সমমনা ইসলামী দলসমূহ ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় মহানবী (সা.)কে অবমাননা ও দেশটির মুসলিম জনসাধারণের উপর পুলিশী নিপীড়নের প্রতিবাদে আগামী শুক্রবার ঢাকায় জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেট থেকে গণমিছিল কর্মসূচী ঘোষণা করেছে।

আজ সোমবার (২৬ অক্টোবর) বাদ আছর পল্টনস্থ জমিয়ত কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সমমনা ইসলামী দলসমূহের এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর সহসভাপতি আল্লামা আব্দুর রব ইউসূফী।

বৈঠকে সমমনা ইসলামী দলসমূহের নেতৃবৃন্দ বলেন, ফ্রান্সের ঘটনায় বিশ্ব মুসলিম চরমভাবে ব্যথিত ও ক্ষুব্ধ। গত ২১ অক্টোবর ফ্রান্সের দক্ষিণাঞ্চলীয় মন্টোপলিস ও ত্বলুস শহরের দুটি সরকারী ভবনে পুলিশী পাহারায় মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)এর ব্যঙ্গাত্মক কার্টুন প্রদর্শন করা হয়েছে। ফ্রান্সের কুখ্যাত রম্য পত্রিকা শার্লি এবদোতে ২০১৫ সালে এসব অবমাননাকর কার্টুন প্রকাশিত হয়েছিলো। তখন সারা দুনিয়ার মুসলমানরা বিক্ষোভ করেছিলেন। কিন্তু ফরাসী সরকার এই বিপুল উদ্বেগে কর্ণপাত করেনি। বিশ্বশান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য ফরাসী সরকারের এমন মানবতাবিরোধী কর্মকাণ্ড গভীর হুমকি তৈরি করছে।

বৈঠকে নেতৃবৃন্দ দেশবাসীর প্রতি ঈমানী তাগিদ এবং মানবাধিকারের জায়গা থেকে প্রতিবাদে শামিল হওয়ার অংশ হিসেবে সর্বাত্মকভাবে ফরাসী পণ্য বর্জনের আহ্বান জানিয়েছেন। তারা বলেন, আমরা ফরাসী সরকারকে বুঝিয়ে দিতে চাই, তারা যা করছে, সেটা শান্তির ও মানবতার জন্য হুমকিজনক এবং বিশ্বসম্প্রদায় তাদের এই বিদ্বেষপ্রসূত কর্মকাণ্ডকে ঘৃণা করে।

বৈঠকে সমমনা ইসলামী দলসমূহের নেতৃবৃন্দ বৃহৎ মুসলিম অধ্যুষিত দেশ হওয়া সত্ত্বেও ফ্রান্সের ইসলাম ও মানবতাবিরোধী কর্মকাণ্ডে বাংলাদেশ সরকারের সম্পূর্ণ নিশ্চুপ থাকায় হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে অবিলম্বে রাষ্ট্রীয়ভাবে ফ্রান্সের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানোর আহবান জানান।

সমমনা দলসমূহ ওআইসি এবং মুসলিমবিশ্বের যেসব রাষ্ট্রনায়ক ফ্রান্সের ন্যাক্কারজনক ইসলামবিদ্বেষের জোরালো নিন্দা ও প্রতিবাদ করেছে, তাদের সকলের প্রতি ধন্যবাদ ও শোকরিয়া জানায়।

বৈঠকে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় ফ্রান্সে মহানবী (সা.)এর অবমাননা এবং দেশটির মুসলিম সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে হামলা, মামলা, গ্রেফতার অভিযান ও বিষোদ্গারের প্রতিবাদে আগামী আগামী শুক্রবার (৩০ অক্টোবর) বাদ জুমা জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেইট থেকে গণমিছিল কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

সমমনা ইসলামী দলসমূহের নেতৃবৃন্দ ঘোষিত কর্মসূচী ব্যাপক জনমাগমের মাধ্যমে সর্বাত্মকভাবে সফল করার লক্ষ্যে ঢাকা ও পার্শ্ববর্তী জেলাসমূহের নেতাকর্মীদের প্রতি ব্যাপক গণসংযোগ ও লোকসমাগমের প্রস্তুতি নিতে আহ্বান জানান। কর্মসূচী শান্তিপূর্ণ ও সুশৃঙ্খলভাবে আয়োজনের লক্ষ্যে কর্মসূচী বাস্তবায়ন কমিটিকে প্রস্তুতি নিতে বলা হয়।

বৈঠকে অন্যানদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমদ আব্দুল কাদের, ইসলামী ঐক্য আন্দোলনের আমির ড. মাওলানা মুহাম্মদ ঈসা শাহেদী, মুসলিম লীগের মহাসচিব কাজী আবুল খায়ের, বাংলাদেশ ফরাযেজী আন্দোলনের মহাসচিব মাওলানা আব্দুর রহমান, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুর রহমান হেলাল, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা হাফেজ নাজমুল হাসান, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা মুতিউর রহমান গাজীপুরী, প্রচার সম্পাদক মাওলানা জয়নুল আবেদীন, নির্বাহী সদস্য মাওলানা বশিরুল হাসান খাদিমানী, মাওলানা মুনির আহমদ, খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা তোফাজ্জল হোসেন মিয়াজি, মাওলানা আজিজুল হক ও ইসলামী ঐক্য আন্দোলনের শওকত হোসেন প্রমুখ।