শহীদ মাওলানা ডক্টর আদিল খান (রাহ) এর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

প্রকাশিত: ১১:৩৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১১, ২০২০

শহীদ মাওলানা ডক্টর আদিল খান (রাহ) এর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

লুকমান হাকিম::  পাকিস্তানের বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ

  1. মাওলানা ডক্টর আদিল খানের বয়স ছিল ৬৩। ইসলামী বিশ্বের বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব শায়খুল হাদীস আল্লামা সালীমুল্লাহ খান রাহ. এর সুযোগ্য বড় ছেলে। ১৯৭৩ সালে ফারুকিয়া করাচি থেকে ফারেগ হন। ১৯৭৬ সালে করাচি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞানে অনার্স করেন। এরাবিকে ১৯৭৮ মাস্টার্স করেন। ১৯৯২ এ ডক্টরেট করেন। ইসলামিক কালচারে। ১৯৮০ থেকে শাহাদত পর্যন্ত আল-ফারুক পত্রিকা (উর্দু, ইংরেজি ও আরবী) ‘র সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। আন্দোলন সংগ্রামে তিনি পিতার উত্তরসূরী। ১৯৮৬ থেকে ২০১০ পর্যন্ত জামেয়া ফারুকিয়া করাচির সেক্রেটারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১০-২০১৮ পর্যন্ত মালোয়শিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রফেসর হিসেবে পাঠদান করেন। ২০১৮ সালে মালোয়শিয়া উচ্চশিক্ষা ট্রাস্টের পর্যবেক্ষণে শীর্ষ ৫জনের একজন নির্বাচিত হন এবং প্রধানমন্ত্রী মাহাতিরের তাঁর হাতে পুরস্কার তুলে দেন। পাকবেফাকের তিনি সিনিয়র রুকন ছিলেন। অর্থকমিটি ও সংবিধানকমিটির চেয়ারম্যান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৭ থেকে শাহাদত পর্যন্ত তিনি ফারুকিয়া করাচির মুহতামিম ছিলেন।
    তিনি ইসলামী হরফনে পারদর্শী ছিলেন। যেমন দারসে তেমন ময়দানে। পরম আশিকে রাসূল ও সাহাবা ছিলেন। শিয়ারা তাকে সহ্য করতে পারতই না। জিহাদী জযবা ছিল হাতে, কলবে ও বুকে এবং জুবানে। গতকাল (১০ অক্টোবর) শিয়ারা তাকে শহীদ করে। শাহাদাতকেকে তিনি খুশ কিসমত মনে করতেন। আল্লাহপাক তাঁকে জান্নাতের উঁচু মাকাম দান করুন। আমীন।

 

উল্লেখ্য যে,

করাচির জামিয়া ফারুকিয়ার সম্মানিত মুহতামিম, হযরত মাওলানা সলিমুল্লাহ খান রহ. এর সুযোগ্য উত্তরসূরী মাওলানা ডক্টর আদিল খান সাহেব আজ জামিয়া দারুল উলুম করাচিতে মাগরিবের নামায আদায় করেছেন। নামাযের পর মুফতী মুহাম্মদ রফি উসমানি দা:বা: এবং মুফতী মুহাম্মাদ তাকি উসমানি দা:বা: সহ দারুল উলুম করাচির অন্যান্য আসাতিযায়ে কেরামের সাথে দ্বীনি বিষয়ে মুযাকারা করেন। সেখান থেকে বের হয়ে নিজ ইদারা জামিয়া ফারুকিয়া যাবার পথে সন্ত্রাসীদের গুলিতে তিনি এবং তার গাড়ির ড্রাইভার শাহাদাত বরণ করেন।

 

 

এই সংবাদটি 104 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com