কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ইকবাল আহমদ মাহবুব : নানামাত্রিক মানবকল্যাণে আলোর অভিযাত্রী

প্রকাশিত: ১:১১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৫, ২০২০

কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ইকবাল আহমদ মাহবুব : নানামাত্রিক মানবকল্যাণে আলোর অভিযাত্রী

 

আশরাফ হাসান:

কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ইকবাল আহমদ মাহবুব l নানামাত্রিক মানবসেবায় আলোর অভিযাত্রী l প্রাগ্রসর চিন্তা, আপন বিশ্বাস ও ঐতিহ্যভাবনার মেলবন্ধনে সৌহার্দ্য-উজ্জ্বল সমাজ গঠনে এক ক্লান্তিহীন কর্মযোদ্ধার নাম l নিজের সুখপ্রচেষ্টা ও ব্যক্তিস্বার্থের ঊর্ধ্বে উঠে পরের কল্যাণচিন্তায় নিয়ত নিমগ্ন l প্রৌঢ়ত্বের গন্ডি পেরিয়ে অপেক্ষমান বার্ধক্যের বেড়াজাল তাকে বন্দি করতে পারেনি কখনো l পরসুখকে যিনি পরম পাওয়া হিসেবে বরণ করে নেন আপন স্বভাবের ঔদার্যে l

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে দীর্ঘদিন ধরে বসবাসরত ইকবাল আহমদ মাহবুব বাংলাদেশী কমিউনিটির একান্ত স্বজন l মানবসেবার দুর্নিবার প্রত্যয় যাকে দিয়েছে বহুমাত্রিক বিশিষ্টতা l একটি হৃদয়বান ও সুশিক্ষিত সমাজ নির্মাণে তার অফুরান ত্যাগময় প্রচেষ্টা স্বীকার্য ও উল্লেখের দাবি রাখে l সত্যসুন্দর আর সততার প্রতি আজন্ম কমিটেড এ কর্মবীর নিঃসন্দেহে যে কোনো প্রজন্মের কাছে অনুপ্রেরণার মহীরুহ lস্বজন ও বন্ধুমহলে তার পদচারণা সাহসী অভিযাত্রার গতিনির্দেশক মাইলস্টোন l

ইকবাল আহমদ মাহবুবের পারিবারিক নাম মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান l জন্ম ১৯৫১ খ্রীষ্টাব্দের ১ জানুয়ারি বৃহত্তর সিলেটের ছাতক উপজেলার নুরুল্লাপুর গ্রামে এক সম্ভ্ৰান্ত মুসলিম পরিবারে l তার পিতা মরহুম ওয়াছিব উল্লাহ ছিলেন সমসাময়িক কালের একজন খ্যাতিমান সালিশ ব্যক্তিত্ব ও সমাজ হিতৈষী l মাতা মরহুমা মোসাম্মত কমরুন্নেছা ছিলেন একজন পরহেজগার ও সমাজের কল্যাণে নিবেদিতা সৎকর্মশীল মহিলা l

ইকবাল আহমদের শৈশব-কৈশোর গ্রামের প্রাকৃতিক ছায়া-সুনিবিড় পরিবেশে কাটলেও তারুণ্যের চৌকাঠে প্রবেশের পূর্বেই বেরিয়ে পড়েন শহর-বন্দরে l উচ্চশিক্ষার প্রতি অদম্য আগ্রহ আর উন্নত জীবনবোধের কারণে গ্রামের ছোট্ট পরিসর তাকে বেঁধে রাখতে পারেনি l তিনি লক্ষ্য করেন সমাজের মানুষের দারিদ্র্য-বঞ্চনা, শোষণ-কপটতা, অজ্ঞতার বেড়াজালে ঘুরপাক খাওয়া সাধারণ মানুষগুলোর বিড়ম্বনা l তিনি মানুষের কল্যাণকামী একটি সুন্দর সমাজের স্বপ্ন বিভোরতায় উদ্বেগাকুল হন l কৈশোর থেকেই এমন সামাজিক দগদগে ক্ষতগুলো তার মনোজগতে ব্যাপক আলোড়ন তুলে l সামাজিক অনাচার ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে তিনি বিভিন্নভাবে নিজের ভূমিকাকে অনিবার্য করে তুলেন l চলার পথে সত্য ও ন্যায়কে প্রতিষ্ঠিত করতে তখন থেকেই তার বলিষ্ঠ ভূমিকা লক্ষণীয় হয়ে ওঠে l তার এমন প্রচেষ্টা চলতে থাকে ব্যক্তি ও সামাজিক আঙিনায় l জীবনবোধে অন্তর্দৃষ্টি ও মানুষের প্রতি ভালোবাসার মনোভাব তাকে এ কাজে উদ্বুদ্ধ করে l

ইকবাল আহমদ মাহবুব স্থানীয় উজিরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অর্জন করেন (১৯৬০) l এরপর ১৯৬৬ সালে বিশ্বনাথ রামসুন্দর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেন l স্বভাবত বিরাজমান আর্থ সামাজিক বৈষম্য তার মনে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে l এ বিষয়ে জ্ঞানার্জনে তাকে বিশেষভাবে অনুপ্রাণিত করে l এ লক্ষ্যে এসএসসি পাশের পর অর্থনীতি বিষয়ে পড়াশোনার জন্য ভর্তি হন সিলেট মদন মোহন কলেজে l ১৯৬৯ সালে ইকবাল আহমদ উক্ত কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় উর্ত্তীর্ণ হন l তৎকালীন সময়ে হাতে গোনা কিছু মেধাবী শিক্ষার্থী কমার্স নিয়ে পড়াশোনা করার সুযোগ পেতো l ইকবাল আহমদ তাদের মধ্যে ছিলেন অন্যতম l তিনি একই কলেজ থেকে ১৯৭৩ সালে বি.কম (ব্যাচেলর অফ কমার্স) ডিগ্রি অর্জন করেন l

আপন মেধা, যোগ্যতা ও কর্মোদ্যম গুণে কর্মজীবনে তাকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি l কর্মজীবনের প্রারম্ভে তিনি ইউনাইটেড ব্যাংক সিলেট শাখায় জুনিয়র অফিসার পদে যোগদান করেন l এরপর নিষ্ঠা ও কর্মদক্ষতা বলে উত্তোরোত্তর পদোন্নতি লাভ করতে থাকেনl তিনি ১৯৮৩ সালে জনতা ব্যাংকে অফিসার হিসেবে কর্মস্থলে যোগ দেন l কিন্তু আলোকিত জীবন ও মানবকল্যাণের প্রতি কমিটেড ইকবাল আহমদকে ব্যাংকের কঠোর ধরাবাঁধা নিয়ম ও একঘেয়ে পরিবেশ বেশিদিন আটকে রাখতে পারেনি l ব্যাংকের চাকুরী ছেড়ে তিনি ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েন l মধ্যেখানে তার জীবনে নেমে আসে বিপদসংকুল বিষাদের ছায়া l আচমকা ঝড়ের তান্ডব এলোমেলো করে দেয় তার কাঙ্খিত চলার পথ l কিছু অসৎ কালো হাতের দৌরাত্ম্যে তিনি আর্থিকভাবে বিপুল ক্ষতিগ্রস্ত হন l ছিটকে পড়েন জীবনের স্বাভাবিক গতি থেকে l

এতদ সত্ত্বেও জীবনের লক্ষ্য থেকে তিনি বিচ্যুত হননি l দৃঢ়চিত্ত আর অফুরান ত্যাগী মানসিকতা তাকে এগিয়ে নিয়ে যায় সফলতার কাঙ্খিত মঞ্জিলের দিকে l অসীম ধৈর্য ও প্রচেষ্টার হাত ধরে আবারো ঘুরে দাঁড়ান জীবনযুদ্ধের ময়দানে l ধকল কাটিয়ে ব্যবসায় মনোনিবেশ করেন আবার l এক পর্যায়ে ১৯৮৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রে আগমনের মধ্য দিয়ে স্বপ্নচারিতায় যুক্ত হয় অভিজ্ঞতার নতুন পালক l কঠোর পরিশ্রম ও অবিচল মনোবৃত্তি তাকে সফলতার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দেয় l একান্নবর্তী পরিবারের হাল ধরেন শক্ত হাতে l একে একে নিজ পরিবার ও আত্বীয়-স্বজনের এক বিশাল সংখ্যক সদস্যদের যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসী হিসেবে নিয়ে আসার দুরূহ কাজটি সম্পন্ন করেন অসীম কষ্ট-সহিষ্ণুতা ও নিষ্ঠা-গুণে l শুধু এখানেই শেষ নয় এদের সবাইকে আমেরিকায় স্থায়ীভাবে প্রতিষ্ঠিত করার সমূহ গুরু দায়িত্ব আঞ্জাম দেন l বর্তমানে তার পরিবার-পরিজনের শতাধিক সদস্য যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন l

বহুমুখী কর্মকুশলতা ও মানবিক গুণের অধিকারী ইকবাল আহমদ মাহবুব প্রবাসে কেবল বিশাল সংখ্যক পারিবারিক সদস্যই নয়, নিউইয়র্কে বাংলাদেশী কমিউনিটির কল্যাণে এক নিবেদিতপ্রাণ অভিভাবক l প্রবাসী হওয়ার পর থেকেই সম্পৃক্ত হন বিভিন্ন সামাজিক ও সেবামূলক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে l প্রবাসীদের সেবায় সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করেন l সময়, শ্রম ও মেধার বিনিময়ে দুর্দশাগ্রস্থ স্বদেশী অসংখ্য মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়ে তুলেন l নিজে গড়ে তুলেন অনেক কমিউনিটি সংগঠন ও কল্যাণমুলক সংস্থা l

ইকবাল আহমদ মাহবুব নিজের বিলাসী জীবনের কথা ভুলে গিয়ে দিনরাত পরিশ্রম করেন স্বদেশ, স্বজাতির কল্যাণে l প্রবাসে স্বভাষা ও গৌরবময় ঐতিহ্য সুরক্ষায় ব্যতিব্যস্ত হয়ে উঠেন l তিনি এ পর্যন্ত ডজন খানেক কমিউনিটি সংগঠন ও মসজিদ-মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠায় যুগান্তকারী ভূমিকা রাখেন l

ইকবাল আহমদ মাহবুব জালালাবাদ এসোসিয়েশন ইউএসএ’র ট্রাস্টিবোর্ড সদস্য ও ইলেকশন কমিশনার, ছাতক সমিতি ইউএসএ’র প্রাক্তন সভাপতি, ইউএসএ বাংলাদেশী অর্গানাইজেশন’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, আসাসাফা ইসলামিক সেন্টারের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও ট্রাস্টিবোর্ড সদস্য, ইসলামিক কাউন্সিল অফ আমেরিকার ইলেকশন কমিশনার, ম্যানহাটান বাংলা-কালচারাল স্কুলের প্রেসিডেন্ট ও সিইও, দারুল উলুম আসাসাফা ইনস্টিটিউট’র সভাপতি l এছাড়া তিনি পারিবারিকভাবে নিজের মায়ের নামে জনকল্যাণমূলক সংস্থা কমরুন্নেছা ট্রাস্টের সভাপতি l

কমিউনিটি একটিভিস্ট হিসেবে তার সৃজনশীল কর্মের স্বীকৃতি স্বরূপ তিনি The Assembly State of New York Proclamation, New York State Senate Proclamation, Mayor of Tower Hemlets, Mayor Chhatok pourashava প্রভৃতি সম্মাননা ও এওয়ার্ড লাভ করেন l

আট ভাই ও তিন বোনের বিশাল পরিবারে তিনি দ্বিতীয় এবং আজ অবধি অভিভাবকের দায়িত্ব পালন করছেন l পারিবারিক পরিসরে তিনি তিন কন্যা ও এক পুত্রের গর্বিত পিতা l তার সহধর্মীনি সফিয়া আহমদ একজন আদর্শ গৃহিনী l তার শশুর বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন সিলেট সরকারি আলিয়া মাদ্রাসার সাবেক অধ্যক্ষ মাওলানা সাইদুল হাসান (রাহিমাহুল্লাহ) l তার জ্যেষ্ঠ কন্যা জাহেদা আখতার, স্বামী বিশিষ্ট ব্যাংকার শেখ সামসুদ্দিন নেহাল, পুত্র বদরুদ্দোজা মাহবুব নোমান কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার, কন্যা ফাহমিদা কেয়া ডক্টর অব মেডিসিন (ফ্লোরিডা), স্বামী বাহার মিয়া ডক্টর অব মেডিসিন, কন্যা সাজেদা শিফা (ডক্টর অব মেডিসিন অধ্যয়নরত)l উল্লেখ্য ইকবাল আহমদের অনুজ আব্দুল আজিজ সুনামগঞ্জ সমিতি ইউএসএ’র সহসভাপতি ও মানিক আহমেদ জালালাবাদ এসোসিয়েশন ইউএসএ’র সাংগঠনিক সম্পাদক l

ইকবাল আহমদ মাহবুব প্রবাসী বাংলাদেশিদের হৃদয়ে অফুরান প্রেরণার উৎস হয়ে বেঁচে থাকুন অনাগতকাল l সুস্থতা, সমৃদ্ধি ও কর্মমুখরতায় আরও বর্ণাঢ্য হয়ে উঠুক তার দীর্ঘ পথচলা– আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তায়ালার কাছে এ প্রার্থনা l

এই সংবাদটি 87 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com