সিলেটে হেফাজত বনাম উলামা পরিষদ বিতর্ক: আসল ঘটনা জেনে নিন!

প্রকাশিত: ৭:৫৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৪, ২০২০

সিলেটে হেফাজত বনাম উলামা পরিষদ বিতর্ক: আসল ঘটনা জেনে নিন!

 

মাগফুরুল হক: সিলেটের সর্বজন শ্রদ্ধেয় মুরুব্বি, জামেয়া ক্বাসিমুল উলূম দরগাহ’র শায়খুল হাদিস ও মুহতামিম, হেফাজতে ইসলাম সিলেটের সম্মানিত সভাপতি, উলামা পরিষদ বাংলাদেশের সভাপতি, মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী দা. বা. সম্প্রতি সিলেটের শীর্ষস্থানীয় উলামায়ে কেরাম, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, মাদরাসা সমূহের মুহতামিম, ইমাম ও মুয়াজ্জিন সাহেবদেরকে নিয়ে দরগাহ মাদরাসায় এক পরামর্শ সভার আয়োজন করে সবাইকে এতে অংশগ্রহণের উদাত্ত আহ্বান জানান।

পরদিন সকাল ১০ ঘটিকায় সিলেট দরগাহ মসজিদে উক্ত পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
উক্ত সভায় হযরত মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী সাহেব তাঁর আহবানের উদ্দেশ্য তুলে ধরতে গিয়ে বলেন; আমি চাই ফ্রান্সে রাসুল সা. এর কটুক্তির বিরুদ্ধে সিলেটে বৃহৎ একটি প্রতিবাদ করতে। রাসূল সা. এর অপমান আমার সহ্য হচ্ছে না। তাই একটি সাড়াজাগানো প্রতিবাদ করার খুব ইচ্ছা। আমি পরামর্শ করার জন্য আজ আপনাদেরকে দাওয়াত করেছি, আপনারা পরামর্শ প্রদান করুন।

হযরতের বক্তব্য প্রদানের পর উপস্থিত অনেকেই উনার কথায় সমর্থন জানিয়ে বক্তব্য প্রদান করেন। একপর্যায়ে কথা চলে আসে যে, কীভাবে কোন ব্যানারে হবে সেই প্রতিবাদ।
পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন মতামত আসতে থাকে। উল্লেখযোগ্য সংখ্যক উপস্থিতি মতামত দিতে গিয়ে বলেন; যেহেতু সিলেটে পূর্ব থেকেই উলামা পরিষদ নামে একটি সংঘটন আছে, অতএব প্রতিবাদ সমাবেশ এই নামেই হোক।
দ্বিতীয়ত হেফাজতে ইসলামের নামে সমাবেশের প্রস্তাব আসে।
কেউ কেউ প্রস্তাব করেন, নতুন কোনো ব্যানারে বৃহত্তর সিলেটের উলামায়ে কেরামের মাধ্যমে কমিটি করে সমাবেশ করা যায় কিনা!?

কিন্তু শেষ মতটি (অর্থাৎ নতুন নামে) অনেকেই প্রত্যাখ্যান করেন।

হেফাজত বিষয়েও অনেক বক্তব্য আসে। সিলেটের একটি মাদ্রাসার মুহতামিম সাহেব বলেন, এটি যেহেতু একটি আন্তর্জাতিক ইস্যু। তাই কেন্দ্রীয় হেফাজতের নোটিশ বা অনুমতি ছাড়া হেফাজতের প্রোগ্রাম করা আইনত ঠিক হবে না। তবে যদি হেফাজত কোন ঘোষণা দেয়, তবে তা বাস্তবায়ন করা যেতে পারে।

উলামা পরিষদের ব্যাপারেও অনেক কথাবার্তা হয়। বলা হয়, এখানে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক উলামায়ে কেরাম নেই, পরিসর অনেক ছোট।

শেষ পর্যন্ত আলোচনা পর্যালোচনায় সবার সম্মতিক্রমে বলা হয় যে, উলামা পরিষদের পরিসর বাড়িয়ে নতুন পুরাতন সবাইকে নিয়ে উলামা পরিষদের ব্যানারে প্রোগ্রাম হবে।

প্রোগ্রাম বাস্তবায়নের জন্য তখন সিলেটের তিন বোর্ড (১) আযাদ দ্বীনি এদারা (২) পূর্ব সিলেট এদারা (৩) জাতীয় বোর্ড বেফাক থেকে ৩ জন করে মোট ৯ জন এবং সবগুলো ইসলামি রাজনৈতিক দল থেকে ২ জন সদস্য নিয়ে মোটামুটি ১৭ জনের একটি তালিকা করা হয়।

যোহর পর্যন্ত বৈঠক এভাবেই চলে। যোহরের পর গাছবাড়ী হুজুর দা. বা. সবাইকে খাবার দাওয়াত প্রদান করেন। অতঃপর বাস্তবায়ন কমিটির আলোচনা হওয়ার কথা হয়।

#যোহর পর্যন্ত চলমান বৈঠকে বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ঘটে, যা বিশেষভাবে উল্লেখ করা প্রয়োজন।

হেফাজতের ব্যানারের ব্যাপারে একজন আলিম বলেন যে, হেফাজত তো এখন আমীর বিহীন অবস্থায় আছে। নতুন কমিটি হয়নি। ৫ তারিখের পর হেফাজতের ব্যানারে তেমন কোন বড় প্রোগ্রামও করা হয়নি৷ অর্থাৎ ৫ তারিখের পর হেফাজতের উল্লেখযোগ্য কোনো কার্যক্রম নেই। উনার বক্তব্যের প্রেক্ষিতে তাৎক্ষণিক কোন প্রতিক্রিয়া হয়নি।

কিছু সময় পর (প্রায় ঘন্টাখানেক) আরেকজন মুরুব্বি আলিম পূর্বোক্ত কথার কঠোর জবাব প্রদান করেন। মোটামুটি ৫ মিনিটের বক্তব্যে তিনি হেফাজত ছিল, আছে, থাকবে এরকম বক্তব্য প্রদান করে উপস্থিতজনদের অনেকের সমর্থন গ্রহণ করেন।

পরবর্তীতে ‘হেফাজত বর্তমানে আগের মতো নেই’ বলা সেই আলিম নিজের বক্তব্যের ওযাহাত করার জন্য দাড়িয়ে বলেন যে, তার বক্তব্যের উদ্দেশ্য এরকম নয়, যেভাবে অনেকে বুঝেছেন।

তখন কিছু সংখ্যক মানুষ পাঞ্জাবির হাত উঠিয়ে উনার দিকে তেড়ে এসে কিছুটা দুর্ব্যবহার করেন। তখন পরিস্থিতি শান্ত করার জন্য কিছু মুরব্বি দাড়ালে তারাও একইরকম বাজে অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হন। যাই হোক! এভাবেই যোহর পর্যন্ত প্রোগ্রাম চলে।
আরেকটি বিষয় উল্লেখ্য; বৈঠকে একটি প্রস্তাব এমনও আসে যে, নতুনভাবে একটি আহবায়ক কমিটি গঠন করা হোক এবং জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গার মুহতামিম সাহেবকে এর প্রধান করা হোক।

#যাই হোক, বাদ যোহর পূনরায় যখন বৈঠক শুরু হয়, তখন সবাই ছিলেন না। তখন শুধু প্রোগ্রাম বাস্তবায়নকারী উলামায়ে কিরাম উপস্থিত ছিলেন।

সেখানে কথা আসে যে, লিফলেট, পোস্টারে আহবায়ক হিসেবে কার নাম আসবে, উলামা পরিষদের পক্ষ থেকে?
বলা হলো, গাছবাড়ী হুজুরসহ বাকী তিন বোর্ডের তিন সভাপতির নাম; সর্বমোট চারজনের নাম লিখা হোক।

তিন জনের নাম লিখার পরে যখন বেফাক সভাপতির নাম লেখার পালা আসলো, তখন জেলা সভাপতি হিসেবে গহরপুর মাদ্রাসার মুহতামিম সাহেবের নাম আসলো।

এখানেই নতুনভাবে বিপত্তি ঘটলো।একজন বললেন, উনি জুনিয়র। সুতরাং ভার্থখলা মাদরাসার মুহতামিম সাহেবের নাম বাদ দিয়ে উনার নাম লেখা যায় না।

শুরু হয় নতুন বিতর্ক। কোন উসুলের ভিত্তিতে নাম হবে; বয়স, যোগ্যতা বিবেচনায় আসবে না পদবি বিবেচনায়। চলতে থাকে আলোচনা।

অনেক আলোচনার পর সিদ্ধান্ত হয় যে, প্রত্যেক বোর্ডের ৩ ব্যক্তির নাম লিখা হবে এবং এভাবে সর্বমোট ১২ জন ব্যক্তির নাম লিখা হবে পোস্টারে। এটি করা হয়, যাতে করে ভার্থখলা মাদরাসার মুহতামিম সাহেবের নামটাও চলে আসে।

লেখার দায়িত্বপ্রাপ্ত ছিলেন ভার্থখলা মাদরাসার একজন উস্তাদ। ১২ জনের মধ্যে আহবায়ক মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ীর নামের পরে তিন বোর্ডের সভাপতির নাম লিখার জন্য বলা হয়। লেখক বলেন; জুনিয়র একজনের নাম আগে লিখে পরে মুরুব্বির নাম আমি লিখতে পারবো না। তিনি দাবী করেন, আগে মুরুব্বি আলিমের নাম, তারপর জেলা বেফাক সভাপতির নাম লিখতে হবে।

শুরু হয় নতুন বিতর্ক। শেষ পর্যন্ত উনি না লেখার কারণে আরেকজন নামগুলো লিখেন। (অনেক লম্বা বিতর্ক, সংক্ষেপে বললাম।) যাই হোক মোটামুটি ভাবে সে দিনের বৈঠক শেষ হয়।

#এ_যেন এক নতুন অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হলেন মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী দা. বা.। মসজিদে হট্টগোল, পরবর্তীতে কার নাম আগে আর কার নাম পরে হবে এই নিয়ে বিতর্ক। তিনি ভাবলেন, যদি এই অবস্থা সমাবেশের মঞ্চেও হয়, তবে তো উলামায়ে কেরামের মানসম্মান কিছুই থাকবে না। কারণ অতীতে মঞ্চে মাইক টানা হেচড়ার ঘৃন্য প্রতিযোগিতা উনার অগোচরে ছিল না। যেহেতু তিনি পরামর্শ সভার আহবায়ক। তাই রাতে সিদ্ধান্ত নিলেন, এভাবে প্রোগ্রাম করবেন না।

সমাবেশ বিষয়ে পূণরায় মিটিং হওয়ার কথা ছিল সোমবার। একজন দায়িত্বশীলকে ফোন করে বললেন, আগামীকাল রবিবার সকাল ১০ টায় সবাইকে আসার জন্য বলুন। জরুরী কথা আছে।

পরদিন সকালে সবাই হাজির। গাছবাড়ী হুজুর দা. বা. সমাবেশ বাতিলের কথা না বলে বললেন; গতকাল বৈঠকে যা হয়েছে, তাতে আমি চিন্তিত। তাই আমার খেয়াল, এখন একক ভাবে আমার আহবানে প্রতিবাদ সমাবেশ করবো। তাতেই যারা শরীক হবার হবেন। নতুবা আমি একাই আমার দায়িত্ব আদায় করবো।

তখন একটি দলের একজন দায়িত্বশীল বললেন, তাহলে গতকাল যা সিদ্ধান্ত হয়েছিল সব বাতিল? হুজুর বললেন হ্যাঁ।
সেই রাজনীতিবিদ বললেন; এমন হলে আমরা আপনার সাথে নেই।
হুজুর বললেন; ঠিক আছে। আপনারা আসতে পারেন।

আরেক মাদরাসার দু’জন শিক্ষক হুজুরের সাথে কথা বলতে লাগলেন এভাবে যে, আপনি এভাবে করতে পারেন না। এর মাধ্যমে আমাদের অসম্মান হবে। আমাদেরকে ডেকে এনে এখন বের করে দিচ্ছেন ইত্যাদি নানান কথাবার্তা।

এসব আলোচনার একপর্যায়ে গাছবাড়ী হুজুর দা. বা. কাঁদতে কাঁদতে বলতে লাগলেন; আমি মূলত তোমাদেরকে প্রোগ্রাম বাতিলের সংবাদ দেয়ার জন্য এখানে ডেকেছিলাম। কিন্ত রাতে আমি যখন এই ব্যাপারে ইসতিখারা (হুজুর এখানে ‘ইনাবাত ইলাল্লাহ বাক্য ব্যবহার করেছেন) করি, তখন আমার অন্তর এই দিকে ধাবিত হয় যে, তুমি একা হলেও এই প্রতিবাদ করো।

তাই আমি প্রোগ্রাম বাতিলের সিদ্ধান্ত থেকে ফিরে আসি। তবে গতকালের পরিস্থিতির কারণে এখন আমি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে, সমাবেশ আমার আহবানে করবো, কোন দলের পক্ষ থেকে নয়। প্রয়োজনে আমি একা কোর্ট পয়েন্টে যাবো৷

হুজুরের এই বক্তব্যে পরিবেশ পরিবর্তন হয়ে যায়। উপস্থিত অনেক মাদরাসা বা দলের প্রতিনিধিরা বলেন; হুজুর আপনি যেভাবে প্রোগ্রাম করবেন, তাতে আমরা আপনার সাথে থাকবো।
অতঃপর একজন বলেন; হুজুর দুয়া করে নিন। তখন হুজুর দুয়া করেন।

এভাবে তিন ভাগে বিভক্ত একটি রাজনৈতিক দলের একটি অংশ এবং দুই ভাগে বিভক্ত আরেকটি রাজনৈতিক দলের একাংশ হুজুরের কাছ থেকে চলে যান। বাদবাকি সবাই হুজুরকে পরিপূর্ণ সমর্থন জানান।

এই হলো মূল ঘটনার সারাংশ।
যাকে দুই দিন যাবত বিভিন্ন ভাবে বিকৃত করে উপস্থাপন করা হচ্ছে।

ফেইসবুকে কিছু লোক এব্যাপারে মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ীর উপর বিভিন্ন ভিত্তিহীন অভিযোগ তুলছেন।

#তাদের নিকট জানতে চাই,
১. প্রোগ্রাম তো সবার সিদ্ধান্ত মতে উলামা পরিষদের ব্যানারেই হওয়ার কথা হয়েছিল। সেখানে তো আপনারা ও ছিলেন।তাহলে গাছবাড়ী হুজুর একা হেফাজত বাদ দিয়ে পরিষদ নিয়ে প্রোগ্রাম করছেন এরকম অভিযোগ কেন করছেন?

২.উলামা পরিষদের নামে প্রোগ্রাম করার জন্য গাছবাড়ীর ইলহাম হয়েছে তাই করেছেন।এব্যাপারে কোন প্রমাণ দিতে পারবেন?
উনি বলেছেন একা হলেও যেনো প্রোগ্রাম করেন সে ব্যাপারে দিল ধাবিত হয়েছে,, হেফাজত বাদ দিয়ে উলামা পরিষদের নামে করার জন্য ইলহাম হয়েছে একথা কোথায় পেলেন?

৩.প্রোগ্রাম কি উলামা পরিষদের নামে হয়েছে? প্রোগ্রাম তো গাছবাড়ীর ডাকে হয়েছে । উলামা পরিষদের ডাকে এটা কোথায় পেলেন?
কোন লিফলেটে এমন লিখা আছে দেখাতে পারবেন?
পরিচয় দিতে গিয়ে দরগাহ মাদ্রাসার মুহতামিমের পাশাপাশি উলামা পরিষদের নাম এসেছে, এটা পরিচয়ের জন্য।পরিষদের আহবানে এটা বুঝানোর জন্য নয়।

৪.সকল প্রোগ্রাম যদি হেফাজতের নামেই করতে হয় তাহলে এতোদিন থেকে সমমনা দলের ব্যানারে কেন প্রোগ্রাম হচ্ছে? সেখানে আপনারা এই অভিযোগ করেছিলেন?

৫. যেখানে আন্তর্জাতিক একটি ইস্যুতে হেফাজত কেন্দ্রীয় ভাবে কোন কর্মসূচী দেয়নি।সেখানে নিজেরা সিদ্ধান্ত নিয়ে হেফাজতের নামে প্রোগ্রাম করা কতটুকু যৌক্তিক?
আচ্ছা,হেফাজতের বাহিরে গিয়ে প্রোগ্রাম করলে কি হেফাজতকে দাফন করা হয়ে যায়?
যদি এরকম হয় তাহলে তো অনেক আগেই আপনারা হেফাজত কে দাফন করেছেন।এখন এতো দরদ কেনো?

৬. গাছবাড়ী হুজুর জেলা হেফাজত সভাপতি, অনেকে বলছেন উনি হেফাজতের নামে তো করতে পারতেন।
উনিতো হেফাজতকে মূল না বানিয়ে ইস্যুকে সামনে রেখে প্রোগ্রাম করার চিন্তা করেছেন। হেফাজতের নামে করার ইচ্ছা থাকলে তো হেফাজতের মিটিং আহবান করতেন। সবাইকে ডাকার প্রয়োজন ছিল?

৭.বলা হচ্ছে গাছবাড়ীকে দালালরা ঘিরে রেখেছে, তিনি দালালদেরকে সাথে নিয়েছেন।
শুনুন দরদী ভাইয়েরা,,দরগাহ এরিয়া সিসিটিভি দ্বারা বেষ্টিত,বিচ্ছিন্ন দুই একজন লোক ছাড়া সবাই হুজুরের সাথে ছিলেন।বিগত দুইদিন উলামায়ে কিরামের আসা যাওয়া রেকর্ড আছে।বিশ্বাস না হলে রেকর্ড দেখতে পারেন।
লোকে তো বলে শাপলার গাদ্দার,দালালদের কে আপনারা পূনর্বাসণ দিয়েছেন। কথা কি মিথ্যা?
দালালদের আশ্রয়দাতা গাছবাড়ী না আপনারা?
(প্রশ্নগুলো কোন নির্দিষ্ট দল,বা প্রতিষ্ঠানের প্রতি নয়,, যারা অপপ্রচার করেছেন তাদের প্রতি)

যারা বাস্তবতা জানতে আগ্রহী। তাদের জন্য এই লিখা।
লিখাটি সবার কাছে পৌঁছে দিতে শেয়ার,কপি করতে পারেন। আল্লাহ তায়ালা সবাইকে সহীহ সমজ দান করুন।আমীন।

(লেখকের ফেসবুক আইডি থেকে সংগৃহীত, হুবহু তুলে ধরা হলো)

এই সংবাদটি 717 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com