সিলেটে মাওলানা গাছবাড়ীর ডাকে সবাই নাই কেন?

প্রকাশিত: ১০:৫৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৩, ২০২০

সিলেটে মাওলানা গাছবাড়ীর ডাকে সবাই নাই কেন?

অনুসন্ধানী রিপোর্ট: জামেয়া কাসিমুল উলুম দরগাহ মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী আহুত সিলেট কোর্ট পয়েন্টে অনুষ্ঠিতব্য একটি সমাবেশকে কেন্দ্রকরে কয়েক দিন ধরে সিলেটের বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতা কর্মীদের মধ্যে নানা কথা শুনা যাচ্ছে। তিনি সিলেট জেলা হেফাজতের সভাপতির পদে থেকেও গত শুক্রবার কেন্দ্রঘোষিত কর্মসুচিতে কেনো গেলেননা, ভিন্ন ব্যানারে কেনো? এমন প্রশ্ন অনেকেই অনলাইনে দেখাযাচ্ছে।
সম্প্রতি ফ্রান্স সরকারের মদদে মহানবী (স) এর অবমাননাকর কার্টুন প্রকাশের প্রতিবাদে বিশ্বব্যাপী নিন্দার পাশাপাশি বাংলাদেশের আপামর তৌহিদী জনতার ব্যাপক ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। সিলেটে হেফাজতের নেতারা নীরব থাকায় দ্বিতীয় সারির নেতারা হেফাজতের ব্যানার নিয়ে মিছিল করেন। এরই ২ দিন পরেই মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী সিলেটে উলামা পরিষদের নামে একটি সমাবেশের আয়োজনের জন্য বৈঠক বহবান করেন। এতে বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে সম্মিলিত সমাবেশের সিদ্ধান্তের পরের দিন তিনি সুর পাল্টিয়ে বলেন, কোন ব্যানারে নয় আমার আহবানেই প্রোগ্রাম হবে। এটিকে তিনি ” ইলহামী ” প্রোগ্রাম বলে ঘোষণা দেওয়ায় অনেকেই বৈঠক থেকে চলে যান বলে বৈঠক সুত্র সিলেট রিপোর্টকে নিশ্চিত করে।
জানাগেছে, ৩১ অক্টোবর শনিবার। সেদিন গাছবাড়ী হুজুরের ডাকে সবাই সাড়া দিয়ে দরগাহ মাদ্রাসায় হাজির হয়েছিলেন। অনেক আলোচনা পর্যালোচনার পর মুরব্বিদের সম্মানার্থে উলামা পরিষদের ব্যানারে সিলেটের তিন কওমি মাদরাসা বোর্ডের সমন্বয়ে বুধবারের বিক্ষোভ সমাবেশের সিদ্ধান্ত হয়। পরবর্তীতে তিন বোর্ড (এদ্বারা, বেফাক ও কানাইঘাট) থেকে ৩জন করে ৯জন, উলামা পরিষদ থেকে গাছবাড়ি হুজুর সহ ৪ জন এবং ইসলামী দলের প্রতিনিধিদের নিয়ে গঠিত হয় ১৭ সদস্যের বাস্তবায়ন কমিটি। বাদ জোহর বাস্তবায়ন কমিটির সভায় সমাবেশের লিফলেটে তিন বোর্ড থেকে ৯জন, উলামা পরিষদের ৪জন এবং রেংগা মাদরসার মুহতামীম সাহেব সহ ১৪জনের নামে একটি লিফলেট করা এবং শাখসিয়াতের ভিত্তিতে লিফলেটে নামের তালিকার তরতিব করে ছাপানোর সিদ্ধান্ত হয়। এ তালিকায় মাওলানা মুসলেহ উদ্দীন
রাজুর নাম চলে যায় রেংগা ও ভার্থখলা মাদ্রাসার মুহতামিম সাহেবের নিচে। সিদ্ধান্তের পর এককভাবে করিমিয়া কুতুবখানার মাওলানা রেজাউল করিম জালালির প্রস্তাব করেন তিন বোর্ডের তিনজনের নাম সবার উপরে দিয়ে দিতে। এই থেকে গন্ডগোলের সূত্রপাত।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বৈঠকে উপস্থিত একজন শিক্ষক জানান, রাজু সাহেবের নাম উপরে তুলতে জালালি সাহেবের ব্যক্তিগত প্রস্তাবকে অনেকে মানতে নারাজ। এ বৈঠকে রাজু সাহেবও উপস্থিত ছিলেন। তিনিও জালালি সাহেবের প্রস্তাবের সাথে বিভিন্ন যুক্তি পেশ করেন। কিন্তু অন্যান্যরা মুরব্বিদের উপরে মাওলানা রাজুর নাম লিখতে নারাজ। এনিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হলে এই বিষয়টি মিমাংসার জন্য পরদিন রবিবার বাস্তবায়ন কমিটির মিটিং সকাল ১০টায় দরগাহ মাদ্রাসার অফিসে ডাকা হয়।
সকাল ১০টায় মিটিং রেডি। শুরুতেই গাছবাড়ী হুজুর বলেন, আমি গতকালের ঘটনায় বেশ আক্রান্ত। আমি এ নিয়ে বেশ চিন্তা করে করে ঘুমাই। আল্লাহ তায়ালা ইলহামী ভাবে আমাকে ইশারা দেন বুধবারের প্রোগ্রাম আমি এককভাবে আহবান করতে। এখন আমি সেভাবেই করতে চাই। তিনি আরো বলেন, গতকালের সব ফয়সালা এখন আর বাদ। এমতাবস্থায় গতকালের নাম আগপিছ প্রস্তাবকারী এবং সমর্থনকারীরা ছাড়া বাকি উপস্থিত সকল সদস্যরা হতবাক হয়ে যান। আগের দিনের সব মাশওয়ারা ও সিদ্ধান্তকে হুজুরের ইলহামি ইশারার কাছে সমর্পণ করে মিটিংস্থল ত্যাগ করেন। সর্বশেষ এ রিপোর্ট লেখার সময় জানাগেছে ৪ ঠা নভেম্বর কোর্টপয়েন্টে মাওলানা গাছবাড়ীর আহবানে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। তবে এই সমাবেশে সর্বস্থরের জনগনের উপস্থিতির বিষয়টি জানতে হলে সমাবেশ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।
এদিকে, মঙ্গলবার সন্ধায় ভার্থখলা মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মজদ্দুদ্দীনের সভাপতিত্বে হেফাজতে ইসলামের এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত বৈঠকের সিদ্ধান্ত মোতাবেক ১২ নভেম্বর সিলেটে হেফাজতে ইসলামের ব্যানারে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

এই সংবাদটি 2140 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com