এম সাইফুর রহমান জিন্দাবাদ

প্রকাশিত: ১:৩০ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০২০

এম সাইফুর রহমান জিন্দাবাদ

এমদাদ চৌধুরী দীপু,যুক্তরাস্ট্র::
বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ এবং ইসলামী মূল্যবোধের পথিকৃত ছিলেন এম সাইফুর রহমান।বাংলাদেশের রাজনীতির যে দুটি ধারা সেই ধারার একটি হচ্ছে এই দেশের মানুষের অনুকুলে, আবেগ অনুভুতির সাথে একাকার ধারা। যেটি বার বার জনপ্রিয়তার প্রমান রেখেছে। সেই বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদেরই একজন শীর্ষ প্রচারক ছিলেন এম স্ইাফুর রহমান। মন্ত্রী সাইফুর রহমান কিংবা বিএনপির শীর্ষনেতা সাইফুর রহমান তার বক্তৃতায় বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ কিংবা বিএনপির প্রতিস্টার প্রেক্ষাপট এবং ইতিহাস তুলে ধরতেন। বিএনপির উত্তান-পতন,বিবর্তন-বিকাশের বর্ননা দিতেন সুন্দরভাবে।
বিএনপির প্রথম কমিটির দ্বাদশ সদস্য ছিলেন এম সাইফুর রহমান। তাই সাইফুর রহমানের আরেক নাম বিএনপি,আরেক নাম বাংলাদেশ। বিএনপির ৭৫ সদস্যবিশিস্ট জাতীয় কমিটির অনেকে বিএনপি ছেড়ে অন্য দলে চলে গেছেন,কেউ আবার ফিরেএসেছেন,কেউ অন্য দল গড়েছেন। তবে সাইফুর রহমান ছিলেন আদর্শের প্রতি অবিচল,বাংলাদেশ জিন্দাবাদ আর বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ জিন্দাবাদের ¯েøাগানকে সমুন্নত রেখেছেন এই ক্ষণজন্মা রাজনীতিবিদ। এরশাদ এর শাসনামলে কারাবরন করেছেন তবে মাথানত করেননি,যেটি করেছিলেন তার বন্ধ্র,কলেজ জীবনের সহপাটি আবুল মাল আব্দুল মুহিত। এরশাদেও পিস্তল মুহিতের মনে ভয় সৃস্টি করলেও সাইফুর হমানের মনে ভয় সৃস্টি করতে পারেনি। তার জীবন এবং দর্শন হচ্ছে মা,মাটি,মানুষ,লাল সবুজ পতাকা আর উন্নয়ন এবং সমৃদ্বির স্বপ্ন বাস্তবায়ন। এসব নিয়েই ছিল সাইফুর রহমানের সংগ্রামমূখর জীবনজীবন।
দল হিসেবে বিএনপি যখন সংকটে পড়েছে তখন সুবিধাভোগীরা দল ছেড়ে চলে গেছেন,এই তালিকা অনেক লম্বা।তালিকার এক নেতা হচ্ছেন ইনাম আহমদ চৌধুরী। ইনাম আহমদকে ”কাউয়া লুলির সাথে তুলনা করেছিলেন মরহুম এম সাইফুর রহমান।কাউয়া লুলির ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে সাইফুর রহমান বলেন খুব সুন্দর একটি ফল কিন্তু কাউয়া ছাড়া কেউ খায়না। তার ইঙ্গিত ছিল ইনাম আহমদরা একটি শ্রেনীর মানুষের কাছে প্রয়োজনীয় হলেও রাজনীতিতে খুব গুরুত্বপূর্ন নয়। এই ইনাম আহমদ বিএনপি থেকে সিলেট-১ আসনে নির্বাচন করতে চেয়েছিলেন,বিএনপি সুবিধা না দেয়ায় বিএনপিকে নিয়ে,শহীদ জিয়াকে নিয়ে বই লেখক ইনাম চৌধুরী আওয়ামীলীগে আশ্রয় নেন,সিলেট-১ আসন থেকে বিএনপির প্রার্থী হওয়ার খায়েশ ছিল আরেক বেঈমান শমশের মুবিনের। সুবিধা করতে না পারায় আশ্রয় খোজেন বিকল্প ধারায়। বিএনপির এই দুঃসময়ে দল ছেড়েছেন বিএনপি সরকারের সাবেক পররাস্ট্রমন্ত্রী মোরশেদ খান। আরেক বেঈমান নাজমুল হুদা বিএনপির বিরোদ্বে নানা ষড়যন্ত্র করে এখন নীরব। এসব নীতি,আদর্শহীন ব্যক্তিদের বিপরীতে সাইফুর রহমান ছিলেন দল,দেশ এবং মানুষের কাছে কিংবদন্তিনেতা,বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের রাজনীতির মহানায়ক। দেশের সীমানা পেরিয়ে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে জাতিসংঘমআইএমএফসহ বিভিন্ন ফোরামে প্রতিনিধিত্ব করেছেন,দেশের জন্য গৌরব বয়ে নিয়ে এসেছেন তিনি।
মাটি ও মানুষের প্রতি দরদী এম সাইফুর রহমান কিভাবে একটি অবহেলিত জনপদকে বদলে দেয়া যায় তার দৃস্টান্ত স্থাপন করেছেন সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে।
যে কোম্পানীগঞ্জে যেতে কয়েকটি ফেরী ব্যবহার করতে হতো সেখানে আজ কোন ফেরী নেই। সাইফুর রহমান কলেজ আজ কোম্পানীগঞ্জে সাইফুর রহমানের স্মুতি বহন করছে,তিনি কোম্পানীগ্্ঞ্জবাসীর হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন তার কাজের মাধ্যমে। ধর্মপ্রাণ সাইফুর রহমান সিলেটের বিভিন্ন মসজিদে যেতেন তার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে সাহায্য প্রদান করতেন। সিলেটের মহাজনপট্টি জামে মসজিদ,দরগাহ মসজিদসহ অসংখ্য মসজিদে তার ছিল অনুদান,এছাড়া অসাম্প্রদায়িক চেতনার এই জননেতা ভিন্নধর্মের মানুষের মনজয় করেছেন,তাদের পাশে দাড়িয়েছেন।
সিলেটে সৌহার্দ্যরে রাজনীতির দৃস্টান্ত স্থাপন করেছেন কিংবদন্তি জননেতা সাইফুর রহমান। সিলেটের প্রবেশদ্বারে হুমায়ুন রশীদ স্কয়ার নির্মান এবং রশীদ পরিবারের সদস্যকে সাথে নিয়ে সেটি উদ্বোধন করেছিলেন। এই উদ্যেগের মাধ্যমে সিলেটের উন্নয়নে আরেক বরেণ্য ব্যক্তি জাতীয় সংসদের স্পীকার মরহুম হুমায়ুন রশীদকে সম্মান জানিয়েছিলেন তিনি। সিলেট প্রেসক্লাবের ৭তলা ভবন তৈরীর প্রকল্প নিয়েছিলেন এম সাইফুর রহমান,তার এই অবদান সাংবাদিক সমাজ স্মরন করবেন যুগের পর যুগধরে।
বিভিন্ন বক্তৃতায় এবং আলোচনায় শহীদ রাস্ট্রপতি জিয়াউর রহমান এর সাথে পরিচয়,বিএনপিতে যোগদান এবং দেশ গঠনে তার অবদানের বিবরন তুলে ধরতেন এম সাইফুর রহমান।
এম সাইফুর রহমান একজন ব্যক্তি,একটি প্রতিস্টান,একটি আন্দোলন,একটি আদর্শ,একটি দর্শন। তার জীবন এবং বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ অভিন্ন অবিচ্ছেদ্য।১২ বার জাতীয় সংসদে বাজেট উপস্থাপনকারী সাইফুর রহমান।আমাদের জাতীয়তার পতাকা তিনি বহন করেছেন বীরত্ব-অহংকারকে সাথী করে। তিনি বার বার ভালোবাসায় সিক্ত হয়েছেন মৌলভীবাজারে তার জন্ম মাটিতে,এবংবৃহত্তর সিলেটে। বিনিময়ে সিলেটকে তিনি সাজিয়েছেন সুন্দরের চাদরে,দিয়েছেন উন্নয়ন, যা প্রজন্মের পর প্রজন্ম মনে রাখবে। সাইফুর রহমানের প্রতি শ্রদ্বা জানাতে আজ দেশে গঠিত হচ্ছে সাইফুর রহমান স্মৃতি পরিষদ। যুক্তরাস্ট্রে সাইফুর রহমান স্মৃতি পরিষদের প্রতি যে সমর্থন পাওয়া গেছে সেটি এক বিরল দৃস্টান্ত। আর এখানে সাইফুর রহমান সফল যে মৃত্যুর পরও তাকে স্মরণকারীরা দেশে দেশে সমবেত হচ্ছেন। এটি হচ্ছে বাস্তবতা, আদর্শের মৃত্যু নেই।
দেশ এবং জাতির জন্য সর্বোপরী সিলেটের জন্য অন্তপ্রাণ এই মাহানয়ক এর মৃত্যু নেই। তিনি বেচে থাকবেন ধানের শীষে,লালসবুজ পতাকায়,জাতীয়তার চেতনায়,আগামীর প্রেরনায়।

এই সংবাদটি 198 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com