর্ম্পকে লিখতে গিয়ে অনেকটা প্রচলিত কাহিনীর আশ্রয় নিয়েছেন।”

৮ম ভূলের জবাব:
আমি আশা করবো উপরোক্ত নীতিদীর্ঘ আলোচনার আলোকে জনাব ফারুক আহমদ সাহেবের নিকট দিবালোকের ন্যায় স্পষ্ট বুঝতে পারবেন যে হযরত শাহ সৈয়দ শামসুদ্দীন (রহ.) আসলে কে ছিলেন? কি-তাঁর পরিচয়?

হযরত শাহ সৈয়দ শামসুদ্দিন (রহ.) সর্ম্পকে আরো স্পষ্ট ধারনা পেতে হলে তিনি নি¤œ লিখিত গ্রন্ত্রগুলোর সাহায্য নিতে পারেন।

১। ডা. সৈয়দ শাহ আনওয়ার লিখিত ‘সৈয়দ আসহর আলী চৌধুরীর লিখিত মরমী সঙ্গীত ও প্রাসঙ্গিত কথা’। প্রকাশকাল: ১৯৮৩
২। সৈয়দপুরের ইতিহাস ও ঐতিহ্য। প্রকাশকাল: ১৯৯৯
৩। সৈয়দপুর ও সৈয়দ আমিনের বংশ। প্রকাশকাল: ২০১৫
৪। আট আউলিয়ার জগন্নাথপুর (প্রবন্ধ)। প্রকাশকাল: ১৯৯৭
৫। আবু সাঈদ মো. ওয়াজেদ (লেবু মাস্টার) লিখিত ‘সুনামগঞ্জের মাটি ও মানুষ’
প্রকাশকাল: ২০১৪
৬। সৈয়দপুর আলীয়া মাদরাসার শর্তবার্ষিকী স্মারক। প্রকাশকাল: ২০০৩
৭। সৈয়দপুর আলিয়া মাদরাসায় প্রকাশিত (২০১৯) আশ-শামস। প্রকাশকাল: ২০১৯
৮। সৈয়দপুর ছাত্র কল্যাণ সমিতি, সিলেট কর্তৃক প্রকাশিত ‘পালক’। প্রকাশকাল: ১৯৯৩
৯। মাসিক সৈয়দপুরের কথা ১ম বর্ষ ১ম সংখ্যা (আগস্ট) ২০১৪, সম্পাদক সৈয়দ
আয়েশ।

( কোন ভূল হলে ক্ষমা প্রার্থী)

তথ্যসূত্রঃ
১। সৈয়দ মুতুর্জা আলী- ‘হযরত শাহজালাল (র:) ও সিলেটের ইতিহাস’, পৃ:-২৫ ও ২৬
২। রাগিব হোসেন চৌধুরী সম্পাদিত- ‘জগন্নাথপুরের কথা’ , প্রকাশকাল-১৯৯৭ পৃ: ৬৯
৩। রাগিব হোসেন চৌধুরী সম্পাদিত- ‘জগন্নাথপুরের কথা’ প্রকাশকাল-১৯৯৭ পৃ: ৫৭
৪ । রাগিব হোসেন চৌধুরী সম্পাদিত- ‘জগন্নাথপুরের কথা’ প্রকাশকাল-১৯৯৭ পৃষ্টা- ১২৭
৫ । রাগিব হোসেন চৌধুরী সম্পাদিত- ‘জগন্নাথপুরের কথা’ প্রকাশকাল-১৯৯৭ পৃষ্টা Ñ ৭৫
৬। আবু আলী সাজ্জাদ হোসাইন- ‘সুনামগঞ্জ জেলার ইতিহাস ও ঐতিহ্য’
প্রকাশকাল ১৯৯৫ পৃষ্ঠা ৩৮
৭। কথকথা- (২৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী প্রকাশনা), সাধারণ পাঠাগার, সৈয়দপুর,
প্রকাশকাল ২০১০, পৃষ্ঠা-১০
৮। কথকথা-(২৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী প্রকাশনা), সাধারণ পাঠাগার, সৈয়দপুর,
প্রকাশকাল ২০১০, পৃষ্ঠা-১৪
৯। ডা. সৈয়দ শাহ আনওয়ার- ‘সৈয়দ আসহর আলী চৌধুরীর মরমী সঙ্গীত ও প্রাসঙ্গিত কথা’,
প্রকাশকাল ১৫ এপ্রিল ১৯৮৩ পৃ: ৭৬
১০। ডা. সৈয়দ শাহ আনওয়ার- ‘সৈয়দ আসহর আলী চৌধুরীর মরমী সঙ্গীত ও প্রাসঙ্গিত কথা’,
প্রকাশকাল ১৫ এপ্রিল ১৯৮৩ পৃ: ৭৭
১১। ‘সৈয়দপুরের ইতিহাস ও ঐতিহ্য’- সিলেট কল্যাণ সমিতি, সিলেট।
প্রকাশকাল-১৯৯৯ পৃ: ৬ ও ৭
১২। সৈয়দ মারুফ আহমদ খোকন রচিত- ‘সৈয়দপুর ও সৈয়দ আমিনের বংশ’,
প্রকাশকাল ২০১৫ ইংরেজি
১৩। সৈয়দপুর আলীয়া মাদরাসার শতবার্ষিকী স্মারক, প্রকাশকাল ২০০৩ইং
১৪। সৈয়দপুর আলীয়া মাদরাসা থেকে প্রকাশিত, ম্যাগাজিন ‘আশ শামস’ ২০১৯্ইং
১৫। সৈয়দপুর ছাত্র কল্যাণ সমিতি, সিলেট, কর্তৃক প্রকাশিত ম্যাগাজিন ‘পালক’ ।
প্রকাশকাল- ১৯৯৩ইং
১৬। ‘মাসিক সৈয়দপুরের কথা’, প্রথম বষর্, প্রথম সংখ্যা (আগস্ট) ২০১৪ইং,
সম্পাদক: সৈয়দ আয়েশ মিয়া।
১৭। আবু সাঈদ মো. ওয়াজেদ (লেবু মাস্টার) রচিত- ‘সুনামগঞ্জের মাটি ও মানুষ’,
প্রকাশকাল ২০১৪।

এই সংবাদটি 103 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com