প্রিয় মামুনুল হক ভাই, হ্যাঁ, আপনাকেই বলছি

প্রকাশিত: ২:৪৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০

প্রিয় মামুনুল হক ভাই, হ্যাঁ, আপনাকেই বলছি

সৈয়দ শামছুল হুদা:

বাংলাদেশ একটি বিশাল জনসংখ্যার দেশ। এদেশে উদীয়মান তরুনদের সংখ্যাও অনেক। যারা এই সুন্দর দেশটিকে সুন্দরভাবে গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলো, এদেশে এই তরুনদেরকে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য যোগ্য নেতৃত্বের বড় অভাব। একজন যোগ্য নেতার জন্য তারা গভীর প্রতীক্ষায়। এদেশটি যেমন সম্ভাবনাময়, তেমনি বিরাট ঝুঁকিতে রয়েছে। শত্রুবেষ্টিত এই দেশটির সাথে কোন মুসলিম দেশের সীমান্ত নেই। একদিকে বঙ্গোপসাগর, আর বাদবাকী সবদিকে একদল হায়েনা, যারা কাটাতারে ঝুলিয়ে মেরে ফেলার জন্য ট্রিগারে আঙ্গুল ধরে রেখেছে। এমন একটি দেশে নেতৃত্ব দেওয়া যেমন গুরুত্বপুর্ণ, তেমনি ঝুকিপূর্ণ। ১৯০বছরের বৃটিশ আমল এবং তাদের দেখানো পথে চলতে থাকা বর্তমান রাষ্ট্র ব্যবস্থা এদেশের মানুষের ঈমান ও ধর্মের সম্পূর্ণ প্রতিকূলে। এহেন অবস্থায় এদেশের স্বাধীনতার মূল ভিত্তি ইসলাম এবং বড় শক্তি মুসলমানদের সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য যোগ্য নেতৃত্বের কোন বিকল্প নেই।

আশার কথা এই যে, এদেশের অনেক তরুন আপনাকে ভালোবাসে। আপনাকে সম্মান করে। শুধু তাই নয়, সরাসরি কওমী মাদ্রাসার সাথে সম্পর্ক রাখে না এমন একটি বিরাট জনশক্তিও আপনাকে ভালো জানতে শুরু করেছে। আপনার সাহস, বলিষ্ট কণ্ঠ, আপনার পারিবারিক ঐতিহ্য সবকিছু মিলিয়ে আপনাকে এ পথে এগিয়ে যেতে আরো বেশি প্রেরণা যোগাচ্ছে। আপনি যদি এই সুযোগকে সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারেন তাহলে দেশ ও জাতি উপকৃত হবে।

আপনার কাছে অনুরোধ করবো, আপনি নির্দিষ্ট গণ্ডীর সীমাবদ্ধ বাউন্ডারী থেকে বাইরে বের হয়ে আসবেন। আপনার বিচরণ ক্ষেত্র শুধু কওমী নয় গোটা কওমকে আপনার স্মরণে রাখা উচিত। বৃটিশ আমলে কিছু মুসলিম অভিজাত পরিবার দেখা যায়, যারা এশিয়ার এই অঞ্চলের মানুষের জন্য অনেক অবদান রেখেছেন। প্রিয় এই দেশটি মুসলমানদের হাতে যারা তুলে দিয়ে গিয়েছেন তাদের অনেকেই আলেম ছিলেন না, কিন্তু মুসলিম অভিজাত পরিবারের সন্তান ছিলেন। বাংলাদেশ আজ রাজনৈতিক দিক দিয়ে বড় ঝুকির মধ্যে আছে। কিন্তু এখন অভিজাত মুসলিম রাজনৈতিক পরিবার নেই। আমাদের বড় বড় রাজনৈতিক দলগুলো, দেশের বড় বড় ব্যবসায়িক কোম্পানীগুলো কোন না কোনভাবে বিদেশী শক্তির দালালে পরিণত হয়েছে। এই জায়গাটায় বড় শুন্যতা বিরাজ করছে। আমরা আপনাকে সেই জায়গাটাতে দেখতে চাই। আপনি লেখাপড়া করেছেন কওমীতে। বড় হয়েছেন কওমীতে। লালিত-পালিত হয়েছেন কওমীতে। বেড়ে উঠেছেন কওমীতে। কিন্তু এখন সময়ের দাবী পুরণ করতে আপনাকে সেই পরিচিত, সেই সীমিত পরিসর থেকে একটু একটু করে বের হয়ে আসতে হবে। কারণ বাহিরের জগতটায় এখন আর বড় কোন মুসলিম অভিজাত পরিবারের নেতা নাই। প্রভাবশালী কোন মুসলিম রাজনীতিবিদ নাই।

আপনার মধ্যে বলার সাহস আছে। বুকের সীনা টানটান করে আপনি কথা বলতে পারেন। আপনি জেনারেল ধারায়ও লেখাপড়া করেছেন। দেশ-বিদেশ ঘুরেছেন। বিভিন্ন মুসলিম দেশের অবস্থা সম্পর্কেও আপনার ধারণা আছে। সুতরাং দেশকে কীভাবে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায় তার জন্য সামগ্রীক চিন্তা করুন।

আপনি কওমীর অভ্যন্তরীণ কোন্দল, রেষারেষি, ঘৃণার ছড়াছড়ি থেকে নিজেকে বের করে নিয়ে আসুন। শুধুমাত্র ধর্মীয় ইস্যূতেই নয়, সামগ্রীক সামাজিক ইস্যুতে আপনি একটি প্রশিক্ষিত বাহিনী গড়ে তুলুন। নিজেকে শুধূই ধর্মীয় নেতার জায়গায় না রেখে একজন মুসলিম লিডার হিসেবে গড়ে তুলতে যা যা করণীয় তা করতে এগিয়ে আসুন। আপনিতো আমাদের বারবার হোচট খাওয়া দেখেছেন। এদেশে আলেম-উলামাদের সাথে রাষ্ট্রের ব্যবহার দেখেছেন। রাষ্ট্রীয় শক্তিগুলোর ব্যবহার সম্পর্কে আপনার ভালো ধারণা আছে। সুতরাং আপনি দৃষ্টি প্রসারিত করুন। মিশে যান সাধারণ মানুষের সাথে।

সম্প্রতি দারুল উলূম হাটহাজারীতে ছাত্র বিক্ষোভ হয়েছে। নানা ক্ষোভে এটা সংগঠিত হয়েছে। বিশেষকরে ছাত্রদের সাথে বিমাতাসুলভ আচরণটাই ছাত্রবিক্ষোভের অন্যতম কারণ। এর সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত করে ফেলবেন না। হাটহাজারীর ছাত্র বিক্ষোভ সর্বত্র ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকিটি যথাযথ বলে মনে হয়নি। আপনার এসব রণহুঙ্কার আপনার কিছু অনুসারী অনুসরণ করার চেষ্টা করে। ফলে একটি সংঘাতমুখর পরিস্থিতি কওমী অঙ্গনে তৈরী হওয়ার আশঙ্কা আছে। আপনাকে আরো বেশি সতর্ক হতে হবে। এটাকে যদি আপনি ছাত্র বিপ্লব হিসেবেই মনে করেন, তাহলে বিপ্লব পরবর্তী ঝুঁকি কিন্তু অনেক বেশি থাকে। মেজর জলিল যেমন বলেছেন, স্বাধীনতা অর্জন করা অনেক সহজ, স্বাধীনতা ধরে রাখা অনেক কঠিন। হাটহাজারীর ছাত্র বিপ্লব খুব সহজেই হয়ে গিয়েছে। আমি মনে করি এখানে আল্লাহর তায়ালার খাস রহমত ছিল। আল্লাহ তায়ালা আল্লামা আহমদ শফী রহ. এর কেরামতি সেখানে প্রকাশ করিয়েছেন। নতুবা এ ছাত্র বিক্ষোভ ভিন্নদিকে মোড় নিতে পারতো। ভয়াবহ কিছু ঘটে যেতে পারতো। যাই হোক, এই ছাত্রবিক্ষোভকে কোন দলীয় সংকীর্ণ দৃষ্টিকোন থেকে নয়, কোন সিন্ডিকেট তৈরী করার জন্য নয়, সামগ্রীকভাবে কওমী জগতে চলতে থাকা নানা অরাজকতা দূর করার মডেল হিসেবে ব্যবহার করতে অসুবিধা নেই। কিন্তু এ কাজটা খুব ঝুঁকিপূর্ণ।

কওমী জগতটায় সরকারী নিয়ন্ত্রন নেই। নেই কোন শক্তিশালী নিজস্ব কর্তৃপক্ষও। ফলে এখানে ভয় বেশি। আমাদের মধ্যে ফাটল ধরানোর সুযোগ অনেক বেশি। শত্রুর পক্ষে এখানে প্রবেশ খুব সহজ। যেমনটা আমরা দেখেছি কওমী সনদের স্বীকৃতির পর কতিপয় কওমী আলেম এখানে বর্হিশক্তির হস্তক্ষেপের সুযোগ করে দিয়েছেন। এজন্য আপনাকে অনেক বড় পরিসরে দেখতে চাই। আপনি বিশ্ব ইসলামী নেতৃত্বকে বিশেষভাবে অনুসরণ করুন। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মুসলিম নেতাদের সাথে ঘনিষ্টতা তৈরী করুন। রাষ্ট্রের মূল স্রোতধারায় নিজেকে মেলে ধরুন।

আরো একটি অনুরোধ, যতদূর সম্ভব নিজেকে নিয়ন্ত্রনে রাখা। সবসময় হুঙ্কার দিতে থাকলে প্রয়োজনের সময় হয়তো হুঙ্কারে কাজ নাও আসতে পারে। প্রতিটি সভাতেই আপনাকে দেখতে পাচ্ছি, আপনার উঁচু আওয়াজের প্রতিবাদী কণ্ঠ। এতে হয়তো কিছু মানুষ সাময়িক উত্তেজিত হচ্ছে। কিন্তু বড় একটি শ্রেণি আপনার শত্রুতে পরিণত হচ্ছে। আপনি যত বড় পরিসরে যাবেন, তত বিপদ বাড়তে থাকবে। জীবনের ঝুঁকি বাড়বে। আপনাকে ফাঁদে ফেলার ঝুঁকি বাড়বে। আপনাকে বিব্রত করার ঝুঁকি বাড়বে। সম্প্রতি রাকিবের সাথে আপনার আলোচনাটি ছিল এমনই একটি ফাঁদ।

আপনাকে একজন দক্ষ, অভিজ্ঞ, রাজনীতিবিদ হিসেবে দেখতে চাই। আপনাকে আরো বেশি দয়ালু হতে হবে। আপনাকে আরো বেশি মায়াবি হতে হবে। আপনাকে আরো বেশি জনসম্পৃক্ত হতে হবে। আপনি আলেমবান্ধব আছেন। এখন জনবান্ধব হয়ে উঠুন। রাগ, ক্ষোভকে আরো বেশি নিয়ন্ত্রন করুন। বাহ্যিকভাবে শত্রু-মিত্র সবাইকে সাথে নিয়ে চলার পারঙ্গমতা দেখাতে হবে। সবাইকে কাছে টানার যোগ্যতা অর্জন করতে হবে।

আপনি যেই বয়সে নেতৃত্বের পথে পা বাড়িয়েছেন, এই বয়সে এদেশের পুর্ববর্তী অনেক আলেমরা এগিয়ে আসেননি। আপনি অল্প বয়সেই অনেকটা পথ মাড়িয়ে এসেছেন। পিছু হটার আর কোন সুযোগ নেই। সুতরাং আপনি এদেশের সকল মানুষের আপন হিসেবে নিজেকে তুলে ধরুন। আপনি একজন যুবনেতা নুরুল হক নূরকে দেখেছেন। সে কীভাবে সকলের কাছে নিজের গ্রহনযোগ্যতা তৈরী করে ফেলেছে। এমনকি আলেমদের মধ্যেও তার একটা ভক্ত শ্রেণি ইতিমধ্যেই তৈরী হয়ে গিয়েছে।

হাটহাজারী ছাত্র বিক্ষোভের সময় সে হাটহাজারীর ছাত্রদের সাথে যেভাবে নিজেকে জড়িয়ে নিয়েছে এটাই সময়ের চাওয়া। কিছু প্রবাসী বিদেশে আটকে যাওয়ায় তাদের জন্য যেভাবে কথা বলেছে তাতে সকল প্রবাসীদের অন্তরে তার কিছুটা হলেও ভালোবাসা জন্মেছে। আপনাকে এমন জায়গাটায় দেখতে চাই। আপন ঘরানার কাঁদা ছুড়াছুড়ির মধ্যে আপনাকে আমরা দেখতে চাই না।

জেনারেল সেক্রেটারি
বাংলাদেশ ইন্টেলেকচুয়াল মুভমেন্ট বিআইএম
২৩.০৯.২০২০

এই সংবাদটি 1073 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com