জকিগঞ্জের মুনশীবাজার মাদরাসায় এলাকাবাসীর স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে বৈঠক সম্পম্ন

প্রকাশিত: ১:৪২ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০২০

জকিগঞ্জের মুনশীবাজার মাদরাসায় এলাকাবাসীর স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে বৈঠক সম্পম্ন

সিলেট রিপোর্ট: খলীফায়ে মাদানী আব্দুল গাফফার শায়খে মামরখানী রহ. পূণ্যস্মৃতি বিজড়ীত জামিয়া ইসলামীয়া ফয়জে আম মুনশীবাজার মাদরাসায় গত ২রা সেপ্টম্বর, বুধবার এলাকার সর্বস্তরের মুরব্বিয়ান ও গণপ্রতিনিধিত্বশীল নেতৃবৃন্দের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে গুরুত্বপূর্ণ মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। মাদ্রাসা অফিস মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ জনাকীর্ণ গুরুত্বপূর্ণ মিটিংয়ে জকিগঞ্জের বারঠাকুরী থেকে শুরু করে মৌলভীরচক এলাকা পর্যন্ত প্রায় ৪২ টি মহল্লার মুরব্বি, মুতাওয়াল্লী ও সূধীজন স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে অত্যন্ত আন্তরিকতা ও দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়ে অংশ গ্রহণ করেন। সকাল ১১ ঘঠিকায় মাদ্রাসার নির্বাহি মুহতামিম মাওলানা আব্দুল মুসাব্বির সাহেবের সভাপতিত্বে কুরআন মাজীদ তেলাওয়াতের মাধ্যমে সভার কার্যক্রম শুরু হয়।
মিটিং- এ মাদরাসার পক্ষ থেকে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট মুহাদ্দিস ও মুফতি মাওলানা মাহমুদ হুসাইন (বারঠাকুরী) ও বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ মাদরাসার শিক্ষাসচিব মাওলানা হাফেজ ফখরুজ্জামান। তাঁদের বক্তব্যে জামিয়ার বর্তমান সম্পূর্ণ আইনসিদ্ধ ও নীতিগত অবস্থান, সুন্দর কার্যক্রম এবং সার্বিক পরিস্থিতি তুলে ধরেন এবং দেশের প্রাচীনতম ও আল্লাহর ওলীর স্মৃতি বিজড়িত এ মহান প্রতিষ্ঠানের অতীত ঐতিহ্য ও হৃত গৌরব পুনরুদ্ধার এবং সময়ের অনিবার্য দাবি পূরণ করে বর্তমান দুর্বলতা গুলো কাটিয়ে ওঠে মানসম্পন্ন মাদ্রাসা গুলোর ধারায় মুনশী বাজার মাদ্রাসা কে দ্রুত উন্নীত করার আশু প্রয়োজন ও সীমাহীন গুরুত্ব সম্পর্কে বাস্তবতার আলোকে প্রাণবন্ত আলোচনা পেশ করেন। এ সময় তাঁরা জরুরী ভিত্তিতে মাদ্রাসার শিক্ষা ও প্রশাসনিক বিভাগে বিগত দিন গুলোতে প্রধান পরিচালক হযরত আল্লামা মুকাদ্দাস আলী ( মুহাদ্দিস সাহেব হুজুর) এর নির্দেশে যেসব সংস্কারমূলক সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে, সে সম্পর্কে উপস্থিত মুরব্বিয়ান ও গণপ্রতিনিধিত্বশীল নেতৃবৃন্দকে অবহিত করেন।
এরপর মাদরাসার বর্তমান যৌক্তিক বরং অবস্থার পরিপেক্ষিতে ও সময়ের তাগিদে জরুরী বর্তমান অবস্থানের ওপর এলাকার গণ্যমান্য মুরব্বি ও সূধীজনরা তাঁদের মতামত ও বক্তব্য তুলে ধরেন। সকলেই বর্তমান মাদরাসার ব্যবস্থাপনা, কার্যক্রম ও প্রশাসনিক কাঠামোর ভূয়সী প্রশংসা করেন। হযরত মুহাদ্দীস সাহেবের নেতৃত্বে সকল কার্যক্রমের প্রতি অকুণ্ঠ সমর্থন জ্ঞাপন করেন। এ সময় মুনশী বাজার মাদ্রাসার নাইবে মুহতামিম মুফতি আব্দুল মুনতাকিম সাহেবের নিরলস প্রচেষ্টা ও অবদানের জন্য সকলেই তাঁকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। বারঠাকুরী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুহসিন মুর্তুজা টিপু চৌধুরী সাহেব তাঁর বক্তব্যে বলেন, মুনশীবাজার মাদরাসা সবসময় অত্যন্ত সুষ্ঠ, সুন্দর ও নিয়মতান্ত্রিক ভাবে পরিচালিত হচ্ছে। উন্নতি ও সফলতা লাভের জন্য পরিবর্তন আবশ্যক। আমি বর্তমান পরিবর্তন ও নতুন অবকাঠামোর জন্য জামিয়ার কর্তৃপক্ষকে স্বাগতম জানাই। জনাব আব্দুস সাত্তার মঈন সাহেব বলেন, জ্ঞানের গুরুত্ব অপরিসীম। এজন্য যে কোন কার্যক্রমের অধিকার আমাদের মাদরাসার পরিচালকরা রাখেন। কসনকপুর ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান জনাব আব্দুল হালিম বলেন, আমার পিতা শায়খে মামরখানী রহ.র ইন্তেকালের পর মুনশীবাজার মাদরাসা অনেক অভাব ও সংকটে পড়ে। মাদরাসার ব্যয় অনেক অনেক বৃদ্ধি পায়। সে সময় থেকে মুফতি আব্দুল মুনতাকিম সাহেব কোনো পজিশন ও পদের লোভ ছাড়াই শুধু দ্বীনের হেফাজত ও প্রচারে এ প্রতিষ্ঠানের খেদমত করে আসছেন। মেম্বার জনাব ইসলামুদ্দীন সাহেব বলেন, এ মাদরাসা হল আমাদের গৌরব। জামিয়ার পরিচালকবৃন্দের বর্তমান সকল কার্যক্রম অত্যন্ত প্রশংসনীয়, কল্যায়নকর ও উপুযুক্ত। মাদরাসার স্বার্থে পরিচালকরা যে কোনো পরিবর্তন ও পরিবর্ধনের অধিকার রাখেন। মাস্টার শাহীন আহমদ বলেন, মুনশী বাজার মাদরাসা আমাদের বড় সম্পদ। টাইটেল পর্যন্ত পুরুষ ও মহিলাদের জন্য পৃথক দুটি পূর্ণাঙ্গ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান । সীমান্তবর্তী এ গরীব অঞ্চলের জন্য মাসিক এত বিশাল ব্যয় বহন করা সম্ভব নয়। আল্লাহর বিশেষ অনুগ্রহে মুফতি আব্দুল মুনতাকিম সাহেবের অবদানে এ বিশাল প্রয়োজন পূরণ হচ্ছে। এলাকার বিশিষ্ট আলেম মাও. আব্দুশ শহিদ সাহেব বলেন, এ জামিয়ার পরিচালকরা আল্লাহর ওলী। যা কিছু করেন, সবই নিয়মতান্ত্রিক ভাবে মাদরাসার কল্যাণ ও সফলতার জন্য আল্লাহর ইশারায় করেন। এদের সততা, পরেহেজগারী প্রশ্নের উর্ধে। তাই হযরত মুহাদ্দিস সাহেবের হাতে এলাকাবাসী পূর্ণ ক্ষমতা দিয়ে দায়িত্ব দিয়েছেন। তিনি পরামর্শ করে যা করবেন সবই হল আমাদের কাজ। এতে আমাদের পুর্ণ সমর্থন রয়েছে।

পরিশেষে মুনশীবাজার মাদরাসার মুহতামীম পীরে কামিল শায়খুল হাদীস আল্লামা মুকাদ্দাস সাহেব (দাঃ বাঃ) সমাপনী বক্তব্য প্রদান করেন। তিনি বলেন আমাদের মাদরাসায় শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়ন ও কাঙ্খিত সফলতা লাভের জন্য আমি পরামর্শ করে সফল শিক্ষাবিদ, বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী হাফেজ মাওলানা ফখরুজ্জামান সাহেবকে এনেছি। আমার পরামর্শ ও সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সংস্কারের উদ্দেশ্যে কিছু পরিবর্তন ও পরিবর্ধন হয়েছে। মাও. ফখরুজ্জামান সাহেব অনেক যোগ্যতার অধিকারী ও বড় গবেষক। সবকিছু মাদরাসার ভালর জন্য করেছি। যাতে সকলের আমানত এ জামিয়ার শিক্ষার অগ্রগতি নিশ্চিত হয় এবং বিপুল পরিমাণ ছাত্রের আগমন হয়। সভাপতির বক্তব্যে মাদরাসার নির্বাহী মুহতামিম শায়খুল হাদিস মাওলানা আব্দুল মুসাব্বির (আইওরী হুজুর) বলেন, আপনারা অনেক কষ্ট-ত্যাগ করে আসার জন্য শুকরিয়া আদায় করছি। আপনাদের মাদরাসা। আপনারা সবসময় খবরাখবর নিচ্ছেন আরও নিবেন। আমি মাদরাসার পক্ষ থেকে আপনাদেরকে আবারও বিশেষভাবে স্বাগতম জানাচ্ছি।

এ সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন. সর্বজনাব হাবিবুর রাহমান, আব্দুর রাহমান, আব্দুল কাইয়ুম সাহেব, ললু মিয়া, আব্দুল মান্নান মিয়া, নাজু মিয়া, রঈস মিয়া, নুর আহমদ, ইব্রাহীম আলী, ফখর মিয়া, ছাই মিয়া, মাস্টার নুর আহমদ সহ এলাকার নেতৃস্থানীয় আরো অনেক মুরব্বীবৃন্দ।

পরিশেষে মুনশীবাজার মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা মুকাদ্দাস সাহেবের দোয়ার মাধ্যমে মিটিংয়ের সমাপ্তি হয়।

এই সংবাদটি 171 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com