হবিগঞ্জের মাধবপুরে মাদরাসা ছাত্রীর মৃত্যু নিয়ে রহস্য সৃষ্টি

প্রকাশিত: ৪:২২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৫, ২০২০

হবিগঞ্জের মাধবপুরে মাদরাসা ছাত্রীর মৃত্যু নিয়ে রহস্য সৃষ্টি

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার মনতলায় ইয়াসমিন আক্তার (১৪) নামের এক কওমি মাদরাসা ছাত্রীর মৃত্যু নিয়ে রহস্য সৃষ্টি হয়েছে।
পুলিশ বলছে, সে সিএনজি অটোরিক্সার ধাক্কায় মারা গেছে; কিন্তু তার মায়ের দাবি, তাকে ধর্ষণ করে হত্যার পর ঘাতকরা নাটক সাজিয়েছে। আর চিকিৎসক বলছেন, ময়না তদন্তের রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে না।
উপজেলার মেরাসানী গ্রামের মৃত নূর হোসেনের একমাত্র সন্তান ইয়াসমিন আক্তার মনতলা ইসলামিয়া মহিলা মারাসার অষ্টম শ্রেণিতে পড়ছিল।
পরিবার সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে মনতলা রেলস্টেশন এলাকার বাসিন্দা ইয়াসমিন আক্তারের তিন বান্ধবী এসে তাকে তাদের বাড়িতে বেড়ানো কথা বলে নিয়ে যায়। পরদিন সকাল ৭টার দিকে তার মা আয়েশা বেগম খবর পান, মেয়ে রাস্তায় পড়ে আছে। তিনি তার আত্মীয়স্বজনদের নিয়ে অজ্ঞান অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে মাধবপুর উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে যান।
সেখানে কর্মরত চিকিৎসক ইয়াসমিন আক্তারকে হবিগঞ্জ জেলা সদর আধুনিক হাসপতালে রেফার করেন; কিন্তু সেখানে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ময়নাতদন্ত শেষে পুলিশ বিকেলে মায়ের কাছে মেয়ের মরদেহ হস্তান্তর করে।
আয়েশা বেগমের অভিযোগ, বান্ধবীদের বাড়িতে পরিকল্পিত ধর্ষণের শিকার হয় তার মেয়ে। পরে ধর্ষকরা ইয়াসমিন আক্তারকে রাস্তায় ফেলে রেখে দুর্ঘটনার নাটক তৈরি করে। মরদেহে চোখসহ বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
মাধবপুর থানার ওসি ইকবাল হোসেন জানান, শনিবার সকালে ইয়াসমিন আক্তার তার এক সহপাঠীর সাথে মাদরাসায় যাওয়ার পথে মনতলা থেকে ছেড়ে আসা মাধবপুরগামী একটি সিএনজি-অটোরিক্সার ধাক্কায় গুরুতর আহত হয়। এলাকার লোকজন তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ জেলা সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
ময়নাতদন্তকারী হবিগঞ্জ জেলা সদর আধুনিক হাসপাতালের আরএমও ডা শামীমা আক্তার জানিয়েছেন, ইয়াসমিন আক্তার ধর্ষিত হয়েছে কি না, নিশ্চিত হওয়ার জন্যে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়েছে।

এই সংবাদটি 55 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com