সিলেটে “সম্মিলিত ইসলামী জোটে” কারা?

প্রকাশিত: ৭:২৯ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৯, ২০২০

সিলেটে “সম্মিলিত ইসলামী জোটে” কারা?

 

  1. সিলেট রিপোর্ট : বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের কতিপয় নেতার রহস্যজনক জনক ভূমিকা নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে সিলেটে। জানাগেছে, চলমান কয়েকটি ইস্য নিয়ে ঢাকায় সমমনা (৭টি দল) ইসলামী দলসমুহ এর ব্যানারে মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমীর নেতৃত্বে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলো ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করছেন। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ, খেলাফত আন্দোলন, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস,মুসলিম লীগ,খেলাফত মজলিস, ইসলামী ঐক্যআন্দোলন ও ফরায়েজি আন্দোলন। জমিয়তের মহাসচিব আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমীকে সামনে রেখেই এসব দলসমুহ ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন কর্মসুচি পালন করা হচ্ছে। সম্প্রতি মাওলানা মামুনুল হক বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব হওয়ার পরে দলটি কয়েকটি ইস্যুতে সমৃনা ইসলামী দলসমুহের সাথে আন্দোলনে থাকলেও সিলেটে ভিন্ন চিত্র দেখা যাচ্ছে। সিলেট মহানগর মজলিসের সভাপতি গাজী রহমত উল্লাহ ও সেক্রেটারি এমরান আলম গনবিচ্ছিন্ন কতিপয় ” রাজনৈতিক এতিম” দের নিয়ে ভিন্ন একটি জোট গঠন করে কর্মসুচি পালন করেছেন।

এতে স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে যে,  মাওলানা মামুনুল হকের নেতৃত্বকে সিলেট মহানগরীর ঐ নেতারা কি আদৌ মানছেন? যদি মেনেই থাকেন তাহলে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নেতারা ঢাকায় জমিয়ত নেতা নুর হোসাইন কাসেমীর নেতৃত্বে সমমনাদের নিয়ে আন্দোলন করতে পারলেও সিলেটে ভিন্ন চিত্র কেনো?

সিলেটে “সম্মিলিত ইসলামী জোট” নামক নতুন কোটের পেছনে কাদের ইন্ধন আছে? এই প্রশ্নের জবাবে অনেকেই বলছেন এটি সরকারের বিশেষ তৎপরতার নীলনকশা হতে পারে!  সরকার অনুগত ইসলামী ঐক্যজোট নেতা মুফতি ফয়জিল্লাহর সিলেটে এজেন্ট নিয়োগ করে ঐ জোট গটন করিয়েছেন। তবে কথিত  সম্মিলিত ইসলামী জোটের সমন্বয় কারী মাওলানা আছলাম রাহমানী এনিয়ে মুখ খোলেছেন।  রাহমানী নিজেকে ঐ জোটের উদ্যক্তো দাবি করে সিলেট রিপোর্ট কে জানান, আমরা ইসলামী ঐক্যযজোটের নেতা মুুুফতি ফয়জুল্লাহর নেতৃত্বে কাজ করছি। আমরা সিলেটে সকলকে নিয়েই আন্দোলন করতে চাই।  মাওলানা রাহমানী বলেন, আমার উদ্যোগে গঠিত সম্মিলিত ইসলামী জোটকে কতিপয় লোক ছিনতাই করে লিফলেট ছাপিয়েছে। এই লিফলেটে আমার নাম বাদ দেয়া হয়েছে, আমি এর নিন্দা জানাই। এবং জোটের নাম ব্যবহার না করার জন্য আহবান জানাচ্ছি। এনিয়ে সিলেট সহ ফেসবুকে নানা গুন্জন শুনা যাচ্ছে।  শাহিদ হাতিমি এবিষয়ে ফেসবুকে লিখেন:

সিলেটের দালাল জোট সম্পর্কে যা বললেন ঐতিহ্যবাহী কাজিরবাজার মাদরাসার সহকারী শিক্ষাসচিব ও বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস নেতা মাওলানা মামুন আহমদ (Mamun Ahmed) সাহেব….

(“বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মুফতি মুহাম্মাদ মামুনুল হক Mamunul Haque সাহেব কি এই জনশূন্য দালালসূচী দেখেছেন”?)

মাওলানা Aslam Rahmany ভাই, ইতোমধ্যে ঝরে পড়েছেন!!

প্রিয় সংগঠনের এমন দশা দেখে রক্তক্ষরণ হচ্ছে।।
বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস শায়খুল হাদীস আল্লামা আজীজুল হক রহঃ প্রতিষ্টিত ও কিংবদন্তি মুজাহিদে মিল্লাত প্রিন্সিপাল আল্লামা হাবীবুর রহমান রহঃ স্মৃতিধন্য রাজনৈতিক দল,মরহুম মাওলানা সিরাজুল ইসলাম সিরাজী রহঃ যখন সিলেট মহানগরীর সভাপতি ছিলেন,তখন প্রতিটি ওয়ার্ড শাখায় খুব মজবুত সংগঠন ছিল,বর্তমানে একজন খ্যাত দালাল দ্বারা সংগঠন চলছে,সংগঠনের চলমান অবস্থায় রক্তক্ষরণ হচ্ছে।সচেতন মহল বিষয়টি অবশ্যই বুঝতে পারছেন।

ইতিমধ্যে ঢাকায় জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ও বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস, খেলাফত মজলিস সমন্বয়ে সমমনা ইসলামী দল সমুহের ব্যানারে বিভিন্ন কর্মসূচি চলছে,সিলেটে ও সমমনা দল সমুহ কর্মসূচি নিয়েছিল কিন্তু সিলেটের মহানগর শাখা বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস পৃথক মিছিল আনতে পারবেনা বিধায় কর্মসূচি বাতিল করে,যেহেতু অপর সংগঠন গুলো পৃথক মিছিলের দাবি করেছিল।

রাজনৈতিক সচেতন মহলের জানা লালবাগ কেন্দিক ইসলামী ঐক্যজোট এর কথা,যারা সমমনা দল সমুহ বিশেষত বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস এর মহাসচিব আল্লামা মামুনুল হক এর কট্রর বিরুধী, সিলেটে তাদের নাম সর্বস্য দু ব্যক্তির নামে সংগঠন আছে,যারা সিলেটের রাজনৈতিক অঙ্গনে হাসির খোরাক জোগায়,তাদের সাথে সিলেট মহানগর বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস নেতা সম্মিলিত ইসলামি ঐক্যজোট গঠন করে আজ কোর্ট পয়েন্টে বিশাল জনশুন্য সমাবেশ করে,যেখানে আবার কেন্দ্রীয় এক বিশাল নেতাও উপস্তিত ছিলেন।

দালাল দ্বারা পরিচালিত সংগঠনের কার্যক্রম জনতার হাসির খোরাক হচ্ছে দেখে খুব কষ্ট লাগছে।
সর্বশেষ সিলেটের ইসলামী ঐকজোটের এক মজনু নেতা সম্মিলিত ইসলামী ঐক্যজোট বাতিল করেছেন।এ ঘটনা সবার হাসির খোরাক হলে ও আমাদের দুঃখ লাগা স্বাভাবিক। বাবা তোমার দরবারে সকল পাগলের মেলা।

এই সংবাদটি 301 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com