বেফাকের শূরা সম্পন্ন: মাহমুদুল হাসান সভাপতি,নুর হোসাইন কাসেমী সিনিয়র সহসভাপতি, মাহফুজুল হক মহাসচিব নির্বাচিত

প্রকাশিত: ৬:১৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩, ২০২০

বেফাকের শূরা সম্পন্ন: মাহমুদুল হাসান সভাপতি,নুর হোসাইন কাসেমী সিনিয়র সহসভাপতি, মাহফুজুল হক মহাসচিব নির্বাচিত

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী::
জামিয়া মাদানিয়া যাত্রাবাড়ীর মুহতামিম মাওলানা মাহমুদুল হাসানকে বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ এর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ঘোষণা করা হয়েছে। তিনি আগামী কাউন্সিল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করবেন। অপর দিকে মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী সিনিয়র সহসভাপতি এবং মািলানা মাহফুজুল হককে বেফাকের মহাসচিব নির্বাচিত করা হয়েছে।
নিজ থেকে কেউ প্রার্থী হননি। শূরা সদস্যগণ পছন্দের প্রার্থীর নাম লিখে ভোটবক্সে জমাদেন। সর্বোচ্চ ভোটে মাওলানা মাহমুদুল হাসান ভারপাপ্ত সভাপতি, মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী এবং মাওলানা মাহফুজুল হক কে মহাসচিব মনোনীত করা হয়। আল্লামা আহমদ শফীর ইন্তেকালে সভাপতিরপদটি শূন্যহয় এবং মাওলানা আব্দুল কুদ্দুসের পদত্যাগের ফলে মহাসচিবের পদটি শূন্য হয়।
আজ বেফাকের আমেলা সদস্যদের ব্যালটবাক্সের মাধ্যমে নির্বাচিত হন তারা।
নির্বাচন কমিশনার ছিলেন তিনজন। তারা হলেন, বেফাকের সহ-সভাপতি ও খিলগাঁও মাখজানুল উলুম মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা নূরুল ইসলাম জিহাদী, বেফাকের সহ-সভাপতি ও হবিগঞ্জ শায়েস্তাগঞ্জের মাদরাসায়ে নূরে মদিনা এর মুহতামিম মাওলানা নূরুল ইসলাম ওলিপুরী ও বেফাকের আরেকজন সহ-সভাপতি, রাজধানীর ঢালকানগর মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা জাফর আহমদ।

সকাল থেকে ১০ টা থেকে শুরু হয়েছে আজকের আমেলা বৈঠক। রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর কাজলায় অবস্থিত বেফাক অফিসের পাশে ‘শাহজালাল কনভেনশন সেন্টার’ এ আমেলা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস।
বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ এর
সর্বশেষ সভাপতি আল্লামা শাহ আহমদ শফী রহ. গত ১৭ সেপ্টেম্বর ইন্তেকালের পর শূন্য হয়ে যায় সভাপতির পদটি। আজ সভাপতি নির্বাচনের মধ্য দিয়ে পূর্ণ হলো এ শূন্যপদ।
বৈঠকে বেফাকের সাবেক চেয়ারম্যান আল্লামা শাহ আহমদ শফী রহ. এর মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।

জানা যায়, কওমি মাদরাসার সরকার স্বীকৃত সর্বোচ্চ ফোরাম ‘আল-হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’ এর গঠনতন্ত্র মোতাবেক বেফাকের সভাপতি যিনি হবেন তিনিই হবেন আল-হাইয়াতুল উলইয়ার সভাপতি। সে হিসেবে বেফাকের শূন্যপদ নির্বাচনের মাধ্যমে খালি হওয়া আল হাইয়াতুল উলইয়ার পদও আজ পূর্ণ করা হলো।

মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আজকের আমেলা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, বেফাকের সহ-সভাপতি আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমী, আল্লামা মাহমুদুল হাসান, মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস, মাওলানা আব্দুর রহমান হাফেজ্জী, মধুপুরের পীর মাওলানা আব্দুল হামীদ, আল্লামা নূরুল ইসলাম জিহাদী, আল্লামা সাজিদুর রহমান, আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী, মাওলানা আব্দুল বারী ধর্মপুরী, মাওলানা জিয়াউদ্দীন, মাওলানা নূরুল ইসলাম ওলীপুরী, মাওলানা আব্দুল হক, বেফাকের সহকারী মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক, মুফতি আহমদ আলী, মাওলানা আব্দুর রশীদ, নুর আহমদ কাসেম, মুফতি মিজানুর রহমান সাঈদ, ঢালকানগরের মাওলানা জাফর আহমদ, মাওলানা মুসলেহুদ্দীন রাজু, চরমোনাইয়ের পীর মুফতি সৈয়দ রেজাউল করীম,আরজাবাদের মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া,মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী, মাওলানা আতাউল্লাহ ইবনে হাফিজ্জী, বরিশালের মাওলানা উবায়দুর রহমান মাহবুব, জামিয়া সাহাবানিয়ার মাওলানা নেয়ামাতুল্লাহ, মাদারীপুরের মাওলানা নেয়ামাতুল্লাহ আল ফরিদী, বেফাকের সহকারী মহাসচিব মাওলানা নূরুল হুদা ফয়েজী, মাওলানা নূরুল আমিন, মাওলানা কেফাযেতুল্লাহ আজহারী, মাওলানা মুবারাকুল্লাহ, বেফাকের কোষাধ্যক্ষ মুফতি মুনীরুজ্জামান, মাওলানা খালিদ সাইফুল্লাহ সাদী প্রমূখ।

অনুসন্ধানে জানাগেছে, ২৫, ২৬ ডিসেম্বর ১৯৭৬ সালে পটুয়াটুলি জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে শায়খুল হাদীস মাওলানা আযীযুল হককে সভাপতি ও মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে সাধারণ সম্পাদক করে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ পুনর্গঠন করা হয়। উক্ত সম্মেলনে কওমী মাদরাসা সমুহকে একটি বোর্ডের অধিনে আনার জন্য আরজাবাদ মাদরাসার সাবেক শায়খুল হাদীস মাওলানা রিজাউল করীম ইসলামাবাদী (র.)-কে আহ্বায়ক করে একটি সাব কমিটি গঠন করা হয়। মাওলানা ইসলামাবাদী ১৯৭৮ সালে লালবাগের শায়েস্তা খান হলে কওমী মাদরাসা সমূহের এক সম্মেলন আহ্বান করেন। উক্ত সম্মেলনে ‘বেফাকুল মাদারিসিল কওমিয়্যাহ আল-আরাবিয়্যাহ বাংলাদেশ’ নামে বাংলাদেশ কওমী মাদ্রাসা বোর্ড গঠিত হয়। সম্মেলনে খোৎবায়ে ইস্তেকবালিয়া পাঠকরেন জমিয়তের তৎকালীন মহাসচিব মাওলানা মুহিউদ্দীন খান।
বেফাক প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে খতিব মাওলানা উবায়দুল হক, শায়খুল হাদীস তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জীও (র) সম্পৃক্ত ছিলেন।

বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার সাবেক মহাসচিব মাওলানা আব্দুল জব্বার জাহানাবাদীর মুখেই বেফাকের ইতিহাস শুনুন। পরবর্তীতে তুলে ধরাহবে ফখরে মিল্লাত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (র) এর জবানবন্দি। মাওলানা আব্দুল জব্বার সাহেব ২০০৬ সালে এক লেখায় বলেনঃ বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পর যখন জমিয়ত গঠন করা হয় তখন জমিয়তের উদ্যোগে কিছু কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়। ১৯৭৭ সালে প্রখ্যাত মুহাদ্দিস মাওলানা রিজাউল করিম ইসলামাবাদীকে আহ্বায়ক করে বেফাক গঠনের জন্য ৬০ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছিল। দক্ষিণ অঞ্চলের কাজের দায়িত্ব আমার উপর ছিল।
১৯৭৮ সনে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে চট্টগ্রামের পটিয়া মাদ্রাসার মুহতামিম হযরত মাওলানা মোহাম্মদ ইউনুস সাহেব কে সভাপতি, শাইখুল হাদিস মাওলানা আজিজুল হক সাহেব কে মহাসচিব করে বেফাকের কমিটি গঠন করা হয়।
হযরত মাওলানা রিজাউল করিম ইসলামাবাদী, হযরত মাওলানা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া, মাওলানা শামসুদ্দিন কাসেমী, মাওলানা আব্দুল আজিজ গহরডাঙ্গা মাদ্রাসার প্রমুখ বেফাকের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন। বেফাক প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর তদানীন্তন মহাসচিব মাসিক মদীনা সম্পাদক হযরত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান সাহেবের ও বিরাট অবদান রয়েছে। আমি তখন জমিয়তের সহসাধারণ সম্পাদক। তখন জমিয়তের সভাপতি ছিলেন শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক সাহেব, সহ-সভাপতি মাওলানা শামসুদ্দিন কাসেমী, পৃষ্ঠপোষক হযরত শায়খে কৌড়িয়া। মহাসচিবের অনুমতিক্রমে আমি জমিয়তের সভা ডেকে এ ব্যাপারে কাজ করেছি।
হাকীমুল ইসলাম হযরত মাওলানা ক্বারী তৈয়ব সাহেব রহমতুল্লাহি, হযরত মাওলানা মুহাম্মাদুল্লাহ হাফেজ্জী হুজুর, মাওলানা ছিদ্দিক আহমদ, মাওলানা আমিনুল ইসলাম প্রমুখ বিভিন্নভাবে পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন। মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী,মাওলানা আশরাফ আলী কুমিল্লা প্রমুখ এ ব্যাপারে পরিশ্রম করেছেন।

এই সংবাদটি 270 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com