প্রসঙ্গ সিলেট হেফাজত ও ২১ নভেম্বরের প্রতিবাদ সমাবেশ নিয়ে কিছু কথা

প্রকাশিত: ৮:০৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১০, ২০২০

প্রসঙ্গ সিলেট হেফাজত ও ২১ নভেম্বরের প্রতিবাদ সমাবেশ নিয়ে কিছু কথা

শাহিদ হাতিমী/স্টাফ রিপোর্টার

বিশ্বব্যাপী আলোচিত সংঘটন “হেফাজতে ইসলাম” বাংলাদেশের নাম শোনলেই মুমিন হৃদয়ে ঈমানের তেজ বেড়ে যায়! সাড়াজাগানো এই হেফাজতের নাম শোনলে আজ বদ্বীন বেইমান কাফেরদের অন্তরে শুরু হয়ে যায় জ্বালাতন ও গাত্রদাহ। নাস্তিক ব্লগারদের প্রতিরোধে গড়ে ওঠা হেফাজতের যে কোনো কর্মসূচি পালনে সর্বস্তরের তৌহিদী জনতা নবোদ্যোমে জেগে ওঠেন। বেপরোয়া হয়ে রাজপথে নেমে আসেন। যৌক্তিক দাবির ছোট ছোট সভাগুলো জনসমুদ্রে রুপান্তর হয়ে যায়। এই অনন্য সত্যে ফাটল ধরানোর জন্য সদা তৎপর দেশি বিদেশি নাস্তিক্যবাদীদের এজেন্টরা। জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক নানা অপতৎপরতার প্রতিবাদ জানাতে হেফাজতে ইসলাম শক্ত ভূমিকা পালন করে থাকে!

সম্প্রতি ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় মদদে বিশ্বনবী হযরত মোহাম্মদ মোস্তফা সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের মধ্য দিয়ে গোটা মুসলিম উম্মাহর হৃদয়ে আঘাত করা হয়েছে। বিশ্ব মুসলিম এহেন ন্যাক্কারজনক কর্মকান্ডে প্রতিবাদমুখর হয়ে প্রতিনিয়ত নিন্দা জানিয়ে আসছে। বাংলাদেশের আনাচেকানাচে বিক্ষোভ মিছিলসহ ফ্রান্সের পণ্য বর্জন করার আহবান জানানো হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে হেফাজত বসে থাকতে পারে না। বসে থাকতে পারে না কোনো ঈমানদার। ধৈর্য ধরে রাখাতে পারবে কোনো আদনা মুসলমানও। তাই গোটা বিশ্ব ক্ষোভে ফুঁসে ওঠে। থুথু নিক্ষেপ করে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমিনিয়াল ম্যাক্রের ওপর! সকল ভাষায় নিন্দার ঝড় ওঠে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে। বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় প্রতিবাদ দেখায় হেফাজতে ইসলাম ঢাকা মহানগরী। ফ্রান্স দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচি দিয়ে যথোপযুক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছিল হেফাজত। নবীজির মহব্বতে লাখলাখ জনতা বেরিয়ে ছিলো রাস্তায়। নেতৃত্বে ছিলেন হেফাজতের ঢাকা মহানগরী আমীর ও জমিয়তের মহাসচিব আল্লামা নূর হোসেন কাসিমী হাফিজাহুল্লাহ এবং হেফাজতের মহাসচিব, বরেণ্য শায়খুল হাদীস আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী হাফিজাহুল্লাহ। এরপর ঝিমিয়ে পড়া হেফাজতে আবারও জেগে ওঠে। সাড়া জাগে।

বিশ্বনবী হযরত মোহাম্মদ মোস্তফা সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ভালোবাসায় অস্থির হয়ে ওঠে সিলেট হেফাজত। সিলেটের হেফাজত নেতাকর্মীদের মাঝে প্রতিবাদের আগুন জ্বলে। ফ্রান্সের পণ্য বর্জনসহ ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশের প্রতিবাদ জানাতে তারা নানা শিরোনামে রাজপথে নামলেও হেফাজতের ব্যানারে কর্মসূচি পালন করতে বিপুল আগ্রহী হয়ে ওঠেন! বৈঠক বসে বারবার। কিন্তু একটা বিশেষ শ্রেণির গড়িমসির কারনে তা কার্যকরি হয়ে ওঠছিলো না। এহেন পরিস্থিতিতে তৃণমূল হেফাজতের দাবীতে ভার্তখলা মাদরাসার প্রিন্সিপাল হাফিজ মাওলানা মজদুদ্দীন আহমদ সাহেবকে আহবায়ক করে এবং সিলেট মহানগর জমিয়তের সভাপতি মাওলানা খলিলুর রহমানকে সদস্য সচিব করে উদ্যোগ নেয়া হয় ১২ নভেম্বর এক বিক্ষোভ সমাবেশের! এতে প্রধান অতিথি করা হয়েছিল আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তা’লিম বাংলাদেশের সভাপতি আল্লামা শায়খ জিয়া উদ্দীন সাহেবকে। কিন্তু এই তারিখ ঘোষণার পরপরই একটা শ্রেণি নড়েচড়ে ওঠে। শাহজালাল দরগাহ মাদরাসার মুহতামিম শায়খুল হাদীস মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ীর নেতৃত্বে ৬নভেম্বর আহবান করা হয়েছিল সিলেট জেলা হেফাজতের পরামর্শ সভা। এই দুই ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতকে জটলা মনে করে আয়োজন করা হয় একটি ভিডিও বার্তার। এতে কথা বলেন আল্লামা শায়খ জিয়া উদ্দীন ও আল্লামা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী। গতকাল ৯নভেম্বর সোমবার ছিল সিলেট হেফাজতের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের এক জরুরি সভা। সিলেট নগরীর এদারা ভবনে দুপুর ১২টায় শুরু হওয়া সভায় শুরুতে পবিত্র আল কুরআন থেকে তেলওয়াত করেন শায়খে কৌড়িয়ার সাহেবজাদা ও কৌড়িয়া মাদরাসার মুহতামিম হাফিজ মাওলানা মুহসিন সাহেব।

এরপর ধারাবাহিকভবে ৩ ঘন্টা মিটিং চললেও ভিন্নমত ও অগোছালোভাবে চলছিল সিলেট হেফাজতের জরুরি সভা। কেউ কেউ চাইছিলেন বিগত ২০১৩ সাল থেকে নিয়ে চলতি ২০২০ সাল পর্যন্ত হেফাজতের আয় ব্যায়ের হিসাব দেয়া হউক। কেউবা বলছিলেন সিলেট জেলা হেফাজতের সভাপতি ও সেক্রেটারি নিয়ে নানা কানকথা চলছে, সুতরাং তৃতীয় কোনো ব্যক্তিকে সামনে নিয়ে সিলেট হেফাজতকে পরিচালনা করতে হবে। একপর্যায়ে পক্ষে বিপক্ষে মতামত দেওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য অত্যন্ত বিনয়ী ভাবে অনুরোধ করেন আঙ্গুরা মাদরাসার সিনিয়র মুহাদ্দিস মাওলানা আসাদ উদ্দিন আল মাহমুদ ও সোবহানীঘাট মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা আহমদ কবীর। তাদের অনুরোধের পর কাজিরবাজার মাদরাসার প্রিন্সিপাল, মাওলানা সামীউর রহমান মুসা দাড়িয়ে একটি চমৎকার প্রস্তাব রাখেন। তিনি বলেন- আমাদের সামনে যে তিনজন সর্বজন শ্রদ্ধেয় মুরব্বি রয়েছেন তাদের ওপর বিষয়টি ছেড়ে দেই। তারা ঐ রোমে যেয়ে তিনজন মিলে যে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন আমরা সবাই তা বিনাবাক্যে মেনে নেবো। এতে উপস্থিত সবাই সম্মত হন।

আলহামদুলিল্লাহ। অল্পকিছিক্ষণের মধ্যে মুরব্বি উলামায়ে কেরাম অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ তিনটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। এরপর সালাতুল জোহর আদায় করে সবাইকে হলরুমে আসতে বলেন। পুরো সিলেটের হেফাজত নেতাকর্মীরা মুরব্বিদের সিদ্ধান্ত শোনার জন্য অধীর আগ্রহে উপস্থিত হন। মুরব্বিদের মধ্যে সর্বপ্রথম মাইক হাতে নিয়ে সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করেন জামিয়া দরগাহের মুহতামিম শায়খ মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী। তিনি বলেন আমরা তিনটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি!

১) আগামী ১৪ নভেম্বরের (হেফাজতের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল হওয়ায়) তারিখ পরিবর্তন করে ফ্রান্স কর্তৃক মহানবী হজরত মোহাম্মদ সা. এর অপমানের প্রতিবাদে হেফাজতে ইসলাম সিলেটের নামে ২১নভেম্বর শনিবার, বেলা ২টা থেকে কোর্ট পয়েন্টে বিশাল বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ হবে।

২) এই সমাবেশের একক কোনো আহ্বায়ক নেই, আহবানে থাকবেন ৪জন, যথাক্রমে- দরগাহ মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী, আঙুরা মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা শায়খ জিয়া উদ্দীন, রেঙ্গা মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মুহিউল ইসলাম বুরহান, ভার্থখলা মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা হাফিজ মজদুদ্দীন আহমদ।

৩) হেফাজতে ইসলাম সিলেটের এই বিশাল প্রতিবাদ সমাবেশ সফলের জন্য একটি বাস্তবায়ন কমিটি গঠন করা। ৯সদস্য বিশিষ্ট এই বাস্তবায়ন কমিটির কোনো আহবায়ক বা সদস্যসচিব নেই। সবাই সদস্য। সদস্যদের নাম-
মাওলানা হাফিজ মুহসিন আহমদ
মাওলানা রেজাউল করীম জালালী
মাওলানা খলিলুর রহমান
মাওলানা মশতাক আহমদ খান
মাওলানা ইউসুফ খাদিমানী
মাওলানা এনমাুল হক বহরগ্রামী
মাওলানা ক্বারী সিরাজুল ইসলাম
মাওলানা মুজীবুর রহমান
মাওলানা সিরাজুল ইসলাম

উপরোক্ত সিদ্ধান্ত জানানোর সমাবেশের ৪ আহবায়ক অর্থাৎ দরগাহ মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী, আঙুরা মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা শায়খ জিয়া উদ্দীন, রেঙ্গা মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মুহিউল ইসলাম বুরহান, ভার্থখলা মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা হাফিজ মজদুদ্দীন আহমদ একসাথে লাইভে এসে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এবং সিলেটবাসীকে বিশ্বনবী হযরত মোহাম্মদ মোস্তফা সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মহব্বতে দলমত নির্বিশেষে সবাইকে যথাসময়ে অংশ গ্রহনের আহবান জানান।

১০-১১-২০

এই সংবাদটি 600 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com