ব্রাজিলের ফুটবল টিম নিয়ে বিমান বিধ্বস্ত

প্রকাশিত: ৫:১৩ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৯, ২০১৬

ব্রাজিলের ফুটবল টিম নিয়ে বিমান বিধ্বস্ত

ডেস্ক রিপোর্ট:  কোপা সুদামেরিকার ফাইনাল ম্যাচ ছিল বুধবার। কিন্তু, অ্যাটলেটিকো ন্যাশনালের বিরুদ্ধে মাঠে নামার আগেই বিমান দুর্ঘটনার কবলে পড়ল ব্রাজিলের ক্যাপিকোয়েন্স টিম। মাঝ আকাশে  শুধু ক্যাপিকোয়েন্স টিমই নয়, ওই বিমানে ৯ কর্মী-সহ মোট ৮১ জন ছিলেন। ওই ঘটনার পর কত জন প্রাণে বেঁচে আছেন তা এখনও স্পষ্ট নয়। আশঙ্কা করা হচ্ছে ৭৬ জন প্রাণ হারিয়েছেন। কলম্বিয়ার প্রশান সূত্রে জানা গিয়েছে, এখনও পর্যন্ত ৫ জনকে ঘটনাস্থল থেকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে টিম ক্যাপিকোয়েন্স-এর ডিফেন্ডার আলান রাসেল এবং দুই গোলকিপার ডানিলো পাদিলহা এবং জ্যাকশন ফলম্যান রয়েছেন। অন্যদের সঙ্গে তাঁরাও হাসপাতালে চিকিত্সাধীন। প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে, বিমানের জ্বালানি ফুরিয়ে যাওয়াতেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। ৭২ জন যাত্রী নিয়ে বিমানটি ব্রাজিল থেকে কলম্বিয়া যাচ্ছিল। স্থানীয় সময় বিকেল সাড়ে তিনটে নাগাদ বিমানটি ব্রাজিলের সাও পাওলো বিমানবন্দর থেকে উড়ান শুরু করে। এর পর বলিভিয়ার সান্তাক্রুজ বিমান বন্দরে প্লেনটি নামে। কিছু সময় পরেই সেটি কলম্বিয়ার দিকে উড়ে যায়। কিন্তু কলম্বিয়ার মেডেলিনস বিমানবন্দরে অবতরণ করার আগেই সোমবার স্থানীয় সময় রাত সওয়া ১০টা নাগাদ বিমানটি মাঝআকাশে ভেঙে পড়ে। ঘটনার খবর পেয়ে স্থানীয় প্রশাসন উদ্ধারকাজে উদ্যোগী হয়। কিন্তু, বিমানবন্দর থেকে প্রায় ২২ কিলোমিটার দূরে শহরের বাইরের ওই পাহাড়ি এলাকায় প্রবল ঝড়বৃষ্টি হওয়ার কারণে ঠিক মতো উদ্ধারকাজ শুরু করা যায়নি। কলম্বিয়া প্রশাসনের দাবি, দুর্ঘটনায় বেশ কয়েক জনের বেঁচে থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। সূত্রের খবর, ওই বিমানে ক্যাপিকোয়েন্স-এর ২২ জন খেলোয়াড় ছিলেন। ২৩তম খেলোয়াড়ের আসার কথা থাকলেও তিনি শেষ মুহূর্তে বিমান ধরতে পারেননি। খেলোয়াড়দের পাশাপাশি ওই বিমানে ২৩ জন ফুটবল সাংবাদিকও ছিলেন বলে জানা গিয়েছে। মেডিলিনস-এর মেয়র জানিয়েছেন, বেশ কয়েক জন বেঁচে থাকলেও থাকতে পারেন। দশ জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাঁর কথায়, ‘‘ভাগ্য ভাল যে কোনও আবাসিক এলাকায় ওই বিমানটি ভেঙে পড়েনি! তা হলে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আরও বাড়ত।’’ দুর্ঘটনাগ্রস্ত বিমানটি ব্রিটিশ এয়ারস্পেস ১৪৬ শর্ট-হলো প্লেন ছিল। একটা অংশের মতে ওই বিমানে জ্বালানি ফুরিয়ে গিয়েছিল। তাই মাঝআকাশে আচমকাই পাহাড়ের গায়ে ভেঙে পড়ে। অন্য একটা অংশের দাবি, হঠাত্ করেই আবহাওয়া খারাপ হয়ে যায়। বজ্রবিদ্যুত্-সহ প্রবল ঝড়বৃষ্টির কারণেই ওই দুর্ঘটনা ঘটেছে। তবে, সরকারি ভাবে এখনও বিমান দুর্ঘটনার প্রকৃত কারণ জানানো হয়নি। জানা গিয়েছে, দুর্ঘটনার মিনিট পনেরো আগে পাইলট বিমানে বৈদ্যুতিক গণ্ডগোলের কারণ দেখিয়ে পাবলিক অ্যাড্রেস সিস্টেমে জরুরি অবস্থার কথা ঘোষণা করেন। তার পরেই বিমানটি পাহাড়ের গায়ে ভেঙে পড়ে।

এই সংবাদটি 9 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com