কোয়ারেন্টিনে বৃটেন থেকে আসা সিলেটের ৪১ যাত্রী

প্রকাশিত: ১:৫৩ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৫, ২০২১

কোয়ারেন্টিনে বৃটেন থেকে আসা সিলেটের ৪১ যাত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট :
শুধু দেখলেন স্বজনরা। টুকটাক কথা বলেছেন দূর থেকে। কাছে আসতে পারলেন না কেউ। চোখের সামনেই ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে চলে গেলেন বৃটেন থেকে আসা স্বজনরা। গতকাল দুপুরে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সামনে এ দৃশ্যের অবতারণা ঘটে। দেশে আসা বৃটেন প্রবাসীরাও জানালেন কোয়ারেন্টিনের খবর তারা আগেই জানতেন। বিষয়টি মেনেই তারা দেশে এসেছেন। এবং সরকারের নির্দেশ মতো তারা ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনেই থাকবেন।
তবে, হোটেলে নিয়ে আসতে দেরি হওয়ায় প্রবাসীদের কেউ কেউ ক্ষোভও প্রকাশ করেন। বলেন, পুরো সিস্টেম আরেকটু গতিময় হলে ভালো হতো। এতে যাত্রীদের ভোগান্তি কমবে। বাংলাদেশ সরকারের নিয়ম হচ্ছে- বৃটেন থেকে যাত্রী সিলেটে এলে তাদের ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে নিজ খরচে থাকতে হবে। ১লা জানুয়ারি থেকে নিয়মটি চালু হয়েছে। তবে সরকারের নতুন নিয়ম চালুর পর গতকাল সোমবারই লন্ডনের হিথ্রো বিমানবন্দর থেকে প্রথম ফ্লাইটটি সিলেটে আসে। এই ফ্লাইটে যাত্রী সংখ্যা ছিলেন ৪৭ জন। এর মধ্যে ৪১ জন হচ্ছে সিলেটের যাত্রী। বাংলাদেশ বিমানের বিজি-২০২ ফ্লাইটটি দুপুর ১২টায় যাত্রীদের নিয়ে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। তার আগেই কোয়ারেন্টিনে নেয়ার সব ব্যবস্থা প্রস্তুত রাখা হয়। হোটেল স্টার প্যাসিফিক ও হলিগেইটও প্রস্তুত রাখা হয়। বিমানবন্দরের পার্কিংয়ে ছিল বিআরটিসি বাস। বেলা ১১টায় বিমানবন্দরে গিয়ে দেখা গেল অনেক স্বজন এসেছেন বৃটেন থেকে আসা যাত্রীদের বরণ করতে। স্বজনরা জানালেন- ‘প্রতিবার আমরা তাদের এভাবেই বিমানবন্দরে বরণ করতে আসি। এবার কী হবে জানি না। তবে, দূর থেকে চোখের দেখা দেখতে পারলেই হবে। বুঝবো তারা দেশে এসেছেন।’ অনেকের সঙ্গে যোগাযোগের কোনো সুযোগ নেই। এ কারণে কেউ কেউ অন্তত একটি মোবাইল ফোন দিতে বিমানবন্দরে এসেছেন। এদিকে, অবতরণের পর বিমান থেকে একে একে যাত্রীদের নামানো হয়। দ্রুততম সময়ের মধ্যে তাদের ইমিগ্রেশন শেষ করার পর স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা তাদের করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট ও প্রত্যেক যাত্রীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন। এরপর তাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে দেয়া হয়। বিমানবন্দরের কনকোর্স হলের ফটকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয় বিআরটিসি বাস। ফটক থেকেই যাত্রীদের বিআরটিসি বাসে তোলা হয়। এ সময় কয়েকজন যাত্রী ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তারা বলেন, ফ্লাইট অবতরণ করেছে দুপুর ১২টায়। আর বিআরটিসি বাস যাচ্ছে বেলা আড়াইটায়। প্রায় আড়াই ঘণ্টা যাত্রীদের এয়ারপোর্টে রাখা হয়েছে। এতে যাত্রীদের ভোগান্তি বেড়েছে। বিষয়টিকে আরো সহজ করার দাবি করেন তারা। বলেন, প্রায় ১০ ঘণ্টার আকাশ জার্নিতে যাত্রীরা ক্লান্ত। বিশেষ করে মহিলা ও শিশু যাত্রীরা বেশি ক্লান্ত। সুতরাং নিয়ম যত সহজ হবে তত সহজে তারা হোটেলে যেতে পারবেন। সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ম্যানেজার হাফিজ উদ্দিন আহমদ সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ৪১ জন যাত্রীকেই সরকারের নিয়ম অনুযায়ী প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে নেয়া হয়েছে। বিমানবন্দরে তাদের দ্রুততম সময়ের মধ্যে সেবা দেয়া হয়েছে। এখন কোয়ারেন্টিনের বিষয়টি সিলেটের প্রশাসন দেখবে বলে জানান তিনি। এ ছাড়া অন্য ৬ জন যাত্রীকে নিয়ে বিমানের ওই ফ্লাইট ঢাকায় ফিরে গেছে। এদিকে যাত্রীদের বিআরটিসি বাসে তোলার সময় দূর থেকে স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে পেরেছেন। এ সময় দেশের স্বজনদের কেউ কেউ তাদের দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন। তবে, দেশে ফিরে আসায় তারা খুশি। অন্তত ১৪ দিন পর হলেও স্বজনদের কাছে পাওয়া যাবে। এদিকে বিআরটিসির বাসে করে বৃটেন থেকে আসা যাত্রীদের নিয়ে আসা হয় সিলেটের দরগাহ গেইটস্থ হোটেল স্টার প্যাসিফিকে। ওই হোটেলের চতুর্থ তলায় তাদের জন্য রুম বরাদ্দ রাখা হয়েছে। বিকালে হোটেলের সামনেও ভিড় করেন প্রবাসীদের স্বজনরা। তারা এক নজর দেখা করতে উদগ্রীব ছিলেন। তবে, প্রশাসনের কর্মকর্তারা সতর্ক থাকার কারণে সেটি আর হয়নি। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ওই দু’টি হোটেলে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। হোটেলের নিজস্ব নিরাপত্তার পাশাপাশি পুলিশও নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবে। আর সার্বিক বিষয় তদারকি করবে জেলা প্রশাসন। হোটেল স্টার প্যাসিফিক কর্তৃপক্ষ জানায়, লন্ডন থেকে আগত যাত্রীদের জন্য তাদের হোটেলের পুরো চতুর্থ তলা প্রস্তুত রাখা হয়েছে। হোটেলের নিয়ম অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ প্রতিদিন সকালের নাস্তা ফ্রি খাওয়াবে। আর দুপুর ও রাতের খাবার প্রবাসীদের চাহিদা অনুযায়ী তাদের কক্ষে সরবরাহ করা হবে। খাবারের বিল ও হোটেল কক্ষের বিল প্রবাসীদের পরিশোধ করতে হবে। এই হোটেলের সিঙ্গেল বেডের কক্ষের ভাড়া ৪ হাজার ও ডাবল বেডের কক্ষের জন্য ৫ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। হোটেল হলিগেইট কর্তৃপক্ষ জানান, লন্ডন থেকে আগত প্রবাসীদের জন্য পুরো হোটেল খালি রয়েছে। তারা যে যেখানে চান সেখানে থাকতে পারবেন। সকালের নাস্তা প্রবাসীদের কক্ষে ফ্রি দেয়া হবে। এ ছাড়াও দুপুর ও রাতের খাবার চাহিদা অনুযায়ী কক্ষে সরবরাহ করা হবে। সিলেট জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার (কোভিড-১৯ সেল) শামমা লাবিবা অর্ণব জানিয়েছেন, সিলেটের যে দু’টি হোটেলে প্রবাসীদের রাখা হয়েছে সেখানে হোটেলের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় নিরাপত্তা বাহিনীসহ পুলিশেরও একটি বাহিনী রয়েছে। হোটেলে যাতে তাদের স্বজনরা প্রবেশ না করেন তা তদারকি করতে হোটেলগুলোর সামনে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে।

এই সংবাদটি 59 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com