২০২০ সালে যেসব আলেম মনীষাকে হারিয়েছি

প্রকাশিত: ৯:২১ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৯, ২০২০

২০২০ সালে যেসব আলেম মনীষাকে হারিয়েছি

ইলিয়াস মশহুদ : জগতে যাদেরই আগমন হবে, প্রস্থান এক সময় তার ঘটবেই। প্রতিদিন কতোশতো মানুষ এই পৃথিবীতে শুভাগমন করছে আবার প্রস্থান করছে, তার হিসাব কে রাখে? এই ‘আসা যাওয়া’র মিছিলে পৃথিবীর কোনো ক্ষতি হয় না। তবে কিছু মানুষ এমন আছেন, যাঁদের আগমনে পৃথিবী আনন্দিত হয় আর প্রস্থানে ব্যথিত হয়। তাঁদের বিদায়ে আর সবার সাথে পৃথিবীও কাঁদে। কারণ, মাওতুল আলিমি মাওতুল আলমে। একজন আলেমের মৃত্যু মানে পৃথিবীর মৃত্যু! তাঁদের মতো মহামানবদের মৃত্যুতে জগতবাসীর হৃদয়ে রক্তকরণ ঘটে। কারণ, তাঁরা ভালোবাসার রাজপথ দিয়ে মানুষের আত্মার আত্মীয় হয়ে মনের গভীরে স্থান করে নিয়েছিলেন। মোমবাতির ন্যায় নিজেকে বিলিয়ে অপরকে আলো বিকিরণ করেছেন। তেমনই একজন আলোকিত মানুষ হলেন আমাদের প্রিয় মুফতি সাহেব হুজুর রাহ.।
বাংলাদেশে ক্রমেই ছায়াদার আলিমদের শূন্যস্থান বেড়েই চলছে। যাদের ঘিরে সমাজের সর্বশ্রেণির মানুষ উপকৃত হতো, দীনের আলোয় আলোকিত থাকতো বাংলার ভূমি, তাদের অনেকেই হারিয়ে যাচ্ছেন একে একে। চলতি বছরও শোকের মিছিল ছিলিআলিমসমাজে। একঝাঁক বরেণ্য আলেম হারিয়ে গেলেন করোনাময় ২০২০ সালে।
এ বছরের মৃত্যুর মিছিলে শামিল হওয়া মানুষের তালিকাটা বেশ লম্বা। প্রিয়জনদের চোখের জলে ভাসিয়ে চিরবিদায় নিয়েছেন তারা। রেখে গেছেন কাজ আর স্মৃতিমুখর দিন। এক নজর দেখে আসা যাক, আমরা যাঁদের হারালাম এ বছর।
📷
শায়খুল হাদিস তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী
সিলেটের ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামেয়া আরাবিয়া ইসলামিয়া উমেদনগর মাদরাসার মুহতামিম ও শায়খুল হাদীস আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী ৫ জানুয়ারি, রবিবার ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।
মৃত্যুর সময় তাঁর বয়স ছিল ৮২ বছর। তিনি সিলেটের জামিয়া ইসলামিয়া আরাবিয়া উমেদনগর মাদরাসায় প্রায় ৫৫ বছর যাবত হাদীসের দরস দিয়েছেন। বৃহত্তর সিলেটের এক ঐতিহ্যবাহী দ্বীনী পরিবারে তার জন্ম। তাঁর পিতা শাইখ আব্দুন-নূর রহ.ছিলেন একজন বিজ্ঞ আলেম ও সমাজ সংস্কারক। তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি এবং হবিগন্জ জেলা সভাপতি হিসেবে দায়ত্ব পালন করেছেন।
তাঁর নানা আল্লামা আসাদুল্লাহ রহ. বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের প্রথম সারির একজন মুজাহিদ ছিলেন। হবিগঞ্জ এলাকার বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও সমাজ সংস্কারকও ছিলেন তিনি। তাঁর মামা মাওলানা মুখলেছুর রহমান ছিলেন শাইখুল ইসলাম হুসাইন আহমদ মাদানী রহ.এর শাগরিদ।
উল্লেখ্য. দেশের বিশিষ্ট এ হাদিস বিশারদ ও রাজনীতিবিদ দীর্ঘদিন অসুস্থ ছিলেন। কিছুদিন আগেও তিনি রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকাৎসাধীন ছিলেন। পরে হার্টের জন্য আইসিজি লাগান তিনি। এর আগে, স্বাস্থ্যজনিত সমস্যার কারণে কয়েকদিন সিলেট মাউন্ট এডোরা হাসপাতালের সিসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী।
📷
মাওলানা আযহার আলী আনোয়ার শাহ
বাংলাদেশের প্রখ্যাত আলেম, কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শহিদী জামে মসজিদের খতিব ও আল জামিয়াতুল ইমদাদিয়া মাদ্রাসার মহাপরিচালক এবং বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ-বেফাকের সহসভাপতি আল্লামা আযহার আলী আনোয়ার শাহ ২৯ জানুয়ারি রাজধানী ঢাকার ইবনে সিনা হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন।
মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও দুই মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন, গুণগ্রাহী ও শুভার্থী রেখে গেছেন।
আল্লামা আনোয়ার শাহ কওমি মাদরাসার সর্বোচ্চ সংস্থা হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশের সদস্য, বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার (বেফাক) সহ-সভাপতি এবং কিশোরগঞ্জ জামিয়া ইমদাদিয়ার মহাপরিচালক ছিলেন।
প্রাজ্ঞ আলেম, সুবক্তা, চমৎকার কোরআন তেলাওয়াত ও মুফাসসিরে কোরআন হিসেবে মাওলানা আনোয়ার শাহ দেশব্যাপী পরিচিত ছিলেন। উপমহাদেশের বিখ্যাত হাদিসবিশারদ ও আধ্যাত্মিক আলেম ও বিশিষ্ট রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব মাওলানা আতহার আলীর (রহ.) সন্তান ছিলেন তিনি।
📷
তাবলিগের মুরুব্বি মাওলানা মোজাম্মেল হক
বাংলাদেশের তাবলিগ জামাতের মুরুব্বি ও কাকরাইল মারকাজের প্রবীণ শূরা সদস্য মাওলানা মোজাম্মেল হক (৯৫) গত ৮ ফেব্রুয়ারি (শনিবার) ১০ টার দিকে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের একটি প্রাইভেট হাসপাতালে তিনি ইন্তেকাল করেন। মাওলানা মুজাম্মেল হক তাবলিগের বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রবীণ আলেম। তিনি মুফতিয়ে আজম ফয়জুল্লাহ রহ.- এর খলিফা।
📷
মাওলানা আবদুল আলীম হুসাইনী
১৮ মার্চ রাতে ইন্তেকাল করেন নারায়ণগঞ্জ ঐতিহ্যবাহী হাজীপাড়া মাদরাসার শাইখুল হাদিস আল্লামা আবদুল আলীম আল-হুসাইনী। তিনি ভারত উপমহাদেশের বিখ্যাত আলেম শাইখুল আরব ওয়াল আজম সাইয়্যিদ হোসাইন আহমাদ মাদানি রহমাতুল্লাহি আলাইহির দীর্ঘ আট বছর সান্নিধ্য পাওয়া একজন সুযোগ্য শাগরিদ ও হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা আহমাদ শফীর সহপাঠী ছিলেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো প্রায় ১০৪ বছর।
দীর্ঘ 30 বছর দেশের বিভিন্ন মাদরাসায় বোখারি শরিফের দরস দিয়েছেন। সর্বশেষ নারায়ণগঞ্জ মারকাযুল উলূম আল ইসলামিয়া হাজীপাড়া মাদরাসায় তের বছর যাবত শাইখুল হাদিস দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৮ মার্চ রাত আনুমানিক ১১টার দিকে তিনি নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন। বার্ধক্যজনিত কারণে দীর্ঘদিন তিনি অসুস্থতায় ভুগতেছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি চার ছেলে, চার মেয়ে এবং অসংখ্য ছাত্র, ভক্ত ও অনুরাগী রেখে গেছেন।
📷
মাওলানা ইসহাক নুর
হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ও ইসলামী ঐক্যজোটের কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা ইসহাক নুর ২৩ মার্চ (সোমবার) বেলা ১টার দিকে চট্টগ্রামের স্থানীয় একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।
মরহুম মাওলানা ইসহাক নুর হেফাজত ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফির মেয়ের জামাতা। তিনি রাঙ্গুনিয়া জামেয়া মেহেরিয়া মাদরাসার পরিচালক ছিলেন। বিদগ্ধ এ আলেম আরবি ও উর্দু ভাষায় বিশেষ পাণ্ডিত্যের অধিকারী ছিলেন।
📷
শায়খুল হাদিস আবদুল হাই
সিলেটের বরেণ্য আলেম ও বাংলাদেশের প্রবীণ আলেমদের অন্যতম শাইখুল হাদিস আল্লামা আবদুল হাই ২৮ মার্চ ইন্তেকাল করেন। নিজ বাড়ির পাশে মারকাজু তালিমিন্নিসা বংশিবপাশা, আজমিরীগঞ্জ, হবিগঞ্জ নামে একটি মহিলা মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করে গেছেন। একইসঙ্গে তিনি সিলেটের একাধিক মাদরাসার শাইখুল হাদিস ছিলেন। বর্ষীয়ান এই আলেম নিজ বাড়িতে বার্ধক্যজনিত কারণে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৯৮ বছর। তিনি পাঁচ ছেলে ও তিন মেয়ে সন্তানসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন গুণগ্রাহী ও ছাত্র রেখে যান।
📷
শায়খুল হাদিস আবদুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ি
বাংলাদেশের প্রাচীন ইসলামি রাজনৈতিক দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সভাপতি, শায়খুল হাদিস আল্লামা আব্দুল মুমিন শায়খে ইমামবাড়ি ৭ এপ্রিল, মঙ্গলবার হবিগঞ্জের নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন।
তিনি দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৫ ছেলে ও ২ মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন, ভক্ত-গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
উপমহাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা শায়খুল ইসলাম হজরত মাওলানা সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানি রাহ.-এর খলিফা ছিলেন তিনি।
📷
মুফতি ড. আবদুল্লাহ বিক্রমপুরী
৮ এপ্রিল বাদ মাগরিব ইন্তিকাল করেন ইসলামি অর্থনীতিবিদ, শাইখুল হাদিস, মুফতি ড. আবদুল্লাহ বিক্রমপুরী। কর্মজীবনে তিনি ঢাকার ইসলামপুরস্থ তাতিবাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব ছিলেন। এ ছাড়া তিনি ঐতিহ্যবাহী মোস্তফাগঞ্জ মাদরাসার প্রিন্সিপাল ও শাইখুল হাদিস ছিলেন। তিনি জামালুল কোরআন মাদরাসা গেন্ডারিয়ায় বোখারির দরস দিতেন। তিনি ছিলেন হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা আহমদ শফীর শীর্ষস্থানীয় খলিফাদের মধ্যে অন্যতম। এ ছাড়া তিনি সেন্ট্রাল শরিয়াহ বোর্ড ফর ইসলামিক ব্যাংকস অব বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ও ট্রাস্ট ব্যাংক শরিয়াহ কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ছিলেন। ৮ এপ্রিল সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে কুর্মিটোলা মেডিকেল হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৬০ বছর।
📷
মাওলানা মুজিবুর রহমান পেশওয়ারী
বরেণ্য ইসলামী রাজনীতিবিদ, প্রবীন আলেম ও প্রখ্যাত বুযুর্গ, খেলাফত মজলিস এবং হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ এর শীর্ষ নেতা আল্লামা সৈয়দ মুজিবুর রহমান পেশোয়ারী আজ ১৪ এপ্রিল মঙ্গলবার ইন্তেকাল করেন।
তিনি একজন পুরনো রাজনীতিবীদ ও বিচক্ষণ চিন্তাশীল আলেম ছিলেন। ইসলাম ও দেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট সকল আন্দোলনে বৃদ্ধ বয়সেও রাজপথে তিনি ছিলেন সোচ্চার। তাঁর ইন্তেকালে দেশবাসি একজন নির্লোভ, নিরহঙ্কার মুখলিছ আলেম ও বরেণ্য রাজনীতিবিদ হারালো। তাঁর শূন্যতা পূরণ হওয়ার নয়। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭০।
📷
মাওলানা আবদুর রহীম বোখারী
১৬ এপ্রিল দুপুর ২টায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন প্রখ্যাত আলেম মাওলানা আবদুর রহীম বোখারি। তিনি জামিয়া ইসলামিয়া পটিয়ার মুহতামিম আল্লামা মুফতি আবদুল হালিম বোখারীর ছোট ভাই। আঞ্জুমানে ইত্তেহাদুল মাদারিস বাংলাদেশের পরিদর্শক ও চকরিয়া ইমাম বোখারি মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক। দার্শনিক রাজনীতিবিদ খতিবে আজম আল্লামা ছিদ্দিক আহমদ রহ.-এর একান্ত শিষ্য, বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টির নেতা, গভীর পাণ্ডিত্যের অধিকারী আলেম ও সুবক্তা ছিলেন তিনি।
মাওলানা আবদুর রহীম বোখারি ডায়াবেটিক ও কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন ডাক্তারের নিবিড় পরিচর্যায় ছিলেন। তার বয়স হয়েছিলো ৭১। তিনি স্ত্রী, তিন ছেলে, চার মেয়ে সন্তানসহ অসংখ্য শাগরিদ ও গুণগ্রাহী রেখে যান।
📷
মাওলানা জুবায়ের আহমদ আনসারী
১৭ এপ্রিল ইন্তেকাল করেন বিশ্বনন্দিত মুফাসসিরে কোরআন, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের সিনিয়র নায়েবে আমির, ব্রাহ্মণবাড়িয়া বেড়তলা জামিয়া রাহমানিয়ার প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল আল্লামা জুবায়ের আহমদ আনসারী। ১৭ এপ্রিল মাগরিবের পূর্বে নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন তিনি।
মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭০ বছর। মাওলানা জোবায়ের আহমদ আনসারী দীর্ঘদিন ধরে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ ছিলেন। বেশ কয়েক ধরে তিনি দেশ-বিদেশে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। উন্নত চিকিৎসার জন্য তিনি দীর্ঘ সময় আমেরিকায় ছিলেন। তার বেশ কয়েকবার অপারেশন এবং কেমোথেরাপি দেওয়া হয়েছিলো। সর্বশেষ গত কয়েক মাস ধরে তিনি নিজ বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। মাওলানা জোবায়ের আহমদ আনসারী বাংলদেশের একজন প্রখ্যাত ওয়ায়েজ। তিনি প্রায় তিন যুগেরও বেশি সময় ধরে তিনি দাওয়াতি ময়দানে কাজ করেছেন। দাওয়াতি কাজে সফর করেছেন- ইউরোপ আমেরিকাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ।
📷
শায়খুল হাদিস মাওলানা আবদুল মুমিত ঢেউপাশী
বৃহত্তর সিলেট বিভাগের শীর্ষ আলেম মাওলানা আবদুল মুমিত (৭২) ঢেউপাশী ২৮ এপ্রিল রাত সাড়ে ৮টার দিকে সিলেট মাউন্ট এডোরা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। মাওলানা আবদুল মুমিত দীর্ঘদিন ধরে ডায়াবেটিসসহ বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন।
মাওলানা আবদুল মুমিত ঢেউপাশী ১৯৪৮ সালে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার চাঁদনীঘাট ইউনিয়নের ঢেউপাশা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭১ সালে বৃহত্তর সিলেটের শীর্ষ কওমি মাদরাসা গহরপুর থেকে দাওরায়ে হাদিস পাশ করেন। পারিবারিক জীবনে ৬ ভাই আর ২ বোনের মধ্যে মাওলানা আবদুল মুমিত ঢেউপাশী ছিলেন সবার বড়। তিনি ৪ ছেলে ও ৩ মেয়ের জনক।
📷
মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী
দেশের প্রবীণ রাজনীতিবীদ, ইসলামী ঐক্যজোট চেয়ারম্যান ও নেজামে ইসলাম পার্টির সভাপতি মাওলানা আব্দুল লতিফ নেজামী ১১ মে রাত ৮টা ২৫ মিনিটের দিকে রাজধানীর কাকরাইলে অবস্থিত ইসলামী ব্যাংক সেন্ট্রাল হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৪।
মৃত্যুকালে তিনি দুই ছেলে ও দুই মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজনসহ অগণিত গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
সাদামাটা জীবনের অধিকারী ও সহজ-সরল মানুষ হিসেবে মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামীর খ্যাতি ছিল। তাকে ইসলামি রাজনীতির জীবন্ত কোষ বলা হয়। নেজামে ইসলামে যোগদানের মধ্য দিয়ে তার রাজনীতি শুরু। ইসলামি আন্দোলনের বিভিন্ন বাঁক ও প্রতিকূল মুহূর্তেও তিনি আক্রমণাত্মক বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর হাসিমুখে দিতেন, এটা তার বিশেষ বৈশিষ্ট্য ছিল। তিনি দৈনিক সরকার পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন।
মুফতি ওবায়দুল মাতিন
ঠাকুরগাঁও গোয়ালপাড়া জামেয়া ইসলামিয়া ইবরাহিমীয়া দারুস সালাম কওমি মাদরাসার মুহতামিম ও শাইখুল হাদিস মাওলানা মুফতি ওবায়দুল মাতিন ৫২ বছর বয়সে ১২ মে ইন্তেকাল করলেন।
দারুল উলুম দেওবন্দ থেকে তিনি দাওরায়ে হাদিস এবং ইফতা সম্পন্ন করেন। খুলনার খালিশপুরের একটি মাদরাসায় মুহাদ্দিস হিসেবে ২ বসর দায়িত্ব পালন শেষে বাংলাহিলি আজিজিয়া আনোয়ারুল উলুম মাদরাসা, হাকিমপুর, দিনাজপুরে যোগ দেন। সেখানে তিনি মুহাদ্দিস ও মুফতি হিসেবে ১৯৯৬ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত কর্মরত ছিলেন। এর পর যোগ দেন ঠাকুরগাঁও, গোয়ালপাড়া দারুসসালাম মাদরাসায়। মৃত্যু পর্যন্ত তিনি সেখানে কর্মরত ছিলেন।
📷
বায়তুশ শরফের পীর মাওলানা কুতুবউদ্দিন
উপমহাদেশের প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন বায়তুশ শরফের পীর মাওলানা কুতুবউদ্দিন ২০ মে, বুধবার দুপুরে ঢাকার একটি হাসপাতালে ইনতিকাল করেন।
তিনি চট্টগ্রাম মহানগরীর দেওয়ানহাট এলাকায় অবস্থিয় বায়তুশ শরফ কামিল মাদ্রাসার সাবেক অধ্যক্ষ ছিলেন। এছাড়াও তিনি ইসলামি ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের প্রতিষ্ঠাকালীন শরীয়া কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ও ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামি ব্যাংকের শরীয়া বোর্ডের চেয়ারম্যান ছিলেন।
📷
মাওলানা মোহাম্মদ আবু তাহের
২০ মে চট্টগ্রাম দারুল মাআরিফের মুহাদ্দিস মাওলানা মোহাম্মদ আবু তাহের ইন্তেকাল করেন। প্রচারবিমুখ এই আলেম অত্যন্ত পান্ডিত্যের অধিকারী ছিলেন। ১৯৬০ সালের ১ জানুয়ারি মহেশখালীর অন্তর্গত কালাগাজির পাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। পাঁচ ভাইবোনদের মধ্যে তিনি ছিলেন সর্বকনিষ্ঠ। ১৯৮০ সালে পটিয়া মাদরাসা থেকে দাওরায়ে হাদিস সম্পন্ন করেন।
তিনি চার ছেলে ও দুই কন্যার জনক। দারুল মাআরিফে শিক্ষক হিসেবে ৩২ বছর শিক্ষকতা করেন। লেখক ও কবি হিসেবে তার বেশ সুনাম রয়েছে। তাকে জামেয়া দারুল মাআরিফের কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।
📷
মাওলানা শাহ তৈয়ব
বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের সহ-সভাপতি, চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জামেয়া ইসলামিয়া আরাবিয়া জিরির মুহতামিম আল্লামা শাহ মোহাম্মদ তৈয়ব হাসপাতালে জায়নামাজে সেজদারত অবস্থায় ২৪ মে রাতে ইন্তেকাল করেন।
মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছেন ৭৯ বছর। তিনি স্ত্রী, তিন ছেলে, পাঁচ মেয়ে, নাতি-নাতনি, অসংখ্য ছাত্র ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
মাওলানা শাহ মোহাম্মদ তৈয়ব ৩৬ বছর ধরে চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী জামেয়া ইসলামিয়া আরাবিয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মুহতামিমের দায়িত্ব পালন করেছেন।
জিরি মাদরাসার মাঠে ঈদের দিন সকালে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর ইমামতিতে মরহুমের জানাজা হয়। এরপর মাদ্রাসাসংলগ্ন কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।
📷
মাওলানা শাহ্ মুহাম্মদ ইদ্রিস
চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার জামিয়া আরাবিয়া নাছিরুল উলুম নাজিরহাট বড় মাদরাসার মোহতামিম ও শাইখুল হাদিস আল্লামা শাহ মুহাম্মদ ইদ্রিস ২৭ মে, বুধবার রাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন।
৭৯ বছল বয়সী এই আলেম বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। বৃহস্পতিবার সকালে আল্লামা শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরীর ইমামতিতে মাদরাসার মাঠে মরহুমের জানাজার নামাজ সম্পন্ন হয়। জানাজা শেষে মাদরাসা সংলগ্ন কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। ২০০৪ সালে আল্লামা শাহ শামসুদ্দিনের রহ.-এর ইন্তেকালের পর থেকে নাজিরহাট মাদরাসার মোহতামিমের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন আল্লামা শাহ্ মুহাম্মদ ইদ্রিস।
📷
মাওলানা আনওয়ারুল হক চৌধুরী
বৃহত্তর সিলেটের সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেম, বালাগঞ্জের হজরত শাহ সুলতান রহ. মাদরাসা এবং মহিলা মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা আনওয়ারুল হক চৌধুরী ১ জুন, সোমবার ভোরে নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন। ওইদিনই দুপুরে সুলতানপুর মাদরাসা প্রাঙ্গণে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। মাওলানা আনোয়ারুল হক চৌধুরী সিলেটে নারী শিক্ষার প্রসারে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছেন। প্রচারবিমুখ, সুন্নতের অনুসারী প্রথিতযশা এই প্রবীণ আলেম আমৃত্যু ওয়াজ-নসিহতের মাধ্যমে আপামর জনতার মাঝে দ্বীনের প্রচার-প্রসারে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছিলেন।
📷
মাওলানা নুরুল ইসলাম হাশেমি
দেশের প্রবীণ আলেম, শায়খুল হাদিস নুরুল ইসলাম হাশেমী গত ২ জুন ভোরে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৯৫ বছর।
তিনি বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এবং বেশ কয়েকটি মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা তিনি।
📷
মাওলানা হেদায়াতুল্লাহ বাশার
বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ মাওলানা হেদায়াতুল্লাহ বাশার ৮ জুন রাত ১১টায় স্ট্রোক করে মিরপুরস্থ বাসভবনে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬২ বছর। তিনি স্ত্রী, ২ পুত্র ও ২ কন্যা রেখে গেছেন। মঙ্গলবার বাদ জোহর মরহুমের জন্মস্থান পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর থানার বড়ইঘনিয়া গ্রামে জানাজার নামাজ শেষে তার দাফন সম্পন্ন হয়।
📷
মাওলানা কেফায়েত উল্লাহ নূর
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মুফতি নূরুল্লাহ রহ.-এর বড় ছেলে মাওলানা কেফায়েত উল্লাহ নূর ১০ জুন, বুধবার রাত ১০টা ৩০ মিনিটে ব্রাহ্মণবাড়িয়াস্থ ল্যাব এইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। মাওলানা কেফায়েত উল্লাহ নূর নরসিংদী রায়পুরা পান্থশালা মাদরাসার মুহতামিম ছিলেন। নরসিংদী ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া এলাকায় অনেক দ্বীনি খেদমতের সঙ্গে জড়িত ছিলেন তিনি। তিনি সুবক্তা হিসেবে বেশ প্রসিদ্ধ ছিলেন।
📷
মাওলানা তোফাজ্জল হোসেন ভৈরবী
জনপ্রিয় বক্তা হাফেজ মাওলানা তোফাজ্জল হোসেন ভৈরবী ১১ জুন বিকাল সাড়ে ৩টায় ইন্তেকাল করেন। তিনি দীর্ঘদিন ভৈরব বাসস্ট্যান্ড জামে মসজিদের খতিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
গ্রামবাংলার জনপ্রিয় বক্তা হাফেজ মাওলানা তোফাজ্জল হোসেন ভৈরবী ১১ জুন, বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৩টায় ইন্তেকাল করেছেন।
হাফেজ মাওলানা তোফাজ্জল হোসেন ভৈরবী হৃদরোগে আক্রান্ত ছিলেন। বেশ কিছুদিন যাবত তিনি অসুস্থ ছিলেন।
তিনি সারাবাংলাদেশে ব্যাপক জনপ্রিয় ইসলামি আলোচক হিসেবে সুপরিচিত ছিলেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ভৈরব বাসস্ট্যান্ড জামে মসজিদের খতিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তার গ্রামের বাড়ি নরসিংদী জেলার রায়পরা উপজেলার রামনগর গ্রামে।
মৃত্যুকালে তিনি তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও দুই মেয়ে, অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখেগেছেন। তার মৃত্যুতে তার ভক্তকুলের মাঝে শোকের ছায়া নেমে আসে।
📷
মাওলানা আব্দুস শহীদ গলমুকাপনী
২৪ জুন বুধবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে সিলেট নগরীর রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। তিনি চার ছেলে, ছয় মেয়েসহ অসংখ্য ছাত্র, ভক্ত ও মুরিদান রেখে গেছেন। আল্লামা গলমুকাপনী গত কয়েক মাস ধরে অসুস্থ ছিলেন। তিনি ব্লাড প্রেসার, ডায়াবেটিসসহ অন্যান্য রোগেও ভুগছিলেন।
আল্লামা আব্দুস শহীদ গলমুকাপনী ঐতিহ্যবাহী জামেয়া দারুস সুন্নাহ গলমুকাপনের মুহতামিম ও শায়খুল হাদিস ছিলেন। এছাড়াও তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ছিলেন। জমিয়তের প্রতীক খেজুর গাছ নিয়ে ১৯৯৬ সালে সিলেট-২ আসন থেকে নির্বাচনও করেছিলেন তিনি।
আল্লামা আব্দুস শহীদ গলমুকাপনী ১৯৪১ সালে সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার গলমুকাপন গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।
📷
মাওলানা আবদুল কুদ্দুস
টুমচর ফাজিল মাদরাসার সাবেক ভাইস প্রিন্সিপাল ও লক্ষ্মীপুর চকবাজার জামে মসজিদের সাবেক খতিব মাওলানা আবদুল কুদ্দুস রহ.। তিনি বিখ্যাত ওয়ায়েজ মাওলানা মুশতাকুন নবীর বাবা। ১৩ জুন, শনিবার ফজরের আগে বার্ধক্যজনিত কারণে ইন্তেকাল করেন তিনি।
📷
শায়খুল হাদিস মুফতি ওবাইদুল হক নঈমী
চট্টগ্রামের ষোলশহরের জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদ্রাসার শায়খুল হাদিস আল্লামা মুফতি ওবাইদুল হক নঈমী (৭৮) গত ৬ জুলাই ইন্তেকাল করেন। তিনি স্ত্রী, ৫ ছেলে এবং অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে যান।
আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আত বাংলাদেশের চেয়ারম্যান আল্লামা মুফতি ওবাইদুল হক নঈমী দেশব্যাপী ইসলামের মূলধারার প্রচার প্রসারে ও দীনি শিক্ষা বিস্তারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন।
📷
শায়খুল ইসলাম শাহ আহমদ শফী
চট্টগ্রামের হাটহাজারীর আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম মাদ্রাসার সাবেক মহাপরিচালক ও হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী গত ১৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় ইন্তেকাল করেন। তিনি পুরান ঢাকার গেণ্ডারিয়ায় আজগর আলী হাসপাতালে বার্ধক্যজনিত কারণে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।
বার্ধক্যজনিত কারণে অনেক দিন ধরে নানা শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী। গত কয়েক বছরে তিনি বেশ কয়েকবার দেশ ও বিদেশের হাসপাতালে চিকিৎসা নেন।
সর্বশেষ গত জুনে শ্বাসকষ্ট, ডায়াবেটিসসহ নানা শারীরিক সমস্যা দেখা দেওয়ায় চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করানো হয় আল্লামা শাহ আহমদ শফীকে।
আল্লামা শাহ আহমদ শফীর জন্ম চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার পাখিয়ারটিলা গ্রামে। তিনি দুই ছেলে ও তিন মেয়ের জনক।
আল্লামা শফীর শিক্ষাজীবন শুরু হয় রাঙ্গুনিয়ার সরফভাটা মাদ্রাসায়। এরপর পটিয়ার আল জামিয়াতুল আরাবিয়া মাদ্রাসায় (পটিয়া জিরি মাদ্রাসা) পড়াশোনা করেন তিনি।
পরে হাটহাজারীর দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম মাদ্রাসা এবং ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ মাদ্রাসায় পড়াশোনা করেন তিনি।
১৯৮৬ সালে হাটহাজারী দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম মাদ্রাসার মহাপরিচালক (মুহতামিম) হিসেবে দায়িত্ব নেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত টানা ৩৪ বছর ধরে তিনি এই দায়িত্ব পালন করেন।
দেশের কওমি মাদ্রাসাগুলোর মধ্যে সবচেয়ে পুরনো এবং বড় মাদ্রাসা হিসেবে পরিচিত হাটহাজারী দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম মাদ্রাসা। এই মাদ্রাসার মহাপরিচালক হিসেবে কওমি মাদ্রাসাগুলোর নেতৃত্ব দিয়ে আসছিলেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী।
📷
বরুণার পীর খলিলুর রহমান হামিদী
আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলামের আমির, বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ (বেফাকের) সহসভাপতি, জামিয়া লুৎফিয়া আনোয়ারুল উলূম বরুণার মুহতামিম ও শায়খুল হাদিস আল্লামা খলিলুর রহমান হামিদী পীর সাহেব বরুণা (৮০) গত ৯ অক্টোবর, শুক্রবার) ২ টায় মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। উল্লেখ্য, খলীফায়ে মাদানী (রহ.) লুৎফর রহমান বর্ণভী (রহ.) এর সুযোগ্য বড় সাহেবজাদা আল্লামা শায়খ খলিলুর রহমান হামিদী পীর সাহেব বরুণা। তিনি মৌলভীবাজারসহ সিলেট অঞ্চলের বিভিন্ন মাদরাসার খেদমতে নিয়োজিত ছিলেন।
📷
মাওলানা সিরাজুল ইসলাম সিরাজী
যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগান অঙ্গরাজ্যের হেম্ট্রামিক সিটিতে বসবাসকারী বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নেতা, সিলেটের কাজির বাজার মাদ্রাসার প্রাক্তন ছাত্র পরিষদের সহ সভাপতি এবং প্রিন্সিপাল হাবীবুর রহমান (রহ:) এর অন্যতম প্রিয় ছাত্র মাওলানা সিরাজুল ইসলাম সিরাজী গত ১৭ অক্টোবর শনিবার দুপুর ১ টায় উনার নিজ বাসায় হার্ট অ্যাটাকে ইন্তেকাল করেন।
উল্লেখ্য, তিনি গত এপ্রিল মাসে স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য আমেরিকায় যান। তার দেশের বাড়ি সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলায়। তিনি একজন রাজনীতিক ও সমাজসেবক ছিলেন। সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতাও করেন।
📷
মাওলানা গোলাম সারোয়ার সাঈদী
ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা উপজেলার আড়াইবাড়ি আলিয়া মাদরাসার অধ্যক্ষ, পীরসাহেব গোলাম সারোয়ার সাঈদী (৫২) ইন্তেকাল করেন। তিনি ২১ নভেম্বর ভোররাত ৪টা ২০ মিনিটে ইন্তেকাল করেন।
📷
মাওলানা রহিম উল্লাহ কাসেমী
হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের সহকারী মহাসচিব প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন মুফতি রহিম উল্লাহ কাসেমী (৬৯) গত ২৫ নভেম্বর রাত ১১টা ৫০ মিনিটে ঢাকার ইবনে সিনা হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন।
📷
শায়খু‍ুল হাদিস ইমদাদুল হক হবিগঞ্জী
প্রখ্যাত শায়খুল হাদীস জাতীয় ঈদগাহের সাবেক খতিব ও বিশিষ্ট লেখক আল্লামা শায়খ ইমদাদুল হক হবিগঞ্জী গত 6 ডিসেম্বর শনিবার ইংল্যান্ডের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন। (ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্নাইলাইহি রাজিউন)।
শায়খ ইমদাদুল হক আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী (রাহ.) এর ছোট ভাই। মরহুমের ছেলে মাওলানা ক্বারী মুদ্দাসসীর আনোওয়ার মৃত্যুর সংবাদটি নিশ্চিত করেছেন।
জানা গেছে, কিছু দিন আগে সিলেটের ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গা মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস হিসেবে নিযুক্ত হন মরহুম শায়েখ ইমদাদুল হক। বুখারী শরিফের আরবী ব্যাখ্যা গ্রন্থ “হিদায়াতুস সারী ইলা দিরাসাতিল বুখারী” সহ অনেক গ্রন্থের লেখক তিনি।
মাওলানা ইমদাদুল হক হবিগঞ্জী ১৫ মার্চ ১৯৪১ ঈসায়িতে হবিগঞ্জ সদর থানার কাটাখালী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ১৩৮৫ হিজরিতে লেখাপড়া সমাপ্ত করেন। কর্মজীবনে মাদরাসার শায়খুল হাদিস হিসেবে অত্যন্ত সুনামের সাথে অধ্যাপনা করেন। তিনি একাধারে একজন বিজ্ঞ আলেম, গবেষক এবং লেখক। বোখারী শরীফের আরবি ভাষ্যগ্রন্থ ‘হিদায়াতুস সারী ইলা সাহিহিল বোখারী’ তাঁর অনন্য কীর্তি। এছাড়াও তিনি আরও বেশ কয়েকটি আরবি, বাংলা গবেষণালব্দ বই লিখেছেন। বাংলাদেশের জাতীয় ঈদগাহের সাবেক খতীব, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের হাদিস গবেষণা অনুষদের অন্যতম একজন সদস্য হিসেবে কাজ করেছেন। পারিবারিক জীবনে তিনি ২ কন্যা ও ৩ পুত্র সন্তানের জনক।
📷
শায়খুল হাদিস নুর হুসাইন কাসেমী
শায়খুল হাদিস নূর হুসাইন কাসেমী গত ১ ডিসেম্বর অসুস্থ হয়ে গুলশান ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি হন। অবস্থার অবনতি হলে ১০ ডিসেম্বর দুপুরে এইচডিইউ ইউনিটে নেওয়া হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১৩ ডিসেম্বর দুপুর ১টায় তিনি ইন্তেকাল করেন।
গত ১ ডিসেম্বর শ্বাসকষ্ট হওয়ায় তাঁকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বৃহস্পতিবার রাতে হঠাৎ শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। এর দুদিন পর না ফেরার দেশে চলে গেলেন তিনি।
নূর হোসাইন কাসেমী হেফাজতে ইসলাম প্রতিষ্ঠার পর থেকে সংগঠনটির ঢাকা মহানগর সভাপতির দায়িত্ব পালন করছিলেন। আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব, বেফাকের সহসভাপতি ও আল-হাইয়া বোর্ডেরও কো-চেয়ারম্যান ছিলেন।
📷
শায়খুল হাদিস রশিদ আহমদ
জামিয়া ইসলামিয়া ইব্রাহিমিয়া উজানি, কচুয়া, চাঁদুপর মাদরাসার শায়খুল হাদিস আল্লামা রশিদ আহমদ রহ. গত ২০ ডিসেম্বর রবিবার বিকাল পোনে ৪ টায় নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন তিনি। মৃত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিলো ৬৫ বছর। আল্লামা রশিদ আহমদ উজানী মাদরাসায় প্রায় 35 বছর শিক্ষকতা করেছেন।
এছাড়াও অনেক আলেমেদীন ইন্তেকাল করেছেন। আল্লাহ তায়ালা তাদের সবাইকে জান্নাতের উঁচা মাকাম দান করুন।

এই সংবাদটি 107 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com