স্বপ্নবান তারুণ্যের উজ্জ্বল প্রতিনিধি আব্দুল মুনিম ক্যারল

প্রকাশিত: ১০:২৭ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৮, ২০২০

স্বপ্নবান তারুণ্যের উজ্জ্বল প্রতিনিধি আব্দুল মুনিম ক্যারল


সাঈদ চৌধুরী:

আশি ও নব্বই দশকে বাংলাদেশ থেকে লন্ডনে আসা যুব সমাজ এখন অনেকটা পরিণত বয়সে পৌছে গেছেন। এদের অন্যতম স্বপ্নবান এক উজ্জ্বল তারুণ্য আব্দুল মুনিম ক্যারল। একটি সুন্দর সমাজ বিনির্মাণের স্বপ্ন নিয়ে যার দুরন্ত পদচারণা আমাকে মুগ্ধ করে।

এটা সত্য যে, আমরা চাই বা না চাই- প্রতিনিয়ত সমাজ পরিবর্তন হচ্ছে। আর এই সমাজ বলতে ঘর সংসার থেকে শুরু করে আমাদের আশপাশের সবকিছু, স্থলসীমা, জলসীমা, আকাশসীমা এমনকি তার বাইরে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে সর্বত্র।

আমাদের বোধ এবং বোধের অজ্ঞাতে পরিবর্তনের ধারা অব্যাহত আছে। সব পরিবর্তন অবশ্য কাঙ্ক্ষিত নয়। ফলে পরিবর্তনের মিছিলে গড্ডালিকা প্রবাহে গা ভাসানো যায়না। সুন্দর সমাজ বিনির্মাণের জন্য প্রয়োজন নিজেদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের বিকাশ সাধন।

সংস্কৃতি হচ্ছে সভ্যতার অলঙ্কার। বিশেষ করে মুসলিম সংস্কৃতি একটি সার্বজনীন ও কল্যাণকর সমাজের প্রধান উপজীবিকা। মানুষ শ্রেষ্ঠ জীব হিসেবে তার জীবনের কোনো কিছুই বল্গাহীন হতে পারেনা। এর অর্থ এই নয়, একেবারে বিনোদন মুক্ত জীবন বেছে নেয়া। বরং এ উপলব্ধি থাকতে হবে যে, পৃথিবীতে আমাকে দায়িত্বহীন এবং লাগাম বিহীন উটের মত মুক্ত স্বাধীন করে দেয়া হয়নি।

ফলে আত্মকেন্দ্রিক বা ধ্বংসাত্মক সংস্কৃতি ও বিপর্যয় সৃষ্টিকারী জীবন দর্শনের প্রভাব মুক্ত থাকতে হবে। এক্ষেত্রে অবশ্যই সব ধরনের বৈধ বিনোদনের সুযোগ রয়েছে। শিল্প-সাহিত্য, খেলাধুলা ও সংগীত সব ক্ষেত্রেই। তবে তা রুচিশীল এবং মানুষের জন্য উপকারী বিবেচিত হতে হবে।

বিশ্বস্ত ও বন্ধুত্বপরায়ন আব্দুল মুনিম ক্যারল একজন ঐতিহ্য সচেতন আত্মপ্রত্যয়ী কর্মবীর। ১৯৮৫ সালের ২২ জানুয়ারি বাংলাদেশ থেকে বাবা-মা‘র সাথে লন্ডনে পাড়ি জমান তিনি। মাত্র এসএসসি পরীক্ষা দিয়েই দেশান্তর হন। এখানে এসে সিটি এন্ড ইস্ট লন্ডন কলেজ, হ্যাকনি কলেজ ও সবশেষে লন্ডন মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটিতে পড়ালেখা করেন। এই সময় তিনি স্থানীয় ইয়ুথ ক্লাবে পার্ট টাইম জব ও বিভিন্ন ভলান্টারি সেক্টরে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ইউরোপের সর্ববৃহৎ ইসলামিক প্রতিষ্ঠান লন্ডন মুসলিম সেন্টার (এলএমসি) ও ইস্ট লন্ডন মসজিদের একজন সক্রিয় সদস্য।

এলএমসি হোয়াইটচ্যাপেল এবং অ্ল্ডগেটের মধ্যবর্তী স্থানে লন্ডন বারা অব টাওয়ার হ্যামলেটসে অবস্থিত একটি বিশ্বমানের প্রতিষ্ঠান। সিটি অব লন্ডনের অতি সন্নিকটে এবং লন্ডনের ডকল্যাণ্ড থেকে অল্প দূরে অবস্থিত। এটি প্রধানত বিলেতের মুসলিম সম্প্রদায়কে ধর্মীয় সেবা প্রদান করে থাকে। এখানে জামাতে নামাজ পড়ার জন্য ৮/১০ হাজার মুসল্লী অংশ গ্রহণ করেন। গড়ে সাপ্তাহিক নামাজির উপস্থিতির সংখ্যা ৪০ হাজারেরও বেশি ছাড়িয়ে যায়।

এখানে উল্লেখ্য যে, ইসলাম-মুসলমান ও মসজিদ-মাদ্রাসা সম্পর্কে একশ্রেণীর মিডিয়ার নেতিবাচক প্রচারণা যখন নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার, সেই মুহূর্তে বিবিসি প্রচারিত একটি ডকুম্যান্টারি ইস্ট লন্ডন মসজিদ ও লন্ডন মুসলিম সেন্টারকে বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরেছে অন্যরকম উচ্চতায়। ‘ওয়েলকাম টু দ্য মস্ক’ নামক এ ডকুম্যান্টারিটি নির্মাণ করেন বৃটিশ সাংবাদিক রব লিস (Robb Leech)। তিনি দীর্ঘ আট মাস ইস্ট লন্ডন মসজিদ, লন্ডন মুসলিম সেন্টার ও মারিয়াম সেন্টার ঘুরে পর্যবেক্ষণ করে এটি নির্মাণ করেন। প্রামান্যচিত্র নির্মাণকালে তিনি পর্যবেক্ষণ করেন- কীভাবে নামাজ পড়া হয়, কীভাবে মসজিদে ধর্মীয় আলোচনায় মানুষ একাগ্রচিত্তে মনোনিবেশ করে, এমনকি কীভাবে অজু করা হয়।

আলোচিত ডকুম্যান্টারিটি ২০১৫ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর বুধবার রাত ৮ টায় বিবিসিতে প্রচারিত হওয়ার পর মুসলিম ও ননমুসলিম সোসাইটিতে ব্যাপক সাড়া পড়ে। এলএমসি যে শুধু নামাজেরই স্থান নয়, বরং এখানে কমিউনিটির মানুষের সেবায় বহুমুখী কার্মকাণ্ড পরিচালিত হয়ে থাকে তা অত্যন্ত সুন্দরভাবে ফুটে ওঠেছে ডকুম্যান্টারিতে। এলএমসি ও ইস্ট লন্ডন মসজিদ ইউরোপের বৃহৎ ধর্মীয় প্রকল্প হওয়ায় এই প্রতিষ্ঠানের প্রতি সব সময়ই মূলধারার মিডিয়ার তীর্যক দৃষ্টি থাকে। এর ভেতরে গোপনীয় কার্মকাণ্ড পরিচালিত হয়ে থাকতে পারে- এমন ভ্রান্ত ধারণাও পোষণ করে কোনো কোনো মিডিয়া। কিন্তু এবার একজন বৃটিশ সাংবাদিক তার পেশাগত দায়িত্বপালনের জন্য দীর্ঘ ৮ মাস ভেতরের কার্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণের মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হয়েছে- এটি সকলের জন্য উন্মুক্ত একটি জায়গা। এখানে গোপনীয় কিছু থাকতে পারে- এমন ধারণা পোষণ করা সম্পুর্ণ অমূলক।

এলএমসি কমপ্লেক্সের বিজনেস উইংয়ে প্রায় ১৫ বছর আমার অফিস ছিল। এর বহুমুখি কার্যক্রমের সহায়ক শক্তি ছিলাম আমরা। আব্দুল মুনিম ক্যারলকে তখন কাছে থেকে দেখেছি। এখানকার একজন সক্রিয় কর্মির অনেক কাজ। সে হিসেবে বিস্তর অভিজ্ঞতা অর্জনের অবকাশও রয়েছে। ইউরোপের বৃহত্তম এই ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে প্রায় ৩৬টি প্রজেক্ট চালু রয়েছে। পুরুষ ও মহিলাদের পৃথক নামাজের সুব্যবস্থার পাশাপাশি রয়েছে ইভিনিং মাদ্রাসা, প্রাইমারি স্কুল, সেকেন্ডারি স্কুল, বিজনেস সেন্টার, ফিটনেস সেন্টার, ফিউনারেল সার্ভিস, ফ্রি লিগ্যাল সার্ভিস, ম্যারেজ ব্যুরো সহ বহুবিধ সেবাকর্ম।

ইসলামী সমাজ ব্যবস্থায় মসজিদের ভূমিকা যা হওয়া উচিত এখানে তার প্রায় সকল উপাদান বিদ্যমান আছে। মসজিদই ছিল মহানবী হয়রত মুহাম্মদ (স) এর নেতৃত্বে গঠিত ইসলামী সমাজের উত্স। সে আলোকে এখানকার সকল কর্মকান্ড পরিচালিত হয়। ইস্ট লন্ডন মসজিদ হচ্ছে কমিউনিটির সর্বস্তরের মানুষের প্রাণকেন্দ্র। বৃটেন সহ ইউরোপের মুসলমানদের জন্য আনন্দ ও গর্বের প্রতিষ্ঠান। যারা নতুন কমিটিতে আছেন তাঁরা মসজিদের একেক জন খাদিম। মসজিদের কৌশলগত পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য তারা কাজ করেন। অমুসলিম ও নতুন মুসলমানদের জন্য উন্নত সেবা নিশ্চিত করা, যুব সমাজের চাহিদা অনুযায়ী উদ্যোগ গ্রহণ করা, মহিলাদের সেবার মান ও ক্ষেত্রবৃদ্ধি ইত্যাদি, যা সমাজে সত্যিকার অর্থে ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

ইস্ট লন্ডন মসজিদ ও লন্ডন মুসলিম সেন্টারের ৬০তম সাধারণ সভা ও ট্রাস্টি বোর্ডের দ্বি-বার্ষিক (২০১৯-২০২১) নির্বাচনে চেয়ারম্যান হয়েছেন মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান আইয়ুব খান ও মুহাম্মদ শাফিউর রহমান, সেক্রেটারি আব্দুল হাই মুর্শেদ এবং ট্রেজারার হয়েছেন মুহাম্মদ আব্দুল মালিক। নির্বাচিত এবং কো-অপ্টেড ট্রাস্টিবৃন্দ হচ্ছেন হাবিবুর রহমান, আইয়ুব খান, শাফিউর রহমান, ড. আব্দুল হাই মুর্শেদ, মোহাম্মদ আব্দুল মালিক, সিরাজুল ইসলাম হীরা, সিরাজুল ইসলাম, আমান আলী, ড. মাহেরা রুবি, রাহেলা চৌধুরী, হোসাইন শিপার, ইসমাইল পাটেল ও রুহানা আলী। ১৩ সদস্য বিশিষ্ট ট্রাস্টি বোর্ডের বাইরেও বিপুল সংখ্যক ভলান্টিয়ার এই প্রতিষ্ঠানের সাথে সক্রিয় রয়েছেন। যারা দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনে সামনের কাতারে থাকেন। আব্দুল মুনিম ক্যারল তাদেরই একজন।

নিবেদিতপ্রাণ সংগঠক আব্দুল মুনিম ক্যারল এলএমসি সংশ্লিষ্ট আরো কিছু প্রতিষ্ঠানে জড়িত রয়েছেন। তিনি ‘টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল অব মস্ক‘ এর কোষাধ্যক্ষ। সম্প্রতি তাদের বিশেষ প্রচেষ্টায় কোভিড ১৯ তথা করোনা মহামারির ভয়াবহ দুর্যোগের সময় লন্ডন বারা অব টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল করোনা ভাইরাসের সময়কালের জন্য ধর্মপ্রাণ মানুষের কথা বিবেচনা করে, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর সুবিধার জন্য কাউন্সিলের অন্তর্ভুক্ত মসজিদ ও অন্যান্য ধর্মীয় উপাসনালয় গুলোর ভাড়া মওকুফ করে দিয়েছে। গত ১৭ এপ্রিল টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের ডিভিশনাল ডাইরেক্টর শ্যারন গডম্যান এক রিপোর্টের মাধ্যমে জানিয়েছেন, ২০২০ সালের ১লা এপ্রিল থেকে ৩০ শে জুন পর্যন্ত এই তিন মাসের জন্য মসজিদ সহ অন্যান্য ধর্মীয় উপসনাগুলোর ভাড়া মওকুফ করতে সম্মত হয়েছে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল।

উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাস মহামারি জনিত কারণে ৫৫টি মসজিদের সংগঠন কাউন্সিল অব মস্ক স্থানীয় এবং জাতীয় সরকারের পরামর্শের সাথে সামঞ্জস্য রেখে, ঈমাম ও স্কলারদের সাথে পরামর্শ করে বৃহত্তর জনসাধারণের সুবিধার কথা বিবেচনা করে ২০ মার্চ শুক্রবার থেকে মসজিদে জামাত, সমাবেশ এবং সমস্ত পাবলিক অ্যাক্সেস স্থগিত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। তবে মসজিদ বন্ধের সাথে সাথে সকল আয়ের উৎস বন্ধ হয়ে যায়, ফলে মাসজিদগুলো রক্ষণাবেক্ষণ করা খুবই কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। কাউন্সিল অব মস্ক টাওয়ার হ্যামলেটসের চেয়ারম্যান হাফেজ মাওলানা শামসুল হক, সেক্রেটারি হীরা ইসলাম, ট্রেজারার মোঃ আব্দুল মুনিম জাহেদী ক্যারল লন্ডন বারা অব টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের এই মানবিক সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন।

আব্দুল মুনিম ক্যারল আমার সাথে সাপ্তাহিক ইউরো বাংলা পরিচালনায় সরাসরি সম্পৃক্ত ছিলেন। আমি ‘ইউকে বাংলা ডাইরেক্টরি‘, ‘ইউকে এশিয়ান রেষ্টুরেন্ট ডাইরেক্টরি‘ এবং ওয়ার্ল্ড-ওয়াইড ডাইরেক্টরি ‘মুসলিম ইনডেক্স‘ প্রকাশের দায়িত্ব নিয়ে ইউরো বাংলা সম্পাদনা থেকে সরে আসলে আব্দুল মুনিম ক্যারল অত্যন্ত আন্তরিকতার সাথে সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও তিনি সিলেটের দৈনিক জালালাবাদ সিন্ডিকেট এর পরিচালক, জালালাবাদ এসোসিয়েশন ইউকের প্রেস এন্ড পাবলিকেশন সেক্রেটারি, সিলেটে প্রতিষ্ঠিত ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের ইউকে কমিটির প্রেস এন্ড পাবলিকেশন সেক্রেটারি হিসেবে সক্রিয় রয়েছেন।

আব্দুল মুনিম ক্যারল পূর্ব লণ্ডনে ‘ইকরা ইনস্টিটিউট‘ নামে একটি মান সম্পন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে প্রাণান্ত প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছেন। একঝাক সাহসী ও মেধাবী ধর্মীয় মূল্যবোধ সম্পন্ন ব্যক্তিবর্গের সফল এই উদ্যোগের ম্যানেজমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান হিসিবে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

আব্দুল মুনিম ক্যারল বাংলাদেশিদের দ্বারা পরিচালিত বিলেতের সর্ববৃহৎ যুব সংগঠন ‘ইয়ং মুসলিম অর্গানাইজেশন ইউকে’র কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ছিলেন। এই সংগঠনের মাধ্যমে সারা দেশব্যাপী যুব সমাজের মধ্যে দাওয়াতি কাজ পরিচালিত হয়। তারুণ্যের নিত্য কর্মচঞ্চলতার খোরাক জোগাড় করেন তারা। বাংলাদেশ থেকে আশা তরুণ সমাজ ও বিলেতে বেড়ে ওঠা নতুন প্রজন্মকে বহুমুখি কর্মসূচির মাধ্যমে সহায়তা করে এই সংগঠন। এই বাংলাদেশী তরুণরা আজ কেবল নতুনকে গ্রহণ আর সৃজন করছে না, তারা অভিজ্ঞজন বা প্রবীণদেরকেও পাশে নিচ্ছে এগিয়ে যাবার শক্তি হিসেবে। তারুণ্যের স্পর্ধিত আকাঙ্খা থেকেই ইয়ং মুসলিম অর্গানাইজেশনের পথচলার শুরু।

আব্দুল মুনিম ক্যারল সমাজ সেবার পাশাপাশি খেলাধুলোয় বিশেষ ভূমিকা পারন করেন। বিলেতের জনপ্রিয় তাকওয়া ব্যাডমিন্টন ক্লাবের তিনি প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যানl এই ক্লাবের মাধ্যমে বিভিন্ন স্থানে ব্যাডমিন্টন খেলার আয়োজন, প্রশিক্ষণ, টুর্নামেন্ট আয়োজন, জার্সি ও খেলার সামগ্রী বিতরণ করা হয়। একজন ক্রীড়া সংগঠক হিসেবে দেশ-বিদেশে ব্যাডমিন্টন, ক্রিকেট ও ফুটবল খেলায় সফল আয়োজক তিনি। খেলাধুলার সামগ্রী ও খেলার মান উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন প্রশিক্ষণ ও কর্মশালার আয়োজন করে অনেক উন্নতমানের খেলোয়াড় সৃষ্টি করে বেশ খ্যাতি অর্জন করেছেন। ক্রীড়াক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য তাকে লন্ডনের সাউন্ডটেক ক্যারাম ক্লাবের পক্ষ থেকে বিশেষ সম্মাননা ২০১৯ প্রদান করা হয়। এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে তিনি আরো অনেকগুলি সম্মাননা পদক পেয়েছেন।

আব্দুল মুনিম ক্যারল ছোট বেলা থেকেই সাহিত্য-সংস্কৃতির সাথে জড়িত। তার অনেক কবিতা, ছড়া ও প্রবন্ধ বিভিন্ন পত্রিকা ও ম্যাগাজিনে প্রকাশিত হয়েছে, যা গ্রন্থ হিসেবে প্রকাশের অপেক্ষায়। সাহিত্য সংগঠক হিসেবেও তার সুখ্যাতি রয়েছে। তিনি সুরমা ইয়ং রাইটার্স গ্রূপ ও নিউমুন ইয়ং রাইটার্স এন্ড আর্টিস্ট গ্রূপের প্রতিষ্টাতা সভাপতি, সংলাপ সাহিত্য-সংস্কৃতি ফ্রন্টের প্রেসিডিয়াম মেম্বার, সংহতি সাহিত্য পরিষদ, বাংলাদেশ সাহিত্য পরিষদ, রেনেসাঁ সাহিত্য মজলিশ, মুসলিম সাহিত্য সংসদ সিলেট, মোবাইল পাঠাগার সিলেট সহ বিভিন্ন সংগঠনের দাতা ও আজীবন সদস্য l

বাংলাদেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের বিকাশেও আব্দুল মুনিম ক্যারল সহায়ক ভূমিকা পালন করেন। ২০০৭ সালে তিনি লন্ডনে একটি হাউজিং ফেয়ার করে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেন। সিলেটের উল্লেখযোগ্য হাউজিং কোম্পানী সমূহ তখন অংশ গ্রহণ করেছিল। রিয়েল এস্টেট এন্ড হাউজিং গ্রপ অফ সিলেটের উদ্যোগে আয়োজিত এই ফেয়ারের মিডিয়া পার্টনার হিসেব দায়িত্ব পালন করে বৃটেনের জনপ্রিয় সংবাদ সংস্থা মিডিয়া মহল।

একঘেঁয়ে জীবন থেকে ক্ষণিকের জন্য প্রকৃতির মাঝে হারিয়ে যেতে চান আব্দুল মুনিম ক্যারল। প্রায়ই তিনি ছুটে যান দেশ-দেশান্তরে। ইউরোপের প্রায় সবকটি দেশ, সৌদি আরব সহ মধ্যপ্রাচ্য, বসনিয়া, মরক্কো, আলবেনিয়া, ভিয়েনা, মিশর, মিউনিক, জার্মানি, বুলগেরিয়া, তিউনিসিয়া, থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়া ভ্রমণ করেছেন ও স্মৃতিচারণ লিখেছেন তিনি।

আমার অত্যন্ত প্রিয়ভাজন সদা অমায়িক, ভদ্র, সজ্জন ও পরোপকারী আব্দুল মুনিম ক্যারল সবসময় প্রাণখোলা হাসিতে মুখটা সকালের আলোর মতো উদ্ভাসিত করে এগিয়ে আসেন উজাড় করা ভালোবাসায়।

ব্যক্তিগত জীবনে আবিদা লাকি তার জীবন সঙ্গী। তাদের দুই মেয়ে ও এক ছেলে। বড় মেয়ে মুনিমা সুলতানা রাফা সেকেন্ডারি স্কুলের সাইন্স শিক্ষক, ছোট মেয়ে মায়মুনাহ মুনিম রিয়া ইউনিভার্সিটিতে অধ্যয়নরত ও একমাত্র ছেলে মো: আব্দুল মুহাইমিন রাফি ডিগ্রী করে একটি আন্তর্জাতিক কোম্পানিতে ডাটা এনালাইসিস হিসাবে চাকুরি করছে।

আব্দুল মুনিম ক্যারল একজন আদর্শ বাবার সন্তান। তার পিতা মরহুম আব্দুর রহিম জাহেদী ছিলেন সফল ব্যবসায়ী, সমাজসেবক, পরপোকারি ও দাওয়াতী কাজের জন্য নিবেদিতপ্রাণ। তিনি ইস্ট লন্ডন মসজিদের চেয়ারম্যান, ইসলামিক ফোরাম ইউরোপের কেন্দ্রীয় মজলিশে সূরার সদস্য ও ট্রেজারার, স্টেপনি গ্রীন স্কুলের প্যারেন্ট গভর্নর সহ সুনামের সাথে বিভিন্ন সংগঠনের দায়িত্ব পালন করে গেছেন। সারাটা জীবন তিনি নিজের পরিবারের মত আত্বিয়-স্বজন ও অন্যান্যদের সেবাদান করেছেন।

পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করে আব্দুল মুনিম ক্যারল মানবতার কল্যাণে বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসা ও এতীম খানা প্রতিষ্ঠায় এবং গরিব অসহায় মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন অবিরাম। বাংলাদেশের সিডরের সময় তিনি মুসলিম এইডের সাথে বরগুনা, বরিশাল, খুলনাসহ সিডরে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করে নিজ হাতে ত্রান বিতরণ করেছেন। বাংলাদেশ ছাড়াও বিভিন্ন দেশে তিনি মহামারি ও দুর্যোগকালীন সময়ে আর্থিক সাহায্য প্রদান করেন।

সাম্প্রতিক করোনা মহামারীর চরম দুঃসময়ে গোলাপগঞ্জের ফুলবাড়ী ইউনিয়নে ও আশেপাশের এলাকায় তার পৃষ্ঠপোষকতায় ও হিলালপুর শাপলা সমাজ কল্যাণ সংঘের আয়োজনে অসহায়দের মাঝে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। শীত মৌসুমে নিজের এলাকাজুড়ে গরিব অসহায় ও প্রতিবন্ধীদের জন্য তিনি ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প ও ঔষধ বিতরণ করে থাকেন। তার সার্বিক সহযোগিতায় গোলাপগঞ্জের হিলালপুরে ফ্রি সেলাই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র চালু হয়েছে।

কর্মচঞ্চল আব্দুল মুনিম ক্যারল মনে করেন, সৃজনশীলতা এবং কর্মতৎপরতাকে যদি আমরা কাজে লাগাতে পারি তাহলে নিশ্চয় তারুণ্যের হাত ধরেই প্রবাসী বাংলাদেশিরা বিশ্বসভায় আমাদের সুনাম বাড়াবে। তার এই দৃঢ়তার সাথে ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপ্রধান ও বিজ্ঞানী আবদুল কালামের একটি উক্তি সংযুক্ত করা যেতে পারে। তিনি বলেছেন, ‘আকাশের দিকে তাকাও। আমরা একা নই। মহাবিশ্ব আমাদের প্রতি বন্ধুপ্রতীম। যারা স্বপ্ন দেখে ও সেমতো কাজ করে, তাদের কাছেই সেরাটা ধরা দেয়’।

এই সংবাদটি 48 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com