ভারতীয় আধিপত্যবাদ শক্ত ভাবে আমাদের রাষ্ট্রযন্ত্রে শেকড় গেড়েছে

প্রকাশিত: ৬:৪৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১, ২০২০

ভারতীয় আধিপত্যবাদ শক্ত ভাবে আমাদের রাষ্ট্রযন্ত্রে শেকড় গেড়েছে

আহমদ যাকারিয়া :

ভারতীয় আধিপত্যবাদ কত শক্ত ভাবে আমাদের রাষ্ট্রযন্ত্রে শেকড় গেড়ে বসেছে এটা এখনকার রাষ্ট্রের আচরণে ঠাহর করতে পারবেন আশাকরি; রাসুল সা. এর অপমানে দলমত নির্বিশেষে পুরো দেশ যখন ক্ষুব্ধ, বিক্ষুব্ধ; প্রতিটি মিছিল থেকে যখন আহ্বান জানানো হচ্ছে রাষ্ট্রীয়ভাবে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানোর জন্য তখন রাষ্ট্র কেন জানি ভিন্ন পন্থা অবলম্বন করে শুনেও না শোনার ভান করতেছে।

আমাদের রাষ্ট্রের কর্তা ব্যক্তিরা ইসলামী রাষ্ট্র নয় বরং ধর্ম নিরপেক্ষ রাষ্ট্র এই অজুহাত দেখিয়ে সম্ভবত এখন পর্যন্ত নীরবতা পালন করে যাচ্ছেন। দেশের সতেরো কোটি মানুষের ভেতরের আবেগ ও অনুভূতিকে উপলব্ধি করার চেষ্টা করা হচ্ছে না কেন সেটাই বুঝতে পারছি না। দেশের সতেরো কোটি মানুষের ভেতরের ভাষা বুঝতে কষ্ট হলে বা ব্যর্থ হলে এর খেসারত কিন্তু সুফল বয়ে আনবে না ক্ষমতাসীনদের জন্য।

২০০৮ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত যদিও বা মুখ খুলে অনেক কিছুই বলা যেত বা করা যেত কিন্তু ২০১৪ এর পর থেকে এখন আর সব কথা বা সব দাবী অনায়াসে আমরা উপস্থাপন করতে পারি না বা উপস্থাপন করতে দেওয়া হচ্ছে না; এটা আমরা জানি। তাই বলে আমাদের কলিজার টুকরা আমাদের নবী মোহাম্মদ সা. এর উপর পৃথিবীর ইতিহাসে এই প্রথম রাষ্ট্রীয়ভাবে অপমান করা হচ্ছে অথচ সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানের দেশ বাংলাদেশ থেকে রাষ্ট্রীয়ভাবে এখন পর্যন্ত এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ না জানানো এবং ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূতকে তলব করে এর কারণ সম্পর্কে জিজ্ঞেস না করা বাংলাদেশী মুসলমান হিসেবে আমাদের জন্য এটা ঐতিহাসিক লজ্জার।

ফ্রান্সের পণ্য বয়কট করলে হয়তো আমাদের জৌলুসপূর্ণ জীবনে একটু ভাটা পড়বে কিন্তু ফ্রান্সের অর্থনীতিতে যে আঘাত আসবে এটা তো অস্বীকার করার উপায় নেই। ফ্রান্সকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সংসদে নিন্দা প্রস্তাব পাশ করলে ইউরোপের মোড়লরা হয়তো কষ্ট পাবে ক্ষমতাসীনদের উপর কিন্তু বাংলাদেশী মুসলমানদের হাজারো বছরের বীরত্বের ইতিহাস তো অক্ষুন্ন থাকবে। আর যদি নিন্দা ও প্রতিবাদ না জানানো হয় ক্ষমতার বাঘডোর রক্ষা করার স্বার্থে তবে ক্ষমতা হয়তো রক্ষা হবে কিন্তু সেই ক্ষমতাটা টিকবে বাংলাদেশী মুসলমানদের হাজারো বছরের বীরত্বের ঐতিহ্যকে ধ্বংস করে।

অনেকে বলেন যে, পণ্য বয়কট করা এটা নাকি উগ্রবাদী মানুষদের মনোভাব। এটা নাকি দুই পক্ষের মধ্যে সমঝোতার বিপরীতে দন্ধ নাকি আরো বেশি উসকে দেবে। এটা নাকি ইসলামের মূল শিক্ষা নয়। আমরা বলতে চাই যে, আন্তর্জাতিক বিশ্ব ইসলাম ফোবিয়ায় আক্রান্ত, তারা হলুদ মিডিয়া ব্যবহার করে ইসলামকে দুই ভাবে মানুষের কাছে উপস্থাপন করতে দীর্ঘ দিন ধরে চেষ্টা করে যাচ্ছে। ইসলামের মূল শিক্ষা ধারণকারীদেরকে উগ্রবাদী মুসলমান আর মডারেট মুসলমানদেরকেই তারা উপস্থাপন করতেছে মূল ইসলামের অনুসারী হিসেবে। কারণ এই মডার্ন লোকেরা তাদের জন্য প্রতিদন্ধি নয়। এরা তাদের মিশন বাস্তবায়নের জন্য বাধাও নয়। তাদের মূল টার্গেট ই হলো ইসলামের মূল শিক্ষা ধারণকারী মুসলমানরা। আর এই মুসলমানদেরকে উগ্রবাদী মুসলমান হিসেবে উপস্থাপন করতে পারলেই তাদের যত উপকার। অথচ বিভিন্ন ইস্যুতে পণ্য বয়কট করা ইসলামে প্রমাণিত। এই পণ্য বয়কট করার দুইটা প্রমাণ দেই, তাহলে বুঝতে সুবিধা হবে ইনশাআল্লাহ।

১-
ইসলামের প্রথম যুদ্ধ কী লক্ষে সংঘটিত হয়েছিল? রাসুল সা. কুরাইশদের বাণিজ্যিক কাফেলার উপর হামলা করার জন্যে একদল সশস্র সাহাবিকে কেন পাঠিয়েছিলেন? সিরাত থেকে আমরা কী শিক্ষা পাই?

রাসুলের প্রথম পদক্ষেপই ছিলো, অর্থনৈতিকভাবে কুফুরী শক্তিকে পঙ্গু করে দেয়া৷ কুফফার গোষ্ঠি অর্থনৈতিক ক্ষতি খুব ভয় পায়৷ তাদেরকে অর্থনৈতিকভাবে ধরাশায়ী করাই রাসুলের শিক্ষা৷ আর তা অনেকাংশে সম্ভব আন্তর্জাতিকভাবে তাদের পণ্য ও অন্যান্য আর্থিক বিষয়গুলো বয়কটের মাধ্যমে৷

২- ইসলামের ইতিহাসে ‘বয়কটের জনক’ হিসেবে স্মরণীয় হয়ে আছেন সুমামা ইবনে উসাল রা.। তিনি ইয়ামামার বনু হানীফার অধিবাসী ছিলেন। এক যুদ্ধে বন্দী হয়ে মদীনায় আসেন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের উত্তম আচরণে মুগ্ধ হয়ে কালিমা পড়ে ইসলামের ছায়াতলে আশ্রয় নেন। নবীজীকে বলেন- ‘হে আল্লাহর রাসূল! আল্লাহর শপথ করে বলতেছি যে, কাল পর্যন্ত পৃথিবীতে আপনার মুখের চেয়ে ঘৃণিত কোন মুখ আমার কাছে ছিল না। অথচ আজ আপনার মুখটাই পৃথিবীতে আমার কাছে সবচেয়ে প্রিয় মুখ। আপনার ধর্মের চেয়ে আর কোন ধর্মের প্রতি আমার এত বিদ্বেষ ছিল না। অথচ আজ আপনার ধর্মই আমার কাছে সবচেয়ে প্রিয়। আপনার শহরের মতো আর কোনো শহরকে আমি এত ঘৃণা করতাম না। অথচ আজ আপনার শহর আমার কাছে গোটা পৃথিবীর সবচেয়ে প্রিয় শহর’!

এরপর তিনি নবীজীর কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে উমরাহ করতে মক্কা যান। মক্কাবাসীরা তাকে দেখে বলতে থাকে- সে বেদ্বীন হয়ে গেছো! তিনি বললেন- বরং আমি ইসলাম গ্রহণ করেছি। আল্লাহর কসম! এখন থেকে ইয়ামামা হতে তোমাদের কাছে একটা যবের দানাও পৌঁছাবে না। যতক্ষণ না আল্লাহর রাসূল অনুমতি দেন!

ইয়ামামা মক্কাবাসীর জন্য খাদ্যভাণ্ডার হিসেবে পরিচিত ছিল। সুমামা রা. তাদের সঙ্গে বয়কটের ঘোষণা দিলেন। ইয়ামামা থেকে খাদ্য আসা বন্ধ হয়ে গেলো। ফলে মক্কায় প্রচণ্ড খাবারের অভাব দেখা দিলো। কাফেররা না খেয়ে থাকতে লাগলো। এক পর্যায়ে বাধ্য হয়ে মক্কার একটি প্রতিনিধিদল মদীনায় এসে রাসূলুল্লাহ সা. এর কাছে সুপারিশ প্রার্থনা করলো। রাসূল সা. বয়কট উঠিয়ে নেয়ার নির্দেশ দিলেন। কাফেররা রেহাই পেলো। (বুখারী: ৪০২৪)

মুসলমানরা ইবাদত দাওয়াত অব্যাহত রাখবে, পাশাপাশি কাফেরদের ইতরামিরও কড়া জবাব দেবে, তাদের পণ্য বয়কট করবে। এটাই মাকাসিদে শরীয়াহর সঠিক তাফাককুহ। রাসূল সা. এর প্রতি প্রকৃত ভালোবাসার নিদর্শন।

আর রাষ্ট্রীয়ভাবে বর্জনের প্রমাণও আছে,
যেমন: খুলাফায়ে রাশিদীন থেকে নিয়ে বনু উমাইয়্যার শাসনের অধিকাংশ সময়েই মুসলিমদের নিজস্ব টাকশাল প্রতিষ্ঠিত ছিল না। হয়তো কেউ ভাবেও নি যে নিজেদের আলাদা মুদ্রা দরকার। অবশ্য কেউ ভেবেছে কি না তাতো আল্লাহই ভালো জানেন। ইতিহাসের পাতায় আমরা কোনো উদ্যোগ দেখিনা আরকি।

তখন খলিফা ছিলেন বনু উমাইয়্যার আব্দুল মালিক বিন মারওয়ান। মধ্য এশিয়া থেকে আটলান্টিক পর্যন্ত বিস্তৃত বিশাল সাম্রাজ্যে তখনো চলে রোমান মুদ্রা। সেসময় ঘটনা চক্রে খলিফা আব্দুল মালিক রোমান সম্রাটের কাছে কয়েকটি চিঠি লিখেন। ইসলামী রীতি অনুযায়ী এর শুরুতে কালেমায়ে তাওহিদ ও দরূদ লেখা হয়, অতঃপর খলিফা নিজস্ব বক্তব্য লেখেন।
.
রোমানরা এই রীতির সাথে বহুকাল ধরেই পরিচিত ছিল। কিন্তু কে জানে কেন সেকালের বাদশাহ খলিফাকে লিখল,
“তুমি তোমার চিঠির শিরোভাগে তাওহিদ ও দরূদ লিখো না, কেননা এটা আমাদের কাছে অপছন্দনীয়। যদি তুমি তোমার এই রীতি ত্যাগ না কর তাহলে আমাদের টাকশালে এমন সব দিরহাম ও দিনার ঢালাই করব যেগুলোতে তোমাদের নবী সম্পর্কে এমন সব অপমানকর কথা লিপিবদ্ধ থাকবে যা তোমাদের কাছে অত্যন্ত বিরক্তিকর ঠেকবে।”

তো বাদশাহ হুমকি দিল আরকি। নবীর শানে অবমাননা করে নি তবে করার হুমকি দিল। আজকালকার বান্দারা থাকলে বলত, থাক একটা চিঠির শুরুতে অহেতুক তাওহিদ ও দরূদের কথা লিখে কূটনৈতিক সম্পর্ক নষ্ট করার দরকার কী? অথবা বলত কাফিররা তো চায়ই মুসলমানরা হিংসাত্মক কাজ করুক, আপনি ঐ ফাঁদে পা দেবেন না।

আব্দুল মালিক বিন মারওয়ান এসব কাঁচা কাজের লোক ছিলেন না। জালিম হিসেবে পরিচিতি পেলেও বহু কাল বাদে মুসলিম সাম্রাজ্যকে একই শাসকের অধীনস্ত করার কৃতিত্ব ছিল এই ভদ্রলোকের।

তিনি কী করলেন? তিনি টাকশালই স্থাপন করে ফেললেন। রোমান মুদ্রার প্রচলনই বন্ধ করে দিলেন। প্রথম দফায় তিনি ৫ মাশা ওজনের দিরহাম ঢালাই করেন। তাঁর গভর্নর হাজ্জাজ বিন ইউসুফ এই মুদ্রার এক পিঠে কুল হুওয়াল্লাহু আহাদ অংকিত করেন। সহজ কথায় যেই বিষয়ে খৃষ্টানদের সাথে মূল বিরোধ সেটাকেই মুদ্রিত করা হয়। তিনিই সেই আল্লাহ যিনি এক ও একক, যার না শরীক আছে আর না সন্তান আছে। এর ফলে খ্রিষ্টান ভূখণ্ডে যখন খিলাফাতের মুদ্রা যাবে চাক বা না চাক এই দাওয়াহ বারবার পাওয়াই লাগবে।

খলিফা নির্দেশ জারি করেন যে এখন খারাজ বাবদ আরবি মুদ্রা ছাড়া অন্য কোনো মুদ্রা গ্রহণ করা হবে না। ফলে খুব দ্রুত এই মুদ্রার প্রচলন হয়ে যায়। আর এটা কোনো অবমাননা ঘটানোর আগেই করা হয়েছে, অবমাননা করলে নিঃসন্দেহে উম্মতের সিপাহসালাররা একহাত দেখেই নিতেন।

নবী ﷺ-র নাম মুহাম্মাদ। মানে অনেক প্রশংসিত। আরবের মুশরিকরা দূর্ণাম করতে গিয়ে নতুন নাম দেয় মুযাম্মাত। অধিক নিন্দিত। তবুও তিনি নিন্দিত হননি বরং নন্দিত ই থেকেছেন আজীবন। আল্লাহ তার প্রিয় বন্ধুর এমন নাম রেখেছেন, যার অর্থই হলো “অধিক প্রশংসিত!”

লাকাল হামদু ইয়া আল্লাহ!
হে রাসূল, আপনার জন্য লড়তে পারি!
হে প্রিয়, আপনার জন্য মরতে পারি!

এই সংবাদটি 497 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com